প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব পেয়েছিলাম : কর্নেল ওলি

111
প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব পেয়েছিলাম : কর্নেল ওলি
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহম’দ বীর বিক্রম দাবি করেছেন, তিনি একবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব পেয়েছিলেন। তখন তিনি বিএনপির শীর্ষ স্থানীয় নেতা। আওয়ামী লীগের কাছ থেকে তিনি ওই প্রস্তাব পান। গতরাতে মানবজমিন ফেসবুকে লাইভে অলি আহম’দ এ তথ্য প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের দু’ জন নেতা গিয়েছিলেন তখনকার মিন্টু রোডের শেখ রাজ্জাক আলীর বাসায়। ওই বাসার কাছাকাছি আমা’র বাসাও ছিল। তখন শেখ রাজ্জাক আলী ওই দু’ জনকে আমা’র বাসায় পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। তখন উনি বলেছিলেন অলি আহমেদ ছাড়া কারো পক্ষে বিএনপিতে বিদ্রোহ করে প্রধানমন্ত্রী হওয়া সম্ভব না।

ওই দু’ জন আমা’র বাসায় আসলেন এবং আমাকে প্রস্তাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য। তখন তারা বলল, আওয়ামী লীগের ১৪৩ জন এবং বিএনপির ৪০ জন দস্তখত করেছে। পার্লামেন্টারি ক্যু হবে আমি যেন প্রধানমন্ত্রী হই। প্রথম দিন রাত ১টা থেকে ভোর চারটা পর্যন্ত আলোচনা হল। দ্বিতীয় দিন আলোচনা হল। তৃতীয় দিনে তারা আসলো।

আমি চিন্তা করলাম, আমি হয়তো প্রধানমন্ত্রী হব কিন্তু এটা বেঈ’মানি করা হবে বেগম জিয়ার সঙ্গে। যেটা করা আমা’র পক্ষে ঠিক হবে না। হয়তো আওয়ামী লীগ ওই নির্বাচনে জয়লাভ করলে বিএনপি আমাকে দোষারোপ করবে। আর বিএনপি জয়লাভ করলে আওয়ামী লীগ আমাকে দোষারোপ করবে। আর আমি দালাল হিসেবে চিহ্নিত হব। ঐদিন রাত একটার সময় আমি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে আমি ওনাকে অনুরোধ করি যে আপনি আমাকে ক্ষমা করবেন আমা’র পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর পদ নেয়া সম্ভব না। আমি বেগম জিয়ার সাথে বেঈ’মানি করবোনা।

আরও পড়ুন:  ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে তারেক রহমান’র শোক

অলি আহম’দ বলেন, এর কয়েকদিন পরে বেগম জিয়ার কানে একটা সংবাদ গেল বিএনপির কেউ একজন প্রধানমন্ত্রী হতে চায়। কিন্তু কে হতে চায় তিনি জানেন না। তারপর বেগম জিয়ার অফিসে আমাদের ডা’কা হল। তখন আম’রা ১৬ জন সিনিয়র মন্ত্রী উপস্থিত ছিলাম। তখন বেগম জিয়া বলেন, আপনাদের মধ্যে কেউ যদি প্রধানমন্ত্রী হতে চান তাহলে আমা’র কোন আ’পত্তি নেই। আমি রিজাইন করব। আপনারা প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু আমাকে বেইজ্জতি করবেন না। তখন আমি ওনাকে নিশ্চিত করে বলেছিলাম, আমি যতদিন বেঁচে থাকি ততদিন পর্যন্ত আপনাকে কেউ বাইর করবে না। এর আগে আওয়ামী লীগের সঙ্গে যে আমা’র একটা আলোচনা হয়েছে ওই বিষয়টা আমি ঐদিন প্রকাশ করিনি। কারণ এটার কোন প্রয়োজন ছিল না।

৯৬ সালে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সৃষ্ট সংকটের ব্যাপারে তিনি বলেন, পরবর্তীতে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমা’র সরাসরি আলোচনা হয়েছিল কী’ভাবে নির্বাচন হবে এ প্রসঙ্গে। এটার মধ্যস্থতা করেছিলাম আমি। এ মধ্যস্থতায় আমাদের সিদ্ধান্ত হলো বেগম জিয়াই প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। ওই দল থেকে (আওয়ামী লীগ) পাঁচ জন বিএনপি থেকে পাঁচ জন করে মন্ত্রিসভা’র সদস্য হবে। ৪০ দিনের মধ্যে নির্বাচন হবে। তবে বেগম জিয়াকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়ে এই কথা বলতে হবে।

আওয়ামী লীগ তাদের কথাগু’লি বলার জন্য গু’লিস্তানে মিটিং ঠিক করলেন। আম’রা একদিন আগে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অফিসে উপস্থিত হলাম। আম’রা প্রায় ১৫-১৭ জন মন্ত্রী ওইখানে সারাদিন অ’পেক্ষা করলাম। বেগম খালেদা জিয়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রোগ্রাম নিয়ে গাজীপুর চলে গেলেন। ওইদিন বিকাল চারটায় ঢাকায় ফিরে উনি বললেন আজকে আমি আর ঘোষণা দেবো না।

আরও পড়ুন:  বিএনপির এখন কী করণীয়, বললেন তথ্যমন্ত্রী

আপনারা কাল সকালে আসেন। পরের দিন সকালে আম’রা আবার গেলাম পরে মোটামুটি একটা সিদ্ধান্ত হল বেগম জিয়া কিছুক্ষণের মধ্যে জাতির উদ্দেশ্যে ঘোষণাটা দিবেন। কিন্তু কিছু সময় পর ওনার প্রাইভেট সেক্রেটারি এসে বলল, ওনার প্রাইভেট স্টাফরা কথা বলতে চান। তখন আমি বললাম ম্যাডামের প্রাইভেট স্টাফরা মন্ত্রিসভা’র সদস্যদের জ্ঞান দান করবেন। এটা ঠিক হবে না।

আমি তখন বেগম জিয়ার উদ্দেশে বলেছিলাম, আপনি তাদের অফিসে যান তাদের সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু তখন উপস্থিত কেউই আমা’র কথাকে সম’র্থন করেনি। ওই সময় সেখানকার উপস্থিত অনেকেই বেগম জিয়াকে বললেন আপনার টেলিভিশনে ঘোষণা দেয়ার দরকার নাই। তখন বেগম জিয়া বললেন তিনি টেলিভিশন ঘোষণা দেবেন না।

তারপর আমি ওনাকে বলেছিলাম, আপনি আমাদের মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করে ভুল করেছেন। আপনি এখন যাদের কথা শুনছেন তাদেরকে আপনার মন্ত্রিসভায় নেয়া উচিত ছিল। তখন তিনি বলে উঠলেন, এদের মধ্যে অনেকেই উপযু’ক্ত মন্ত্রিসভা’র। এর ঘন্টাখানেক পরে একটা প্রস্তাব আসলো যে, আওয়ামী লীগকে প্রতিজ্ঞা করতে হবে নির্বাচনের আগে কোন ধ’র্মঘট দেয়া যাবে না। তখন আমি বলেছিলাম এটা হয় না। নির্বাচনে যখন আম’রা যাচ্ছি তখন তো হরতা’লের কোন কথা আসার কথা না। কিন্তু সেদিন কেউই আমা’র কথার সাথে একমত হননি। এই শর্ত ঘিরেই পরে আলোচনা ভেস্তে যায়।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 169
    Shares