প্রচ্ছদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক থেকে

ল*জ্জা কেন পাচ্ছ ?? পি*রিয়ডের দাগই তো !

51
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

একজন মা তার সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে লিখেছেন আজ স্কুল থেকে বাসে করে বাড়ি ফেরার সময় আমার মেয়ের প্রথম পি*রিয়ড স্টার্ট হয়। তার স্কা*র্টে দাগ দেখে একটা ছেলে তার কাছে এগিয়ে আসে এবং তাকে এক কোনে সরিয়ে নিয়ে গিয়ে কানে কানে বলে, তার ড্রেস এ দাগ লেগেছে। তারপর নিজের সোয়েটারটা এগিয়ে দিয়ে বলে ওটা কোমরে বেঁধে নিতে।

মেয়েটা অস্বস্তি বোধ করলে সে আশ্বস্ত করে, বলে, ল*জ্জার কিছু নেই, আমারও বোন আছে, আমি জানি এটা স্বাভাবিক। মেয়েটির মা এরপর সেই ছেলের মাকে উদ্দেশ করে লেখেন- সঠিকভাবে পুত্রকে মানুষ করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ!!

আমার পুত্রকেও আমি সঠিক পুরুষ বানাতে চাই, এবং শেখাতে চাই, কাপড়ে কাদা লাগলে যেমন গো*পন করার বিষয় থাকে না, তেমনি পি*রিয়ডের দাগও গোপন করার কোনো বিষয় না।

আরও পড়ুন:  বর্ষা মৌসুমে রেল ভ্রমণ? অবশ্যই সঙ্গে রাখুন বালতি এবং ছাতা !

কোনো পুরুষ যদি এরকম অস্বস্তিতে কোনো মেয়েকে দেখে তাহলে যেন বলে, ল*জ্জা কেন পাচ্ছ ?? পি*রিয়ডের দাগই তো, কাওকে খু*ন তো আর করনি ….। সম্প্রতি ঘটনাটি আমাদের দেশে ভাইরাল হয়েছে।

এমন আরেকটি ঘটনা, কোরিয়ান এক ভদ্রমহিলা কাজ সেরে বাস এ করে বাড়ি ফেরার পথে পি*রিয়ড শুরু হয়। স্কার্ট ভেদ করে র*ক্তের দা*গ বাস এর সিটে লেগে গেলে মহিলা খুব অস্বস্তিতে পড়ে যান।

মহিলার সহযাত্রী ভদ্রলোক পুর ঘটনাটা নোটিশ করেন এবং কিছু না বোঝার ভান করে নিজের হাতে থাকা স্ট্রবেরী জ্যুস-এর কিছুটা মহিলার স্কার্ট এ ফেলে দেন, তারপর সরি বলতে বলতে নিজের ব্লেজারটা এগিয়ে দিয়ে বলেন, ভেজা অংশ কভার করে বাস থেকে নেমে যেতে। পরে কোনো একদিন ব্লেজার ফেরত দিলেই হবে। মহিলা বাড়ি ফেরার পরে বুঝতে পারেন লোকটা আসলে তাকে পি*রিয়ডের ল*জ্জা থেকে বাঁচাতে তার গায়ে জুস ফেলেছিল।

আরও পড়ুন:  ফাহাদ হ’ত্যায় আ’সামির পক্ষে বুয়েটছাত্রের স্ট্যাটাসে আবারও উত্তপ্ত বুয়েট ও সামাজিক মাধ্যম

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট