প্রচ্ছদ অপরাধ

ছাগলে ধান খাওয়ায় ৩ লক্ষ টাকার মাছ নিধন

16
ছাগলে ধান খাওয়ায় ৩ লক্ষ টাকার মাছ নিধন
পড়া যাবে: < 1 minute

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার জামুন্না বগুড়াপাড়ায় ছাগল জমির ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে মা’রপিটের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার জের ধরে প্রতিপক্ষের বি’রু’দ্ধে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগ করে ৩ লক্ষাধিক টাকার মাছ মে’রে ফেলার অ’ভি’যোগ উঠেছে।

শুক্রবার দুপুরে জামুন্না বগুড়াপাড়ার আব্দুল বাছেদের ছেলে আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে ১২ জনকে অ’ভি’যুক্ত করে শাজাহানপুর থানায় অ’ভি’যোগ দায়ের করেছেন। আনোয়ার হোসেন জানান, তিনি আড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক।

মাছ চাষসহ বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করেন। গ্রামের রাস্তা সংলগ্ন তার জমিতে আমন ধান রোপন করেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে একটি ছাগল ওই জমিতে লাগানো ধান গাছ খেতে থাকলে তার কাজের ছেলে কাদা ছিটিয়ে ছাগলটিকে তাড়িয়ে দেয়।

আরও পড়ুন:  ২ নায়িকার সঙ্গে সাহেদের ব্যর্থ প্রেম

ছাগলের গায়ে কাদা ছিটানোকে কেন্দ্র করে জামুন্না প্রামানিকপাড়ার আফছার আলী, আব্দুর রশিদ, জাহিদুর রহমান, মোস্তফা, জাহাঙ্গীর, ফরহাদ ও ফরহাদ সহ ৪-৫ জন লাঠিসোটা নিয়ে এসে তাকেসহ তার ছেলে সুমনকে মা’রধর ও গালিগালাজ করে।

একপর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের ক্ষ’য়’ক্ষতির হু’ম’কি দিয়ে তার মোটরসাইকেল নিয়ে চলে যায়। এঘটনায় ওইদিন থানায় অ’ভি’যোগ দেয়া হয়। থানায় অভিযোগ দেয়ার অ’প’রাধে ক্ষতি করার করার জন্য বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তার পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগ করে সাড়ে তিন লাখ টাকার মাছ মে’রে ফেলেছে তারা। এঘটনায় থানায় পুনরায় অ’ভি’যোগ দেয়া হয়েছে।

এবিষয়ে আফছার আলীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। আব্দুর রশিদের মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার বোন পরিচয়ে এক নারী জানান, তারা অন্য কোথাও আছেন।

আরও পড়ুন:  নকল মাস্ক : শারমিনের তিন দিনের রিমান্ড আবেদন

এবিষয়ে তারা কেউ কথা বলবেন না। গ্রামে গিয়ে খোঁজ নেন। শাজাহানপুর থানার ওসি আজিম উদ্দীন জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্য’বস্থা নেয়া হবে।

বাংলা ম্যাগাজিন ডেস্ক

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।