প্রচ্ছদ শিক্ষাঙ্গন ঢাবির গেস্টরুমে প্রথম বর্ষের ২৪ জন শিক্ষার্থীকে মা*রধর করল ছাত্রলীগ

ঢাবির গেস্টরুমে প্রথম বর্ষের ২৪ জন শিক্ষার্থীকে মা*রধর করল ছাত্রলীগ

18
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলে ‘গেস্টরুমে’ এক সাথে প্রথম বর্ষের ২৪ জন শিক্ষার্থীকে মা*রধরের অভিযোগ উঠেছে হল ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। এতে মারাত্মক আ*হত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন মনিরুল ইসলাম নামে এক শিক্ষার্থী। খবর : বাংলাদেশ প্রতিদিনের

গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। হল সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) আব্দুল্লাহ আল মুমিন আবিরের তত্ত্বাবধানে হলে কয়েক মাস যাবত গেস্টরুম চলছিল। প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনুগত রাখতে একটি কক্ষে দাঁড় করিয়ে তাদের কৈফিয়ত নেওয়ার প্রথাকে ‘গেস্টরুম’ বলা হয়।

ভুক্তভোগী কয়েকজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’কে জানায়, গত বুধবার মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের প্রোগ্রামে প্রথম বর্ষের কিছু ছাত্র নানা কারণে উপস্থিত থাকতে পারেনি। এ কারণে সেদিন রাতে প্রথম বর্ষের সব ছাত্রকে গেস্টরুমে ডেকে দ্বিতীয় বষের্র পলিটিক্যাল ‘ভাইয়েরা’ প্রোগ্রামে উপস্থিত না থাকা ছাত্রদের রাতে রুমে ঘুমাতে নিষেধ করে দেয়।

তাদের রুমমেটদেরও বলে দেয়া হয় যাতে তারা রুমে ঢুকতে না পারে। কিন্তু নিষেধ অমান্য করে রুমে ঘুমাতে গেলে ক্ষি*প্ত হয়ে শনিবার রাতে হলের ২১২ নম্বর রুমে গেস্টরুমে ২৪ জন শিক্ষার্থীকে লোহার র*ড, বাঁশ, স্ট্যা*ম্প দিয়ে এ*লোপাতাড়ি পি*টিয়ে আ*হত করা হয়।

আরও পড়ুন:  বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হ*ত্যাকা*ন্ডে ছাত্রলীগ জড়িত নিয়ে যা বললেন গোলাম রাব্বানি

মা*রধরকারীদের মধ্যে ছিলেন দ্বিতীয় বর্ষের সাইকোলজি বিভাগের সোলেমান রনি, পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগের মাহমুদুল হাসান, স্বাস্থ্য অর্থনীতির রুবেল হোসেনসহ আরও অনেকে। তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন এবং হলের এজিএম আবিরের অনুসারী বলে জানা গেছে।

শিক্ষার্থীরা আরও জানায়, এ সময় নি*র্যাতনের মাত্রা স*হ্য করতে না পেরে সমাজ বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দেখালে তাকে আলাদা কক্ষে নিয়ে আরেক দফা মা*রধর করে দ্বিতীয় বর্ষের অন্তত ১৫ শিক্ষার্থী।

অন্যদিকে, সাংবাদিকরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে মা*রধরকারীরা রড, স্ট্যাম্প সরিয়ে দ্রুত পা*লিয়ে যায় এবং মনির ও আরেক শিক্ষাথীকে পাশের বঙ্গবন্ধু হলের দিকে নিয়ে গিয়ে প্রায় আড়াই ঘণ্টা আ*টকিয়ে রাখে। এরপর সাংবাদিকরা ও জিয়া হল প্রভোস্ট তাদের দুজনকে দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে খুঁজে এনে জি*জ্ঞাসাবাদ করলে তারা সবকিছু অস্বীকার করে।

আরও পড়ুন:  অধ্যক্ষকে লা’ঞ্ছিতের পর টেনে-হিঁ’চড়ে ১৫ ফুট গভীর পুকুরে ডুবালো ছাত্রলীগ কর্মীরা

তবে, ওই দুই শিক্ষার্থীর ঘনিষ্ট দুই বন্ধু জানায়, ‘মনিরের ফেসবুক আইডি থেকে শিবিরের পেইজে লাইক দিয়ে তাকে পুলিশে দেওয়ার ভ*য় দেখিয়েছিল মা*রধরকারীরা। তাই প্রভোস্ট স্যারের সামনে মা*রধরের কথা অস্বীকার করে মনির।’

মা*রধরের বিষয়ে এজিএস আবিরকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘এটি ভুল তথ্য। তারা দুই বন্ধ মা*রামারি করেছিল, আমরা মিটিয়েও দিয়েছিলাম।’ আ*টক রেখে জো*র করে শিবিরের পেইজে লাইক দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, তাদের আ*টক রাখার তথ্য ভুল। লাইক দেওয়ার বিষয়টা আমি জানি না।’

ডাকসুর এজিএস এবং ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, এ ধরনের ঘটনা দুঃখজনক। আমরা হল কর্তৃপক্ষ এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বলে ব্যবস্থা নেবো। কয়েক মাস যাবত গেস্টরুম নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করবো। এদিকে, ঘটনার তদন্তে কমিটি গঠন করে দো*ষীদের শা*স্তির আশ্বাস দিয়েছেন হলের প্রাধ্যক্ষ ড. জিয়া রহমান।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট: