প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

খুলনা অঞ্চলের সব খবর

35
সারা খুলনা অঞ্চলের খবর
পড়া যাবে: 112 মিনিটে

দাকোপে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে দুইটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভস্মীভূত

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে দুইটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৯টায় চালনা পৌরসভার পারচালনা ভ্যান স্টেশন এলাকায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তবে কিভাবে আগুনের সূত্রপাত হলো এখনো পর্যন্ত তার কোন সঠিক কারণ জানা যায়নি।

ভূক্তভোগী ব্যবসায়ী মাওঃ আতিকুর রহমান জানায়, শনিবার সকালে তিনি তার ঔষধের দোকান খোলা রেখে বাজারে যান। পরে বেলা ৯টায় একজন তাকে ফোনে আগুন লাগার সংবাদ জানালে সাথে সাথে তিনি চলে আসেন। এসময় আসে পাশের অসংখ্য লোক এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। ততক্ষনে আগুনের লেলিহান শিখায় দোকানের ঔষধসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তবে তার দোকানে বিদ্যুত সংযোগ ছিলো না এবং কিভাবে আগুনের সূত্রপাত হলো তা তিনি জানাতে পারেনি। এতে তার প্রায় ৩ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান। এছাড়া পাশে রফিকুল শেখের চা দোকান পুড়ে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট চালনা পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর দেবাশীষ ঢালী বলেন আগুনে পুড়ে তাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পৌরসভা থেকে ক্ষতিগ্রস্থদের আর্থিক সহযোগীতা করা হবে।

খুলনা প্রেসকাবের সহকারী সম্পাদক মুন্নাকে হুমকি, প্রেসকাবের নিন্দা

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসের অফিস সহায়ক হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে একটি সংবাদ প্রকাশের জের ধরে খুলনা প্রেসকাবের সহকারী সম্পাদক ও বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর.কমের খুলনা ব্যুরো এডিটর মাহবুবুর রহমান মুন্নাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি। যার প্রেক্ষিতে আজ শনিবার সাংবাদিক মুন্না খুলনা থানায় জিডি করেছেন।

এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন খুলনা প্রেসকাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজাসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যরা। এক বিবৃতিতে তারা এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

জিডিতে বলা হয়, হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরে শুক্রবার বাংলানিউজে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। নিউজটির সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া তার একটি ভিডিও প্রচারিত হয়। যেখানে দেখা যায় হাবিবুর রহমান অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাউকে কোপাতে, আবার কাউকে আঙুল কেটে দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন। ভিডিও ও নিউজ প্রচার হওয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে সাংবাদিক মুন্নাকে একাধিকবার হুমকি প্রদান করেন।

সুন্দরবনের কটকা ওসির বিরুদ্ধে কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ, হাসপাতালে ভর্তি 

শরণখোলা প্রতিনিধি

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের কটকা অভায়রণ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি)  বিরুদ্ধে ১২ বছর বয়সী এক কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। শনিবার রাত ১০ টার দিকে নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরকে বাগেরহাটের শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

পরিবারের অভিযোগ, গত ৮ আগষ্ট সুন্দরবনের পারমিট নিয়ে স্বজনদের সাথে সাগরে ইলিশ আহরনের যায় কিশোরসহ ১০ জন । পরে নানা হয়রানী করতে অবৈধ ভাবে অভায়রন্য এলাকায় প্রবেশের দায়ে তাদের আটক করে। ১০ আগষ্ট ৯ জন জেলেকে আটক দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠায়। কিশোর ইমাম হোসেনকে কটকা অভায়রণ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) আবুল কালাম তাকে পরিবারের কাছে হস্থান্তর না করে আবার বনে নিয়ে যায়। সেখানে চারদিন আটকে রেখে খাবার না দিয়ে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে।

চারদিন পর ১৪ আগষ্ট রাত সাড়ে আটটায় শরনখোলা রেঞ্জ অফিসে কিশোর ইমাম হোসেনকে পরিবারের কাছে হস্থান্তর করে বন বিভাগ।

শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসক আরিফুল ইসলাম রাকিব বলছেন,কিশোর ইমামের শরীরে আঘাতের চিহৃ না থাকলেও  সে মানষিক ভাবে ভীতির মধ্যে রয়েছে। আমরা তাকে চিকিৎসা দিচ্ছি।

তবে পূর্ব সুন্দরবন বন বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, সকলের উপস্থিতিতে ছেলেটিকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নির্যাতনের বিষয়টি সঠিক নয়।

পূর্ব সুন্দরবনে হরিণ ধরা ফাঁদ ও  ট্রলার সহ ৭ শিকারী আটক

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের কচিখালী অভয়ারন্যের পক্ষিদিয়া চর এলাকা থেকে বনরক্ষীরা ৭ হরিণ শিকারীকে আটক করেছে। এ সময় তাদের ৪৫০টি হরিণধরা ফাঁদ ও একটি ট্রলার উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল (শনিবার) ভোর ৫টার দিকে জ্ঞানপাড়া টহল ফাঁড়ির বন রক্ষীরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করে।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মোঃ জয়নাল আবেদীন জানান, পাথরঘাটা উপজেলার  জ্ঞানপাড়া এলাকার কুখ্যাত হরিণ শিকারী অর্ধশতাধিক মামলার আসামী মালেক গোমস্তার সহযোগী ইব্রাহীম বিশ্বাস তার লোকজন নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করেছে এমন গোপন সংবাদে জ্ঞানপাড়া টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সাদিক মাহমুদ বন রক্ষীদের নিয়ে বনে তল্লাশি অভিযান চালায়। এক পর্যায়ে ভোর ৫টার দিকে কচিখালীর পক্ষির চর এলাকা থেকে তাদের আটক করতে সক্ষম হয়। আটককৃতরা হচ্ছে, পাথরঘাটা উপজেলার দক্ষিণ চরদুয়ানী গ্রামের মুনসুর আলী বিশ্বাসের পুত্র ইব্রাহীম বিশ্বাস (৩৫), ইব্রাহিমের পুত্র মোঃ ইউনুচ (১৮), মোঃ ইসমাইলের পুত্র মোঃ মোস্তফা (৩০), পাথরঘাটার উপজেলার সায়রাবাদ গ্রামের আঃ হকের পুত্র শুকুর আলী (১৯), উত্তর কাঠালতলী গ্রামের আঃ হামিদের পুত্র ইলিয়াস (৩০), তালুকের চরদুয়ানী গ্রামের হাবিব মোল্লার পুত্র রাজু (২৫) ও মঠবাড়িয়া উপজেলার নলি গ্রামের আঃ ছালাম কাজির পুত্র জাকির কাজি (৩৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার, দুইশত হাত ইলিশের জাল ও দুইশত হাত নাইলনের তৈরী হরিণ শিকারের ফাঁদসহ কয়েকটি দা ও ছুরি জব্দ করা হয়। আটককৃতদের বন আইনে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। আটক হরিণ শিকারি ইব্রাহিম বিশ্বাস প্রায় দুই মাস আগে কটকা অভয়ারণ্য এলাকার ছাপড়াখালি এলাকা থেকে হরিণসহ বন বিভাগের হাতে আটক হয়েছিল বলে তিনি জানান।

খুবিতে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে জাতীয় শোক দিবস পালিত

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এই দেশ, জাতি ও বিশ্ববাসীর কাছে চির অম্লান হয়ে থাকবে: আলোচনা সভায় বক্তারা

খবর বিজ্ঞপ্তি

শনিবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষির্কী জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়। জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচির শুরুতে সকাল ৯টায় শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসন ভবনের সামনে কালোব্যাজ ধারণ, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৯-২০ মিনিটে শোকর‌্যালি শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে স্থাপিত কালজয়ী মুজিব চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার, ডিনবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, ডিসিপ্লিন প্রধানবৃন্দ, প্রভোস্টবৃন্দ, ছাত্রবিষয়ক পরিচালক, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে খুবিতে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- এর ম্যুরালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এরপরপরই শিক্ষক সমিতি, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ), বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বিভিন্ন ডিসিপ্লিন, অফিসার্স কল্যাণ পরিষদ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ এর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের পর উপাচার্য আইন ডিসিপ্লিন কর্তৃক পনেরই আগস্ট উপলক্ষ্যে প্রণীত স্মরণিকা ‘অগ্নিগিরির অস্তাচলে’ এর ডিজিটাল ভার্সন উন্মোচন করেন। সকাল ১১ টায় শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স রুমে (৪র্থ তলা) ‘চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু: বাঙালির কান্ডারি’ বিষয় শীর্ষক বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ওয়েবিনারে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপাচার্য প্রফেরস ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী) ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ইমেরিটাস ড. এ. কে. আজাদ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর আবদুল মান্নান। ওয়েবিনারে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর জীবনব্যাপী সংগ্রামের মূল লক্ষ্য ছিলো বাঙালি জাতির স্বাধিকার, স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও সাধারণ মানুষের আর্থ-সামাজিক মুক্তি। আলোচনাকালে সকল বক্তাই দৃঢ়তার সাথে উল্লেখ করেন পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের আগে দেশে কোনো সরকার বিরোধী আন্দোলন-বিক্ষোভ হয়নি। পনেরই আগস্টের রাতের হত্যাকা- ছিলো একটি পরিকল্পিত নীল নকশা, গভীর ষড়যন্ত্র। এটা ছিলো দেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র, বঙ্গবন্ধু যাতে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশকে আত্মনির্ভরশীল করতে না পারেন সেই দুরভিসন্ধি। সেদিন খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করলেও তাঁর আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু এদেশের জনমানুষের হৃদয়ে, রক্তের সাথে, প্রকৃতির সাথে মিশে আছেন। বঙ্গবন্ধু চিরকাল বেঁচে থাকবেন তাঁর কর্মে, বাংলা, বাঙালি ও বাংলাদেশের হৃদয়ে। তাঁকে হত্যার পর ২১ বছর বাংলাদেশকে ইতিহাসের অন্ধকারের দিকে নেওয়ার চেষ্টা চলে, তাঁর আদর্শকে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়, এমনকি তাঁর নাম নেওয়াও বন্ধ ছিলো। কিন্ত ইতিহাস সবসময় সত্যকে ধারণ করে। বঙ্গবন্ধু শারীরিকভাবে আজ আমাদের মাঝে না থাকলেও তাঁর আদর্শ ও চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটছে। বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরসূরী তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও চেতনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। বক্তারা আরও বলেন, আজ নতুন প্রজন্ম পত্র-পত্রিকা, বই-পুস্তক. ইলেক্ট্রোনিক ও অনলাইনের মাধ্যমে পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের ঘটনা সর্ম্পকে প্রকৃত সত্য জানতে পারছে। পনেরই আগস্টের প্রকৃত ঘটনা, অনেক অজানা তথ্য আজ প্রকাশিত হচ্ছে। আলোচনা সভা থেকে পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মধ্যে এখনও যারা বিদেশে পলাতক আছে তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে এনে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতির কলঙ্ক মোচনের দাবি জানানো হয়। আলোচনা সভার সভাপতি উপাচার্য বলেন, যে আদর্শের মধ্যে সত্য, সুন্দর, ন্যায় ও কল্যাণ নিহিত থাকে সেই আদর্শ কখনও শেষ হয় না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মধ্যে সেই চেতনা ছিলো বলেই তা কখনও ম্লান হবে না, তা চিরকাল এই দেশ, জাতি ও বিশ্ববাসীর কাছে অম্লান হয়ে থাকবে। বঙ্গবন্ধুকে আমরা আমাদের চেতনা ও অনুভূতিতে সবসময়ই পাবো। আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ ও রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস। আলোচনা সভাটি ওয়েবিনারে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। এছাড়া বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল এবং বিশ্ববিদ্যালয় মন্দিরে সকাল সাড়ে ৯ টায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির দোয়া ও মিলাদ মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় এবং মহামারী করোনা ভাইরাসসহ অন্যান্য রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও অসুস্থ্যদের আশু সুস্থতা এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর সাহায্য কামনায় শনিবার ১৫ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির উদ্যোগে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়্ এতে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সভাপিত এড. শফিকুল আলম মনা, নগর সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি ও জেলা সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান। পরিচালনা করেন আসাদুজ্জামান মুরাদ। দোয়া করেন মাওলানা আঃ গফ্ফার। এসময় উপস্থিত ছিলেন শেখ মোশাররফ হোসেন, জাফর উল্লাখ খান সাচ্চু, সিরাজুল ইসলাম, এড. বজলুর রহমান, এড. এসআর ফারুক, রেহানা ঈসা, স ম আঃ রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আঃ রশিদ, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, সিরাজুল হক নান্নু, নজরুল ইসলাম বাবু, রফিক মল্লিক, এড. করিফুল ইসলাম, জোয়াদ্দার খোকন, আবু হোসেন বাবু, কামরুজ্জামান টুকু, মোশারফ হোসেন মফিজ, মেহেদী হাসান দীপু, শাহিনুল ইসলাম পাখী, আঃ রহিম বক্স দুদু, ইকবাল হোসেন খোকন, মুজিবর রহমান, এড. গোলাম মওলা, মোঃ শাহজাহান, সাদিকুর রহমান সবুজ, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, নাজমুস সাকিবম পিন্টু, একরামুল কবির মিল্টন, হাসানুর রশিদ মিরাজ, শামসুজ্জামান চঞ্চল, নাজমুল হুদা সাগর, শরিফুল ইসলাম বাবু, হাফেজ আবুল বাসার, জাফরী নেওয়াজ চন্দন, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, মুজিবর রহমান ফয়েজ, জসিম উদ্দিন লাবু, মোল্লা কবির হোসেন, নাজির উদ্দীন নান্নু, আফসার মাষ্টার, হাফিজুর রহমান মনি, শমসের আলী মিন্টু, বদরুল আনাম খান, জামিরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান বিশ^াস, কামরান হাসান,  আকরাম হোসেন খোকন, ইসহাক তালুকদার, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দীন টারজান, ওহেদুর রহমান দীপু, ইমতিয়াজ আলম বাবু, বাচ্চু মীর, হেমায়েত হোসেন, আসলাম হোসেন, তৌহিদুর রহমান খোকন, মোস্তফা কামাল, জাহিদ কামাল টিটু, হাসনা হেনা,মাহবুব হোসেন, নীরুল কাজী, এনামুল হক সজল, মেহেদী হাসান সোহাগ, এড. মফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম জলি, তারিকুল ইসলাম তরু, এনামুল হাসান ডায়মন্ড, কাজী মাহমুদ আলী, মাজেদা খাতুন, মোঃ আলী, মশিউর রহমান খোকন, আসাদুজ্জামান আসাদ, জিএম রফিকুল হাসান, আলমগীর হোসেন, ডাঃ ফারুক হোসেন, জাকারিয়া লিটন, হুমায়ুন কবির, ম শা আলম, জাবীর আলী, মনিরুল ইসলাম, হেদায়েত হোসেন হেদু, জুলকার হোসেন, শেখ ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

দোয়ার পূর্বে সংক্ষেপ আলোচনায় বক্তারা বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বেশ আগে থেকেই নানাবিধ শারিরীক জটিলতা ভূগছিলেন। মিথ্যা বানোয়াট মামলায় দীর্ঘ কারাবাসের কারণে তাঁর অসুস্থতা আরো গুরুতর হয়েছে। জামিনে কারামুক্তির পূর্ব থেকেই দেশে মহামারী করোনা ভাইরাস প্রভাব বিস্তার শুরু করেছে যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে তাঁর চিকিৎসা কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবেই ব্যাহত হয়েছে। এমনিতেই দেশনেত্রীর যে ধরণের এডভান্সড ট্রিটমেন্ট প্রয়োজন বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ মত দিয়েছেন তা বাংলাদেশে সম্ভব নয়। আর দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা যে কতটা ভঙ্গুর অবস্থায় পৌঁছেছে তা তো করোনাকালে গত কয়েকমাসে জাতি হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন। দোয়া অনুষ্ঠানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে তাঁর সুবিধামত চিকিৎসা সেবা গ্রহণের সুযোগ দিতে সরকারের সদিচ্ছা একান্ত অপরিহার্য। প্রতিহিংসার উর্ধ্বে উঠে দেশনেত্রীকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রে কোন বাঁধা সৃষ্টি না করতে বক্তারা সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

দোয়া অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। এছাড়া মহামারী করোনা ভাইরাসে বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ যারা মারা গেছে তাদের মাগফিরাত কামনা এবং অসুস্থদের জন্য রোগমুক্তি কামনা করা হয়। খুলনা, সাতক্ষীরাসহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ এবং উত্তরাঞ্চলের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর নিকট সাহায্য প্রার্থনা করা হয়।

কুয়েটে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা প্রকৌশল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে। ১৫ আগস্ট শনিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসনিক ভবন, ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়ের বাসভবন ও হলসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

সকাল ১০ টায় ক্যাম্পাসস্থ বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন। এরপর শিক্ষক সমিতি, পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ), অফিসার্স এসোসিয়েশন, ফজলুল হক হল, লালন শাহ হল, খানজাহান আলী হল, ড. এম. এ. রশীদ হল, রোকেয়া হল, অমর একুশে হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, কর্মকর্তা সমিতি (আপগ্রেডেশন), কর্মচারী সমিতি (৩য় শ্রেণী), কর্মচারী সমিতি (৪র্থ শ্রেণী), মাস্টাররোল কর্মচারী সমিতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সকাল ১১ টায় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা (ভার্চুয়াল মাধ্যমে) অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বিশ^বিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন। ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) ড. ইসমাঈল সাইফুল্যাহ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবু ইউসুফ, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. কে এম আজহারুল হাসান, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম ও রেজিস্ট্রার জি এম শহিদুল আলম। পাবলিক রিলেশনস অফিসার মনোজ কুমার মজুমদারের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. পল্লব কুমার চৌধুরী, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মোঃ আব্দুল হাসিব, আইআইসিটি এর পরিচালক প্রফেসর ড. বাসুদেব চন্দ্র ঘোষ, পরিচালক (গবেষণা ও সম্প্রসারণ) প্রফেসর ড. শিবেন্দ্র শেখর শিকদার, ইইই বিভাগের প্রফেসর ড. মহিউদ্দিন আহমাদ, মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া, ইউআরপি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তফা সারোয়ার,  পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) প্রফেসর ড. কাজী এবিএম মহীউদ্দিন, সিএসই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. পিন্টু চন্দ্র শীল, ড. এম এ রশীদ হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. সজল কুমার অধিকারী, অফিসার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ নূরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আক্কাস আলী, কর্মচারী সমিতির (৩য় শ্রেণি) সভাপতি মোঃ মামুনুর রশীদ জুয়েল। আলোচনা সভায় বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ সংযুক্ত ছিলেন।

বাদ আসর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া মাহফিল। উল্লেখ্য, জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কর্মসূচি সরকারের করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি ও অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের জারীকৃত স্বাস্থ্য বিধি মেনে অনুষ্ঠিত হয়।

খুলনায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস শনিবার খুলনায় যথাযোগ্য মর্যাদা এবং ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হয়। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়।

এদিন সকাল সাড়ে আটটায় বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে ১৫ আগস্টে শাহাদত বরণকারী তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিভাগীয় কমিশনার ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, কেএমপির পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, ডিআইজি ড. খঃ মহিদ উদ্দিন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ এবং অংঙ্গসংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে জুম এ্যাপের মাধ্যমে দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। জুম এ্যাপের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, কেএমপির পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবিরসহ সরকারি বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা। পরে শিশু একাডেমির চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ঋণ বিতরণ করা হয়। এছাড়া ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে সকল সরকারি, বেসরকারি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দিবসের সাথে সংগতিপূর্ণ আলোচনা সভা, কবিতা পাঠ, রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, চিত্র প্রদর্শনী, হামদ ও নাত প্রতিযোগিতা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

কেসিসি’র উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা, বৃক্ষরোপণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। সকালে মেয়র নগর ভবন চত্ত্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে বাদ জোহর কালেক্টরেট জামে মসজিদ, পুলিশ লাইন জামে মসজিদ, টাউন জামে মসজিদসহ নগরীর বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া বিভিন্ন মন্দির, গীর্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মাসব্যাপী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গ্রোথসেন্টারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে শোক দিবসের পোস্টার স্থাপন এবং এলইডি বোর্ডের মাধ্যমে জাতীয় শোক বিষয়ক প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এছাড়া জেলা প্রশাসনের উদ্যেগে দুই হাজার ৭৫ সংখ্যক বার পবিত্র কোরআন শরীফ খতম এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা সিভিল সার্জন অফিসের উদ্যোগে স্কুল হেলথ কিনিকে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করে। জেলা নির্বাচন অফিস জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বেতার খুলনা কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরআন তেলাওয়াত, হামদ-নাত, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। দিবসটি উপলক্ষে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর ও সমাজসেবা অধিদপ্তর তাদের অধীন জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, সরকারি শিশু পরিবারসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরআন তেলাওয়াত, আলোচনা সভা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, হামদ-নাত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় শোক দিবসে স্থানীয় সংবাদপত্রগুলো বিশেষ সংখ্যা বা ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে এবং বাংলাদেশ বেতার খুলনা বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করে। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করে। খুলনার উপজেলাগুলোতেও অনুরূপ কর্মসুচি পালিত হয়।

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারের মধ্য দিয়ে সকল বাধা অতিক্রম করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে : সিটি মেয়র

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, ‘পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিলো। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি ভেবেছিলো বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আর কোনো দিন খুনিদের বিচার হবে না, কিন্তু তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। এ মাটিতেই খুনিদের বিচার হয়েছে, সকল বাধা অতিক্রম করে দেশও আবার এগিয়ে যাচ্ছে। একই সাথে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত যেসকল খুনি, বিদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়ে পলাতক আছে, তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে অবিলম্বে ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি জানান তিনি।’ গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়ন (কেইউজে) এর উদ্যোগে প্রেস কাব চত্বরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়নের সভাপতি মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। পরিচালনা করেন প্রচার ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক এস এম নূর হাসান জনি। সভার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ই আগস্টের নিহত সকল শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, বিএফইউজে’র নির্বাহী সদস্য ও ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. সাঈয়েদুজ্জামান স¤্রাট, সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু, শেখ আবু হাসান, এস এম জাহিদ হোসেন, মো. সাহেব আলী।

সভা শেষে ১৫ই আগস্টের নিহত সকল শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিল শেষে তবারক বিতরণ করা হয়। এর আগে সকালে খুলনা প্রেস কাবস্থ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন নেতৃবৃন্দ। এছাড়া দিনব্যাপী কোরআন খানী ও বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ সম্প্রচার করা হয়।

কারবালার হত্যাকা-ের পরে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ঘটনা ছিলো ইতিহাসের জঘন্য ও ঘৃণিত অধ্যায়: এস এম কামাল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তিকে বাধাগ্রস্থ করতে ষড়যন্ত্র করেছিলো। সেনাবাহিনীর উচ্চাভিলাশী সদস্য জিয়া, মোস্তাক, তাহের ঠাকুর, শফিউল আলম প্রধান গংয়েরা পশ্চাৎপদ রাজনীতির চিন্তা চেতনার মাধ্যমে ষড়যন্ত্র করে বাংলাদেশকে পাকিস্তানী ধারায় ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিলো। সেকারনেই ষড়যন্ত্রকারীরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। কারবালার হত্যাকা-ের পরে ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা ঘটনা ছিলো ইতিহাসের জঘন্য ও ঘৃণিত অধ্যায়। তারা ভেবে ছিলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারলে স্বাধীন বাংলাদেশ তাদের নিয়ন্ত্রনে থাকবে। কিন্তু জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ষড়যন্ত্রকারীদের স্বপ্ন ব্যর্থ হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠন শুধু বিশ্বস্ত নেতাকর্মী তৈরী করেনি, তারা মোস্তাক ও শফিউল আলমের মত বেঈমানদেরও তৈরী করেছিলো। সেকারনেই মোস্তাক শফিউল আলম প্রধানরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার দু:সাহস পেয়েছিলো। জিয়া, মোস্তাক, শফিউল আলম প্রধান, তাহের ঠাকুরেরা বাংলাদেশকে শতবর্ষ পিছিয়ে দিয়েছে। এখনো সহযোগী সংগঠনের মাধ্যমে অনেক মোস্তাক শফিউল আলম প্রধানের জন্ম হচ্ছে, তাদেরকে চিহ্নিত করে প্রতিহত করতে হবে। তিনি আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সাথে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের পরাজিত করেছেন। বাংলাদেশে একই সাথে বুলবুল, করোনা ও বন্যার মত প্রাকৃতিক দুর্যোগকে শক্ত হাতে মোকাবেলা করে সারা বিশ্বে নন্দিত হয়েছেন। যা বিশ্ববাসী অনুকরণ করছে। তিনি আরো বলেন, এতবড় বৈশ্বিক দুর্যোগকে যখন শেখ হাসিনা মোকাবেলা করতে সমর্থ হয়েছেন, তখন, সাহেদ, স¤্রাটের মত মানুষদের আওয়ামী লীগের কোন প্রয়োজন নেই। আওয়ামী লীগে পরীক্ষিত ত্যাগী নেতাকর্মীরা থাকলেই জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে এগিয়ে আসতে হবে।

গতকাল শনিবার বিকাল ৫টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার অধিকারী, জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোল্লা জালাল উদ্দিন, এ্যাড. কাজী বাদশা মিয়া, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মোঃ সাইফুল ইসলাম, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহমেদ আশা, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রণজিত কুমার ঘোষ, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আসাদুজ্জামান রাসেল, জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইমরান হোসেন। সভাপরিচালনা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মল্লিক আবিদ হোসেন কবির, বিএমএ সালাম. নূর ইসলাম বন্দ, সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, শেখ মোঃ ফারুক হোসেন, কামরুজ্জামান জামাল, এ্যাড আইয়ুব আলী শেখ, এ্যাড. নব কুমার চক্রবর্তী, শ্যামল সিংহ রায়, এ্যাড ফরিদ আহমেদ, জোবায়ের আহমেদ খান জবা, এ্যাড খন্দকার মুজিবর রহমান, এ্যাড অলোকা নন্দা দাশ, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু, বিরেন্দ্র ন্থা ঘোষ, কামরুল ইসলাম বাবলু, শেখ নূর মোহাম্মদ, কাউন্সিলর ফকির মোঃ সাইফুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, শেখ আনোয়ার হোসেন প্রমূখ।

শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ৩ কিশোর হত্যা, ৫ কর্মকর্তা রিমান্ডে

যশোর প্রতিনিধি

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে নির্যাতন করে তিন কিশোরকে হত্যা ও ১৫ জনকে আহত করার মামলায় গ্রেফতার পাঁচ কর্মকর্তাকে ভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও এই ঘটনায় পাঁচ সাক্ষী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

শনিবার (১৫ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহাদী হাসান তিন কর্মকর্তাকে পাঁচ দিন করে ও অপর দুই কর্মকর্তাকে তিন দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইনসপেক্টর রকিবুজ্জামান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, দুপুর আড়াইটার দিকে গ্রেফতার শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের পাঁচ কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির করা হয়। প্রথমে বিচারক ১৭ আগস্ট শুনানির দিন দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে রিমান্ড শুনানি হয়েছে। শুনানি শেষে তিন জনকে পাঁচ দিনের এবং দুই জনের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

কোর্ট জিআরও কামরুজ্জামান জানিয়েছেন, গ্রেফতার পাঁচ কর্মকর্তার মধ্যে তত্ত্বাবধায়ক (সহকারী পরিচালক) আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক (প্রবেশন অফিসার) মাসুম বিল্লাহ ও ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর একেএম শাহানুর আলমকে পাঁচ দিনের এবং সাইকোসোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান ও কারিগরি প্রশিক্ষক ওমর ফারুককে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

শোক দিবসে বুকে সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ

স্টাফ রিপোর্টার

বুকে সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন রূপসা উপজেলার নৈহাটী কালীবাড়ি বাজারের চা বিক্রেতা আব্দুর রাজ্জাক খান। তিনি খুলনার রূপসা উপজেলার নেহালপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং নৈহাটী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকীতে সকালে তিনি বুকের চামড়ায় সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ করে অনায়াসে দোকানদারি করছেন। তার এ ব্যাজ থাকবে দিনভর বলে তিনি জানিয়েছেন। আব্দুর রাজ্জাক খান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির জন্য অনেক ত্যাগ করেছেন। এমনকি সপরিবারে জীবনটাও উৎসর্গ করেছেন। তার প্রতি শ্রদ্ধাস্বরূপ আমার মতো একজন অতি সাধারণ মানুষের জীবন কিছুই না। দেশ ও জাতির প্রতি তার অসীম ভালোবাসার কারণে তার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা রেখে আমি এ ব্যাজ ধারণ করেছি। আজকের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার স্ত্রী-সন্তানসহ সব শহীদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

খুলনায় দুই ঘণ্টায় করোনায় তিনজনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুই ঘণ্টায় তিনজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনাবিষয়ক ফোকাল পার্সন ডা. শেখ ফরিদ উদ্দীন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, যশোরের তাইজুল ইসলামের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৬০) করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১২ আগস্ট এই হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টা ১০মিনিটে তার মৃত্যু হয়। খুলনা মহানগরীর বয়রার তকদির আহাম্মেদের ছেলে হাবিবুর রহমান (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শুক্রবার রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

এছাড়াও যশোরের শার্শা উপজেলার মৃত আব্দুল মাজেদের ছেলে আতিয়ার রহমান (৮০) করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার রাত ১টা ৪৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে করোনাভাইরাসে খুলনায় মোট ৭৮ জনের মৃত্যু হলো।

৫ কর্মকর্তার নেতৃত্বে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে চলে পৈশাচিক নির্যাতন

যশোর অফিস

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঁচ কর্মকর্তার নেতৃত্বে কিশোর বন্দিদের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হয়। তাদের নির্যাতনে তিন কিশোর নিহত ও ১৫ জন আহত হয়। পুলিশ ওই পাঁচ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে। এছাড়া নির্যাতনে অংশ নিয়েছিল কর্মকর্তাদের অনুগত সাত-আট কিশোর বন্দি। ‘চুল কাটা নিয়ে বিরোধের সূত্র ধরে’ মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিয়ে ওই নির্যাতন করা হয়।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে হতাহতের ঘটনায় পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে এসব তথ্য উঠে এসেছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান যশোরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন।

গ্রেফতাররা হলেন- যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক ও সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক প্রবেশন অফিসার মাসুম বিল্লাহ, কারিগরি প্রশিক্ষক ওমর ফারুক, ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর একেএম শাহানুর আলম ও সাইকো সোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) ওই কেন্দ্রের ১০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হেফাজতে নেয়ার পর মামলা হলে রাতে এই পাঁচজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন জানান, ঘটনার সূত্রপাত ৩ আগস্ট। এদিন কিশোর বন্দি হৃদয়কে (চুল কাটায় পারদর্শী) চুল কেটে দিতে বলেন কেন্দ্রের নিরাপত্তাপ্রধান (হেড গার্ড) নূর ইসলাম। ঈদের আগে প্রায় দুশ বন্দির চুল কাটায় হৃদয় তার হাত ব্যথা উল্লেখ করে চুল কাটতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে নূর ইসলাম কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ও সহকারী তত্ত্বাবধায়ক মাসুম বিল্লাহর কাছে অভিযোগ করেন, ‘ওরা ট্যাবলেট খেয়ে নেশাগ্রস্ত হয়ে রয়েছে।’ এছাড়া তিনি হৃদয় ও তার বন্ধু পাভেলের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্কের ইঙ্গিত করেন। সেখানে উপস্থিত কিশোর নাঈদ অভিযোগ শুনে বিষয়টি পাভেলকে জানিয়ে দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পাভেল তার কিছু অনুসারী কিশোরকে নিয়ে নূর ইসলামকে মারপিট করে। এতে তার হাত ভেঙে যায়। এ ঘটনার সূত্র ধরেই ১৩ আগস্টের মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

কী ঘটেছিল ১৩ আগস্ট?

জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে ১৩ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ১৯ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। ওই সভায় ‘নূর ইসলামের ওপর হামলাকারীদের শাস্তি প্রদানের’ সিদ্ধান্ত হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শনাক্ত হামলাকারী ১৩ জনসহ আরও কয়েকজনকে বের করে আনা হয়। ওই পাঁচ কর্মকর্তার নেতৃত্বে কয়েকজন কর্মচারী এবং কর্মকর্তাদের আজ্ঞাবহ সাত-আটজন কিশোর বন্দি ‘অভিযুক্তদের’ মারপিট শুরু করেন। এ সময় তাদের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হয়।

মুখে গামছা ঢুকিয়ে জানালা দিয়ে হাত বাইরে বের করে টেনে ধরে পেছনে বেধড়ক মারপিট করা হয়। লোহার রড, ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে বেপরোয়া মারপিট করা হয়। অচেতন হলে মার বন্ধ করা হয়। ফের জ্ঞান ফিরলে মারপিট করা হয়। পালাক্রমে এভাবে মারপিটের পর গুরুতর জখম অবস্থায় এদের একটি ঘরে ফেলে রাখা হয়। একজন ‘কম্পাউন্ডার’ দিয়ে সামান্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করলেও এদের হাসপাতালে না পাঠিয়ে প্রায় ৬ ঘণ্টা ফেলে রাখা হয়।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মৃতপ্রায় অবস্থায় একজনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতাল থেকে তার মৃত্যুর খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জনসহ কর্মকর্তারা সেখানে গিয়ে দেখতে পান নির্যাতনের শিকারদের দুপুরে খাবার ও চিকিৎসা না দিয়ে গরমের মধ্যে গাদাগাদি অবস্থায় ফেলা রাখা হয়েছে। এরই মধ্যে আরও দুজনকে হাসপাতালে পাঠানো হলে তারাও মারা যায়। পরে অ্যাম্বুলেন্স ও পুলিশের পিকআপে ১৪ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরদিন আরও একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এনিয়ে এই মর্মান্তিক ঘটনায় তিনজন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়।

নিহতরা হলো- বগুড়ার শিবগঞ্জের তালিবপুর পূর্বপাড়ার নান্নু প্রামাণিকের ছেলে নাঈম হোসেন (১৭), একই জেলার শেরপুর উপজেলার মহিপুর গ্রামের আলহাজ নুরুল ইসলাম নুরুর ছেলে রাসেল ওরফে সুজন (১৮) এবং খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা পশ্চিম সেনপাড়ার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হাসান রাব্বি (১৮)। নিহত রাব্বির রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ১১৮৫৩। রাসেল ও নাঈমের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার যথাক্রমে ৭৫২৪ ও ১১৯০৭। নাঈম হোসেন ধর্ষণ এবং রাব্বি হত্যা মামলার আসামি ছিল।

পরবর্তী পদক্ষেপ

ঘটনার পর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রের কর্মকর্তারা দু’পক্ষের সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা বললেও পরবর্তীতে আহত কিশোর বন্দিদের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে প্রকৃত ঘটনা বের হয়ে আসতে শুরু করে। পুলিশ দ্রুত তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে কেন্দ্রের ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়।

১৪ আগস্ট সন্ধ্যায় হত্যাকা-ের ঘটনায় যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন নিহত পারভেজ হাসান রাব্বির বাবা খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা পশ্চিম সেনপাড়ার রোকা মিয়া। মামলায় শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষকে বিবাদী করা হয়। মামলার পর পুলিশ হেফাজতে নেয়া ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে পাঁচজনকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।

এদিকে শুক্রবারই বন্দি তিন কিশোর নিহত হওয়ার ঘটনায় কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পাশাপাশি গঠন করা হয় দুটি তদন্ত কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন জানান, তদন্ত কমিটির পাশাপাশি পুলিশও মামলার তদন্ত অব্যাহত রেখেছে। মিটিংয়ে থাকা ১৯ জনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ, তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জড়িত হিসেবে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত হওয়ায় পাঁচ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড আবেদন করা হবে। এছাড়া জড়িত সাত-আট কিশোর বন্দিকে এই মামলায় আইনের আওতায় আনতে আদালতে আবেদন করা হবে।

পুলিশ সুপার উল্লেখ করেন, তারা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে ঘটনার বিশ্লেষণ করে সতর্কতার সঙ্গে মামলার তদন্ত কাজ পরিচালনা করছেন। যাতে প্রকৃত চিত্র ও প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আদালতে উপস্থাপন করতে পারেন। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. তৌহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রাব্বানী, যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি মনিরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

খুলনায় করোনা রোগীর সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়াল

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা জেলা ও মহানগরীতে গত ১৯ দিনে এক হাজারের বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এ নিয়ে ৫ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজের (খুমেক) আরটি-পিসিআর ল্যাবে আরও ৯৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে ৪৭ জনই খুলনা জেলা ও মহানগরীর। শুক্রবার তাদের নমুনা পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। খুমেকের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, খুমেকের আরটি-পিসিআর মেশিনে শুক্রবার মোট ২৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যার মধ্যে খুলনার নমুনা ছিল ১৬০টি। এদের মধ্যে মোট ৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। যার ৪৭ জন খুলনার। এছাড়া খুমেকের ল্যাবে সাতক্ষীরার ৩৬ জন, যশোরের চারজন, বাগেরহাটের চারজন, নড়াইলের দুইজন, পিরোজপুর ও ঝিনাইদহের একজন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

খুলনা জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, খুলনায় গত ২৬ জুলাই সন্ধ্যা পর্যন্ত ৪ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল। মৃত্যু হয়েছে ৬০ জনের। আর গত ১৯ দিনেই ১ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত খুলনায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৯৯২ জন। সন্ধ্যায় নতুন করে ৪৭ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৯ জন। এদের মধ্যে মোট ৩ হাজার ৭৫০ জন সুস্থ হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ৭৪ জনের।

তিনি আরও জানান, খুলনায় সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে মহানগরীতে ৩ হাজার ৯০৭ জন। এছাড়া কয়রা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৬৪ জন। পাইকগাছা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১১৬ জন। ডুমুরিয়ায় উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫৬ জন। ফুলতলা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২০০ জন। দিঘলিয়া উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১০৬ জন। তেরখাদা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৫৬ জন। রূপসা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২১০ জন। বটিয়াঘাটা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৪৫ জন। দাকোপ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৩৪ জন।

৪ হাজার টাকা ঘুষ না পেয়ে ভিক্ষুককে ভাতার কার্ড দেননি মেম্বার

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ভাতার কার্ড নেয়ার জন্য প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের কাছে চার হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেছেন মেম্বার। টাকা দিতে না পারায় প্রতিবন্ধীর ভাতার কার্ড আটকে দিয়েছেন ওই ইউপি সদস্য। ঘটনাটি কলারোয়া উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের।

গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্নজনের কাছে কার্ডটি পাওয়ার আশায় কান্নাকাটি করছেন জয়নগর ইউনিয়নের ক্ষেত্রপাড়া গ্রামের রওশন আরা বেগম (৬০)। তিনি ওই গ্রামের মৃত মোবারক গাজীর প্রতিবন্ধী ছেলে আকছেদ আলীর স্ত্রী। রওশন আরা বেগম বলেন, স্বামী আকছেদ আলী জন্ম থেকেই মানসিক ভারসাম্যহীন। ভিক্ষা করে সংসার চলে আমাদের। ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রেজাউল বিশ্বাসের কাছে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডের জন্য আবেদন করি। গত সপ্তাহে আমার স্বামীর কার্ড হয়েছে বলে জানান মেম্বার রেজাউল। কার্ড নিতে গেলে চার হাজার টাকা লাগবে বলে জানান তিনি। আমরা ভিক্ষুক হওয়ায় এত টাকা কোথায় পাব জানালে ভিক্ষা করে টাকা জোগাড় করে আনার কথা বলেন মেম্বার। পরে কার্ডটি আর দেননি তিনি।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য রেজাউল বিশ্বাস বলেন, আকছেদ প্রতিবন্ধী কি-না সেটি পরীক্ষার জন্য আমার কিছু টাকা খরচ হয়েছিল। আকছেদের স্ত্রীর কাছে আমার জেরের পাওনা ওই টাকা দাবি করেছিলাম। তারা সে টাকা এখনও দেয়নি। টাকা চাওয়ায় রাগ করে কার্ড নেয়নি তারা। জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান ছামছুদ্দিন আল মাসুদ বাবু বলেন, রেজাউল মেম্বার ঘুষ ছাড়া কোনো কাজ করেন না। এর আগেও সে ক্ষেত্রপাড়া গ্রামের খলিল সানার কাছ থেকে বয়স্কভাতার কার্ড করে দেয়ার জন্য পাঁচ হাজার টাকা নিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মৌসুমি জেরিন কান্তা বলেন, তদন্তপূর্বক এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল পুর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তারা: বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সাজা দেয়া হয়েছে

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সাজা দেয়া হয়েছে। তাকে এখন মুক্ত বলা হলেও কার্যত তিনি মুক্ত নন। আমাদের নেত্রী বেগম জিয়াকে অন্যায়ভাবে দীর্ঘ দুই বছর জেলে রাখা হলেও তিনি আপস করেননি। তিনি যেকোনো সঙ্কটে জনগণকে ছেড়ে যাননি। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, আমরা অত্যন্ত দুঃসময়ে বসবাস করছি। বর্তমান রাতের ভোটে নির্বাচিত সরকারের কাছে কারো নিরাপত্তা নেই। খুন-হত্যা, হামলা মামলা নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। গনতন্ত্র হত্যাকারী অবৈধ সরকারের হাত থেকে গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

শনিবার বিকাল ৫টায় কেডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যলয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী, গণতন্ত্রের সংগ্রামে আপোষহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া’র ৭৬তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল পুর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তরা এসব কথা বলেন। বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও খুলনা মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শফিকুল আলম তুহিন, আজিজুল হাসান দুলু, মাহবুব হাসান পিয়ারু, একরামুল হক হেলাল, মাসুদ পারভেজ বাবু, আজিজা খানম এলিজা, তারিকুল ইসলাম তারিক, নেহিবুল হাসান নেহিম, ময়েজ উদ্দিন চুন্নু, মেহেদী মাসুদ সেন্টু, শামসুন্নাহার লিপি, শরিফুল ইসলাম টিপু, সোহরাব হোসেন, অহিদুজ্জামান হাওলাদার, মইদুল হক টুকু, আব্দুল আজিজ সুমন, মুনতাসির আল মামুন, জাকির ইকবাল বাপ্পী, মিজানুর রহমান বাবু, সোহেল মোল্লা, আলামিন হোসেন, মহিদুল ইসলাম, মাহমুদ হাসান বিপ্লব, মোল্লা সোলায়মান হোসেন, হারুনুর রশীদ মাসুম, মনিরুজ্জামান মনি, এম এম জসিম, আবুল কালাম, ইয়াসির সেখ, নাজমুল হাসান বাবু, সামাদ বিশ্বাস, বেলাল শাহ প্রমূখ। সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার সুস্বাস্থ্য, রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ূ এবং শহীদ জিয়াউর রহমান, শফিউল বারী বাবু, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে ও বন্যার্তদের জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেণ হাফেজ মোঃ মহিবুল্লাহ।

খুলনা ও আশপাশে জাতিয় শোক দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্ট

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস-২০২০ উপলক্ষে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ ভাসানী), ন্যাশনাল পিপল পার্টি (এনপিপি), ন্যাশনাল ডেমোক্রাটিক ফ্রন্ট-(এনডিএফ)-এর পক্ষ শনিবার বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও তাবারক বিতরণ করা হয়। এ সকল অনুষ্ঠানে নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে দেশ স্বাধীন হতো না। ১৫ আগস্ট ঘাতকরা অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে বঙ্গবন্ধুসহ পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করে। জাতি আজ কলঙ্ক বয়ে বেড়াচ্ছে। নেতৃবৃন্দ হলেনÑএনপিপি’র চেয়ারম্যান, ১০ দলীয় জোট প্রধান আলহাজ্ব শেখ সালাউদ্দিন সালু, ন্যাপ ভাসানী চেয়ারম্যান আব্দুল হাই সরকার, ন্যাপ ভাসানী’র কেন্দ্রীয় সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খুলনা মহানগর সভাপতি শেখ ইকবাল আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সাহিদা আনোয়ারুল হক, মহাসচিব মোঃ ইব্রাহিম, এনপিপি’র দপ্তর সম্পাদক এস এম আল আমীন প্রমুখ।

পল্লীমঙ্গল স্কুল: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার বিকালে খুলনা পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাবেক জাতীয় কৃতি ফুটবলার শেখ মোঃ আসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসে উপপ্রধান তথ্য অফিসার ম. জাভেদ ইকবাল, খুলনা মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক আলমগীর কবীর, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সরদার মাহবুবার রহমান, খুলনা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, ইউএনবি খুলনা প্রতিনিধি শেখ দিদারুল আলম,  গ্লোবাল খুলনার আহবায়ক শাহ মামুনুর রহমান তুহিন, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক কোচ আব্দুর রাজ্জাক, অধ্যাপক আবজালুর রহমান প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ মোঃ রফিকুল ইসলাম।

পাইকগাছা : পাইকগাছায় বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শনিবার সকালে উপজেলা বঙ্গবন্ধু ও ২১শে চত্ত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। বিকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ইউএনও খালিদ হোসেন সিদ্দিকির সভাপতিত্বে ও সহকরী কমিশনার ভূমি মুহাম্মদ আরাফাতুল আলমের পরিচালনায় আলোচনা সভা, পুরস্কার ও যুব ঋণের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা-৬ সংসদ সদস্য মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু, বক্তব্য রাখেন, শেখ শাহাদাৎ হোসেন বচ্চু, পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর, ওসি মোঃ এজাজ শফি, উপজেলা আওয়ামী সভাপতি আনোয়ার ইকবাল মন্টু, অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল।

কপিলমুনি: কপিলমুনিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে শনিবার সকালে কপিলমুনি ইউনিয়ন আ’লীগের উদ্যোগে স্থানীয় দলীয় কার্যালয়ে সভাপতি যুগোল কিশোর দে’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ইকবাল হোসেন খোকনের সঞ্চালনায় স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ রশীদুজ্জামান, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কওছার আলী জোয়ার্দার, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনন্দ মোহন বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ জামাল হোসেন, জি এম হেদায়েত আলী টুকু, মোস্তাফিজুর রহমান, রণজিত কুমার মন্ডল, গৌতম সাহা, সন্দীপ সাধু, অলোক হালদার, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ ইমরান মোল্লা  প্রমূখ।

খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ:

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পক্ষ থেকে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা প্রদান করা হয়। এছাড়া পরিচালক হাসপাতাল ডাঃ এম. এ. আলীর সভাপতিত্বে বাদ যোহর হাসপাতালে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক ডাঃ মোঃ আসাদুল হক।

খুলনা প্রেসকাব: যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য্যরে মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার সকালে খুলনা প্রেসকাবের পক্ষ থেকে জাতির পিতার স্মৃতি ভাস্কর্যে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দিবসের কর্মসূচির শুরুতে কাবের নেতৃবৃন্দ কাব চত্বরে জাতির পিতার স্মৃতি ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। খুলনা প্রেসকাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বক্তৃতা করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক। সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা প্রেস কাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম। সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা।

শেখ জসিমের খাবার পরিবেশন: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে মোংলার ৮টি মাদ্রাসার এতিম খানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়েছে। স্থানীয় সাংসদ ও পরিবেশ, বন এবং জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রনালয়ে উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের নির্দেশনায় শনিবার দুপুরে পৌর শহরের ৮টি মাদ্রাসার এতিম শিক্ষার্থীদের হাতে এ খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম। আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম তার ব্যক্তিগত তহবিল হতে এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে এ উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করেন। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে তার উদ্যোগে বিভিন্ন সংগঠন ও সাধারণ মানুষের মাঝে গাছের চারা বিতরণ ও স্বেচ্ছায় রক্তদান ক্যাম্পিং করা হয়। এর আগে সকালে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে পৌর পার্ক সংলগ্ন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিেেয় শ্রদ্ধা জানান নেতা-কর্মীরা।

শরণখোলা: স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকীতে জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত, দলীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু করা হয়।

সকাল ৯টায় শোক র‌্যালি শুরু হয়ে উপজেলার রায়েন্দা বাজারে প্রদক্ষিণ শেষে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বঙ্গবন্ধুর স্থায়ী প্রতিকৃৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, তাঁতিলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মৎস্যজীবি লীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

জেপি: জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতীয় পার্টি-জেপি খুলনা জেলা শাখার উদ্যোগে এক সভা পার্টির জেলা শাখার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার সকাল ১১.০০ টায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এই সভায় প্রধান অতিথির বক্তিৃতায় জেপির প্রেসিডিয়াম সদস্য শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন বলেন জাতির জনককে হত্যার মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি এদেশের ইতিহাসের পাতাকে কলঙ্কিত করেছিল। তারা এদেশকে নেতৃত্ব শূন্য করে দিয়ে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকারের অভ্যন্তরে লুক্কায়িত কুচক্রীরা এখনো ষড়যন্ত্র করছে। সকল ষড়যন্ত্রকে ব্যর্থ করার জন্য প্রধান মন্ত্রীকে কঠোর হতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। জেলা জেপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ডঃ এস,এম জাকারিয়ার সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক জনাব মোশারেফ হোসেন হাওলাদারের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেপির জেলা শাখার সভাপতি এ্যাডঃ মোঃ আব্দুল মজিদ ও বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য এফ এম ইকবাল।

যুবলীগঃ জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে খুলনা মহানগর যুবলীগের পক্ষথেকে এতিম ও অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাদ্য বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার সকালে হাদিসপার্কের সামনে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, নগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, যুবলীগ নেতা হাফিজুর রহমান হাফিজ, আব্দুল কাদের শেখ, কাজী কামাল হোসেন, নজরুল ইসলাম দুলু, শওকত হোসেন, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কাজী ইব্রাহীম মার্শাল, মোস্তফা শিকদার, মশিউর রহমান সুমন, মেহেদী হাসান মোড়ল, কে এম শাহীন হাসান, রাশেদুজ্জামান রিপন, ইলিয়াস হোসেন লাবু, আরীফুর রহমান, সাজ্জাত জাকির হোসেন, শওকত হাসান, মোস্তাঈন বিল্লাহ চঞ্চল, মুক্তা সরদার, মাছুম উর রশিদ, কাঞ্চন শিকদার, জামিল হোসেন সোহাগ, তাজদিকুর রহমান জয়, জামিল হোসেন প্রমূখ। এছাড়াও ১৫ নং ওয়ার্ডে মেডিকেল ক্যাম্প, ১৬, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৩, ২৪, ২৫, ২৬, ২৭, ২৮, ২৯ ও ৩১ নং ওয়ার্ডে এতিম অসহায়দের মাঝে খাদ্য বিতরন করা হয়।

মহানগর ছাত্রলীগ: স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ দিবস উপলক্ষে সীমিত পরিসরে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে খুলনা মহানগর ছাত্রলীগ। গতকাল শনিবার ১৫ আগস্ট শোক দিবসের শুরুতে সকালে জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন করেন এবং জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এরপর সকাল সাড়ে ৮ টায় নগরীর বয়রাস্থ খুলনা বেতার কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার মূর‌্যালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এরপর বিকালে দলীয় কার্যালয়ে শোক সভায় অংশগ্রহন করেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও মহানগর ছাত্রলীগের অর্ন্তগত বিভিন্ন থানা কলেজ ও ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে দোয়া মাহফিল, খাদ্য বিতরণ ও বৃক্ষরোপর করেন ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এসময় উপস্থিথ ছিলেন খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল। আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতা সোহেল বিশ্বাস, আসাদুজ্জামান বাবু, রণবীর বাড়ই সজল, মাহামুদুল হাসান শাওন, এখতিয়ার মোল্লা প্রমূখ।

বক্ষব্যাধি হাসপাতাল: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতী শোক দিবস উপলক্ষ্যে বক্ষব্যাধি হাসপাতালের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১০টায় মীরেরডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালের অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত চিকিৎসা তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ ইউনুস আলী।

নিসচা’র খানজাহান আলী থানা : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে নিরাপদ সড়ক চাই এর উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট বেলা ১২টায় শিরোমণিস্থ নিজস্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন থানা আহ্বায়ক শেখ আব্দুস সালাম। প্রধান অতিথি ছিলেন নিসচা’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আজাদ হোসেন। সদস্য সচিব মোঃ লুৎফর রহমানের লিটনের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন শফিউল আজম খান ফিরোজ, মোঃ জাকির হোসেন, এমদাদ হোসেন, শেখ শরিফুল ইসলাম, আবুল কালাম, শেখ ইউসুফ আলী, শেখ আফজাল হোসেন, মহিত বিল্লাহ, মোঃ সাগর শেখ, মোঃ ওসমান প্রমুখ।

গণসেবা সংস্থা: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গণসেবা সংস্থার উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১১টায় শিরোমণিস্থ নিজস্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মোঃ শফিউল আজম খান ফিরোজ। সাধারণ সম্পাদক  ও ইউপি সদস্য শেখ আব্দুস সালামের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন শেখ মিজানুর রহমান, শেখ শরিফুল ইসলাম, মোঃ লুৎফর রহমান লিটন, এসএম মাসুম বিল্লাহ, মোঃ আব্দুল হাকিম, আবুল কালাম, গাজী আল মামুন প্রমুখ।

খানাবাড়ী গার্লস হাই স্কুল: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে খানাবাড়ী গার্লস হাই স্কুলের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ৯টায় স্কুলের অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন এস এম ইসহাক হোসেন। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আসাদুজ্জামানের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ মোঃ ইমলাক ঢালী,ফকির মোকসেদ আলী, ডালিয়া আক্তার, শেখ সাইদুর রহমান, শেখ আব্দুস সাত্তার, গাজী আব্দুল হালিম, শাহনাজ জামালি মিলি। দোয়া পরিচালনা করেন শিক্ষক মোঃ ইদ্রিস আলী হাওলাদার।

আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১১টায় ইউনিয়ন পরিষদের অডিটরিয়মে ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খানজাহান আলী থানা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা স.ম রেজয়ান আলী , ইউপি সদস্য নবিরুল ইসলাম রাজার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন ইউপি সচিব তুলশী দাশ মন্ডল, প্যানেল চেয়ারম্যান খান হাফিজুর রহমান, ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খ.ম লিয়াকত আলী, ইউপি সদস্য শেখ আঃ সালাম, মোল্লা সোহরাব হোসেন, হাফেজ গোলাম মোস্তফা, বখতিয়ার হোসেন, মাহমুদ হাসান, হুমায়ুন কবির, আম্বিয়া বেগম, কাজী আজাদুর রহমান হিরোক, মীর রবিউল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, গ্রাম আদালত সহকারী আরজু, মোঃ লিটন , মোঃ বাবুল হোসেন প্রমুখ । আলোচনা সভা শেষে ১৫ আগষ্টে নিহত সকলের রুহের মাগফেরাত কামনা করে  দোয়া অনুষ্ঠিত হয় ।দোয়া পরিচালনা করেন শিরোমণি বাজার জামে সমজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওঃ আতাউর রহমান।

খানজাহান আলী থানা আ’লীগ: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে খানজাহান আলী থানা ও ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকালে জাতীয় পতাকা, দলীয় পতাকা, কালো পতাকা উত্তোলন ও দিনব্যাপী কোরআন তেলওয়াত এবং সন্ধায় আলোচনা সভা, দোয়ার অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল ৫টায় ফুলবাড়ীগেট দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন খানজাহান আলী থানা সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন। কেসিসি ২নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মনিরুজ্জামান মুকুলের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী ও থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিসুর রহমান।

ফকিরহাট : বাগেরহাটের ফকিরহাটে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৫অগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি পালন উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন,উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ সকল সহযোগী সংগঠন দিবসটি পালন করেছেন। পিলজংগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিকাল ৫টায় বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় মিলনায়তনে ইউনিয়ন আ,লীগের সভাপতি প্রভাষক অঞ্জন কুমার দের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। পরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাধারন সম্পাদক মোড়ল জাহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা আ,লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সুবীর কুমার মিত্র, তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক জীবন কৃষ্ণ ঘোষ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক প্রভাষক সুমন ধর, অমল দত্ত মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মোশারেফ হোসেন, ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ আছাবুর রহমান, সাঃ সঃ আসাদুজ্জামান, শ্রমীকলীগের সভাপতি অপিরুদ্দন অপি ও শিক্ষক রিংকু চক্রবর্তী। পরে মুফতি আব্দুল হান্নানের পরিচালনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পারভেজ হত্যায় মানিকতলায় সড়ক অবরোধ

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি

 যশোর সদর উপজেলার পুলেরহাট এলাকায় অবস্থিত শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ভিতরে গত ১৩ আগষ্ট মহেশ্বর পাশা পশ্চিম সেনপাড়া এলাকার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হোসেন রাব্বি ( ১৭)( রেজি নং ১১৮৫৫৩ ) হত্যার ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে ১৫ আগষ্ট শনিবার সকাল পৌনে ১০টা থেকে পৌনে ১১টা পর্যন্ত ১ ঘন্টা লাশ সামনে নিয়ে খুলনা যশোর মহাসড়কের মানিকতলায় সড়ক অবরোধ করে স্থানীয়রা । এসময় সড়কের উভয় পাশে তিব্র যানজটের সৃষ্টি হয় । পারভেজের মরদেহ নিয়ে এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ কালে বলেন  পারভেজ একটি মামলার অপরাধে কিশোর আদালতের মাধ্যমে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ছিলো, যেখানে শিশুদের আলোর পথ দেখানোর কথা সেখানে তাকে সহ মোট ৩ জনকে নৃশংস্ব ভাবে হত্যা করা হয়েছে । এর সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানিয়ে সড়ক অবরোধ করে। সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোশারেফ হোসেন ঘটনাস্থলে পৌছে বলেন ঘটনাটি যশোর এলাকার তারপরও আমাদের পক্ষ থেকে সুষ্ট বিচারের জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে বলে আশ্বাস প্রদান করার পর এলাকাবাসী মহাসড়ক থেকে নিহত রাব্বির মরদেহ নিয়ে মানিকতলা জামে মসজিদের সামনে জানাযা শেষে মহেশ^পাশা কবরস্থানে দাফন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন আকরাম সরদার, আব্দুল হালিম, মোঃ আনোয়ার হোসেন, নূর ইসলাম, কামাল হোসেন, লুৎফর রহমান সহ এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও নেতৃবৃন্দ।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা

গতকাল সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচন ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।  সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাতক্ষীরা প্রেসকাবের সদস্য ও সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সাধারণ সম্পাদক এবং দৈনিক ভোরের পাতা’র জেলা প্রতিনিধি এস এম মহিদার রহমান।

সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। এ দিনটি বাঙালীদের কাছে একটি কলংকিত দিন। এ দিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, বাঙালীর জাতির পিতা, যিনি সৃষ্টি না হলে বাঙালী জাতির সৃষ্টি হতো সেই  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেই কিছু বিপদগামী সেনারা স্বপরিবারে হত্যা করে বাঙালী জাতিকে কলংকিত করেছে। এখন সময় হয়েছে এই কলংক থেকে দায় মুক্ত হওয়ার।

পরবর্তীতে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সিনিয়র সহ-সভাপতি সাপ্তাহিক মুক্ত স্বাধীন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আবুল কালাম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন ১৫ আগস্ট বাঙালীদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এ দিন দেশদ্রোহীরা বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তাদের নীল নকশা বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিল। বাংলাদেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছিল কিন্তু তাদের সেই আকাঙ্খা পূরণ হয়নি।

এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের সহ সভাপতি এম ঈদুজ্জামান ইদ্রিস, প্রচার সম্পাদক জনাব তাজমিনুর রহমান টুটুল, শিক্ষা সম্পাদক প্রফেসর রজব আলী ও আইন সম্পাদক এ্যাডঃ আজহারুল ইসলাম। এ সময় বক্তারা বলেন, ১৫ আগস্ট বাঙালীদের কাছে শোকের মাস। এমাসে বাঙালী জাতির পিতা ও  বাংলার  মহানায়ককে তার স্বপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। এমনকি বঙ্গবন্ধুর শিশুপুত্র শেখ রাসেলকে ও তারা মারতে দ্বিধা করেনি। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা আর নেই। তারা এ হত্যার ঘটনায় জড়িত সকল দোষীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় এনে ফাঁসির দাবি জানান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন অর্থ সম্পাদক ও দি ডেইলি সান পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শেখ আমিনুর রশিদ সুজন,তথ্য সম্পাদক ও দৈনিক নবচেতনা পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শেখ হাসান গফুর, দপ্তর সম্পাদক ও দৈনিক নওরোজ/দৈনিক কালান্তর পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি বোরহান উদ্দীন বুলু, প্রচার সম্পাদক ও দৈনিক ভোরের দর্পন পত্রিকার স ম তাজমিনুর রহমান টুটুল, প্রকাশনা সম্পাদক ও দৈনিক উত্তর দক্ষিণ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি আসিফ পারভেজ বিরু, সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও দৈনিক রাজপথের দাবী পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি এ এস এম শাহ্নেওয়াজ মাহ্মুদ রনি, মানবাধিকার সম্পাদক ও খুলনাঞ্চল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি খান নাজমুল হুসাইন , সমাজ কল্যান সম্পাদক ও দৈনিক অনির্বান এর জেলা প্রতিনিধি জি এম সোহরাব হোসেন, কার্যকরী সদস্য ও সময় বার্তার সম্পাদক মোঃ মোশারাফ হোসেন, দৈনিক জন্মভূমি  ও সুপ্রভাত এর পাটকেল ঘাটা প্রতিনিধি প্রভাষক নাজমুল হক , দৈনিক ভোরের পাতা ও দৈনিক কাফেলা’র দেবহাটা প্রতিনিধি মোঃ ওহিদুজ্জামান , কার্যকরী সদস্য ও দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মোতাহার নেওয়াজ মিনাল, সাধারন সদস্য ও সাপ্তাহিক মুক্তস্বাধীন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, দৈনিক গণমুক্তির জেলা প্রতিনিধি শেখ হাবিবুর রহমান হবি, একাত্তর বাংলা টিভির জেলা প্রতিনিধি মোঃ ইদ্রিস আলী, দৈনিক দেশ সংযোগ ’র জেলা প্রতিনিধি মোঃ আমিরুল ইসলাম , দৈনিক প্রথম বেলার জেলা প্রতিনিধি মোঃ শহিদুল ইসলাম শহিদ, মুক্তস্বাধীন পত্রিকার নিজস্ব প্রতিনিধি মোঃ মনিরুল ইসলাম , এ বি এম মহিদুল ইসলাম , মোঃ আব্দুল মাতিন সহ আরো অনেকে। সভা শেষে দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

বাগেরহাটে নানা কর্মসুচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে নানা কর্মসুচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকালে দিবসটি উপলক্ষে বাগেরহাটে জেলা প্রশাসন ও বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকিৃতিতে  পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। এসময় বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায়, বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান টুকু, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিনসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।পরে বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করেন অতিথিরা।

এছাড়াও বাগেরহাট জেলা পুলিশ, বাগেরহাট প্রেসকাব, বাগেরহাট সদর হাসপাতাল, সদর উপজেলা পরিষদ, নিরাপদ সড়ক চাই, বাগেরহাট জেলা ছাত্রলীগ, তাতী লীগসহ জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন।

পরে জাতির জনকের স্মরণে বাগেরহাট স্বাধীনতা উদ্যানে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহন করেন।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে সকালে মোরেলগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেছেন বাগেরহাট-৪(মোরেলগঞ্জ-শরনখোলা)আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. আমিরুল আলম মিলন। এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. শাহ-ই-আলম বাচ্চু, সহকারি কমিশনার(ভূমি) রঞ্জণ চন্দ্র দে, থানার ওসি কে এম আজিজুল ইসলাম ও ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তারা উপিস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বাগেরহাটের সকল উপজেলায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প্যমাল্য অর্পন, বৃক্ষ রোপন, মাছের পোনা অবমুক্তকরণসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে বাগেরহাটে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

চিতলমারীতে স্কুলের জায়গা দখলের অভিযোগ

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারীতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখলের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের পক্ষ হতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। ইউএনও বিষয়টি শিক্ষা কর্মকর্তাকে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলেছেন। তবে ডাঃ জওহর লাল সিংহ দখলের কথা অস্বীকার করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, করোনায় বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুযোগে চিতলমারী উপজেলার ৯৬নং চরবানিয়ারী পশ্চিমপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের পেছনের প্রায় আড়াই শতক জায়গা ডাঃ জওহর লাল সিংহ নামের এক ব্যাক্তি নেট ও তারকাঁটা দিয়ে ঘিরে দখল করে নিয়েছেন। গত ১০ আগস্ট তিনি নিজে হঠাৎ গ্রামে উপস্থিত হয়ে এই সরকারি জায়গা দখল করেছেন। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কোন বাধার তোয়াক্কাই করেননি বলে স্থানীয়রা জানান। এই বিষয়ে গত ১২ আগস্ট চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি গোপাল কৃষ্ণ সিংহ এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অঞ্জলী রানী সিংহ। গোপাল কৃষ্ণ সিংহ ও প্রধান শিক্ষক অঞ্জলী রানী সিংহ বলেন, ‘১৯৮৫ সালে বিদ্যালয়টি স্থাপনকালে মৃতঃ গৌর চন্দ্র সিংহ এবং মৃতঃ দয়াল চন্দ্র সিংহ যৌথভাবে ৩৩ শতক জায়গা দান করেছিলেন। সেই জায়গা হতে হঠাৎ করে ডাঃ জওহর লাল সিংহ প্রায় আড়াই শতক জায়গা জোর করে দখল নিয়েছেন। এটা অন্যায়। তাই সরকারি বিদ্যালয়ের সম্পত্তি জবরদখল মুক্ত করতে এবং দখলদারের উপযুক্ত শাস্তির জন্য ইউএনওর নিকট তারা লিখিত অভিযোগ করেছেন। এছাড়া বিষয়টি জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। তারা আরো জানান, ডাঃ জওহর লাল সিংহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের স্পেশাল গ্যাস্ট্রোন্টোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক (সার্জারী)। এ বিষয়ে চিতলমারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, তিনি দখলের কথা শুনেছেন। কিন্তু কোন লিখিত অভিযোগ পাননি। পরে আবার মোবাইলে জানান, বিষয়টি নিয়ে আগামী রবিবার ওই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা হবে। তারপর বিস্তারিত তিনি জানাতে পারবেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, ওই লিখিত অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের কোন তথ্য না জানানোর জন্য শিক্ষা কর্মকর্তা বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষকে বলেছেন। তবে এ অভিযোগ শিক্ষা কর্মকর্তা অস্বীকার করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই বিদ্যালয়ের ভবনের পেছনের অংশ নীল রঙ্গের নেট ও তারকাঁটার বেড়া দিয়ে ঘেরা। ঘেরার ভিতরের অংশে স্কুলের সীমানা পিলার রয়েছে। ওই পিলার পর্যন্ত বিদ্যালয়ের সম্পত্তি বলে দাবি করেন এসএমসি সভাপতি গোপাল কৃষ্ণ সিংহ। ডাঃ জওহর লাল সিংহের ছোট ভাই সাবেক ইউপি সদস্য হিরন্ময় সিংহের মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের সাথে কথা হয় ডাঃ জওহর লাল সিংহের সাথে। ডাঃ জওহর লাল সিংহ জবর-দখলের কথা অস্বীকার করে জানান, তার নিজের সম্পত্তি ঘিরেছেন। বিদ্যালয়ের বা সরকারি কোন সম্পত্তি তিনি জবর-দখল করেননি।

তবে চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলম ওই অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, শিক্ষা কর্মকর্তাকে বিষয়টি’র আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে।

চিতলমারীতে গাঁজার গাছসহ গ্রেফতার ১

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারী থানা পুলিশ দু’টি গাঁজার গাছসহ আনন্দ গোলদার (২৭) নামে এক যুবককে আটক করেছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ৭ টায় উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের বাবুয়ানা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত আনন্দ গোলদার বাবুয়ানা গ্রামের হরিপদ গোলদারের ছেলে। চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর শরিফুল হক জানান, শনিবার (১৫ আগস্ট) সকালে থানার একটি টিম মাদক বিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় তারা বাবুয়ানা গ্রামের চিহ্নিত মাদক কারবারী আনন্দ গোলদারকে দুইটি গাঁজা গাছসহ আটক করে। তার বিরুদ্ধে থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আনন্দ’র নামে থানায় আগের আরো একটি মাদক মামলা রয়েছে।

শোক দিবসে বাগেরহাটে মাছের পোনা অবমুক্ত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাগেরহাটের বিভিন্ন সরকারি পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) দুপুরে বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করার মাধ্যমে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ। এসময় বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাফিন মাহমুদ, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক,  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মাদ মুছাব্বেরুল ইসলাম, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রিজিয়া পারভীণ, সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোৎ ফেরদাউস আনসারীসহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাগেরহাট জেলার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পুকুর, নদী, খাল ও বিলে মৎস্য পোনা অবমুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক।

রাজাপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের জাতীয় শোক দিবস পালন

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রূপসার আইচগাতী ইউনিয়নের ২নং রাজাপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল দিন ব্যাপী কোরআন খানি, ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে আসরবাদ বিশেষ দোয়া এবং মন্দিরে সুবিধাজনক সময় প্রার্থনা সভা ও খাবার বিতরণ। এ সময় আইচগাতী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট সমাজসেবী আলহাজ্ব শেখ শামিম হাসান তুহিন, আওয়ামী লীগ রাজাপুর ওয়ার্ড শাখার সভাপতি ডা.গৌরপদ মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য শেখ ওহিদুজ্জামান মিন্টু, মো. কামরুজ্জামান টিপু, হারুনুর রশিদ খোকন, মো. আরমান হোসেন, মনিরুল ইসলাম বাবলু, মো. মনিরুল ইসলাম, মো. সাইদুর রহমান, মাহবুবুর রহমান তালুকদার মিন্টু, সোহাগ গোলদার, উৎপল সাহা, শেখ হাফিজুর রহমান, লিটন বিশ্বাস খোকন, সুভাষ সাহা, নির্মল দাশ, কামাল হোসেন মানিক, মো. মাইনুল হোসেন, মো. পলাশ, আমির হামজা তপু, মো. বাপ্পি, মো. সুমন বাবু  ও মো. জামাল হোসেনসহ নেতাকর্মীরা ছিলেন।

কয়রায় যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

কয়রা প্রতিনিধি

কয়রায় হাজার বছরের শেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে কয়রা উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৬ টায় আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আ’লীগ সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার নেতৃত্বে জাতীয় পতাকা, দলীয় পতাকা ও শোক দিবসের কালো পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং হাফেজদের নিয়ে কোরআন শরিফ খতম দেয়া হয়। পরে সকাল সাড়ে ৮ টায় উপজেলা পরিষদ চত্তরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন করা হয়। প্রথমে উপজেলা প্রসাশন, উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সয়ংসদ, যুবলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, প্রজন্মলীগ,ছাত্রলীগ, বঙ্গবন্ধু যুব পরিষদ ও মহারাজপুর ইয়ংস্টার কাব সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। সকাল ১০ টায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিষদের হলরুমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা-৬, জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন  উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডঃ কমলেশ কুমার সানা, সহকারি কমিশনার (ভুমি) নুর-ই-আলম সিদ্দিকী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা আলম, কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল হোসেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাগর হোসেন সৈকত সহ সরকারি কর্মকর্তাবৃন্দ।

অপর দিকে বেলা ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বাবু বিজয় কুমার সরদারের পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা-০৬ কয়রা –পাইকগাছার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু। এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে জানলেই জানা হবে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ, একটি জাতি, একটি মানচিত্র, একটি পতাকা, আমাদের স্বাধীনতা। নিন্দুক আর জাতির শত্রুরা বঙ্গবন্ধুর উচ্চতা একচুলও খাটো করতে পারেনি। পারবেও না। পচাত্তর সালের পর বিএনপি –জামায়াত -খালেদা চক্র ধারাবাহিক ভাবে ষড়যন্ত্র -হত্যা-খুনের অপরাজনীতি করছে উল্লেখ করে সাংসদ বাবু বলেন, তারা ১৫ ই আগষ্ট মিথ্যা জন্মদিন পালনের নামে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের উল্লাস করে। ২১ শে আগষ্ট শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টা, জঙ্গি-সন্ত্রাস ও আগুন দিয়ে মানুষ পোড়ানো, যুদ্ধপরাপধীর বিচার আটকানো আর নির্বাচন বানচাল করে অস্বাভাবিক সরকার তৈরির চক্রান্ত করে আসছে। তাই শোক দিবসের শোককে শক্তিতে পরিণত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে এবং অবিলম্বে বঙ্গবন্ধু খুনীদের দেশে এনে ফাসি কার্যকর করতে হবে। আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক জেলা আ’লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডঃ কেরামত আলী ও রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার কফিল উদ্দিন, বাবু খগেন্দ্রনাথ মন্ডল, যুগ্ম সম্পাদক জাফরুল ইসলাম, প্রচার সম্পদক এসএম হারুন অর রশীদ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক শাহাবাজ আলী, আ’লীগ নেতা মাষ্টার খায়রুল আলম, কয়রা সদর চেয়ারম্যান সাংবাদিক হুমায়ুন কবির, বেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান সরদার নুরুল ইসলাম, উপাধাক্য এইচএম নজরুল ইসলাম, জেলা যুবলীগ নেতা জসীমউদ্দিন বাবু ও শামীম সরকার, আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সভাপতি সুমাইয়া সুলতান লতা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম টিংকু, সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) আমিনুল হক বাদল প্রমুখ। এসময় উপজেলা আ’লীগ, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সহ সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন ওলামা লীগ নেতা মাওলানা মকসুদুর রহমান।

অভয়নগরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে দিবসের সূচনা করা হয়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদনের লক্ষ্যে সরকারি, বেসরকারি, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নেতাকর্মীরা জমায়েত হতে থাকে। সকাল আনুমানিক ৯ টার সময় শোক র‌্যালি নিয়ে উপজেলা আ’লীগ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে প্রথম শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এরপর যথাক্রমে- নওয়াপাড়া পৌর আ’লীগ, মহিলা আ’লীগ, উপজেলা ও পৌর যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ শ্রদ্ধা নিবদন করে। বেলা ১১ টায় উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা কামা-, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম, অভয়নগর থানা, নওয়াপাড়া ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স, নওয়াপাড়া শংকরপাশা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় শ্রদ্ধা নিবেদন করে। পরে নওয়াপাড়া পৌর মেয়র ও পৌর পরিষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। দুপুরে নওয়াপাড়া প্রেসকাবের পক্ষ থেকে শোক র‌্যালি সহকারে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সাংবাদিকরা। দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় পতাকা উত্তোলন সঠিকভাবে করা হচ্ছে কিনা এ বিষয়ে জাতীয় পতাকা পরিদর্শন কমিটির কয়েকটি টিম উপজেলা ও পৌর এলাকা পরিদর্শন করে। অপরদিকে নওয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে বিদ্যালয়ের এডহক কমিটি ও দৈনিক নওয়াপাড়ার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। 

অভয়নগরে আ’লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগর উপজেলা আ’লীগের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকীতে তাঁর ও তাঁর পরিবারের শহীদ স্বজনদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে নওয়াপাড়া বাজারে উপজেলা ও পৌর আ’লীগের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব এনামুল হক বাবুল। অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর চেয়ারম্যান সরদার অলিয়ার রহমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর, সহ-সভাপতি সানা আব্দুল মান্নান, যুগ্ম সম্পাদক ও নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র সুশান্ত কুমার দাস শান্ত প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন ক্বারী নজরুল ইসলাম।

অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, যুব ঋণ, হুইল চেয়ার ও পুরস্কার বিতরণ

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, যুব ঋণ, হুইল চেয়ার ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুল হুসেইন খাঁনের সভাপতি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর। এসময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেএম রফিকুল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, অভয়নগর থানার ওসি (তদন্ত) মিলন কুমার ম-ল, অভয়ণগর সুজনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আব্দুল লতিফ প্রমুখ।

মহেশপুরে শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকি ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

মহেশপুর(ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে ঝিনাইদহের মহেশপুরে আওয়ামীলীগ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শেখ মুজিবর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও  জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৭টায় উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন শেষে মহেশপুর জনতা ব্যাংক চত্বর থেকে একটি বিশাল শোক র‌্যালী বের হয়।

অপরদিকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্তর থেকে একটি শোক র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী সহকারে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খান চঞ্চল ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল,বীর মুক্তিযোদ্ধারা বীর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে শেখ মুজিবুর রহমানের মুড়ালে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। পরে অডিটরিয়ামে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খান চঞ্চল,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর সুলতানুজ্জামান লিটন,উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ নিজাম উদ্দীন আহাম্মেদ,পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি অমল কুমার কুন্ডু,শেখ এমদাদুল হক বুলু,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক মুক্তার হোসেন,দপ্তর সম্পাদক ও পৌর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আব্দুস সাত্তার,ডেপুটি কমান্ডার রবিউল আওয়াল,এসবিকে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বগা, ফতেপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আতাউর রহমান,স্বরুপপুর ইউনিয়ন আওযামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান,শ্যামকুড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি তিমির রায় চৌধুরী,নেপা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সামছুল আলম মৃধা,কাজিরবেড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা,বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব নওশের আলী মল্লিক, যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মহিদুল ইসলাম মাষ্টার,সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সালাউদ্দীন আহাম্মেদ, নাটিমা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম মাষ্টার, মান্দারবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ালীগের হারুন আর রশিদ,আজমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহাজান আলী,জেলা কৃষকলীগের যুগ্ন আহবায়ক আলহাজ্ব শরিফুল ইসলাম,জেলা পরিষদ সদস্য এম এ আসাদ,শেখ হাসেম আলী,পান্তাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইসমাইল হোসেন,প্রভাষক মুকুল গাজি,সাবেক উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কাজি আতিয়ার রহমান,যুগ্ন আহবায়ক ইয়াকুব আলী,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক সাহেদ মেহেবুব রঞ্জু, যুগ্ন আহবায়ক আশাবুল আরাফ শিমুল,আশিকুর রহমান,আবু হানিফ,উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আমিনুর রহমান, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ,পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি আলমগীর কবীর,পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের আব্দুল আজিজ প্রমুখ।

মহেশপুরে পিকাপের ধাক্কায় শিশু নিহত

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

রাস্তা থেকে ঝালমুড়ি কিনে রাস্তা পার হওয়ার সময় পিকাপের ধাক্কায় জুই খাতুন (৭) নামের এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহত জুই খাতুন ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌর এলাকার বোয়ালীয়া গ্রামের জসিম উদ্দীনের মেয়ে। এ ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার সকাল ৯টার দিকে মহেশপুর দত্তনগর সড়কের বোয়ালীয়া গ্রামে। ঘাতক পিকাপটিকে আটক করতে পারেনি এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ। এলাকাবাসী জানান, সকাল ৯টার দিকে রাস্তার উপর ঝালমুড়ি বিক্রি হচ্ছিল। জুই রাস্তা পার হয়ে ঝালমুড়ি কিনে রাস্তা পার হওয়ার সময় দত্তনগরের দিক থেকে আসা একটি পিকাপ ভ্যান জুইকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় জুইকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন বলে জানান বোয়ালীয়া গ্রামের পৌর কাউন্সিলর রুহুল আমিন মিণ্টু।  

 দেবহাটায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালিত

কে.এম রেজাউল করিম, দেবহাটা

দেবহাটায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে। দেবহাটা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে শনিবার সকাল ১০ টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং পরে উপজেলা পরিষদ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমপ্লেক্সে এক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন। সভায় দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা, ওসি (তদন্ত) উজ্জ্বল কুমার মৈত্র, উপজেলা আঃলীগের সভাপতি নওয়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মুজিবর রহমান, উপজেলা আঃলীগের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, দেবহাটা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সবুজ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জি.এম স্পর্শ, উপজেলা আঃলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ফারুক হোসেন রতন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল লতিফ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ইয়াছিন আলী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল হাই রকেট, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অধীর কুমার গাইন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিউল বশার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য প্রদান করেন। জুম কাউডের মাধ্যমে এই সভাটি বিভিন্ন স্থান থেকে সকলে পর্যবেক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়। এসময় উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিকসহ সুধীমন্ডলী উপস্থিত ছিলেন। শেষে বিভিন্ন মসজিদে দোয়া মাহফিল ও অন্যান্য ধর্মীয় উপসনালয়ে প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করে।

দেবহাটা উপজেলা শ্রমিকলীগের শোক দিবসে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

দেবহাটা প্রতিনিধি

দেবহাটা উপজেলা শ্রমিকলীগের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবসে একটি শোক র‌্যালী ও পরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত পরিসরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় শোক র‌্যালীটি উপজেলা বাজার প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে পরে শ্রমিকলীগ কার্য্যালয়ে এক সংক্ষিপ্ত পরিসরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আবু তাহের, সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউপি সদস্য আরমান হোসেন, দেবহাটা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সভাপতি রাজিব হোসেন জর্জসহ শ্রমিকলীগের উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এসময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকলকে নৃশংস হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের কঠিন বিচার দাবী করেন।

দেবহাটা প্রেসকাবের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা

দেবহাটা প্রতিনিধি

দেবহাটা প্রেসকাবের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবসে একটি শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় শোক দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দেবহাটা প্রেসকাবের সভাপতি আব্দুর রব লিটু। জুম কাউডের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় দেবহাটা প্রেসকাবের সাধারন সম্পাদক আর.কে.বাপ্পার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে সংযুক্ত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নির্মল কুমার মন্ডল, কোষাধ্যক্ষ কে.এম রেজাউল করিম, কার্য্যকরী সদস্য সহকারী অধ্যাপক ইয়াছিন আলী, কার্য্যকরী সদস্য এম.এ মামুন, কার্য্যকরী সদস্য সাইফুল ইসলাম, কার্য্যকরী সদস্য এসএম নাসির উদ্দীন প্রমুখ। এসময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকলকে নৃশংস হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের কঠিন বিচার দাবী করেন। সভায় ইতিমধ্যে অনেক হত্যাকারীর বিচার সম্পন্নের জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি প্রেসকাবের নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে বাকী হত্যাকারীদের বিচার সম্পন্নের আহবান জানান।

দাকোপে জাতীয় শোক দিবস পালিত

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি    

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে খুলনার দাকোপে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আ’লীগ ও সাবেক সংসদ ননী গোপাল মন্ডল সমার্থক গোষ্টির আয়োজনে পৃথক পৃথক ভাবে যথাযথ মর্যাদায় জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল ওয়াদুদ‘র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মোর্তজা খান, থানা অফিসার ইনচার্জ শেখ সেকেন্দার আলী, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান গৌরপদ বাছাড়, খাদিজা আকতার। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা প্রকৌশলী ননী গোপাল দাস, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুরাইয়া সিদ্দিকসহ আরো অনেকে। এসময় সকল দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে বেলা ৩টায় চালনা বৌমার গাছতলাস্থ উপজেলা আ’লীগ কার্যলয় উপজেলা আ‘লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন‘র সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান বিনয় কৃষ্ণ রায়ের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন সংরক্ষিত আসনের এমপি গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন ইউপি চেয়ারম্যান রঘুনাথ রায়, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল কাদের, সরোজিত রায়, পঞ্চানন মন্ডল, দীপংকর রায়, অশোক সাহা, ইউপি চেয়ারম্যান রনজিত কুমার মন্ডল, চালনা পৌরসভা আ’লী নেতা শেখ শফিকুল ইসলাম আক্কেল। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন কৃষকলী নেতা শেখ গোলাম হোসেন, গোবিন্দ বিশ^াস, জিএম রেজাসহ আরো অনেকে। এসময় সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মি উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে সাবেক সংসদ ননী গোপাল মন্ডল সমার্থক গোষ্টির আয়োজনে চালনা ডাক বাংলো মোড়স্থ কার্যলয় উপজেলা আ‘লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক অসিত বরণ সাহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন সাবেক সংসদ ও উপজেলা আ’লীগ সাবেক সভাপতি ননী গোপাল মন্ডল। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সাবেক উপজেলা আ’লী নেতা এ্যাডঃ জিএম কামরুজ্জামান, গোলাম মোস্তফা খান, সাবেক মেয়র অধ্যক্ষ ড.অচিন্ত্য কুমার মন্ডল, শেখ যুবরাজ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দেবপ্রসাদ গাইন, উমাশংকর রায়, গাজী শাহাবুদ্দিন, শেখ সাব্বির আহম্মেদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন আফজাল হোসেন খান, বাবুল আকতার, মাখন চক্রবর্তী, অমিত সাহা, দেবানন্দ মন্ডল প্রমুখ। সভা শেষে কাঙ্গালীভোজ বিতরণ করা হয়।

আরও পড়ুন:  যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক বরখাস্ত

মহেশপুরে একই পরিবারের ৪জনসহ  করোনায় আক্রান্ত ৫ জন

 মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের মহেশপুরে একই পরিবারের ৪ জনসহ  ৫জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এনিয়ে এ উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫১ জনে। আক্রান্ত ব্যক্তি হলেন-উপজেলার গার্লস স্কুল পাড়ার একই পরিবারের ৪ জন ও মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স‘র স্টাফ একজন। ৫জনই নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসাধীন আছেন। মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আঞ্জুমানার বেগম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হলে শনিবার সকালে তার করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। উল্লেখ্য,গত ১৫আগস্ট ঝিনাইদহ জেলায় ৪৭জনের পজেটিভ রিপোর্ট আসে এমধ্যে মহেশপুরে একজন। মহেশপুরে ৫১জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে ৩২জন সুস্থ হয়েছেন এবং ১৯জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।

 রামপালে জাতীয় শোক দিবস পালিত

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

রামপালে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। শনিবার (১৫ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলা প্রশাসন ও রামপাল উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে উপজেলা অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সেই কালরাত্রিতে নিহত সকল শহীদের রূহের মাগফেরাত কামনা করে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ্বাস,আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ আঃ ওহাব, উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি মোতাহার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল হক লিপন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা মিলি, এসিল্যান্ড শোভন সরকার, প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান, রামপাল থানার ওসি মঞ্জুরুল আলম। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে, আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হামিম নূরী, শ্রমিকলীগ সাধারন সম্পাদক ফকির রবিউল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি বোরহান উদ্দিন,সাধারন সম্পাদক চয়ন মন্ডল,ছাত্রলীগ সভাপতি হাফিজুর রহমান,সাধারন সম্পাদক শেখ সাদী সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

যশোরের শার্শা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

বেনাপোল প্রতিনিধি

নানা আয়োজনে যশোরের শার্শা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে । শনিবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ৯টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্প¯তবক অর্পন করা হয়। সেখানে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, যুবলীগ, স্বেচ্ছা সেবক লীগ, উপজেলা ছাত্রলীগ, স্বাস্থ্য বিভাগ, কৃষি বিভাগসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন করা হয়। পরে উপজেলা অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) রাসনা শারমিন মিথি, যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ-উদ-দৌলা অলক সরদার, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ আলী, বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সর্দার ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন রাসেল প্রমূখ।

ঝিনাইদহে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে জাতীয় শোক দিবস

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

শোক র‌্যালী, আলোচনা, মিলাদ মাহফিল ও গণভোজের মধ্যে দিয়ে ঝিনাইদহে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালিত হয়েছে। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শনিবার সকালে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বর থেকে একটি র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে প্রেরণা একাত্তর চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিত্বে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে বিভিন্ন সংগঠন। এদিকে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বরে সদর উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করা হয়। এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ-২ আসনের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জীবন কুমার বিশ্বাস, আওয়ামী লীগ নেতা আক্কাস আলী, সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহ মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল রাজাসহ অন্যান্যরা। বক্তারা, বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার দাবি জানান।

সেই নবজাতকের ঠাঁই হলো এক নিঃসন্তান দম্পতির ঘরে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

রাস্তার পাশে কড়িয়ে পাওয়া সেই ছেলে নবজাতকের ঠাঁই মিলেছে। শুক্রবার প্রায় মধ্যরাতে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমানের তত্বাবধানে থাকা নবজাতকটি এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পাগলা কানাই ইউনিয়নের বেড়বাড়ী গ্রামের হারুন অর রশিদ নামে এক নিঃসন্তান দম্পত্তির নিকট লালন পালনের জন্য হস্তান্তর করা হয়। এ উপলক্ষ্যে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বদরুদ্দোজা শুভ’র অফিস কক্ষে এক জরুরী বৈঠকে শিশুটিকে পাওয়ার জন্য যারা আবেদন করেন তাদের দরখাস্ত পর্যালোচনা করা হয়। সভা শেষে উদ্ধার হওয়া নবজাতককে শিশু আইন ২০১৩ এর ৯ (২) খ ধারায় পরিচর্যার জন্য হারুন অর রশিদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আবদুর রশিদ, সদর থানার ওসি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশিদুর রহমান রাসেল ছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, উপজেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার।

ঝিনাইদহে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক কৃষকের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বাজার গোপালপুর গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মিজানুর রহমান (৩৮) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুরে বাজারগোপালপুরের পুর্বপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। মিজানুর রহমান ওই গ্রামের মৃত হিয়া উদ্দিনের ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে মাঠ থেকে বাড়ি ফিরে ঘরের টেবিল ফ্যান মেরামত করছিল মিজানুর রহমান। এসময় অসাবধানতা বশত বিদ্যুতায়িত হয়ে ঘটনাস্থলেই তার  মৃত্যু হয়। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রামপালে বিনম্র শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন

রামপাল ( বাগেরহাট )  প্রতিনিধি

রামপালে বিনম্র শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার সকাল ৯ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ্বাস এর সভাপতিত্বে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান সেখ মোয়াজ্জেম হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল হক লিপন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা মিলি, ওসি মো. মন্জুরুল আলম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ মোজাফফর হোসেন, মৎস্য কর্মকর্তা শেখ আসাদ, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ জাহিদুর রহমান, কৃষি কর্মকর্তা কৃষ্ণা রানী, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো. হামিদুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমান প্রমুখ। আলোচনা শেষে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ঋন বিতরণ করা হয়। পরে রচনা, সংগীত ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। অপর দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে উপজেলা আওয়ামা লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আ. ওহাব এর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, দলীয় কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন, শেখ মোজাফফর হোসেন, শেখ মোয়াজ্জেম হোসেন, নূরুল হক লিপন, মনির আহমেদ প্রিন্স, শেখ সাদী প্রমুখ। একইভাবে হুড়কা ইউপি চেয়ারম্যান তপন কুমার গোলদার, ভোজপাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল আমীন ও তালুকদার নাজমুল কবির ঝিলামের সভাপতিত্বে বিনম্র শ্রদ্ধায় অনুরূপ অন্ষ্ঠুান পালিত হয়।

পেড়িখালী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শ্রীফলতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও গিলাতলা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ও অনুরূপ অনুষ্ঠান পালিত হয়। দুপুরে মসজিদে, ধর্মীয় উপাসনালয়ে দোয়া ও প্রার্থনা, হাসপাতাল ও এতিমখানায় উন্নতমানের খাবার বিতরণ করা হয়।   

খুলনা আলিয়া মাদরাসায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ পালন উপলক্ষে  গতকাল (শনিবার) সকাল ১০টায় খুলনা আলিয়া কামিল মাদরাসার আয়োজনে মাদরাসা অডিটরিয়ামে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন মাদরাসার প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা আবুল খায়ের মোহ্ম্মাদ যাকারিয়া। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা করেন খুলনা-২ আসনের সাবেক সাংসদ ও অত্র মাদরাসা পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান।  সভায় বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তৃতা করেন মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক মিয়া, ড. মুফতি মাওলানা মোঃ আব্দুর রহীম সরদার, মুফাসসির মাওলানা মুহাম্মদ মুশফিকুর রহমান, মুফতি মাওলানা হাফেজ মোঃ ইমরান উল্লাহ, আরবি প্রভাষক মাওলানা মোঃ সাইফুল ইসলাম ও ইংরেজি প্রভাষক মোহাম্মদ আলী। অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহিদ সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। মাদরাসার প্রিন্সিপাল দোয়া পরিচালনা করেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মুহাদ্দিস মাওলানা মোঃ আসাদুজ্জামান। অনুষ্ঠান শেষে মাদরাসার সভাপতি মাদরাসা ময়দানে বৃক্ষরোপন করেন। এ সময় মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মোড়েলগঞ্জে শোক দিবসে আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীর পিতার প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০ টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যলয়ে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাগেরহাট-৪, মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন, বিশেষ অতিথি সাধারণ সম্পাদক এমএমদাদুল হক। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মাষ্টার সাইদুর রহমান, ইকতিয়ার হোসেন দিলাল, চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী, যুবলীগের আহ্বায়ক ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, যুগ্ম আহ্বায়ক এ্যাড. তাজিনুর রহমান পলাশ সহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ। আলোচনার পূর্বে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন আওয়ামী লীগের পক্ষে এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন এমপি। যুবলীগ, ছাত্রলীগ, তাতীলীগ, মৎস্যজীবী লীগ,কৃষক লীগ সহ সহযোগী সংগঠন। একই দিনে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অফিসাস কাবে আলোচনা সভায় সহকারি কমিশনার ভূমি রঞ্জন চন্দ্র দে’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন, বিশেষ অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. শাহ-ই আলম বাচ্চু, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএমদাদুল হক, ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, ফাহিমা খানম, জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যাপিকা আফরোজা আক্তার লিনা, মাকসুদা আক্তার মুক্তা প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারি বিদেশে পালিয়ে থাকা খুনিদের দেশে এনে ফাসির রায় কার্যকর করার জোর দাবী জানান। অপরদিকে বারইখালী ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান বিপু’র উদ্যোগে জাতীর শোক দিবসে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান শেষে এক দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা বীল মুক্তিযোদ্ধা মো. সিদ্দিকুর রহমান মোল্লা, বদলুল ইসলাম, মাষ্টার আলী আকবর, খায়রুল বাসার, এইচ এ আউয়াল, ইউনুছ আলী, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

শহদী সোহরাওয়ার্দী কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালন

খবর বিজ্ঞপ্তি

শনিবার খুলনা শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে জাতির পিতার ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদায় ও ভাবগাম্ভীর পরিবেশে পালিত হয়। দিবসের কর্মসূচীর মধ্যে ছিল কালো ব্যাজ ধারন, জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল মাজিদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামীলীগের মহানগর সাধারণ সম্পাদক এম.ডি. বাবুল রানা, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু। আলোচনায় অংশ নেন কলেজ পরিচালনা পরিষদের সদস্য শেখ জামাল উদ্দিন, শেখ শওকত হোসেন, অধ্যাপক মিনু মমতাজ, আসাসউল্লাহ, ইমরান হোসেন, রায়হান উদ্দীন প্রমুখ

জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার শ্রদ্ধা

খবর বিজ্ঞপ্তি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছে কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থা’র সদস্যরা। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ৮টায় কয়রার আংটিহারা এলাকায় স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থা’র কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সংগঠনের সদস্যরা শ্রদ্ধা জানান। এর আগে সূর্যোদয়ের পর জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সভাপতি ও খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবু সাঈদ খান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা লক্ষণ মুন্ডা, জিএম রুহুল আমিন, মৃনাল কান্তি সরদার, স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান, সহ-সভাপতি আহাদ আলী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মামুন কবির, সদস্য মফিজুল ইসলাম, সাইফুদ্দিন তুহিন, আকবার আলী, আসাদুল ইসলাম, ওলিউল্যাহ, ফজলুল হক শেখ, আলমগীর হোসেন মিলন, বিল্লাল হোসেন, মঈনুল, শাহিনুর, বারিক, মোজাহিদ, মোঃ আবু রায়হান খান, শরিফুল, হাসান প্রমুখ।

জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতার শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের বিভিন্ন কর্মসূচী পালন

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সন্ধায় ফুলবাড়ীগেট কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের খানজাহান আলী থানার আহবায়ক মোঃ নাসির খান বাবলা।  সদস্য সচিব মোঃ জাকির ফকিরের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মোঃ ইলিয়াজ হোসেন সোহেল, মহানগর সভাপতি শেখ মনির হোসেন, সহ সভাপতি কাজী মাসুদ রানা, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ আলম, শ্রমিকলীগের মহানগর অর্থবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন। বক্তৃতা করেন মোঃ আলতাফ তালুকদার, মোঃ নওশের মোল্যা, খোকন মুন্সি, মোঃ হাসান, আশরাফ হোসেন, মোঃ আলম খান প্রমুখ।

ফুলতলায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

ফুলতলা প্রতিনিধি

জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ফুলতলায় ব্যাপক কর্মসূচি পালিত হয়। উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে সকাল ৯টায় জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও  আলোচনা সভা উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে ডুমুরিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সনদীপ দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজী জাফর উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, ওসি (তদন্ত) মোস্তফা হাবিবুল্লাহ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ জহুরুল ইসলাম, কাজী মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ হোসেন আশু, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা স্বপন কুমার রায়, সমাজসেবা কর্মকর্তা শাহীন আলম, বিআরডিবি কর্মকর্তা আফরুজ্জামান, নির্বাচন কর্মকর্তা কল্লোল বিশ্বাস, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফারহানা ইয়াসমিন, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু প্রমুখ। এদিকে বিকালে ফুলতলা উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে ও মৃনাল হাজরার পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা বিএমএ সালাম, মোঃ আসলাম খান, সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ মোঃ আবু হানিফ।  অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাজী আশরাফ হোসেন আশু, ইমাম হোসেন মোড়ল, আবু তাহের রিপন, কামরুজ্জামান নান্নু, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, রবিউল ইসলাম মন্টু, আলহাজ্ব শেখ আশরাফ হোসেন, ইসমাইল হোসেন বাবলু, আলী আজম মোহন, সাহিদুল মোল্যা, শাহাবাজ মোল্যা, বেগম শামছুন্নাহার, শাপলা সুলতানা লিলি, এস কে আলী ইয়াছিন, শহিদুল্লাহ প্রিন্স, রবিন বসু, এস কে মিজানুর রহমান, মোল্যা রবিউল ইসলাম, মঈনুল ইসলাম নয়ন, এস কে সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ। পরে মাওঃ রফিকুল ইসলামের পরিচালনায় মিলাদ, দোয়া শেষে তাবারক বিতরণ করা হয়। এ দিকে ফুলতলার এম এম কলেজ, জামিরা বাজার আসমোতিয়া স্কুল এন্ড কলেজ, গাড়াখোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ ও কর্মময় জীবনের উপর শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে কবিতা আবৃতি, রচনা প্রতিযোগিতা, আলোচনা, দোয়া, মিলাদ ও তাবারক বিতরণ করা হয়।

কেশবপুরে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

কেশবপুর প্রতিনিধি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী কেশবপুরে পালিত হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে শোক দিবসের আলোচনা সভা, ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, প্রতিবন্ধিদের মাঝে চেক বিতরণ, যুব ঋণের চেক বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুসরাত জাহান।

কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে শনিবার দোয়া অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে।  সাধারণ স¤পাদক গাজী গোলাম মোস্তফার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন সহ সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম,উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল,উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি সৈয়দ নাহিদ হাসান, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বি এম শহিদুজ্জামান শহিদ ও উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুল।

অপরদিকে দলিত হার চয়েস প্রকল্প উদ্যোগে মজিদপুর দলিত স্কুলে চিত্রাংকন, রচনা প্রতিযোগীতা পুরষ্কার বিতরণ করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর উপজেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা বিমল কুন্ডু,দলিতের ফাইন্যান্স ম্যানেজার সজ্ঞয় রায় প্রমুখ ।

বিএইচবিএফসি খুলনা শাখার উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত ও বৃক্ষ রোপন

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার ১৫ ই আগষ্ট বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশন এর জোনাল ম্যানেজার মোঃ জামিরুল ইসলামের নেতৃত্বে খুলনা নগরীর বাংলাদেশ বেতার কেন্দ্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সহ সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় জাতির পিতাসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট সকল শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। এবং অসহায় ও দুস্থদের মাঝে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খাবার বিতরন করা হয়। এছাড়াও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বরণে বৃক্ষ রোপন করা হয়। এ সময় বিএইচবিএফসি খুলনা প্রধান শাখা ম্যানেজার মোঃ সিরাজুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী মুঃ আবদুর রব, সহকারী প্রকৌশলী হেদায়েত উল্লাহ, সিনিয়র অফিসার তনয় কুমার দাস, পিও(আইন) জান্নাতু ফেরদৌস, সিনিয়র অফিসার মৌসুমী মল্লিক, কাজী নুরুজ্জামান, নিপা দাসসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ইসলামী আন্দোলন নগর নেতার চাচার ইন্তেকাল, শোক প্রকাশ

খবর বিজ্ঞপ্তি

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর কমিটির ছাত্র ও যুব বিষয়ক সম্পাদক, সোনাডাঙ্গা থানার সভাপতি মুফতী মাওঃ ইমরান হোসাইনের বড় চাচা শেখ কাওছার আলী (৯৫) গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ৩ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন, ইন্নানিল্লাহে ….. রাজিউন। মরহুমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি মুফতী আমানুল্লাহ, সহ সভাপতি মাওঃ মোজাফ্ফার হোসাইন, মুফতী মাহবুবুর রহমান, সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওঃ দ্বীন ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম সজীব মোল্লা, সহ সাংগঠনিক মোল্লা রবিউল ইসলাম তুষার, প্রচার সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশীদ, সহ প্রচার গাজী ফেরদাউস সুমন, দপ্তর সম্পাদক মোঃ শরিফুল ইসলাম, সহ দপ্তর মোঃ সাইফুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধা জিএম কিবরিয়া, সহ অর্থ আলহাজ্ব মোমিনুল ইসলাম, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুফতী আমিরুল ইসলাম, সহ প্রশিক্ষণ মাওঃ হাফিজুর রহমান, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক মাওঃ শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুস ছালাম, মহিলা ও পরিবার বিষয়ক ডাঃ মাওঃ নাসির উদ্দিন, সংখ্যালঘু বিষয়ক আলহাজ্ব আবু তাহের, নির্বাহী সদস্য মাওঃ সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, হাফেজ আব্দুল লতিফ প্রমুখ।

যশোরের তিন করোনা রোগীর মৃত্যু খুলনায়

যশোর অফিস

খুলনায় এক রাতেই যশোরের তিন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১২ থেকে পৌনে দুইটা পর্যন্ত নগরীর নূরনগর করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে তাদের মৃত্যু হয়। মৃতরা হলেন- যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম, নুরনগর এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান মনি এবং যশোর শার্শা এলাকার বাসিন্দা আতিয়ার রহমান। এদিকে মৃতের স্বজনদের অভিযোগ, হাসপাতালে রাতের বেলায় অক্সিজেন সরবরাহ ঠিকমতো থাকে না। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম রাত পৌনে ১২টায়, নুরনগর এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান মনি রাত পৌনে একটায় এবং যশোরের শার্শা এলাকার বাসিন্দা আতিয়ার রহমান দিবাগত রাত একটা ৪০ মিনেটে মারা যান। অভিযোগ রয়েছে, করোনা হাসপাতালে সারা দিনের মধ্যে ৪-৫ ঘণ্টা অনেক সময় অক্সিজেন থাকছে না। এমনকি আইসিইউতেও অক্সিজেন এর সংকট দেখা যাচ্ছে।

করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের সমন্বয়কারী ডা. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জানান, সিলিন্ডারের কিছুটা সংকট আছে, কিন্তু এই তিনজন তো আইসিইউতে মারা গেছেন। সেখানে সেন্ট্রাল লাইন আছে, তাদের অক্সিজেনের অভাবে মারা যাওয়ার কথা না।

যশোরে নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

যশোর অফিস

বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণ করছে যশোরবাসী। আজ শনিবার সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য  কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এছাড়া যশোর জেলা প্রশাসন, স্থানীয় সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে নানা আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হচ্ছে। করোনা দুর্যোগের কারণে অন্যান্য বারের মতো এবার সকালে শহরে শোক র‌্যালি বের হয়নি। তবে শহরের বকুলতলাস্ত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এছাড়া শহরের মোড়ে মোড়ে বাজানো হচ্ছে জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ। বিতরণ করা হচ্ছে মানবভোজ।

সকালে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়া জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সদর উপজেলা পরিষদ, যশোর পৌরসভা, জেলা যুবলীগ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, জেলা যুবমহিলা লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

জাতীয় শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্টের পুস্পস্তপক অর্পন 

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় জাতীর জনকের সমাধীস্থলে  পুস্পস্তপক অর্পন করেন বিএনসি সি পক্ষে মহাপরিচালক  বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্ট এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মোঃ শরিফুজ্জামান। এতে সুন্দরবন রেজিমেন্টের ক্যাডেটসহ উপস্থিত ছিলেন রেজিমেন্ট এ্যাডজুডেন্ট লেঃ রফিক  ( এক্স) পিসিজিএম এস , বিএন, বিএনসিসি ও ২ লেঃ মিজানুর রহমান , পিইইউ ও নজরুল, পিইউও কামাল এবং অন্যন্য সামরিক ও বেসামরিক কর্মচারীবৃন্দ ।

যথাযোগ্য মর্যাদায় বটিয়াঘাটায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটা

যথাযোগ্য মর্যাদায় বটিয়াঘাটা উপজেলার সর্বত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে পালিত হয়েছে।  দিবসটি পালন উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ১০টায় স্থানীয় বঙ্গবন্ধু মুরালে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, অফিসার্স কাব, থানা পুলিশ, উপজেলা প্রেসকাব, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন, সাব-রেজিস্ট্রার ও দলিল লেখক সমিতি সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। পরে এক আলোচনা সভা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম খান, সহকারী কমিশনার ভূমি মোঃ রাশেদুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় নিতাই গাইন ও  চঞ্চলা মন্ডল, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ অপর্ণা বিশ্বাস, থানার ওসি তদন্ত উজ্জ্বল দত্ত, উপজেলা প্রেসকাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ, ইউপি চেয়ারম্যান মনোরঞ্জন মন্ডল, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আফজাল হোসেন। উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বঙ্কিম চন্দ্র হালদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ রবিউল ইসলাম, মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল মামুন, উপজেলা প্রকৌশলী প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, সাব-রেজিস্ট্রার বিজয় কৃষ্ণ বসু, সমাজসেবা কর্মকর্তা অমিত সমাদ্দার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র মন্ডল, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ মোনায়েম খান, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ইমদাদ হোসেন, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসি রানী রায়, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, পরিসংখ্যান কর্মকর্তা গৌতম বিশ্বাস, উপজেলা প্রেসকাবের সাধারণ সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, অবঃ অধ্যাপক মনোরঞ্জন মন্ডল, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বুলু রায় গাঙ্গুলী, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব আসলাম তালুকদার, পার্থ রায় মিঠু, সাংবাদিক মনিরুজ্জামান, পরিতোষ রায়, শাহীন বিশ্বাস, বিপ্রদাস রায়, এড. প্রশান্ত বিশ্বাস, শাওন হাওলাদার, দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আমিনুল ইসলাম, সম্পাদক মতিন সিদ্দিকী ও সাবেক সভাপতি মোঃ মতিন সিদ্দিক মিঠু, সাংবাদিক এস,এম,এ ভূট্টো, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, ছাত্রলীগ নেতা মোঃ রিয়াজুল ইসলাম রিপন প্রমূখ। পরে এক আলোচনা সভা বেলা ১২টায় উপজেলা আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম খান। বক্তৃতা করেন আ’লীগনেতা ফিরোজুর রহমান, মৃন্ময় পাল, প্রদীপ বিশ্বাস, পলাশ রায়, মানস পাল, আকরাম হোসেন, অনুপম বিশ্বাস, অলোক মল্লিক, চঞ্চলা মন্ডল, অরিন্দম গোলদার, হুমায়ুন কবীর, মিজানুর রহমান মিজান, রিয়াজুল ইসলাম রিপন প্রমূখ। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং মাদ্রাসা ও মসজিদের শিক্ষার্থীদের একশত বার কোরআন খতম ও মন্দিরে বিশেষ সময়ে জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ফকিরহাটে জাতির জনকের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ

ফকিরহাটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়েছে। করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৫ আগষ্ট শনিবার সকাল ৮টায় উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। ফকিরহাট উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, কালোব্যাজ ধারণ এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্টের সকল শহীদদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এ সময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শিরিনা আক্তার কিসলুর নেতৃত্বে  উপজেলা আওয়ামীলীগ সহ সকল অংগ সহযোগী সংগঠনের অসংখ্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মশিয়ালীতে গুলি করে তিনজনকে হত্যা মামলার আসামি আলমগীরের আদালতে স্বীকারোক্তি

স্টাফ রিপোর্টার

নগরীর খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী এলাকায় গুলি করে তিনজনকে হত্যা মামলার এজহারভুক্ত আসামি মো. আলমগীর শেখ (৩৮) আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন।

গতকাল শনিবার তার দেয়া ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারার জবানবন্দি মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতিকুস সামাদ পিএইচডি রেকর্ড করেছেন। আলমগীর শেখ মশিয়ালী গ্রামের মো. মোকছেদ শেখের ছেলে। গত ১২আগস্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. এনামুল হক আসামি আলমগীর শেখকে আদালতে হাজির করে ১০দিনের রিমা-ের আবেদন করেন। ওই দিন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম ৩দিনের রিমা- মঞ্জুর করেছিলেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. এনামুল হক জানান, এ মামলার এজহারভুক্ত আসামি হচ্ছে ২২জন। এ পর্যন্ত মোট ৭জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন মশিয়ালী গ্রামের মৃত. হাসান আলি শেখের ছেলে মো. জাফরিন শেখ (৩২), মো. মোকছেদ শেখের ছেলে মো. জাহাঙ্গীর শেখ (৩৫) ও মো. আলমগীর শেখ (৩৮), মো. কুরবান শেখের ছেলে মো. আরমান শেখ (২০), মৃত. আক্তার আকুঞ্জির ছেলে মো. রহিম আকুঞ্জি (২২), মো. ফারুকের ছেলে মো. রবিন (২০) ও মো. বাবুল শেখের ছেলে মো. মিঠু শেখ (৩৩)। এদের মধ্যে জাফরিন শেখ, আরমান শেখ ও আলমগীর শেখ আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করলেন। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ১৬জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মো. জাকারিয়া শেখ মশিয়ালী সিএন্ডবি’র ঘরের একটি কক্ষে ৩রাউন্ড বন্দুকের গুলি ও ২রাউন্ড পিস্তলের গুলি নিজে রেখে বাদীর চাচাতো ভাই মুজিবর শেখকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাদীসহ পাড়ার আরো কিছু লোক মুজিবরকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার কারণ জানতে জাফরিনদের বাড়ির সামনে যায়। এসময় তাদের সঙ্গে বাক-বিতন্ডার একপর্যায়ে মিল্টন শেখ গুলি করলে নজরুল শেখ মারা যায়। জাফরিন শেখ গুলি করলে গোলাম রসুল মারা যায়। জাকারিয়ার গলিতে আহত হয় বাদীর ছেলে সাইফুল। পরে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা যায় সাইফুল। তাদের অন্যান্য সহযোগিদের গুলিবর্ষণে বাদীসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় আফসার উদ্দিন, তার ছেলে রবি, শামীম, খলিল, রানা, সুজন শেখসহ আরো অনেকে। এঘটনায়  নিহত সাইফুলের পিতা  মো. শাহিদুল শেখ বাদী হয়ে  মশিয়ালী গ্রামের মৃত. হাসান আলি শেখের ৪ছেলেসহ ২২জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরো ১৫/১৬জনকে আসামি করে খানজাহান আলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন যার নং-১২।

নগরীতে পুলিশের অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার ৫

স্টাফ রিপোর্টার

মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ২৯ বোতল ফেন্সিডিল ও ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন নগরীর ২৬/১, সিদ্দিকীয়া মহল্লা শান্তিবাগ লেনের গাউসুল আজমের ছেলে মো. ফাহাদ আজম ফুয়াদ (২৮), দৌলতপুর মহেশ্বরপাশা কালীবাড়ী এলাকার মৃত. মোবারক শেখের ছেলে মো. জলিল শেখ (৪৪), পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া থানার পশ্চিম মাছুয়াখালী গ্রামের আনসার গাজীর ছেলে মামুন গাজী (৩৭), ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার চুমুরদী ইউনিয়ন পশ্চিমপাড়া জাকির মেম্বরের বাড়ীর পাশের বাসিন্দা মনির মাতুব্বরের ছেলে লালন মাতুব্বর (২২) ও যশোর জেলার কেশবপুর থানার মুলগ্রাম প্রামানিক পাড়ার নিতাই চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে শুভ বিশ্বাস (১৮)।

কেএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) কানাই লাল সরকার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নগরীর বিভিন্ন থানা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মহানগর পুলিশ। এসময়  ২৯ বোতল ফেন্সিডিল ও ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় ৪টি মাদক মামলা রুজু করা হয়েছে। 

নগরীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় কেএমপির জাতীয় শোক দিবস পালন

স্টাফ রিপোর্টার

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার খুলনায় হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ ১৫ই আগস্টের সকল শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছেন খুলনা মহানগরী পুলিশের পুলিশ কমিশনার জনাব খন্দকার লুৎফুল কবির পিপিএম-সেবা গতকাল শনিবার। 

এছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এঁর ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন উপলক্ষে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের আয়োজনে কেএমপি পুলিশ লাইন্স জামে মসজিদে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁর পরিবারসহ সকল শহীদের স্মরণে এবং তাদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বাদ জোহর মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত শ্রদ্ধাঞ্জলি ও পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সকল শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বাদ জোহর মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে কেএমপি’র বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ ও ফোর্স অংশগ্রহণ করেন।

শার্শায় র‌্যাবের অভিযানে ১০১ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ২

স্টাফ রিপোর্টার

যশোর জেলার শার্শা থানাধীন পানবুড়ী গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১০১ বোতল  ফেন্সিডিলসহ দু’মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। ১৪ আগস্ট রাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার দু’মাদক ব্যবসায়ী হলেন, যশোর জেলার কোতয়ালী থানার বেজপাড়ার মৃত. ফজলার রহমানের ছেলে মো. নাজিমুর রহমান তুষার (৪০) ও  মো. নজরুল ইসলামের ছেলে মো. হাবিবুর রহমান সুমন (৪২)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, ১৪ আগস্ট রাতে যশোর জেলার শার্শা থানাধীন পানবুড়ী গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময়  ওই গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম এর বাড়ীর সামনে থেকে  ১০১ বোতল  ফেন্সিডিলসহ তুষার ও সুমনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে শার্শা থানায়

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

জাতীয় শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্টের পুস্পস্তপক অর্পন   

খবর বিজ্ঞপ্তি  

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় জাতীর জনকের সমাধীস্থলে  পুস্পস্তপক অর্পন করেন বিএনসিসি মহাপরিচালকের পক্ষে সুন্দরবন রেজিমেন্ট এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মো. শরিফুজ্জামান।

এসময় সুন্দরবন রেজিমেন্টের ক্যাডেটসহ উপস্থিত ছিলেন রেজিমেন্ট এ্যাডজুডেন্ট লে. রফিক  ( এক্স) পিসিজিএমএস , বিএন, বিএনসিসি ও ২ লে. মিজানুর রহমান, পিইইউও নজরুল, পিইউও কামাল এবং অন্যন্য সামরিক ও বেসামরিক কর্মচারীবৃন্দ ।

সৌদি রাজপুত্রের মৃত্যু

খুলনাঞ্চল ডেস্ক

সৌদি আরবের রাজপুত্র আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ বিন তুর্কি আল সাউদ মৃত্যু বরণ করেছেন। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) সৌদি বার্তা সংস্থা এ তথ্য নিশ্চিত করে। বার্তা সংস্থায় বলা হয়, শনিবার সৌদির রাজধানী রিয়াদে রাজপুত্রের জানাজা হওয়ার সিদ্ধান্ত হবে। উল্লেখ্য, রাজপুত্র আবদুল আজিজ ১৯৬২ সালের ২৭ অক্টোবর রিয়াদে জম্মগ্রহণ করেন। সৌদি আরবের বাদশাহ আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজের পঞ্চম পুত্র ছিলেন তিনি। রাজকুমারী আয়েদা ফুস্তুক ছিলেন তাঁর মা। বৃটেনের হার্ডফোর্ডশায়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেন। অর্থনীতি বিষয়েও ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ১৯৯১ সাল থেকে সৌদি আরবের ন্যাশনাল গার্ডের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। যুবরাজ আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজের উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেন। ২০১১ সালে বাদশাহ আবদুল্লাহর পক্ষ থেকে উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৪ সালে সৌদি আরবের বাণিজ্যের উন্নতি-অগ্রগতির জন্য আবদুল আজিজ ‘সেন্টানিয়াল ফান্ড’ বা শতবর্ষ তহবিল গঠন করেন। রিয়াদের বিখ্যাত কিং আবদুল আজিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়া ‘কিং আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড ফর ট্রান্সলেশন’-এর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সূত্র : সৌদি গেজেট

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা দূর করে কাঁচা পেঁপে

মিলি রনহমান

পেঁপে পাকা খেতে যেমন সুস্বাধু তেমনি বিভিন্ন রেসিপিতেও কাঁচা পেঁপের বেশ কদর রয়েছে। কাঁচা পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন। বিভিন্ন রকম অসুখ সারাতে কাঁচা পেঁপে খুবই উপকারি। পেটের নানা রোগবালাই দূরীকরণে কাঁচা পেঁপে খুবই কার্যকরী। শুধু পেটের সমস্যায় নয়, আরও অনেক নানাবিধ স্বাস্থ্য সমস্যায় এই ফলের উপকারিতা অনেক। অন্যান্য ফলের তুলনায় পেঁপেতে ক্যারোটিন অনেক বেশি থাকে। কিন্তু ক্যালরির পরিমাণ অনেক কম থাকায় যারা মেদ সমস্যায় ভুগছেন তারা অনায়াসে খেতে পারেন এ ফলটি। নিচে পেঁপের নানাবিধ পুষ্টিগুণের কথা তুলে ধরা হল-

অন্ত্রের চলাচলকে নিয়ন্ত্রণ করে : পেঁপের বীজে আছে এন্টি- অ্যামোবিক ও এন্টি-প্যারাসিটিক বৈশিষ্ট্য যা অন্ত্রের চলাচলকে নিয়ন্ত্রণ করে। এমনকি এটি বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য, এসিড রিফাক্স, হৃদযন্ত্রের সমস্যা, অন্ত্রের সমস্যা, পেটের আলসার ও গ্যাস্ট্রিক সমস্যা থেকেও রক্ষা করে।

ত্বকের সমস্যা ও ক্ষত দূর করে : পেঁপেতে বিদ্যমান পুষ্টিগুণ ব্রণ ও ত্বকের যে কোন ধরনের সংক্রামক থেকে রক্ষা করে। এমনকি এটি ত্বকের ছিদ্র মুখগুলো খুলে দেয়। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এটি ফেসপ্যাক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কাঁচা পেঁপে ত্বকের মরা কোষগুলোকে পুনজ্জ্বীবিত করে তুলতে সাহায্য করে।

ব্যথা নিরাময় করে : পেঁপের পুষ্টিগুণ মেয়েদের জন্য সবচেয়ে বেশি দরকারী। কারণ এটি মহিলাদের যে কোনো ধরনের ব্যথা কমাতে কার্যকারী ভূমিকা রাখে। পেঁপের পাতা, তেঁতুল ও লবণ একসাথে মিশিয়ে পানি দিয়ে খেলে ব্যথা একেবারে ভালো হয়ে যায়।

হৃদরোগের সমস্যা থেকে মুক্তি দেয় : এটি ব্লাড প্রেসার ঠিক রাখার পাশাপাশি রক্তের প্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ করে। এমনকি শরীরের ভেতরের ক্ষতিকর সোডিয়ামের পরিমাণকেও কমিয়ে দেয়। ফলে হৃদরোগের সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়। একারণেই হৃদরোগীদের সবসময় পেঁপে খেতে বলা হয়।

অতিরিক্ত ক্যালরি ও চর্বি কমিয়ে দেয় : পেঁপেতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ই ও এ। এগুলো ১০০ গ্রামে মাত্র ৩৯ ক্যালোরি দেয়। এছাড়া এতে বিদ্যমান এন্টি-অক্সিডেন্ট অতিরিক্ত ক্যালরি ও চর্বির পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

ওয়েব সিরিজে মৌ খান

বিনোদন ডেস্ক

অনেক ব্যবসা সফল ছবির নির্মাতা শাহীন সুমন আন্ডারওয়ার্ল্ডের গল্পে ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করতে যাচ্ছেন। তারকাবহুল এই সিরিজটির নাম ‘মাফিয়া’। এখানে থাকবে প্রেম, বিশ্বাসঘাতকতা, নিষ্ঠুরতায় মোড়ানো ভালোবাসা, ক্ষমতার মোহ, প্রতারণার গল্প। এবার জানা গেল, তার এই ওয়েব সিরিজে অভিনয় করবেন চিত্রনায়িকা মৌ খান। এর আগে পরিচালক জানিয়েছিলেন ‘মাফিয়া’-তে প্রধান একটি চরিত্রে দেখা যাবে নন্দিত অভিনেতা জাহিদ হাসানকে। আরো থাকবেন শ্যামল মাওলাসহ অনেক প্রিয়মুখ। এবার জানা গেল মৌ খানের নাম। এই অভিনেত্রীর চরিত্রটি এখানে বেশ চমক জাগানিয়া বলে জানান পরিচালক। এদিকে এ ওয়েব সিরিজে কাজ করা প্রসঙ্গে মৌ খান বলেন, শাহীন সুমন ভাই আমাদের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির বড় মাপের একজন পরিচালক। তার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমি নিজে অনেক আনন্দিত। অনেক বড় অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে কাজের সুযোগ হবে এখানে। আশা করছি ভালো কিছু হবে। পরিচালক শাহীন সুমন জানান, তারই গল্প ভাবনায় দেলোয়ার হোসেন দিলের চিত্রনাট্যে ‘মাফিয়া’ নির্মিত হবে ১৫০ পর্বে। ১২ই আগস্ট থেকে এর শুটিং শুরু হয়েছে নারায়ণগঞ্জে। এ ছাড়াও ঢাকা ও কক্সবাজারে এ ওয়েব সিরিজের দৃশ্যায়ন হবে। একসঙ্গে তিন ক্যামেরা দিয়ে চলবে কাজ। এখানে তার সঙ্গে সহকারী পরিচালক হিসেবে আছেন লরিন খান। সেলিম খানের শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের ব্যানারে নির্মিত এ ওয়েব সিরিজটি মুক্তি পাবে প্রতিষ্ঠানটির চ্যানেল ভয়েস টিভি’র ইউটিউব, ফেসবুক ও ওয়েব পোর্টালে।

দাকোপে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে দুইটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভস্মীভূত

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে দুইটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৯টায় চালনা পৌরসভার পারচালনা ভ্যান স্টেশন এলাকায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তবে কিভাবে আগুনের সূত্রপাত হলো এখনো পর্যন্ত তার কোন সঠিক কারণ জানা যায়নি।

ভূক্তভোগী ব্যবসায়ী মাওঃ আতিকুর রহমান জানায়, শনিবার সকালে তিনি তার ঔষধের দোকান খোলা রেখে বাজারে যান। পরে বেলা ৯টায় একজন তাকে ফোনে আগুন লাগার সংবাদ জানালে সাথে সাথে তিনি চলে আসেন। এসময় আসে পাশের অসংখ্য লোক এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। ততক্ষনে আগুনের লেলিহান শিখায় দোকানের ঔষধসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তবে তার দোকানে বিদ্যুত সংযোগ ছিলো না এবং কিভাবে আগুনের সূত্রপাত হলো তা তিনি জানাতে পারেনি। এতে তার প্রায় ৩ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান। এছাড়া পাশে রফিকুল শেখের চা দোকান পুড়ে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট চালনা পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর দেবাশীষ ঢালী বলেন আগুনে পুড়ে তাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পৌরসভা থেকে ক্ষতিগ্রস্থদের আর্থিক সহযোগীতা করা হবে।

খুলনা প্রেসক্লাবের সহকারী সম্পাদক মুন্নাকে হুমকি, প্রেসকাবের নিন্দা

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসের অফিস সহায়ক হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে একটি সংবাদ প্রকাশের জের ধরে খুলনা প্রেসকাবের সহকারী সম্পাদক ও বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর.কমের খুলনা ব্যুরো এডিটর মাহবুবুর রহমান মুন্নাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি। যার প্রেক্ষিতে আজ শনিবার সাংবাদিক মুন্না খুলনা থানায় জিডি করেছেন।

এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন খুলনা প্রেসকাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজাসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যরা। এক বিবৃতিতে তারা এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

জিডিতে বলা হয়, হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরে শুক্রবার বাংলানিউজে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। নিউজটির সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া তার একটি ভিডিও প্রচারিত হয়। যেখানে দেখা যায় হাবিবুর রহমান অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাউকে কোপাতে, আবার কাউকে আঙুল কেটে দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন। ভিডিও ও নিউজ প্রচার হওয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে সাংবাদিক মুন্নাকে একাধিকবার হুমকি প্রদান করেন।

সুন্দরবনের কটকা ওসির বিরুদ্ধে কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ, হাসপাতালে ভর্তি 

শরণখোলা প্রতিনিধি

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের কটকা অভায়রণ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি)  বিরুদ্ধে ১২ বছর বয়সী এক কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। শনিবার রাত ১০ টার দিকে নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরকে বাগেরহাটের শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

পরিবারের অভিযোগ, গত ৮ আগষ্ট সুন্দরবনের পারমিট নিয়ে স্বজনদের সাথে সাগরে ইলিশ আহরনের যায় কিশোরসহ ১০ জন । পরে নানা হয়রানী করতে অবৈধ ভাবে অভায়রন্য এলাকায় প্রবেশের দায়ে তাদের আটক করে। ১০ আগষ্ট ৯ জন জেলেকে আটক দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠায়। কিশোর ইমাম হোসেনকে কটকা অভায়রণ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) আবুল কালাম তাকে পরিবারের কাছে হস্থান্তর না করে আবার বনে নিয়ে যায়। সেখানে চারদিন আটকে রেখে খাবার না দিয়ে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে।

চারদিন পর ১৪ আগষ্ট রাত সাড়ে আটটায় শরনখোলা রেঞ্জ অফিসে কিশোর ইমাম হোসেনকে পরিবারের কাছে হস্থান্তর করে বন বিভাগ।

শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসক আরিফুল ইসলাম রাকিব বলছেন,কিশোর ইমামের শরীরে আঘাতের চিহৃ না থাকলেও  সে মানষিক ভাবে ভীতির মধ্যে রয়েছে। আমরা তাকে চিকিৎসা দিচ্ছি।

তবে পূর্ব সুন্দরবন বন বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, সকলের উপস্থিতিতে ছেলেটিকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নির্যাতনের বিষয়টি সঠিক নয়।

পূর্ব সুন্দরবনে হরিণ ধরা ফাঁদ ও  ট্রলার সহ ৭ শিকারী আটক

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ

পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের কচিখালী অভয়ারন্যের পক্ষিদিয়া চর এলাকা থেকে বনরক্ষীরা ৭ হরিণ শিকারীকে আটক করেছে। এ সময় তাদের ৪৫০টি হরিণধরা ফাঁদ ও একটি ট্রলার উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল (শনিবার) ভোর ৫টার দিকে জ্ঞানপাড়া টহল ফাঁড়ির বন রক্ষীরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করে।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মোঃ জয়নাল আবেদীন জানান, পাথরঘাটা উপজেলার  জ্ঞানপাড়া এলাকার কুখ্যাত হরিণ শিকারী অর্ধশতাধিক মামলার আসামী মালেক গোমস্তার সহযোগী ইব্রাহীম বিশ্বাস তার লোকজন নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করেছে এমন গোপন সংবাদে জ্ঞানপাড়া টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সাদিক মাহমুদ বন রক্ষীদের নিয়ে বনে তল্লাশি অভিযান চালায়। এক পর্যায়ে ভোর ৫টার দিকে কচিখালীর পক্ষির চর এলাকা থেকে তাদের আটক করতে সক্ষম হয়। আটককৃতরা হচ্ছে, পাথরঘাটা উপজেলার দক্ষিণ চরদুয়ানী গ্রামের মুনসুর আলী বিশ্বাসের পুত্র ইব্রাহীম বিশ্বাস (৩৫), ইব্রাহিমের পুত্র মোঃ ইউনুচ (১৮), মোঃ ইসমাইলের পুত্র মোঃ মোস্তফা (৩০), পাথরঘাটার উপজেলার সায়রাবাদ গ্রামের আঃ হকের পুত্র শুকুর আলী (১৯), উত্তর কাঠালতলী গ্রামের আঃ হামিদের পুত্র ইলিয়াস (৩০), তালুকের চরদুয়ানী গ্রামের হাবিব মোল্লার পুত্র রাজু (২৫) ও মঠবাড়িয়া উপজেলার নলি গ্রামের আঃ ছালাম কাজির পুত্র জাকির কাজি (৩৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার, দুইশত হাত ইলিশের জাল ও দুইশত হাত নাইলনের তৈরী হরিণ শিকারের ফাঁদসহ কয়েকটি দা ও ছুরি জব্দ করা হয়। আটককৃতদের বন আইনে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। আটক হরিণ শিকারি ইব্রাহিম বিশ্বাস প্রায় দুই মাস আগে কটকা অভয়ারণ্য এলাকার ছাপড়াখালি এলাকা থেকে হরিণসহ বন বিভাগের হাতে আটক হয়েছিল বলে তিনি জানান।

খুবিতে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে জাতীয় শোক দিবস পালিত

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এই দেশ, জাতি ও বিশ্ববাসীর কাছে চির অম্লান হয়ে থাকবে: আলোচনা সভায় বক্তারা

খবর বিজ্ঞপ্তি

শনিবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষির্কী জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়। জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচির শুরুতে সকাল ৯টায় শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসন ভবনের সামনে কালোব্যাজ ধারণ, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৯-২০ মিনিটে শোকর‌্যালি শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে স্থাপিত কালজয়ী মুজিব চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার, ডিনবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, ডিসিপ্লিন প্রধানবৃন্দ, প্রভোস্টবৃন্দ, ছাত্রবিষয়ক পরিচালক, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে খুবিতে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- এর ম্যুরালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এরপরপরই শিক্ষক সমিতি, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ), বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বিভিন্ন ডিসিপ্লিন, অফিসার্স কল্যাণ পরিষদ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ এর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের পর উপাচার্য আইন ডিসিপ্লিন কর্তৃক পনেরই আগস্ট উপলক্ষ্যে প্রণীত স্মরণিকা ‘অগ্নিগিরির অস্তাচলে’ এর ডিজিটাল ভার্সন উন্মোচন করেন। সকাল ১১ টায় শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স রুমে (৪র্থ তলা) ‘চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু: বাঙালির কান্ডারি’ বিষয় শীর্ষক বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ওয়েবিনারে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপাচার্য প্রফেরস ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী) ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ইমেরিটাস ড. এ. কে. আজাদ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর আবদুল মান্নান। ওয়েবিনারে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর জীবনব্যাপী সংগ্রামের মূল লক্ষ্য ছিলো বাঙালি জাতির স্বাধিকার, স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও সাধারণ মানুষের আর্থ-সামাজিক মুক্তি। আলোচনাকালে সকল বক্তাই দৃঢ়তার সাথে উল্লেখ করেন পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের আগে দেশে কোনো সরকার বিরোধী আন্দোলন-বিক্ষোভ হয়নি। পনেরই আগস্টের রাতের হত্যাকা- ছিলো একটি পরিকল্পিত নীল নকশা, গভীর ষড়যন্ত্র। এটা ছিলো দেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র, বঙ্গবন্ধু যাতে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশকে আত্মনির্ভরশীল করতে না পারেন সেই দুরভিসন্ধি। সেদিন খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করলেও তাঁর আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু এদেশের জনমানুষের হৃদয়ে, রক্তের সাথে, প্রকৃতির সাথে মিশে আছেন। বঙ্গবন্ধু চিরকাল বেঁচে থাকবেন তাঁর কর্মে, বাংলা, বাঙালি ও বাংলাদেশের হৃদয়ে। তাঁকে হত্যার পর ২১ বছর বাংলাদেশকে ইতিহাসের অন্ধকারের দিকে নেওয়ার চেষ্টা চলে, তাঁর আদর্শকে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়, এমনকি তাঁর নাম নেওয়াও বন্ধ ছিলো। কিন্ত ইতিহাস সবসময় সত্যকে ধারণ করে। বঙ্গবন্ধু শারীরিকভাবে আজ আমাদের মাঝে না থাকলেও তাঁর আদর্শ ও চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটছে। বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরসূরী তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও চেতনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। বক্তারা আরও বলেন, আজ নতুন প্রজন্ম পত্র-পত্রিকা, বই-পুস্তক. ইলেক্ট্রোনিক ও অনলাইনের মাধ্যমে পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের ঘটনা সর্ম্পকে প্রকৃত সত্য জানতে পারছে। পনেরই আগস্টের প্রকৃত ঘটনা, অনেক অজানা তথ্য আজ প্রকাশিত হচ্ছে। আলোচনা সভা থেকে পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মধ্যে এখনও যারা বিদেশে পলাতক আছে তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে এনে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতির কলঙ্ক মোচনের দাবি জানানো হয়। আলোচনা সভার সভাপতি উপাচার্য বলেন, যে আদর্শের মধ্যে সত্য, সুন্দর, ন্যায় ও কল্যাণ নিহিত থাকে সেই আদর্শ কখনও শেষ হয় না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মধ্যে সেই চেতনা ছিলো বলেই তা কখনও ম্লান হবে না, তা চিরকাল এই দেশ, জাতি ও বিশ্ববাসীর কাছে অম্লান হয়ে থাকবে। বঙ্গবন্ধুকে আমরা আমাদের চেতনা ও অনুভূতিতে সবসময়ই পাবো। আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ ও রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস। আলোচনা সভাটি ওয়েবিনারে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। এছাড়া বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল এবং বিশ্ববিদ্যালয় মন্দিরে সকাল সাড়ে ৯ টায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির দোয়া ও মিলাদ মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় এবং মহামারী করোনা ভাইরাসসহ অন্যান্য রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও অসুস্থ্যদের আশু সুস্থতা এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর সাহায্য কামনায় শনিবার ১৫ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির উদ্যোগে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়্ এতে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সভাপিত এড. শফিকুল আলম মনা, নগর সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি ও জেলা সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান। পরিচালনা করেন আসাদুজ্জামান মুরাদ। দোয়া করেন মাওলানা আঃ গফ্ফার। এসময় উপস্থিত ছিলেন শেখ মোশাররফ হোসেন, জাফর উল্লাখ খান সাচ্চু, সিরাজুল ইসলাম, এড. বজলুর রহমান, এড. এসআর ফারুক, রেহানা ঈসা, স ম আঃ রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আঃ রশিদ, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, সিরাজুল হক নান্নু, নজরুল ইসলাম বাবু, রফিক মল্লিক, এড. করিফুল ইসলাম, জোয়াদ্দার খোকন, আবু হোসেন বাবু, কামরুজ্জামান টুকু, মোশারফ হোসেন মফিজ, মেহেদী হাসান দীপু, শাহিনুল ইসলাম পাখী, আঃ রহিম বক্স দুদু, ইকবাল হোসেন খোকন, মুজিবর রহমান, এড. গোলাম মওলা, মোঃ শাহজাহান, সাদিকুর রহমান সবুজ, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, নাজমুস সাকিবম পিন্টু, একরামুল কবির মিল্টন, হাসানুর রশিদ মিরাজ, শামসুজ্জামান চঞ্চল, নাজমুল হুদা সাগর, শরিফুল ইসলাম বাবু, হাফেজ আবুল বাসার, জাফরী নেওয়াজ চন্দন, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, মুজিবর রহমান ফয়েজ, জসিম উদ্দিন লাবু, মোল্লা কবির হোসেন, নাজির উদ্দীন নান্নু, আফসার মাষ্টার, হাফিজুর রহমান মনি, শমসের আলী মিন্টু, বদরুল আনাম খান, জামিরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান বিশ^াস, কামরান হাসান,  আকরাম হোসেন খোকন, ইসহাক তালুকদার, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দীন টারজান, ওহেদুর রহমান দীপু, ইমতিয়াজ আলম বাবু, বাচ্চু মীর, হেমায়েত হোসেন, আসলাম হোসেন, তৌহিদুর রহমান খোকন, মোস্তফা কামাল, জাহিদ কামাল টিটু, হাসনা হেনা,মাহবুব হোসেন, নীরুল কাজী, এনামুল হক সজল, মেহেদী হাসান সোহাগ, এড. মফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম জলি, তারিকুল ইসলাম তরু, এনামুল হাসান ডায়মন্ড, কাজী মাহমুদ আলী, মাজেদা খাতুন, মোঃ আলী, মশিউর রহমান খোকন, আসাদুজ্জামান আসাদ, জিএম রফিকুল হাসান, আলমগীর হোসেন, ডাঃ ফারুক হোসেন, জাকারিয়া লিটন, হুমায়ুন কবির, ম শা আলম, জাবীর আলী, মনিরুল ইসলাম, হেদায়েত হোসেন হেদু, জুলকার হোসেন, শেখ ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

দোয়ার পূর্বে সংক্ষেপ আলোচনায় বক্তারা বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বেশ আগে থেকেই নানাবিধ শারিরীক জটিলতা ভূগছিলেন। মিথ্যা বানোয়াট মামলায় দীর্ঘ কারাবাসের কারণে তাঁর অসুস্থতা আরো গুরুতর হয়েছে। জামিনে কারামুক্তির পূর্ব থেকেই দেশে মহামারী করোনা ভাইরাস প্রভাব বিস্তার শুরু করেছে যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে তাঁর চিকিৎসা কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবেই ব্যাহত হয়েছে। এমনিতেই দেশনেত্রীর যে ধরণের এডভান্সড ট্রিটমেন্ট প্রয়োজন বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ মত দিয়েছেন তা বাংলাদেশে সম্ভব নয়। আর দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা যে কতটা ভঙ্গুর অবস্থায় পৌঁছেছে তা তো করোনাকালে গত কয়েকমাসে জাতি হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন। দোয়া অনুষ্ঠানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে তাঁর সুবিধামত চিকিৎসা সেবা গ্রহণের সুযোগ দিতে সরকারের সদিচ্ছা একান্ত অপরিহার্য। প্রতিহিংসার উর্ধ্বে উঠে দেশনেত্রীকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রে কোন বাঁধা সৃষ্টি না করতে বক্তারা সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

দোয়া অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। এছাড়া মহামারী করোনা ভাইরাসে বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ যারা মারা গেছে তাদের মাগফিরাত কামনা এবং অসুস্থদের জন্য রোগমুক্তি কামনা করা হয়। খুলনা, সাতক্ষীরাসহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ এবং উত্তরাঞ্চলের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর নিকট সাহায্য প্রার্থনা করা হয়।

কুয়েটে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা প্রকৌশল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে। ১৫ আগস্ট শনিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসনিক ভবন, ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়ের বাসভবন ও হলসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

সকাল ১০ টায় ক্যাম্পাসস্থ বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন। এরপর শিক্ষক সমিতি, পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ), অফিসার্স এসোসিয়েশন, ফজলুল হক হল, লালন শাহ হল, খানজাহান আলী হল, ড. এম. এ. রশীদ হল, রোকেয়া হল, অমর একুশে হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, কর্মকর্তা সমিতি (আপগ্রেডেশন), কর্মচারী সমিতি (৩য় শ্রেণী), কর্মচারী সমিতি (৪র্থ শ্রেণী), মাস্টাররোল কর্মচারী সমিতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সকাল ১১ টায় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা (ভার্চুয়াল মাধ্যমে) অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বিশ^বিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন। ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) ড. ইসমাঈল সাইফুল্যাহ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবু ইউসুফ, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. কে এম আজহারুল হাসান, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম ও রেজিস্ট্রার জি এম শহিদুল আলম। পাবলিক রিলেশনস অফিসার মনোজ কুমার মজুমদারের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. পল্লব কুমার চৌধুরী, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মোঃ আব্দুল হাসিব, আইআইসিটি এর পরিচালক প্রফেসর ড. বাসুদেব চন্দ্র ঘোষ, পরিচালক (গবেষণা ও সম্প্রসারণ) প্রফেসর ড. শিবেন্দ্র শেখর শিকদার, ইইই বিভাগের প্রফেসর ড. মহিউদ্দিন আহমাদ, মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া, ইউআরপি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তফা সারোয়ার,  পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) প্রফেসর ড. কাজী এবিএম মহীউদ্দিন, সিএসই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. পিন্টু চন্দ্র শীল, ড. এম এ রশীদ হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. সজল কুমার অধিকারী, অফিসার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ নূরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আক্কাস আলী, কর্মচারী সমিতির (৩য় শ্রেণি) সভাপতি মোঃ মামুনুর রশীদ জুয়েল। আলোচনা সভায় বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ সংযুক্ত ছিলেন।

বাদ আসর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া মাহফিল। উল্লেখ্য, জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কর্মসূচি সরকারের করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি ও অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের জারীকৃত স্বাস্থ্য বিধি মেনে অনুষ্ঠিত হয়।

খুলনায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস শনিবার খুলনায় যথাযোগ্য মর্যাদা এবং ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হয়। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়।

এদিন সকাল সাড়ে আটটায় বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে ১৫ আগস্টে শাহাদত বরণকারী তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিভাগীয় কমিশনার ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, কেএমপির পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, ডিআইজি ড. খঃ মহিদ উদ্দিন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ এবং অংঙ্গসংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে জুম এ্যাপের মাধ্যমে দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। জুম এ্যাপের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, কেএমপির পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবিরসহ সরকারি বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা। পরে শিশু একাডেমির চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ঋণ বিতরণ করা হয়। এছাড়া ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে সকল সরকারি, বেসরকারি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দিবসের সাথে সংগতিপূর্ণ আলোচনা সভা, কবিতা পাঠ, রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, চিত্র প্রদর্শনী, হামদ ও নাত প্রতিযোগিতা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

কেসিসি’র উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা, বৃক্ষরোপণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। সকালে মেয়র নগর ভবন চত্ত্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে বাদ জোহর কালেক্টরেট জামে মসজিদ, পুলিশ লাইন জামে মসজিদ, টাউন জামে মসজিদসহ নগরীর বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া বিভিন্ন মন্দির, গীর্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মাসব্যাপী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গ্রোথসেন্টারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে শোক দিবসের পোস্টার স্থাপন এবং এলইডি বোর্ডের মাধ্যমে জাতীয় শোক বিষয়ক প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এছাড়া জেলা প্রশাসনের উদ্যেগে দুই হাজার ৭৫ সংখ্যক বার পবিত্র কোরআন শরীফ খতম এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা সিভিল সার্জন অফিসের উদ্যোগে স্কুল হেলথ কিনিকে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করে। জেলা নির্বাচন অফিস জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বেতার খুলনা কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরআন তেলাওয়াত, হামদ-নাত, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। দিবসটি উপলক্ষে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর ও সমাজসেবা অধিদপ্তর তাদের অধীন জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, সরকারি শিশু পরিবারসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরআন তেলাওয়াত, আলোচনা সভা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, হামদ-নাত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় শোক দিবসে স্থানীয় সংবাদপত্রগুলো বিশেষ সংখ্যা বা ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে এবং বাংলাদেশ বেতার খুলনা বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করে। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করে। খুলনার উপজেলাগুলোতেও অনুরূপ কর্মসুচি পালিত হয়।

পি-৪/১

কেইউজে’র উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারের মধ্য দিয়ে সকল বাধা অতিক্রম করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে : সিটি মেয়র

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, ‘পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিলো। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি ভেবেছিলো বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আর কোনো দিন খুনিদের বিচার হবে না, কিন্তু তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। এ মাটিতেই খুনিদের বিচার হয়েছে, সকল বাধা অতিক্রম করে দেশও আবার এগিয়ে যাচ্ছে। একই সাথে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত যেসকল খুনি, বিদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়ে পলাতক আছে, তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে অবিলম্বে ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি জানান তিনি।’ গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়ন (কেইউজে) এর উদ্যোগে প্রেস কাব চত্বরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়নের সভাপতি মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। পরিচালনা করেন প্রচার ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক এস এম নূর হাসান জনি। সভার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ই আগস্টের নিহত সকল শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, বিএফইউজে’র নির্বাহী সদস্য ও ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. সাঈয়েদুজ্জামান স¤্রাট, সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু, শেখ আবু হাসান, এস এম জাহিদ হোসেন, মো. সাহেব আলী।

সভা শেষে ১৫ই আগস্টের নিহত সকল শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিল শেষে তবারক বিতরণ করা হয়। এর আগে সকালে খুলনা প্রেস কাবস্থ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন নেতৃবৃন্দ। এছাড়া দিনব্যাপী কোরআন খানী ও বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ সম্প্রচার করা হয়।

কারবালার হত্যাকান্ডের পরে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ঘটনা ছিলো ইতিহাসের জঘন্য ও ঘৃণিত অধ্যায়: এস এম কামাল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তিকে বাধাগ্রস্থ করতে ষড়যন্ত্র করেছিলো। সেনাবাহিনীর উচ্চাভিলাশী সদস্য জিয়া, মোস্তাক, তাহের ঠাকুর, শফিউল আলম প্রধান গংয়েরা পশ্চাৎপদ রাজনীতির চিন্তা চেতনার মাধ্যমে ষড়যন্ত্র করে বাংলাদেশকে পাকিস্তানী ধারায় ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিলো। সেকারনেই ষড়যন্ত্রকারীরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। কারবালার হত্যাকা-ের পরে ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা ঘটনা ছিলো ইতিহাসের জঘন্য ও ঘৃণিত অধ্যায়। তারা ভেবে ছিলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারলে স্বাধীন বাংলাদেশ তাদের নিয়ন্ত্রনে থাকবে। কিন্তু জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ষড়যন্ত্রকারীদের স্বপ্ন ব্যর্থ হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠন শুধু বিশ্বস্ত নেতাকর্মী তৈরী করেনি, তারা মোস্তাক ও শফিউল আলমের মত বেঈমানদেরও তৈরী করেছিলো। সেকারনেই মোস্তাক শফিউল আলম প্রধানরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার দু:সাহস পেয়েছিলো। জিয়া, মোস্তাক, শফিউল আলম প্রধান, তাহের ঠাকুরেরা বাংলাদেশকে শতবর্ষ পিছিয়ে দিয়েছে। এখনো সহযোগী সংগঠনের মাধ্যমে অনেক মোস্তাক শফিউল আলম প্রধানের জন্ম হচ্ছে, তাদেরকে চিহ্নিত করে প্রতিহত করতে হবে। তিনি আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সাথে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের পরাজিত করেছেন। বাংলাদেশে একই সাথে বুলবুল, করোনা ও বন্যার মত প্রাকৃতিক দুর্যোগকে শক্ত হাতে মোকাবেলা করে সারা বিশ্বে নন্দিত হয়েছেন। যা বিশ্ববাসী অনুকরণ করছে। তিনি আরো বলেন, এতবড় বৈশ্বিক দুর্যোগকে যখন শেখ হাসিনা মোকাবেলা করতে সমর্থ হয়েছেন, তখন, সাহেদ, স¤্রাটের মত মানুষদের আওয়ামী লীগের কোন প্রয়োজন নেই। আওয়ামী লীগে পরীক্ষিত ত্যাগী নেতাকর্মীরা থাকলেই জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে এগিয়ে আসতে হবে।

গতকাল শনিবার বিকাল ৫টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার অধিকারী, জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোল্লা জালাল উদ্দিন, এ্যাড. কাজী বাদশা মিয়া, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মোঃ সাইফুল ইসলাম, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহমেদ আশা, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রণজিত কুমার ঘোষ, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আসাদুজ্জামান রাসেল, জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইমরান হোসেন। সভাপরিচালনা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মল্লিক আবিদ হোসেন কবির, বিএমএ সালাম. নূর ইসলাম বন্দ, সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, শেখ মোঃ ফারুক হোসেন, কামরুজ্জামান জামাল, এ্যাড আইয়ুব আলী শেখ, এ্যাড. নব কুমার চক্রবর্তী, শ্যামল সিংহ রায়, এ্যাড ফরিদ আহমেদ, জোবায়ের আহমেদ খান জবা, এ্যাড খন্দকার মুজিবর রহমান, এ্যাড অলোকা নন্দা দাশ, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু, বিরেন্দ্র ন্থা ঘোষ, কামরুল ইসলাম বাবলু, শেখ নূর মোহাম্মদ, কাউন্সিলর ফকির মোঃ সাইফুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, শেখ আনোয়ার হোসেন প্রমূখ।

করোনায় গতি কমেছে ৬ মেগা প্রকল্পের

শফিকুল ইসলাম

সমগ্র পৃথিবীকে থমকে দিয়েছে করোনাভাইরাস। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। করোনার প্রভাব পড়েছে সরকারের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাওয়া  ছয় মেগা প্রকল্পেও। করোনাভাইরাস মোট ২ লাখ ৫৮ হাজার ৫৩৬ কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ের ৬ মেগা প্রকল্পের কাজে বাধা সৃষ্টি করেছে, কমিয়ে দিয়েছে এর কাজের গতি। তবে সম্প্রতি এসব প্রকল্পের কাজ আবার শুরু হয়েছে। জানা গেছে, গত ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ফাস্ট ট্র্যাক মনিটরিং টাস্কফোর্সের সভায় প্রকল্পগুলোর কাজের গতি বাড়ানোর জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মেগা প্রকল্পগুলোর কাজ এগিয়ে নিতে বলা হয়েছে। তবে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) ফাস্ট ট্র্যাক অগ্রগতি প্রতিবেদন থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী চলতি ২০২০ সালের মে মাস পর্যন্ত ব্যয় ধরে ছয় প্রকল্প মিলিয়ে এখন পর্যন্ত আর্থিক অগ্রগতি মাত্র ৩৪ দশমিক ৬২ শতাংশ, অর্থাৎ এক-তৃতীয়াংশের সামান্য বেশি।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দেওয়া নির্দেশনায় বলা হয়েছে, জীবন ও জীবিকার মধ্যে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে। অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে কাজ অব্যাহত রাখতে হবে। সরকার চায় প্রকল্পের কাজ দ্রুততম সময়ে শেষ হোক। সে কারণে চলমান সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তা থেকে উত্তরণে কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে সংশ্লিষ্টদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সরকারের এই ৬ মেগা প্রকল্প হচ্ছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প, পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্প, মেট্রোরেল প্রকল্প, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প, দোহাজারী-রামু হয়ে কক্সবাজার ও রামু থেকে মিয়ানমারের কাছাকাছি ঘুমধুম সীমান্ত পর্যন্ত সিংগেল লাইন ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ প্রকল্প, মাতারবাড়ি ১২০০ মেগাওয়াট আল্ট্রা সুপার বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ ।

পদ্মা সেতু:

এর মধ্যে গুরুত্বের দিক থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাওয়া প্রকল্প হচ্ছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। কাজের অগ্রগতিও বেশি হয়েছে এই প্রকল্পে। প্রকল্পটির সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৭৯ দশমিক ৫০ শতাংশ। মূল সেতু নির্মাণ কাজ হয়েছে ৮৭ দশমিক ৫০ শতাংশ। প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০০৯ সালে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের অগ্রগতি বা সমস্যা দেখভাল করেন, পরামর্শ দেন। করোনার প্রভাবে এ প্রকল্পের গতিও কমেছে। মাঝখানে কিছুদিন প্রকল্পের কাজ বন্ধও ছিল বলে জানা গেছে। তবে এখন আবার কাজ শুরু হয়েছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ ছিল চার হাজার ১৫ কোটি টাকা। মে মাস পর্যন্ত খরচ হয়েছে দুই হাজার ৮৭০ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। প্রকল্পের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ব্যয় দাঁড়িয়েছে ২২ হাজার ২৯৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। সেতু নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি থাকা ১০টি স্প্যান পিয়ারে (পিলার) তুলে দেওয়ার চেষ্টা করছেন তারা। শরিয়তপুরের জাজিরা থেকে মাওয়া পর্যন্ত মোট ৪১টি স্প্যানের মধ্যে ৩১টি স্প্যান বসেছে। বাকি রয়েছে মাওয়া অংশে ১০টি স্প্যান বসানোর কাজ। এ কাজটি শেষ হলেও পুরো সেতুর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান হবে। স্প্যানের ওপর সড়কপথের কাজ শরিয়তপুরের জাজিরা পয়েন্ট থেকে শুরু হয়ে মাঝ নদী হয়ে এটি মাওয়ার দিকে এগুচ্ছে।

দোহাজারী-রামু-ঘুমধুম রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প:

দোহাজারী-রামু-ঘুমধুম রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮ হাজার ৩৪ কোটি টাকা। ২০১০ সালে শুরু হয় এ প্রকল্পের কাজ। ২০২২ সালের জুনের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারিত রয়েছে এ প্রকল্পটির। কিন্তু এখনও প্রকল্পের কাজ অনেক বাকি রয়েছে। গত ১০ বছরে প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে মাত্র ২৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ। আর ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ৩৯ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে এ প্রকল্প বাস্তবায়নে বরাদ্দ ছিল এক হাজার ১৩৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের ৩১ মে পর্যন্ত প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে ৯০৯ কোটি টাকা।

মাতারবাড়ী ১২০০ মেগাওয়াট আল্টা সুপার বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প:

মাতারবাড়ী ১২০০ মেগাওয়াট আল্ট্রা সুপার বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৫ হাজার ৯৮৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। প্রকল্পটি শুরু হয়েছে ২০১৪ সালে। ২০২৩ সালের ৩০ জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এ পর্যন্ত প্রকল্পটির ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ২৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৩৩ দশমিক ৩২ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ ছিল তিন হাজার ২২৫ কোটি টাকা, ২০২০ সালের ৩১ মে পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে তিন হাজার ২০১ কোটি টাকা। শুরু থেকে এ পর্যন্ত প্রকল্পটিতে ব্যয় হয়েছে ১১ হাজার ৮৯৯ কোটি টাকা।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প:

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পটি ২০১৬ সালের জুলাই মাসে শুরু হয়। শেষ করার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর। চলতি বছরের ৩১ মে পর্যন্ত প্রকল্পটির আর্থিক অগ্রগতি ২৫ দশমিক ০৪ শতাংশ। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি ৯১ লাখ টাকা। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছিল ১৪ হাজার ৮৪৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৩১ মে পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ৭ হাজার ৮৭৩ কোটি ১৩ লাখ টাকা। শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট ব্যয় হয়েছে ২৮ হাজার ৩২৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্প:

পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়েছে ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে। লক্ষ্য ছিল প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কাজ শেষ হবে ২০২৪ সালের ৩০ জুনের মধ্যে। এ পর্যন্ত প্রকল্পটির ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ২৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ, আর্থিক অগ্রগতি ৩০ দশমিক ৫২ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল তিন হাজার ২৯৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা। চলতি বছরের ৩১ মে পর্যন্ত খরচ হয়েছে ২৯৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। শুরু থেকে এ পর্যন্ত প্রকল্পটিতে ব্যয় হয়েছে ১২ হাজার ২৫৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা। নীতিনির্ধারকরা বলছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিন পদ্মা সেতুতে রেলও চলবে।

মেট্রোরেল:

মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য সরকারের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়েছে ২০১২ সালের জুন মাসে। শেষ হওয়ার কথা ২০২৪ সালের ৩০ জুনের মধ্যে। তবে নির্ধারিত সময়ে এ প্রকল্পের কাজ শেষ করা যাবে না। কারণ এ পর্যন্ত প্রকল্পটির সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৪৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ ছিল চার হাজার ৩২৬ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। ২০২০ সালের ৩১ মে পর্যন্ত মোট ব্যয় হয়েছে দুই হাজার ৩২৫ কোটি ৩১ লাখ টাকা। শুরু থেকে এ পর্যন্ত প্রকল্পটিতে মোট ব্যয় হয়েছে ৯ হাজার ৯২৯ কোটি  ৯২ লাখ টাকা।

প্রকল্পটির আওতায় মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত বর্ধিত অংশের জন্য সোশ্যাল সার্ভে চলছে। উত্তরা নর্থ থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ৯টি স্টেশনের নির্মাণ কাজ ৭১ দশমিক ০৯ শতাংশ শেষ হয়েছে। আগারগাঁও থেকে কাওরান বাজার পর্যন্ত সাতটি স্টেশনের কাজ শেষ হয়েছে ৪৩ দশমিক ২৩ শতাংশ এবং কাওরান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত সাতটি স্টেশনের কাজ হয়েছে ৪৪ দশমিক ৮৫ শতাংশ। ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম ৩৮ দশমিক ৫০ শতাংশ, রেল কোচ ও ডিপো ইক্যুপমেন্ট ২৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সঙ্গে ঋণ সংক্রান্ত জটিলতা ও ভূমি অধিগ্রহণে দেরি হওয়ার কারণে অগ্রগতি সন্তোষজনক হয়নি। সবশেষ করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি প্রকল্পগুলোর অগ্রগতি আরও ধীর করে দিয়েছে।

শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ৩ কিশোর হত্যা, ৫ কর্মকর্তা রিমান্ডে

যশোর প্রতিনিধি

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে নির্যাতন করে তিন কিশোরকে হত্যা ও ১৫ জনকে আহত করার মামলায় গ্রেফতার পাঁচ কর্মকর্তাকে ভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও এই ঘটনায় পাঁচ সাক্ষী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

শনিবার (১৫ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহাদী হাসান তিন কর্মকর্তাকে পাঁচ দিন করে ও অপর দুই কর্মকর্তাকে তিন দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইনসপেক্টর রকিবুজ্জামান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, দুপুর আড়াইটার দিকে গ্রেফতার শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের পাঁচ কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির করা হয়। প্রথমে বিচারক ১৭ আগস্ট শুনানির দিন দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে রিমান্ড শুনানি হয়েছে। শুনানি শেষে তিন জনকে পাঁচ দিনের এবং দুই জনের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

কোর্ট জিআরও কামরুজ্জামান জানিয়েছেন, গ্রেফতার পাঁচ কর্মকর্তার মধ্যে তত্ত্বাবধায়ক (সহকারী পরিচালক) আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক (প্রবেশন অফিসার) মাসুম বিল্লাহ ও ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর একেএম শাহানুর আলমকে পাঁচ দিনের এবং সাইকোসোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান ও কারিগরি প্রশিক্ষক ওমর ফারুককে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

শোক দিবসে বুকে সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ

স্টাফ রিপোর্টার

বুকে সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন রূপসা উপজেলার নৈহাটী কালীবাড়ি বাজারের চা বিক্রেতা আব্দুর রাজ্জাক খান। তিনি খুলনার রূপসা উপজেলার নেহালপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং নৈহাটী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকীতে সকালে তিনি বুকের চামড়ায় সেফটিপিন ফুটিয়ে কালোব্যাজ ধারণ করে অনায়াসে দোকানদারি করছেন। তার এ ব্যাজ থাকবে দিনভর বলে তিনি জানিয়েছেন। আব্দুর রাজ্জাক খান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির জন্য অনেক ত্যাগ করেছেন। এমনকি সপরিবারে জীবনটাও উৎসর্গ করেছেন। তার প্রতি শ্রদ্ধাস্বরূপ আমার মতো একজন অতি সাধারণ মানুষের জীবন কিছুই না। দেশ ও জাতির প্রতি তার অসীম ভালোবাসার কারণে তার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা রেখে আমি এ ব্যাজ ধারণ করেছি। আজকের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার স্ত্রী-সন্তানসহ সব শহীদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

খুলনায় দুই ঘণ্টায় করোনায় তিনজনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুই ঘণ্টায় তিনজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনাবিষয়ক ফোকাল পার্সন ডা. শেখ ফরিদ উদ্দীন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, যশোরের তাইজুল ইসলামের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৬০) করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১২ আগস্ট এই হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টা ১০মিনিটে তার মৃত্যু হয়। খুলনা মহানগরীর বয়রার তকদির আহাম্মেদের ছেলে হাবিবুর রহমান (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শুক্রবার রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

এছাড়াও যশোরের শার্শা উপজেলার মৃত আব্দুল মাজেদের ছেলে আতিয়ার রহমান (৮০) করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার রাত ১টা ৪৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে করোনাভাইরাসে খুলনায় মোট ৭৮ জনের মৃত্যু হলো|

৫ কর্মকর্তার নেতৃত্বে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে চলে পৈশাচিক নির্যাতন

যশোর অফিস

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঁচ কর্মকর্তার নেতৃত্বে কিশোর বন্দিদের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হয়। তাদের নির্যাতনে তিন কিশোর নিহত ও ১৫ জন আহত হয়। পুলিশ ওই পাঁচ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে। এছাড়া নির্যাতনে অংশ নিয়েছিল কর্মকর্তাদের অনুগত সাত-আট কিশোর বন্দি। ‘চুল কাটা নিয়ে বিরোধের সূত্র ধরে’ মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিয়ে ওই নির্যাতন করা হয়।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে হতাহতের ঘটনায় পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে এসব তথ্য উঠে এসেছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান যশোরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন।

গ্রেফতাররা হলেন- যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক ও সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক প্রবেশন অফিসার মাসুম বিল্লাহ, কারিগরি প্রশিক্ষক ওমর ফারুক, ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর একেএম শাহানুর আলম ও সাইকো সোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) ওই কেন্দ্রের ১০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হেফাজতে নেয়ার পর মামলা হলে রাতে এই পাঁচজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন জানান, ঘটনার সূত্রপাত ৩ আগস্ট। এদিন কিশোর বন্দি হৃদয়কে (চুল কাটায় পারদর্শী) চুল কেটে দিতে বলেন কেন্দ্রের নিরাপত্তাপ্রধান (হেড গার্ড) নূর ইসলাম। ঈদের আগে প্রায় দুশ বন্দির চুল কাটায় হৃদয় তার হাত ব্যথা উল্লেখ করে চুল কাটতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে নূর ইসলাম কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ও সহকারী তত্ত্বাবধায়ক মাসুম বিল্লাহর কাছে অভিযোগ করেন, ‘ওরা ট্যাবলেট খেয়ে নেশাগ্রস্ত হয়ে রয়েছে।’ এছাড়া তিনি হৃদয় ও তার বন্ধু পাভেলের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্কের ইঙ্গিত করেন। সেখানে উপস্থিত কিশোর নাঈদ অভিযোগ শুনে বিষয়টি পাভেলকে জানিয়ে দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পাভেল তার কিছু অনুসারী কিশোরকে নিয়ে নূর ইসলামকে মারপিট করে। এতে তার হাত ভেঙে যায়। এ ঘটনার সূত্র ধরেই ১৩ আগস্টের মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

কী ঘটেছিল ১৩ আগস্ট?

জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে ১৩ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ১৯ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। ওই সভায় ‘নূর ইসলামের ওপর হামলাকারীদের শাস্তি প্রদানের’ সিদ্ধান্ত হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শনাক্ত হামলাকারী ১৩ জনসহ আরও কয়েকজনকে বের করে আনা হয়। ওই পাঁচ কর্মকর্তার নেতৃত্বে কয়েকজন কর্মচারী এবং কর্মকর্তাদের আজ্ঞাবহ সাত-আটজন কিশোর বন্দি ‘অভিযুক্তদের’ মারপিট শুরু করেন। এ সময় তাদের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হয়।

মুখে গামছা ঢুকিয়ে জানালা দিয়ে হাত বাইরে বের করে টেনে ধরে পেছনে বেধড়ক মারপিট করা হয়। লোহার রড, ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে বেপরোয়া মারপিট করা হয়। অচেতন হলে মার বন্ধ করা হয়। ফের জ্ঞান ফিরলে মারপিট করা হয়। পালাক্রমে এভাবে মারপিটের পর গুরুতর জখম অবস্থায় এদের একটি ঘরে ফেলে রাখা হয়। একজন ‘কম্পাউন্ডার’ দিয়ে সামান্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করলেও এদের হাসপাতালে না পাঠিয়ে প্রায় ৬ ঘণ্টা ফেলে রাখা হয়।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মৃতপ্রায় অবস্থায় একজনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতাল থেকে তার মৃত্যুর খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জনসহ কর্মকর্তারা সেখানে গিয়ে দেখতে পান নির্যাতনের শিকারদের দুপুরে খাবার ও চিকিৎসা না দিয়ে গরমের মধ্যে গাদাগাদি অবস্থায় ফেলা রাখা হয়েছে। এরই মধ্যে আরও দুজনকে হাসপাতালে পাঠানো হলে তারাও মারা যায়। পরে অ্যাম্বুলেন্স ও পুলিশের পিকআপে ১৪ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরদিন আরও একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এনিয়ে এই মর্মান্তিক ঘটনায় তিনজন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়।

নিহতরা হলো- বগুড়ার শিবগঞ্জের তালিবপুর পূর্বপাড়ার নান্নু প্রামাণিকের ছেলে নাঈম হোসেন (১৭), একই জেলার শেরপুর উপজেলার মহিপুর গ্রামের আলহাজ নুরুল ইসলাম নুরুর ছেলে রাসেল ওরফে সুজন (১৮) এবং খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা পশ্চিম সেনপাড়ার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হাসান রাব্বি (১৮)। নিহত রাব্বির রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ১১৮৫৩। রাসেল ও নাঈমের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার যথাক্রমে ৭৫২৪ ও ১১৯০৭। নাঈম হোসেন ধর্ষণ এবং রাব্বি হত্যা মামলার আসামি ছিল।

পরবর্তী পদক্ষেপ

ঘটনার পর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রের কর্মকর্তারা দু’পক্ষের সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা বললেও পরবর্তীতে আহত কিশোর বন্দিদের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে প্রকৃত ঘটনা বের হয়ে আসতে শুরু করে। পুলিশ দ্রুত তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে কেন্দ্রের ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়।

১৪ আগস্ট সন্ধ্যায় হত্যাকা-ের ঘটনায় যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন নিহত পারভেজ হাসান রাব্বির বাবা খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা পশ্চিম সেনপাড়ার রোকা মিয়া। মামলায় শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষকে বিবাদী করা হয়। মামলার পর পুলিশ হেফাজতে নেয়া ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে পাঁচজনকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।

এদিকে শুক্রবারই বন্দি তিন কিশোর নিহত হওয়ার ঘটনায় কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পাশাপাশি গঠন করা হয় দুটি তদন্ত কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন জানান, তদন্ত কমিটির পাশাপাশি পুলিশও মামলার তদন্ত অব্যাহত রেখেছে। মিটিংয়ে থাকা ১৯ জনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ, তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জড়িত হিসেবে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত হওয়ায় পাঁচ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড আবেদন করা হবে। এছাড়া জড়িত সাত-আট কিশোর বন্দিকে এই মামলায় আইনের আওতায় আনতে আদালতে আবেদন করা হবে।

পুলিশ সুপার উল্লেখ করেন, তারা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে ঘটনার বিশ্লেষণ করে সতর্কতার সঙ্গে মামলার তদন্ত কাজ পরিচালনা করছেন। যাতে প্রকৃত চিত্র ও প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আদালতে উপস্থাপন করতে পারেন। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. তৌহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রাব্বানী, যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি মনিরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

খুলনায় করোনা রোগীর সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়াল

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা জেলা ও মহানগরীতে গত ১৯ দিনে এক হাজারের বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এ নিয়ে ৫ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজের (খুমেক) আরটি-পিসিআর ল্যাবে আরও ৯৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে ৪৭ জনই খুলনা জেলা ও মহানগরীর। শুক্রবার তাদের নমুনা পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। খুমেকের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, খুমেকের আরটি-পিসিআর মেশিনে শুক্রবার মোট ২৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যার মধ্যে খুলনার নমুনা ছিল ১৬০টি। এদের মধ্যে মোট ৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। যার ৪৭ জন খুলনার। এছাড়া খুমেকের ল্যাবে সাতক্ষীরার ৩৬ জন, যশোরের চারজন, বাগেরহাটের চারজন, নড়াইলের দুইজন, পিরোজপুর ও ঝিনাইদহের একজন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

খুলনা জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, খুলনায় গত ২৬ জুলাই সন্ধ্যা পর্যন্ত ৪ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল। মৃত্যু হয়েছে ৬০ জনের। আর গত ১৯ দিনেই ১ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত খুলনায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৯৯২ জন। সন্ধ্যায় নতুন করে ৪৭ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৯ জন। এদের মধ্যে মোট ৩ হাজার ৭৫০ জন সুস্থ হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ৭৪ জনের।

তিনি আরও জানান, খুলনায় সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে মহানগরীতে ৩ হাজার ৯০৭ জন। এছাড়া কয়রা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৬৪ জন। পাইকগাছা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১১৬ জন। ডুমুরিয়ায় উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫৬ জন। ফুলতলা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২০০ জন। দিঘলিয়া উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১০৬ জন। তেরখাদা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৫৬ জন। রূপসা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২১০ জন। বটিয়াঘাটা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৪৫ জন। দাকোপ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৩৪ জন।

৪ হাজার টাকা ঘুষ না পেয়ে ভিক্ষুককে ভাতার কার্ড দেননি মেম্বার

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ভাতার কার্ড নেয়ার জন্য প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের কাছে চার হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেছেন মেম্বার। টাকা দিতে না পারায় প্রতিবন্ধীর ভাতার কার্ড আটকে দিয়েছেন ওই ইউপি সদস্য। ঘটনাটি কলারোয়া উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের।

আরও পড়ুন:  কালীগঞ্জে আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে বাড়ি নির্মানের অভিযোগ

গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্নজনের কাছে কার্ডটি পাওয়ার আশায় কান্নাকাটি করছেন জয়নগর ইউনিয়নের ক্ষেত্রপাড়া গ্রামের রওশন আরা বেগম (৬০)। তিনি ওই গ্রামের মৃত মোবারক গাজীর প্রতিবন্ধী ছেলে আকছেদ আলীর স্ত্রী। রওশন আরা বেগম বলেন, স্বামী আকছেদ আলী জন্ম থেকেই মানসিক ভারসাম্যহীন। ভিক্ষা করে সংসার চলে আমাদের। ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রেজাউল বিশ্বাসের কাছে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডের জন্য আবেদন করি। গত সপ্তাহে আমার স্বামীর কার্ড হয়েছে বলে জানান মেম্বার রেজাউল। কার্ড নিতে গেলে চার হাজার টাকা লাগবে বলে জানান তিনি। আমরা ভিক্ষুক হওয়ায় এত টাকা কোথায় পাব জানালে ভিক্ষা করে টাকা জোগাড় করে আনার কথা বলেন মেম্বার। পরে কার্ডটি আর দেননি তিনি।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য রেজাউল বিশ্বাস বলেন, আকছেদ প্রতিবন্ধী কি-না সেটি পরীক্ষার জন্য আমার কিছু টাকা খরচ হয়েছিল। আকছেদের স্ত্রীর কাছে আমার জেরের পাওনা ওই টাকা দাবি করেছিলাম। তারা সে টাকা এখনও দেয়নি। টাকা চাওয়ায় রাগ করে কার্ড নেয়নি তারা। জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান ছামছুদ্দিন আল মাসুদ বাবু বলেন, রেজাউল মেম্বার ঘুষ ছাড়া কোনো কাজ করেন না। এর আগেও সে ক্ষেত্রপাড়া গ্রামের খলিল সানার কাছ থেকে বয়স্কভাতার কার্ড করে দেয়ার জন্য পাঁচ হাজার টাকা নিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মৌসুমি জেরিন কান্তা বলেন, তদন্তপূর্বক এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির দোয়া ও মিলাদ মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় এবং মহামারী করোনা ভাইরাসসহ অন্যান্য রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও অসুস্থ্যদের আশু সুস্থতা এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর সাহায্য কামনায় আজ ১৫ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির উদ্যোগে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়্ এতে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সভাপিত এড. শফিকুল আলম মনা, নগর সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি ও জেলা সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান। পরিচালনা করেন আসাদুজ্জামান মুরাদ। দোয়া করেন মাওলানা আঃ গফ্ফার। এসময় উপস্থিত ছিলেন শেখ মোশাররফ হোসেন, জাফর উল্লাখ খান সাচ্চু, সিরাজুল ইসলাম, এড. বজলুর রহমান, এড. এসআর ফারুক, রেহানা ঈসা, স ম আঃ রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আঃ রশিদ, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, সিরাজুল হক নান্নু, নজরুল ইসলাম বাবু, রফিক মল্লিক, এড. করিফুল ইসলাম, জোয়াদ্দার খোকন, আবু হোসেন বাবু, কামরুজ্জামান টুকু, মোশারফ হোসেন মফিজ, মেহেদী হাসান দীপু, শাহিনুল ইসলাম পাখী, আঃ রহিম বক্স দুদু, ইকবাল হোসেন খোকন, মুজিবর রহমান, এড. গোলাম মওলা, মোঃ শাহজাহান, সাদিকুর রহমান সবুজ, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, নাজমুস সাকিবম পিন্টু, একরামুল কবির মিল্টন, হাসানুর রশিদ মিরাজ, শামসুজ্জামান চঞ্চল, নাজমুল হুদা সাগর, শরিফুল ইসলাম বাবু, হাফেজ আবুল বাসার, জাফরী নেওয়াজ চন্দন, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, মুজিবর রহমান ফয়েজ, জসিম উদ্দিন লাবু, মোল্লা কবির হোসেন, নাজির উদ্দীন নান্নু, আফসার মাষ্টার, হাফিজুর রহমান মনি, শমসের আলী মিন্টু, বদরুল আনাম খান, জামিরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান বিশ^াস, কামরান হাসান,  আকরাম হোসেন খোকন, ইসহাক তালুকদার, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দীন টারজান, ওহেদুর রহমান দীপু, ইমতিয়াজ আলম বাবু, বাচ্চু মীর, হেমায়েত হোসেন, আসলাম হোসেন, তৌহিদুর রহমান খোকন, মোস্তফা কামাল, জাহিদ কামাল টিটু, হাসনা হেনা,মাহবুব হোসেন, নীরুল কাজী, এনামুল হক সজল, মেহেদী হাসান সোহাগ, এড. মফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম জলি, তারিকুল ইসলাম তরু, এনামুল হাসান ডায়মন্ড, কাজী মাহমুদ আলী, মাজেদা খাতুন, মোঃ আলী, মশিউর রহমান খোকন, আসাদুজ্জামান আসাদ, জিএম রফিকুল হাসান, আলমগীর হোসেন, ডাঃ ফারুক হোসেন, জাকারিয়া লিটন, হুমায়ুন কবির, ম শা আলম, জাবীর আলী, মনিরুল ইসলাম, হেদায়েত হোসেন হেদু, জুলকার হোসেন, শেখ ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

দোয়ার পূর্বে সংক্ষেপ আলোচনায় বক্তারা বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বেশ আগে থেকেই নানাবিধ শারিরীক জটিলতা ভূগছিলেন। মিথ্যা বানোয়াট মামলায় দীর্ঘ কারাবাসের কারণে তাঁর অসুস্থতা আরো গুরুতর হয়েছে। জামিনে কারামুক্তির পূর্ব থেকেই দেশে মহামারী করোনা ভাইরাস প্রভাব বিস্তার শুরু করেছে যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে তাঁর চিকিৎসা কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবেই ব্যাহত হয়েছে। এমনিতেই দেশনেত্রীর যে ধরণের এডভান্সড ট্রিটমেন্ট প্রয়োজন বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ মত দিয়েছেন তা বাংলাদেশে সম্ভব নয়। আর দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা যে কতটা ভঙ্গুর অবস্থায় পৌঁছেছে তা তো করোনাকালে গত কয়েকমাসে জাতি হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন। দোয়া অনুষ্ঠানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে তাঁর সুবিধামত চিকিৎসা সেবা গ্রহণের সুযোগ দিতে সরকারের সদিচ্ছা একান্ত অপরিহার্য। প্রতিহিংসার উর্ধ্বে উঠে দেশনেত্রীকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রে কোন বাঁধা সৃষ্টি না করতে বক্তারা সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

দোয়া অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। এছাড়া মহামারী করোনা ভাইরাসে বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ যারা মারা গেছে তাদের মাগফিরাত কামনা এবং অসুস্থদের জন্য রোগমুক্তি কামনা করা হয়। খুলনা, সাতক্ষীরাসহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ এবং উত্তরাঞ্চলের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আল্লাহর নিকট সাহায্য প্রার্থনা করা হয়।

জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল পুর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তারা বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সাজা দেয়া হয়েছে

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সাজা দেয়া হয়েছে। তাকে এখন মুক্ত বলা হলেও কার্যত তিনি মুক্ত নন। আমাদের নেত্রী বেগম জিয়াকে অন্যায়ভাবে দীর্ঘ দুই বছর জেলে রাখা হলেও তিনি আপস করেননি। তিনি যেকোনো সঙ্কটে জনগণকে ছেড়ে যাননি। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, আমরা অত্যন্ত দুঃসময়ে বসবাস করছি। বর্তমান রাতের ভোটে নির্বাচিত সরকারের কাছে কারো নিরাপত্তা নেই। খুন-হত্যা, হামলা মামলা নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। গনতন্ত্র হত্যাকারী অবৈধ সরকারের হাত থেকে গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

শনিবার বিকাল ৫টায় কেডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যলয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী, গণতন্ত্রের সংগ্রামে আপোষহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া’র ৭৬তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল পুর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তরা এসব কথা বলেন। বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও খুলনা মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শফিকুল আলম তুহিন, আজিজুল হাসান দুলু, মাহবুব হাসান পিয়ারু, একরামুল হক হেলাল, মাসুদ পারভেজ বাবু, আজিজা খানম এলিজা, তারিকুল ইসলাম তারিক, নেহিবুল হাসান নেহিম, ময়েজ উদ্দিন চুন্নু, মেহেদী মাসুদ সেন্টু, শামসুন্নাহার লিপি, শরিফুল ইসলাম টিপু, সোহরাব হোসেন, অহিদুজ্জামান হাওলাদার, মইদুল হক টুকু, আব্দুল আজিজ সুমন, মুনতাসির আল মামুন, জাকির ইকবাল বাপ্পী, মিজানুর রহমান বাবু, সোহেল মোল্লা, আলামিন হোসেন, মহিদুল ইসলাম, মাহমুদ হাসান বিপ্লব, মোল্লা সোলায়মান হোসেন, হারুনুর রশীদ মাসুম, মনিরুজ্জামান মনি, এম এম জসিম, আবুল কালাম, ইয়াসির সেখ, নাজমুল হাসান বাবু, সামাদ বিশ্বাস, বেলাল শাহ প্রমূখ। সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার সুস্বাস্থ্য, রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ূ এবং শহীদ জিয়াউর রহমান, শফিউল বারী বাবু, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে ও বন্যার্তদের জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেণ হাফেজ মোঃ মহিবুল্লাহ।

খুলনা ও আশপাশে জাতিয় শোক দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্ট

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস-২০২০ উপলক্ষে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ ভাসানী), ন্যাশনাল পিপল পার্টি (এনপিপি), ন্যাশনাল ডেমোক্রাটিক ফ্রন্ট-(এনডিএফ)-এর পক্ষ শনিবার বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও তাবারক বিতরণ করা হয়। এ সকল অনুষ্ঠানে নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে দেশ স্বাধীন হতো না। ১৫ আগস্ট ঘাতকরা অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে বঙ্গবন্ধুসহ পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করে। জাতি আজ কলঙ্ক বয়ে বেড়াচ্ছে। নেতৃবৃন্দ হলেনÑএনপিপি’র চেয়ারম্যান, ১০ দলীয় জোট প্রধান আলহাজ্ব শেখ সালাউদ্দিন সালু, ন্যাপ ভাসানী চেয়ারম্যান আব্দুল হাই সরকার, ন্যাপ ভাসানী’র কেন্দ্রীয় সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খুলনা মহানগর সভাপতি শেখ ইকবাল আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সাহিদা আনোয়ারুল হক, মহাসচিব মোঃ ইব্রাহিম, এনপিপি’র দপ্তর সম্পাদক এস এম আল আমীন প্রমুখ।

পল্লীমঙ্গল স্কুল: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার বিকালে খুলনা পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাবেক জাতীয় কৃতি ফুটবলার শেখ মোঃ আসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসে উপপ্রধান তথ্য অফিসার ম. জাভেদ ইকবাল, খুলনা মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক আলমগীর কবীর, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সরদার মাহবুবার রহমান, খুলনা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, ইউএনবি খুলনা প্রতিনিধি শেখ দিদারুল আলম,  গ্লোবাল খুলনার আহবায়ক শাহ মামুনুর রহমান তুহিন, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক কোচ আব্দুর রাজ্জাক, অধ্যাপক আবজালুর রহমান প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ মোঃ রফিকুল ইসলাম।

পাইকগাছা : পাইকগাছায় বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শনিবার সকালে উপজেলা বঙ্গবন্ধু ও ২১শে চত্ত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। বিকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ইউএনও খালিদ হোসেন সিদ্দিকির সভাপতিত্বে ও সহকরী কমিশনার ভূমি মুহাম্মদ আরাফাতুল আলমের পরিচালনায় আলোচনা সভা, পুরস্কার ও যুব ঋণের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা-৬ সংসদ সদস্য মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু, বক্তব্য রাখেন, শেখ শাহাদাৎ হোসেন বচ্চু, পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর, ওসি মোঃ এজাজ শফি, উপজেলা আওয়ামী সভাপতি আনোয়ার ইকবাল মন্টু, অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল।

কপিলমুনি: কপিলমুনিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে শনিবার সকালে কপিলমুনি ইউনিয়ন আ’লীগের উদ্যোগে স্থানীয় দলীয় কার্যালয়ে সভাপতি যুগোল কিশোর দে’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ইকবাল হোসেন খোকনের সঞ্চালনায় স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ রশীদুজ্জামান, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কওছার আলী জোয়ার্দার, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনন্দ মোহন বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ জামাল হোসেন, জি এম হেদায়েত আলী টুকু, মোস্তাফিজুর রহমান, রণজিত কুমার মন্ডল, গৌতম সাহা, সন্দীপ সাধু, অলোক হালদার, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ ইমরান মোল্লা  প্রমূখ।

খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ:

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পক্ষ থেকে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা প্রদান করা হয়। এছাড়া পরিচালক হাসপাতাল ডাঃ এম. এ. আলীর সভাপতিত্বে বাদ যোহর হাসপাতালে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক ডাঃ মোঃ আসাদুল হক।

খুলনা প্রেসকাব: যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য্যরে মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার সকালে খুলনা প্রেসকাবের পক্ষ থেকে জাতির পিতার স্মৃতি ভাস্কর্যে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দিবসের কর্মসূচির শুরুতে কাবের নেতৃবৃন্দ কাব চত্বরে জাতির পিতার স্মৃতি ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। খুলনা প্রেসকাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বক্তৃতা করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক। সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা প্রেস কাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম। সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা।

শেখ জসিমের খাবার পরিবেশন: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে মোংলার ৮টি মাদ্রাসার এতিম খানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়েছে। স্থানীয় সাংসদ ও পরিবেশ, বন এবং জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রনালয়ে উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের নির্দেশনায় শনিবার দুপুরে পৌর শহরের ৮টি মাদ্রাসার এতিম শিক্ষার্থীদের হাতে এ খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম। আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম তার ব্যক্তিগত তহবিল হতে এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে এ উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করেন। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে তার উদ্যোগে বিভিন্ন সংগঠন ও সাধারণ মানুষের মাঝে গাছের চারা বিতরণ ও স্বেচ্ছায় রক্তদান ক্যাম্পিং করা হয়। এর আগে সকালে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে পৌর পার্ক সংলগ্ন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিেেয় শ্রদ্ধা জানান নেতা-কর্মীরা।

শরণখোলা: স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকীতে জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত, দলীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু করা হয়।

সকাল ৯টায় শোক র‌্যালি শুরু হয়ে উপজেলার রায়েন্দা বাজারে প্রদক্ষিণ শেষে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বঙ্গবন্ধুর স্থায়ী প্রতিকৃৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, তাঁতিলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মৎস্যজীবি লীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

জেপি: জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতীয় পার্টি-জেপি খুলনা জেলা শাখার উদ্যোগে এক সভা পার্টির জেলা শাখার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার সকাল ১১.০০ টায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এই সভায় প্রধান অতিথির বক্তিৃতায় জেপির প্রেসিডিয়াম সদস্য শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন বলেন জাতির জনককে হত্যার মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি এদেশের ইতিহাসের পাতাকে কলঙ্কিত করেছিল। তারা এদেশকে নেতৃত্ব শূন্য করে দিয়ে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকারের অভ্যন্তরে লুক্কায়িত কুচক্রীরা এখনো ষড়যন্ত্র করছে। সকল ষড়যন্ত্রকে ব্যর্থ করার জন্য প্রধান মন্ত্রীকে কঠোর হতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। জেলা জেপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ডঃ এস,এম জাকারিয়ার সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক জনাব মোশারেফ হোসেন হাওলাদারের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেপির জেলা শাখার সভাপতি এ্যাডঃ মোঃ আব্দুল মজিদ ও বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য এফ এম ইকবাল।

যুবলীগঃ জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে খুলনা মহানগর যুবলীগের পক্ষথেকে এতিম ও অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাদ্য বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার সকালে হাদিসপার্কের সামনে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, নগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, যুবলীগ নেতা হাফিজুর রহমান হাফিজ, আব্দুল কাদের শেখ, কাজী কামাল হোসেন, নজরুল ইসলাম দুলু, শওকত হোসেন, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কাজী ইব্রাহীম মার্শাল, মোস্তফা শিকদার, মশিউর রহমান সুমন, মেহেদী হাসান মোড়ল, কে এম শাহীন হাসান, রাশেদুজ্জামান রিপন, ইলিয়াস হোসেন লাবু, আরীফুর রহমান, সাজ্জাত জাকির হোসেন, শওকত হাসান, মোস্তাঈন বিল্লাহ চঞ্চল, মুক্তা সরদার, মাছুম উর রশিদ, কাঞ্চন শিকদার, জামিল হোসেন সোহাগ, তাজদিকুর রহমান জয়, জামিল হোসেন প্রমূখ। এছাড়াও ১৫ নং ওয়ার্ডে মেডিকেল ক্যাম্প, ১৬, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৩, ২৪, ২৫, ২৬, ২৭, ২৮, ২৯ ও ৩১ নং ওয়ার্ডে এতিম অসহায়দের মাঝে খাদ্য বিতরন করা হয়।

মহানগর ছাত্রলীগ: স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ দিবস উপলক্ষে সীমিত পরিসরে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে খুলনা মহানগর ছাত্রলীগ। গতকাল শনিবার ১৫ আগস্ট শোক দিবসের শুরুতে সকালে জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন করেন এবং জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এরপর সকাল সাড়ে ৮ টায় নগরীর বয়রাস্থ খুলনা বেতার কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতার মূর‌্যালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এরপর বিকালে দলীয় কার্যালয়ে শোক সভায় অংশগ্রহন করেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও মহানগর ছাত্রলীগের অর্ন্তগত বিভিন্ন থানা কলেজ ও ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে দোয়া মাহফিল, খাদ্য বিতরণ ও বৃক্ষরোপর করেন ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। এসময় উপস্থিথ ছিলেন খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল। আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর ছাত্রলীগ নেতা সোহেল বিশ্বাস, আসাদুজ্জামান বাবু, রণবীর বাড়ই সজল, মাহামুদুল হাসান শাওন, এখতিয়ার মোল্লা প্রমূখ।

বক্ষব্যাধি হাসপাতাল: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতী শোক দিবস উপলক্ষ্যে বক্ষব্যাধি হাসপাতালের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১০টায় মীরেরডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালের অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত চিকিৎসা তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ ইউনুস আলী।

নিসচা’র খানজাহান আলী থানা : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে নিরাপদ সড়ক চাই এর উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট বেলা ১২টায় শিরোমণিস্থ নিজস্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন থানা আহ্বায়ক শেখ আব্দুস সালাম। প্রধান অতিথি ছিলেন নিসচা’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আজাদ হোসেন। সদস্য সচিব মোঃ লুৎফর রহমানের লিটনের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন শফিউল আজম খান ফিরোজ, মোঃ জাকির হোসেন, এমদাদ হোসেন, শেখ শরিফুল ইসলাম, আবুল কালাম, শেখ ইউসুফ আলী, শেখ আফজাল হোসেন, মহিত বিল্লাহ, মোঃ সাগর শেখ, মোঃ ওসমান প্রমুখ।

গণসেবা সংস্থা: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গণসেবা সংস্থার উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১১টায় শিরোমণিস্থ নিজস্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মোঃ শফিউল আজম খান ফিরোজ। সাধারণ সম্পাদক  ও ইউপি সদস্য শেখ আব্দুস সালামের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন শেখ মিজানুর রহমান, শেখ শরিফুল ইসলাম, মোঃ লুৎফর রহমান লিটন, এসএম মাসুম বিল্লাহ, মোঃ আব্দুল হাকিম, আবুল কালাম, গাজী আল মামুন প্রমুখ।

খানাবাড়ী গার্লস হাই স্কুল: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে খানাবাড়ী গার্লস হাই স্কুলের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ৯টায় স্কুলের অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন এস এম ইসহাক হোসেন। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আসাদুজ্জামানের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ মোঃ ইমলাক ঢালী,ফকির মোকসেদ আলী, ডালিয়া আক্তার, শেখ সাইদুর রহমান, শেখ আব্দুস সাত্তার, গাজী আব্দুল হালিম, শাহনাজ জামালি মিলি। দোয়া পরিচালনা করেন শিক্ষক মোঃ ইদ্রিস আলী হাওলাদার।

আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকাল ১১টায় ইউনিয়ন পরিষদের অডিটরিয়মে ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খানজাহান আলী থানা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা স.ম রেজয়ান আলী , ইউপি সদস্য নবিরুল ইসলাম রাজার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন ইউপি সচিব তুলশী দাশ মন্ডল, প্যানেল চেয়ারম্যান খান হাফিজুর রহমান, ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খ.ম লিয়াকত আলী, ইউপি সদস্য শেখ আঃ সালাম, মোল্লা সোহরাব হোসেন, হাফেজ গোলাম মোস্তফা, বখতিয়ার হোসেন, মাহমুদ হাসান, হুমায়ুন কবির, আম্বিয়া বেগম, কাজী আজাদুর রহমান হিরোক, মীর রবিউল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, গ্রাম আদালত সহকারী আরজু, মোঃ লিটন , মোঃ বাবুল হোসেন প্রমুখ । আলোচনা সভা শেষে ১৫ আগষ্টে নিহত সকলের রুহের মাগফেরাত কামনা করে  দোয়া অনুষ্ঠিত হয় ।দোয়া পরিচালনা করেন শিরোমণি বাজার জামে সমজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওঃ আতাউর রহমান।

খানজাহান আলী থানা আ’লীগ: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে খানজাহান আলী থানা ও ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সকালে জাতীয় পতাকা, দলীয় পতাকা, কালো পতাকা উত্তোলন ও দিনব্যাপী কোরআন তেলওয়াত এবং সন্ধায় আলোচনা সভা, দোয়ার অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল ৫টায় ফুলবাড়ীগেট দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন খানজাহান আলী থানা সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন। কেসিসি ২নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মনিরুজ্জামান মুকুলের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী ও থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিসুর রহমান।

ফকিরহাট : বাগেরহাটের ফকিরহাটে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৫অগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি পালন উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন,উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ সকল সহযোগী সংগঠন দিবসটি পালন করেছেন। পিলজংগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিকাল ৫টায় বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় মিলনায়তনে ইউনিয়ন আ,লীগের সভাপতি প্রভাষক অঞ্জন কুমার দের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। পরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাধারন সম্পাদক মোড়ল জাহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা আ,লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সুবীর কুমার মিত্র, তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক জীবন কৃষ্ণ ঘোষ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক প্রভাষক সুমন ধর, অমল দত্ত মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মোশারেফ হোসেন, ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ আছাবুর রহমান, সাঃ সঃ আসাদুজ্জামান, শ্রমীকলীগের সভাপতি অপিরুদ্দন অপি ও শিক্ষক রিংকু চক্রবর্তী। পরে মুফতি আব্দুল হান্নানের পরিচালনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পারভেজ হত্যায় মানিকতলায় সড়ক অবরোধ

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি

 যশোর সদর উপজেলার পুলেরহাট এলাকায় অবস্থিত শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ভিতরে গত ১৩ আগষ্ট মহেশ্বর পাশা পশ্চিম সেনপাড়া এলাকার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হোসেন রাব্বি ( ১৭)( রেজি নং ১১৮৫৫৩ ) হত্যার ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে ১৫ আগষ্ট শনিবার সকাল পৌনে ১০টা থেকে পৌনে ১১টা পর্যন্ত ১ ঘন্টা লাশ সামনে নিয়ে খুলনা যশোর মহাসড়কের মানিকতলায় সড়ক অবরোধ করে স্থানীয়রা । এসময় সড়কের উভয় পাশে তিব্র যানজটের সৃষ্টি হয় । পারভেজের মরদেহ নিয়ে এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ কালে বলেন  পারভেজ একটি মামলার অপরাধে কিশোর আদালতের মাধ্যমে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ছিলো, যেখানে শিশুদের আলোর পথ দেখানোর কথা সেখানে তাকে সহ মোট ৩ জনকে নৃশংস্ব ভাবে হত্যা করা হয়েছে । এর সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানিয়ে সড়ক অবরোধ করে। সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোশারেফ হোসেন ঘটনাস্থলে পৌছে বলেন ঘটনাটি যশোর এলাকার তারপরও আমাদের পক্ষ থেকে সুষ্ট বিচারের জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে বলে আশ্বাস প্রদান করার পর এলাকাবাসী মহাসড়ক থেকে নিহত রাব্বির মরদেহ নিয়ে মানিকতলা জামে মসজিদের সামনে জানাযা শেষে মহেশ^পাশা কবরস্থানে দাফন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন আকরাম সরদার, আব্দুল হালিম, মোঃ আনোয়ার হোসেন, নূর ইসলাম, কামাল হোসেন, লুৎফর রহমান সহ এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও নেতৃবৃন্দ।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা

গতকাল সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচন ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।  সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাতক্ষীরা প্রেসকাবের সদস্য ও সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সাধারণ সম্পাদক এবং দৈনিক ভোরের পাতা’র জেলা প্রতিনিধি এস এম মহিদার রহমান।

সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। এ দিনটি বাঙালীদের কাছে একটি কলংকিত দিন। এ দিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, বাঙালীর জাতির পিতা, যিনি সৃষ্টি না হলে বাঙালী জাতির সৃষ্টি হতো সেই  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেই কিছু বিপদগামী সেনারা স্বপরিবারে হত্যা করে বাঙালী জাতিকে কলংকিত করেছে। এখন সময় হয়েছে এই কলংক থেকে দায় মুক্ত হওয়ার।

পরবর্তীতে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সিনিয়র সহ-সভাপতি সাপ্তাহিক মুক্ত স্বাধীন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আবুল কালাম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন ১৫ আগস্ট বাঙালীদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এ দিন দেশদ্রোহীরা বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তাদের নীল নকশা বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিল। বাংলাদেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছিল কিন্তু তাদের সেই আকাঙ্খা পূরণ হয়নি।

এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের সহ সভাপতি এম ঈদুজ্জামান ইদ্রিস, প্রচার সম্পাদক জনাব তাজমিনুর রহমান টুটুল, শিক্ষা সম্পাদক প্রফেসর রজব আলী ও আইন সম্পাদক এ্যাডঃ আজহারুল ইসলাম। এ সময় বক্তারা বলেন, ১৫ আগস্ট বাঙালীদের কাছে শোকের মাস। এমাসে বাঙালী জাতির পিতা ও  বাংলার  মহানায়ককে তার স্বপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। এমনকি বঙ্গবন্ধুর শিশুপুত্র শেখ রাসেলকে ও তারা মারতে দ্বিধা করেনি। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা আর নেই। তারা এ হত্যার ঘটনায় জড়িত সকল দোষীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় এনে ফাঁসির দাবি জানান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন অর্থ সম্পাদক ও দি ডেইলি সান পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শেখ আমিনুর রশিদ সুজন,তথ্য সম্পাদক ও দৈনিক নবচেতনা পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শেখ হাসান গফুর, দপ্তর সম্পাদক ও দৈনিক নওরোজ/দৈনিক কালান্তর পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি বোরহান উদ্দীন বুলু, প্রচার সম্পাদক ও দৈনিক ভোরের দর্পন পত্রিকার স ম তাজমিনুর রহমান টুটুল, প্রকাশনা সম্পাদক ও দৈনিক উত্তর দক্ষিণ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি আসিফ পারভেজ বিরু, সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও দৈনিক রাজপথের দাবী পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি এ এস এম শাহ্নেওয়াজ মাহ্মুদ রনি, মানবাধিকার সম্পাদক ও খুলনাঞ্চল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি খান নাজমুল হুসাইন , সমাজ কল্যান সম্পাদক ও দৈনিক অনির্বান এর জেলা প্রতিনিধি জি এম সোহরাব হোসেন, কার্যকরী সদস্য ও সময় বার্তার সম্পাদক মোঃ মোশারাফ হোসেন, দৈনিক জন্মভূমি  ও সুপ্রভাত এর পাটকেল ঘাটা প্রতিনিধি প্রভাষক নাজমুল হক , দৈনিক ভোরের পাতা ও দৈনিক কাফেলা’র দেবহাটা প্রতিনিধি মোঃ ওহিদুজ্জামান , কার্যকরী সদস্য ও দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মোতাহার নেওয়াজ মিনাল, সাধারন সদস্য ও সাপ্তাহিক মুক্তস্বাধীন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, দৈনিক গণমুক্তির জেলা প্রতিনিধি শেখ হাবিবুর রহমান হবি, একাত্তর বাংলা টিভির জেলা প্রতিনিধি মোঃ ইদ্রিস আলী, দৈনিক দেশ সংযোগ ’র জেলা প্রতিনিধি মোঃ আমিরুল ইসলাম , দৈনিক প্রথম বেলার জেলা প্রতিনিধি মোঃ শহিদুল ইসলাম শহিদ, মুক্তস্বাধীন পত্রিকার নিজস্ব প্রতিনিধি মোঃ মনিরুল ইসলাম , এ বি এম মহিদুল ইসলাম , মোঃ আব্দুল মাতিন সহ আরো অনেকে। সভা শেষে দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

বাগেরহাটে নানা কর্মসুচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে নানা কর্মসুচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকালে দিবসটি উপলক্ষে বাগেরহাটে জেলা প্রশাসন ও বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকিৃতিতে  পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। এসময় বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায়, বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান টুকু, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিনসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।পরে বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করেন অতিথিরা।

এছাড়াও বাগেরহাট জেলা পুলিশ, বাগেরহাট প্রেসকাব, বাগেরহাট সদর হাসপাতাল, সদর উপজেলা পরিষদ, নিরাপদ সড়ক চাই, বাগেরহাট জেলা ছাত্রলীগ, তাতী লীগসহ জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন।

পরে জাতির জনকের স্মরণে বাগেরহাট স্বাধীনতা উদ্যানে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহন করেন।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে সকালে মোরেলগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেছেন বাগেরহাট-৪(মোরেলগঞ্জ-শরনখোলা)আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. আমিরুল আলম মিলন। এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. শাহ-ই-আলম বাচ্চু, সহকারি কমিশনার(ভূমি) রঞ্জণ চন্দ্র দে, থানার ওসি কে এম আজিজুল ইসলাম ও ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তারা উপিস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বাগেরহাটের সকল উপজেলায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প্যমাল্য অর্পন, বৃক্ষ রোপন, মাছের পোনা অবমুক্তকরণসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে বাগেরহাটে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

চিতলমারীতে স্কুলের জায়গা দখলের অভিযোগ

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারীতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখলের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের পক্ষ হতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। ইউএনও বিষয়টি শিক্ষা কর্মকর্তাকে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলেছেন। তবে ডাঃ জওহর লাল সিংহ দখলের কথা অস্বীকার করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, করোনায় বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুযোগে চিতলমারী উপজেলার ৯৬নং চরবানিয়ারী পশ্চিমপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের পেছনের প্রায় আড়াই শতক জায়গা ডাঃ জওহর লাল সিংহ নামের এক ব্যাক্তি নেট ও তারকাঁটা দিয়ে ঘিরে দখল করে নিয়েছেন। গত ১০ আগস্ট তিনি নিজে হঠাৎ গ্রামে উপস্থিত হয়ে এই সরকারি জায়গা দখল করেছেন। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কোন বাধার তোয়াক্কাই করেননি বলে স্থানীয়রা জানান। এই বিষয়ে গত ১২ আগস্ট চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি গোপাল কৃষ্ণ সিংহ এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অঞ্জলী রানী সিংহ। গোপাল কৃষ্ণ সিংহ ও প্রধান শিক্ষক অঞ্জলী রানী সিংহ বলেন, ‘১৯৮৫ সালে বিদ্যালয়টি স্থাপনকালে মৃতঃ গৌর চন্দ্র সিংহ এবং মৃতঃ দয়াল চন্দ্র সিংহ যৌথভাবে ৩৩ শতক জায়গা দান করেছিলেন। সেই জায়গা হতে হঠাৎ করে ডাঃ জওহর লাল সিংহ প্রায় আড়াই শতক জায়গা জোর করে দখল নিয়েছেন। এটা অন্যায়। তাই সরকারি বিদ্যালয়ের সম্পত্তি জবরদখল মুক্ত করতে এবং দখলদারের উপযুক্ত শাস্তির জন্য ইউএনওর নিকট তারা লিখিত অভিযোগ করেছেন। এছাড়া বিষয়টি জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। তারা আরো জানান, ডাঃ জওহর লাল সিংহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের স্পেশাল গ্যাস্ট্রোন্টোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক (সার্জারী)। এ বিষয়ে চিতলমারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, তিনি দখলের কথা শুনেছেন। কিন্তু কোন লিখিত অভিযোগ পাননি। পরে আবার মোবাইলে জানান, বিষয়টি নিয়ে আগামী রবিবার ওই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা হবে। তারপর বিস্তারিত তিনি জানাতে পারবেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, ওই লিখিত অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের কোন তথ্য না জানানোর জন্য শিক্ষা কর্মকর্তা বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষকে বলেছেন। তবে এ অভিযোগ শিক্ষা কর্মকর্তা অস্বীকার করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই বিদ্যালয়ের ভবনের পেছনের অংশ নীল রঙ্গের নেট ও তারকাঁটার বেড়া দিয়ে ঘেরা। ঘেরার ভিতরের অংশে স্কুলের সীমানা পিলার রয়েছে। ওই পিলার পর্যন্ত বিদ্যালয়ের সম্পত্তি বলে দাবি করেন এসএমসি সভাপতি গোপাল কৃষ্ণ সিংহ। ডাঃ জওহর লাল সিংহের ছোট ভাই সাবেক ইউপি সদস্য হিরন্ময় সিংহের মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের সাথে কথা হয় ডাঃ জওহর লাল সিংহের সাথে। ডাঃ জওহর লাল সিংহ জবর-দখলের কথা অস্বীকার করে জানান, তার নিজের সম্পত্তি ঘিরেছেন। বিদ্যালয়ের বা সরকারি কোন সম্পত্তি তিনি জবর-দখল করেননি।

তবে চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলম ওই অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, শিক্ষা কর্মকর্তাকে বিষয়টি’র আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে।

চিতলমারীতে গাঁজার গাছসহ গ্রেফতার ১

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারী থানা পুলিশ দু’টি গাঁজার গাছসহ আনন্দ গোলদার (২৭) নামে এক যুবককে আটক করেছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ৭ টায় উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের বাবুয়ানা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত আনন্দ গোলদার বাবুয়ানা গ্রামের হরিপদ গোলদারের ছেলে। চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর শরিফুল হক জানান, শনিবার (১৫ আগস্ট) সকালে থানার একটি টিম মাদক বিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় তারা বাবুয়ানা গ্রামের চিহ্নিত মাদক কারবারী আনন্দ গোলদারকে দুইটি গাঁজা গাছসহ আটক করে। তার বিরুদ্ধে থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আনন্দ’র নামে থানায় আগের আরো একটি মাদক মামলা রয়েছে।

শোক দিবসে বাগেরহাটে মাছের পোনা অবমুক্ত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাগেরহাটের বিভিন্ন সরকারি পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) দুপুরে বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করার মাধ্যমে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ। এসময় বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাফিন মাহমুদ, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক,  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মাদ মুছাব্বেরুল ইসলাম, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রিজিয়া পারভীণ, সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোৎ ফেরদাউস আনসারীসহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাগেরহাট জেলার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পুকুর, নদী, খাল ও বিলে মৎস্য পোনা অবমুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক।

রাজাপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের জাতীয় শোক দিবস পালন

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রূপসার আইচগাতী ইউনিয়নের ২নং রাজাপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল দিন ব্যাপী কোরআন খানি, ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে আসরবাদ বিশেষ দোয়া এবং মন্দিরে সুবিধাজনক সময় প্রার্থনা সভা ও খাবার বিতরণ। এ সময় আইচগাতী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট সমাজসেবী আলহাজ্ব শেখ শামিম হাসান তুহিন, আওয়ামী লীগ রাজাপুর ওয়ার্ড শাখার সভাপতি ডা.গৌরপদ মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য শেখ ওহিদুজ্জামান মিন্টু, মো. কামরুজ্জামান টিপু, হারুনুর রশিদ খোকন, মো. আরমান হোসেন, মনিরুল ইসলাম বাবলু, মো. মনিরুল ইসলাম, মো. সাইদুর রহমান, মাহবুবুর রহমান তালুকদার মিন্টু, সোহাগ গোলদার, উৎপল সাহা, শেখ হাফিজুর রহমান, লিটন বিশ্বাস খোকন, সুভাষ সাহা, নির্মল দাশ, কামাল হোসেন মানিক, মো. মাইনুল হোসেন, মো. পলাশ, আমির হামজা তপু, মো. বাপ্পি, মো. সুমন বাবু  ও মো. জামাল হোসেনসহ নেতাকর্মীরা ছিলেন।

কয়রায় যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

কয়রা প্রতিনিধি

কয়রায় হাজার বছরের শেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে কয়রা উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৬ টায় আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আ’লীগ সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার নেতৃত্বে জাতীয় পতাকা, দলীয় পতাকা ও শোক দিবসের কালো পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং হাফেজদের নিয়ে কোরআন শরিফ খতম দেয়া হয়। পরে সকাল সাড়ে ৮ টায় উপজেলা পরিষদ চত্তরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন করা হয়। প্রথমে উপজেলা প্রসাশন, উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সয়ংসদ, যুবলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, প্রজন্মলীগ,ছাত্রলীগ, বঙ্গবন্ধু যুব পরিষদ ও মহারাজপুর ইয়ংস্টার কাব সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। সকাল ১০ টায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিষদের হলরুমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা-৬, জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন  উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডঃ কমলেশ কুমার সানা, সহকারি কমিশনার (ভুমি) নুর-ই-আলম সিদ্দিকী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা আলম, কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল হোসেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাগর হোসেন সৈকত সহ সরকারি কর্মকর্তাবৃন্দ।

অপর দিকে বেলা ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বাবু বিজয় কুমার সরদারের পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা-০৬ কয়রা –পাইকগাছার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু। এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে জানলেই জানা হবে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ, একটি জাতি, একটি মানচিত্র, একটি পতাকা, আমাদের স্বাধীনতা। নিন্দুক আর জাতির শত্রুরা বঙ্গবন্ধুর উচ্চতা একচুলও খাটো করতে পারেনি। পারবেও না। পচাত্তর সালের পর বিএনপি –জামায়াত -খালেদা চক্র ধারাবাহিক ভাবে ষড়যন্ত্র -হত্যা-খুনের অপরাজনীতি করছে উল্লেখ করে সাংসদ বাবু বলেন, তারা ১৫ ই আগষ্ট মিথ্যা জন্মদিন পালনের নামে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের উল্লাস করে। ২১ শে আগষ্ট শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টা, জঙ্গি-সন্ত্রাস ও আগুন দিয়ে মানুষ পোড়ানো, যুদ্ধপরাপধীর বিচার আটকানো আর নির্বাচন বানচাল করে অস্বাভাবিক সরকার তৈরির চক্রান্ত করে আসছে। তাই শোক দিবসের শোককে শক্তিতে পরিণত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে এবং অবিলম্বে বঙ্গবন্ধু খুনীদের দেশে এনে ফাসি কার্যকর করতে হবে। আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক জেলা আ’লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডঃ কেরামত আলী ও রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার কফিল উদ্দিন, বাবু খগেন্দ্রনাথ মন্ডল, যুগ্ম সম্পাদক জাফরুল ইসলাম, প্রচার সম্পদক এসএম হারুন অর রশীদ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক শাহাবাজ আলী, আ’লীগ নেতা মাষ্টার খায়রুল আলম, কয়রা সদর চেয়ারম্যান সাংবাদিক হুমায়ুন কবির, বেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান সরদার নুরুল ইসলাম, উপাধাক্য এইচএম নজরুল ইসলাম, জেলা যুবলীগ নেতা জসীমউদ্দিন বাবু ও শামীম সরকার, আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সভাপতি সুমাইয়া সুলতান লতা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম টিংকু, সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) আমিনুল হক বাদল প্রমুখ। এসময় উপজেলা আ’লীগ, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সহ সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন ওলামা লীগ নেতা মাওলানা মকসুদুর রহমান।

অভয়নগরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে দিবসের সূচনা করা হয়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদনের লক্ষ্যে সরকারি, বেসরকারি, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নেতাকর্মীরা জমায়েত হতে থাকে। সকাল আনুমানিক ৯ টার সময় শোক র‌্যালি নিয়ে উপজেলা আ’লীগ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে প্রথম শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এরপর যথাক্রমে- নওয়াপাড়া পৌর আ’লীগ, মহিলা আ’লীগ, উপজেলা ও পৌর যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ শ্রদ্ধা নিবদন করে। বেলা ১১ টায় উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা কামা-, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম, অভয়নগর থানা, নওয়াপাড়া ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স, নওয়াপাড়া শংকরপাশা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় শ্রদ্ধা নিবেদন করে। পরে নওয়াপাড়া পৌর মেয়র ও পৌর পরিষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। দুপুরে নওয়াপাড়া প্রেসকাবের পক্ষ থেকে শোক র‌্যালি সহকারে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সাংবাদিকরা। দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় পতাকা উত্তোলন সঠিকভাবে করা হচ্ছে কিনা এ বিষয়ে জাতীয় পতাকা পরিদর্শন কমিটির কয়েকটি টিম উপজেলা ও পৌর এলাকা পরিদর্শন করে। অপরদিকে নওয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে বিদ্যালয়ের এডহক কমিটি ও দৈনিক নওয়াপাড়ার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। 

অভয়নগরে আ’লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগর উপজেলা আ’লীগের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকীতে তাঁর ও তাঁর পরিবারের শহীদ স্বজনদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে নওয়াপাড়া বাজারে উপজেলা ও পৌর আ’লীগের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব এনামুল হক বাবুল। অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর চেয়ারম্যান সরদার অলিয়ার রহমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর, সহ-সভাপতি সানা আব্দুল মান্নান, যুগ্ম সম্পাদক ও নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র সুশান্ত কুমার দাস শান্ত প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন ক্বারী নজরুল ইসলাম।

অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, যুব ঋণ, হুইল চেয়ার ও পুরস্কার বিতরণ

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, যুব ঋণ, হুইল চেয়ার ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুল হুসেইন খাঁনের সভাপতি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর। এসময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেএম রফিকুল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, অভয়নগর থানার ওসি (তদন্ত) মিলন কুমার ম-ল, অভয়ণগর সুজনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আব্দুল লতিফ প্রমুখ।

মহেশপুরে শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকি ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

মহেশপুর(ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে ঝিনাইদহের মহেশপুরে আওয়ামীলীগ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শেখ মুজিবর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও  জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৭টায় উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন শেষে মহেশপুর জনতা ব্যাংক চত্বর থেকে একটি বিশাল শোক র‌্যালী বের হয়।

অপরদিকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্তর থেকে একটি শোক র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী সহকারে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খান চঞ্চল ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল,বীর মুক্তিযোদ্ধারা বীর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে শেখ মুজিবুর রহমানের মুড়ালে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। পরে অডিটরিয়ামে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খান চঞ্চল,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর সুলতানুজ্জামান লিটন,উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ নিজাম উদ্দীন আহাম্মেদ,পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি অমল কুমার কুন্ডু,শেখ এমদাদুল হক বুলু,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক মুক্তার হোসেন,দপ্তর সম্পাদক ও পৌর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আব্দুস সাত্তার,ডেপুটি কমান্ডার রবিউল আওয়াল,এসবিকে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বগা, ফতেপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আতাউর রহমান,স্বরুপপুর ইউনিয়ন আওযামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান,শ্যামকুড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি তিমির রায় চৌধুরী,নেপা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সামছুল আলম মৃধা,কাজিরবেড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা,বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব নওশের আলী মল্লিক, যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মহিদুল ইসলাম মাষ্টার,সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সালাউদ্দীন আহাম্মেদ, নাটিমা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম মাষ্টার, মান্দারবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ালীগের হারুন আর রশিদ,আজমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহাজান আলী,জেলা কৃষকলীগের যুগ্ন আহবায়ক আলহাজ্ব শরিফুল ইসলাম,জেলা পরিষদ সদস্য এম এ আসাদ,শেখ হাসেম আলী,পান্তাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইসমাইল হোসেন,প্রভাষক মুকুল গাজি,সাবেক উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কাজি আতিয়ার রহমান,যুগ্ন আহবায়ক ইয়াকুব আলী,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক সাহেদ মেহেবুব রঞ্জু, যুগ্ন আহবায়ক আশাবুল আরাফ শিমুল,আশিকুর রহমান,আবু হানিফ,উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আমিনুর রহমান, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ,পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি আলমগীর কবীর,পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের আব্দুল আজিজ প্রমুখ।

মহেশপুরে পিকাপের ধাক্কায় শিশু নিহত

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

রাস্তা থেকে ঝালমুড়ি কিনে রাস্তা পার হওয়ার সময় পিকাপের ধাক্কায় জুই খাতুন (৭) নামের এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহত জুই খাতুন ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌর এলাকার বোয়ালীয়া গ্রামের জসিম উদ্দীনের মেয়ে। এ ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার সকাল ৯টার দিকে মহেশপুর দত্তনগর সড়কের বোয়ালীয়া গ্রামে। ঘাতক পিকাপটিকে আটক করতে পারেনি এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ। এলাকাবাসী জানান, সকাল ৯টার দিকে রাস্তার উপর ঝালমুড়ি বিক্রি হচ্ছিল। জুই রাস্তা পার হয়ে ঝালমুড়ি কিনে রাস্তা পার হওয়ার সময় দত্তনগরের দিক থেকে আসা একটি পিকাপ ভ্যান জুইকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় জুইকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন বলে জানান বোয়ালীয়া গ্রামের পৌর কাউন্সিলর রুহুল আমিন মিণ্টু।  

 দেবহাটায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালিত

কে.এম রেজাউল করিম, দেবহাটা

দেবহাটায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে। দেবহাটা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে শনিবার সকাল ১০ টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং পরে উপজেলা পরিষদ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমপ্লেক্সে এক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন। সভায় দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা, ওসি (তদন্ত) উজ্জ্বল কুমার মৈত্র, উপজেলা আঃলীগের সভাপতি নওয়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মুজিবর রহমান, উপজেলা আঃলীগের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, দেবহাটা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সবুজ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জি.এম স্পর্শ, উপজেলা আঃলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ফারুক হোসেন রতন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল লতিফ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ইয়াছিন আলী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল হাই রকেট, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অধীর কুমার গাইন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিউল বশার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য প্রদান করেন। জুম কাউডের মাধ্যমে এই সভাটি বিভিন্ন স্থান থেকে সকলে পর্যবেক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়। এসময় উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিকসহ সুধীমন্ডলী উপস্থিত ছিলেন। শেষে বিভিন্ন মসজিদে দোয়া মাহফিল ও অন্যান্য ধর্মীয় উপসনালয়ে প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করে।

দেবহাটা উপজেলা শ্রমিকলীগের শোক দিবসে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

দেবহাটা প্রতিনিধি

দেবহাটা উপজেলা শ্রমিকলীগের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবসে একটি শোক র‌্যালী ও পরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত পরিসরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় শোক র‌্যালীটি উপজেলা বাজার প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে পরে শ্রমিকলীগ কার্য্যালয়ে এক সংক্ষিপ্ত পরিসরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আবু তাহের, সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউপি সদস্য আরমান হোসেন, দেবহাটা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সভাপতি রাজিব হোসেন জর্জসহ শ্রমিকলীগের উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এসময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকলকে নৃশংস হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের কঠিন বিচার দাবী করেন।

দেবহাটা প্রেসকাবের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা

দেবহাটা প্রতিনিধি

দেবহাটা প্রেসকাবের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবসে একটি শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় শোক দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দেবহাটা প্রেসকাবের সভাপতি আব্দুর রব লিটু। জুম কাউডের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় দেবহাটা প্রেসকাবের সাধারন সম্পাদক আর.কে.বাপ্পার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে সংযুক্ত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নির্মল কুমার মন্ডল, কোষাধ্যক্ষ কে.এম রেজাউল করিম, কার্য্যকরী সদস্য সহকারী অধ্যাপক ইয়াছিন আলী, কার্য্যকরী সদস্য এম.এ মামুন, কার্য্যকরী সদস্য সাইফুল ইসলাম, কার্য্যকরী সদস্য এসএম নাসির উদ্দীন প্রমুখ। এসময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকলকে নৃশংস হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের কঠিন বিচার দাবী করেন। সভায় ইতিমধ্যে অনেক হত্যাকারীর বিচার সম্পন্নের জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি প্রেসকাবের নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে বাকী হত্যাকারীদের বিচার সম্পন্নের আহবান জানান।

দাকোপে জাতীয় শোক দিবস পালিত

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি    

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে খুলনার দাকোপে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আ’লীগ ও সাবেক সংসদ ননী গোপাল মন্ডল সমার্থক গোষ্টির আয়োজনে পৃথক পৃথক ভাবে যথাযথ মর্যাদায় জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল ওয়াদুদ‘র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মোর্তজা খান, থানা অফিসার ইনচার্জ শেখ সেকেন্দার আলী, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান গৌরপদ বাছাড়, খাদিজা আকতার। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা প্রকৌশলী ননী গোপাল দাস, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুরাইয়া সিদ্দিকসহ আরো অনেকে। এসময় সকল দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে বেলা ৩টায় চালনা বৌমার গাছতলাস্থ উপজেলা আ’লীগ কার্যলয় উপজেলা আ‘লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন‘র সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান বিনয় কৃষ্ণ রায়ের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন সংরক্ষিত আসনের এমপি গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন ইউপি চেয়ারম্যান রঘুনাথ রায়, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল কাদের, সরোজিত রায়, পঞ্চানন মন্ডল, দীপংকর রায়, অশোক সাহা, ইউপি চেয়ারম্যান রনজিত কুমার মন্ডল, চালনা পৌরসভা আ’লী নেতা শেখ শফিকুল ইসলাম আক্কেল। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন কৃষকলী নেতা শেখ গোলাম হোসেন, গোবিন্দ বিশ^াস, জিএম রেজাসহ আরো অনেকে। এসময় সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মি উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে সাবেক সংসদ ননী গোপাল মন্ডল সমার্থক গোষ্টির আয়োজনে চালনা ডাক বাংলো মোড়স্থ কার্যলয় উপজেলা আ‘লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক অসিত বরণ সাহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন সাবেক সংসদ ও উপজেলা আ’লীগ সাবেক সভাপতি ননী গোপাল মন্ডল। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সাবেক উপজেলা আ’লী নেতা এ্যাডঃ জিএম কামরুজ্জামান, গোলাম মোস্তফা খান, সাবেক মেয়র অধ্যক্ষ ড.অচিন্ত্য কুমার মন্ডল, শেখ যুবরাজ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দেবপ্রসাদ গাইন, উমাশংকর রায়, গাজী শাহাবুদ্দিন, শেখ সাব্বির আহম্মেদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন আফজাল হোসেন খান, বাবুল আকতার, মাখন চক্রবর্তী, অমিত সাহা, দেবানন্দ মন্ডল প্রমুখ। সভা শেষে কাঙ্গালীভোজ বিতরণ করা হয়।

মহেশপুরে একই পরিবারের ৪জনসহ  করোনায় আক্রান্ত ৫ জন

 মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের মহেশপুরে একই পরিবারের ৪ জনসহ  ৫জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এনিয়ে এ উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫১ জনে। আক্রান্ত ব্যক্তি হলেন-উপজেলার গার্লস স্কুল পাড়ার একই পরিবারের ৪ জন ও মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স‘র স্টাফ একজন। ৫জনই নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসাধীন আছেন। মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আঞ্জুমানার বেগম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হলে শনিবার সকালে তার করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। উল্লেখ্য,গত ১৫আগস্ট ঝিনাইদহ জেলায় ৪৭জনের পজেটিভ রিপোর্ট আসে এমধ্যে মহেশপুরে একজন। মহেশপুরে ৫১জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে ৩২জন সুস্থ হয়েছেন এবং ১৯জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।

 রামপালে জাতীয় শোক দিবস পালিত

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

রামপালে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। শনিবার (১৫ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলা প্রশাসন ও রামপাল উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে উপজেলা অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সেই কালরাত্রিতে নিহত সকল শহীদের রূহের মাগফেরাত কামনা করে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ্বাস,আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ আঃ ওহাব, উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি মোতাহার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল হক লিপন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা মিলি, এসিল্যান্ড শোভন সরকার, প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান, রামপাল থানার ওসি মঞ্জুরুল আলম। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে, আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হামিম নূরী, শ্রমিকলীগ সাধারন সম্পাদক ফকির রবিউল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি বোরহান উদ্দিন,সাধারন সম্পাদক চয়ন মন্ডল,ছাত্রলীগ সভাপতি হাফিজুর রহমান,সাধারন সম্পাদক শেখ সাদী সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

যশোরের শার্শা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

বেনাপোল প্রতিনিধি

নানা আয়োজনে যশোরের শার্শা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে । শনিবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ৯টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্প¯তবক অর্পন করা হয়। সেখানে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, যুবলীগ, স্বেচ্ছা সেবক লীগ, উপজেলা ছাত্রলীগ, স্বাস্থ্য বিভাগ, কৃষি বিভাগসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন করা হয়। পরে উপজেলা অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) রাসনা শারমিন মিথি, যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ-উদ-দৌলা অলক সরদার, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ আলী, বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সর্দার ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন রাসেল প্রমূখ।

ঝিনাইদহে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে জাতীয় শোক দিবস

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

শোক র‌্যালী, আলোচনা, মিলাদ মাহফিল ও গণভোজের মধ্যে দিয়ে ঝিনাইদহে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালিত হয়েছে। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শনিবার সকালে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বর থেকে একটি র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে প্রেরণা একাত্তর চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিত্বে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে বিভিন্ন সংগঠন। এদিকে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বরে সদর উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করা হয়। এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ-২ আসনের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জীবন কুমার বিশ্বাস, আওয়ামী লীগ নেতা আক্কাস আলী, সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহ মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল রাজাসহ অন্যান্যরা। বক্তারা, বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার দাবি জানান।

সেই নবজাতকের ঠাঁই হলো এক নিঃসন্তান দম্পতির ঘরে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

রাস্তার পাশে কড়িয়ে পাওয়া সেই ছেলে নবজাতকের ঠাঁই মিলেছে। শুক্রবার প্রায় মধ্যরাতে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমানের তত্বাবধানে থাকা নবজাতকটি এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পাগলা কানাই ইউনিয়নের বেড়বাড়ী গ্রামের হারুন অর রশিদ নামে এক নিঃসন্তান দম্পত্তির নিকট লালন পালনের জন্য হস্তান্তর করা হয়। এ উপলক্ষ্যে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বদরুদ্দোজা শুভ’র অফিস কক্ষে এক জরুরী বৈঠকে শিশুটিকে পাওয়ার জন্য যারা আবেদন করেন তাদের দরখাস্ত পর্যালোচনা করা হয়। সভা শেষে উদ্ধার হওয়া নবজাতককে শিশু আইন ২০১৩ এর ৯ (২) খ ধারায় পরিচর্যার জন্য হারুন অর রশিদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আবদুর রশিদ, সদর থানার ওসি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশিদুর রহমান রাসেল ছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, উপজেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার।

ঝিনাইদহে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক কৃষকের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বাজার গোপালপুর গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মিজানুর রহমান (৩৮) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুরে বাজারগোপালপুরের পুর্বপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। মিজানুর রহমান ওই গ্রামের মৃত হিয়া উদ্দিনের ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে মাঠ থেকে বাড়ি ফিরে ঘরের টেবিল ফ্যান মেরামত করছিল মিজানুর রহমান। এসময় অসাবধানতা বশত বিদ্যুতায়িত হয়ে ঘটনাস্থলেই তার  মৃত্যু হয়। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রামপালে বিনম্র শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন

রামপাল ( বাগেরহাট )  প্রতিনিধি

রামপালে বিনম্র শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার সকাল ৯ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ্বাস এর সভাপতিত্বে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান সেখ মোয়াজ্জেম হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল হক লিপন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা মিলি, ওসি মো. মন্জুরুল আলম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ মোজাফফর হোসেন, মৎস্য কর্মকর্তা শেখ আসাদ, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ জাহিদুর রহমান, কৃষি কর্মকর্তা কৃষ্ণা রানী, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো. হামিদুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমান প্রমুখ। আলোচনা শেষে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ঋন বিতরণ করা হয়। পরে রচনা, সংগীত ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। অপর দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে উপজেলা আওয়ামা লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আ. ওহাব এর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, দলীয় কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন, শেখ মোজাফফর হোসেন, শেখ মোয়াজ্জেম হোসেন, নূরুল হক লিপন, মনির আহমেদ প্রিন্স, শেখ সাদী প্রমুখ। একইভাবে হুড়কা ইউপি চেয়ারম্যান তপন কুমার গোলদার, ভোজপাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল আমীন ও তালুকদার নাজমুল কবির ঝিলামের সভাপতিত্বে বিনম্র শ্রদ্ধায় অনুরূপ অন্ষ্ঠুান পালিত হয়।

পেড়িখালী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শ্রীফলতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও গিলাতলা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ও অনুরূপ অনুষ্ঠান পালিত হয়। দুপুরে মসজিদে, ধর্মীয় উপাসনালয়ে দোয়া ও প্রার্থনা, হাসপাতাল ও এতিমখানায় উন্নতমানের খাবার বিতরণ করা হয়।   

খুলনা আলিয়া মাদরাসায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ পালন উপলক্ষে  গতকাল (শনিবার) সকাল ১০টায় খুলনা আলিয়া কামিল মাদরাসার আয়োজনে মাদরাসা অডিটরিয়ামে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন মাদরাসার প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা আবুল খায়ের মোহ্ম্মাদ যাকারিয়া। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা করেন খুলনা-২ আসনের সাবেক সাংসদ ও অত্র মাদরাসা পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান।  সভায় বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তৃতা করেন মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক মিয়া, ড. মুফতি মাওলানা মোঃ আব্দুর রহীম সরদার, মুফাসসির মাওলানা মুহাম্মদ মুশফিকুর রহমান, মুফতি মাওলানা হাফেজ মোঃ ইমরান উল্লাহ, আরবি প্রভাষক মাওলানা মোঃ সাইফুল ইসলাম ও ইংরেজি প্রভাষক মোহাম্মদ আলী। অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহিদ সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। মাদরাসার প্রিন্সিপাল দোয়া পরিচালনা করেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মুহাদ্দিস মাওলানা মোঃ আসাদুজ্জামান। অনুষ্ঠান শেষে মাদরাসার সভাপতি মাদরাসা ময়দানে বৃক্ষরোপন করেন। এ সময় মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মোড়েলগঞ্জে শোক দিবসে আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীর পিতার প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০ টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যলয়ে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাগেরহাট-৪, মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন, বিশেষ অতিথি সাধারণ সম্পাদক এমএমদাদুল হক। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মাষ্টার সাইদুর রহমান, ইকতিয়ার হোসেন দিলাল, চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী, যুবলীগের আহ্বায়ক ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, যুগ্ম আহ্বায়ক এ্যাড. তাজিনুর রহমান পলাশ সহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ। আলোচনার পূর্বে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন আওয়ামী লীগের পক্ষে এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন এমপি। যুবলীগ, ছাত্রলীগ, তাতীলীগ, মৎস্যজীবী লীগ,কৃষক লীগ সহ সহযোগী সংগঠন। একই দিনে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অফিসাস কাবে আলোচনা সভায় সহকারি কমিশনার ভূমি রঞ্জন চন্দ্র দে’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন, বিশেষ অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. শাহ-ই আলম বাচ্চু, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএমদাদুল হক, ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, ফাহিমা খানম, জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যাপিকা আফরোজা আক্তার লিনা, মাকসুদা আক্তার মুক্তা প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারি বিদেশে পালিয়ে থাকা খুনিদের দেশে এনে ফাসির রায় কার্যকর করার জোর দাবী জানান। অপরদিকে বারইখালী ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান বিপু’র উদ্যোগে জাতীর শোক দিবসে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান শেষে এক দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা বীল মুক্তিযোদ্ধা মো. সিদ্দিকুর রহমান মোল্লা, বদলুল ইসলাম, মাষ্টার আলী আকবর, খায়রুল বাসার, এইচ এ আউয়াল, ইউনুছ আলী, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

শহদী সোহরাওয়ার্দী কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালন

খবর বিজ্ঞপ্তি

শনিবার খুলনা শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে জাতির পিতার ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদায় ও ভাবগাম্ভীর পরিবেশে পালিত হয়। দিবসের কর্মসূচীর মধ্যে ছিল কালো ব্যাজ ধারন, জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল মাজিদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামীলীগের মহানগর সাধারণ সম্পাদক এম.ডি. বাবুল রানা, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু। আলোচনায় অংশ নেন কলেজ পরিচালনা পরিষদের সদস্য শেখ জামাল উদ্দিন, শেখ শওকত হোসেন, অধ্যাপক মিনু মমতাজ, আসাসউল্লাহ, ইমরান হোসেন, রায়হান উদ্দীন প্রমুখ

জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার শ্রদ্ধা

খবর বিজ্ঞপ্তি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছে কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থা’র সদস্যরা। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ৮টায় কয়রার আংটিহারা এলাকায় স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থা’র কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সংগঠনের সদস্যরা শ্রদ্ধা জানান। এর আগে সূর্যোদয়ের পর জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সভাপতি ও খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবু সাঈদ খান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা লক্ষণ মুন্ডা, জিএম রুহুল আমিন, মৃনাল কান্তি সরদার, স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান, সহ-সভাপতি আহাদ আলী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মামুন কবির, সদস্য মফিজুল ইসলাম, সাইফুদ্দিন তুহিন, আকবার আলী, আসাদুল ইসলাম, ওলিউল্যাহ, ফজলুল হক শেখ, আলমগীর হোসেন মিলন, বিল্লাল হোসেন, মঈনুল, শাহিনুর, বারিক, মোজাহিদ, মোঃ আবু রায়হান খান, শরিফুল, হাসান প্রমুখ।

জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতার শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের বিভিন্ন কর্মসূচী পালন

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের উদ্যোগে ১৫ আগষ্ট সন্ধায় ফুলবাড়ীগেট কার্যালয়ে আলোচনা সভা,কুরআন তেলওয়াত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের খানজাহান আলী থানার আহবায়ক মোঃ নাসির খান বাবলা।  সদস্য সচিব মোঃ জাকির ফকিরের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মোঃ ইলিয়াজ হোসেন সোহেল, মহানগর সভাপতি শেখ মনির হোসেন, সহ সভাপতি কাজী মাসুদ রানা, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ আলম, শ্রমিকলীগের মহানগর অর্থবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন। বক্তৃতা করেন মোঃ আলতাফ তালুকদার, মোঃ নওশের মোল্যা, খোকন মুন্সি, মোঃ হাসান, আশরাফ হোসেন, মোঃ আলম খান প্রমুখ।

ফুলতলায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

ফুলতলা প্রতিনিধি

জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ফুলতলায় ব্যাপক কর্মসূচি পালিত হয়। উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে সকাল ৯টায় জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও  আলোচনা সভা উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে ডুমুরিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সনদীপ দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজী জাফর উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, ওসি (তদন্ত) মোস্তফা হাবিবুল্লাহ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ জহুরুল ইসলাম, কাজী মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ হোসেন আশু, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা স্বপন কুমার রায়, সমাজসেবা কর্মকর্তা শাহীন আলম, বিআরডিবি কর্মকর্তা আফরুজ্জামান, নির্বাচন কর্মকর্তা কল্লোল বিশ্বাস, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফারহানা ইয়াসমিন, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু প্রমুখ। এদিকে বিকালে ফুলতলা উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে ও মৃনাল হাজরার পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা বিএমএ সালাম, মোঃ আসলাম খান, সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ মোঃ আবু হানিফ।  অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাজী আশরাফ হোসেন আশু, ইমাম হোসেন মোড়ল, আবু তাহের রিপন, কামরুজ্জামান নান্নু, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, রবিউল ইসলাম মন্টু, আলহাজ্ব শেখ আশরাফ হোসেন, ইসমাইল হোসেন বাবলু, আলী আজম মোহন, সাহিদুল মোল্যা, শাহাবাজ মোল্যা, বেগম শামছুন্নাহার, শাপলা সুলতানা লিলি, এস কে আলী ইয়াছিন, শহিদুল্লাহ প্রিন্স, রবিন বসু, এস কে মিজানুর রহমান, মোল্যা রবিউল ইসলাম, মঈনুল ইসলাম নয়ন, এস কে সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ। পরে মাওঃ রফিকুল ইসলামের পরিচালনায় মিলাদ, দোয়া শেষে তাবারক বিতরণ করা হয়। এ দিকে ফুলতলার এম এম কলেজ, জামিরা বাজার আসমোতিয়া স্কুল এন্ড কলেজ, গাড়াখোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ ও কর্মময় জীবনের উপর শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে কবিতা আবৃতি, রচনা প্রতিযোগিতা, আলোচনা, দোয়া, মিলাদ ও তাবারক বিতরণ করা হয়।

কেশবপুরে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

কেশবপুর প্রতিনিধি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী কেশবপুরে পালিত হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে শোক দিবসের আলোচনা সভা, ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, প্রতিবন্ধিদের মাঝে চেক বিতরণ, যুব ঋণের চেক বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুসরাত জাহান।

কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে শনিবার দোয়া অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে।  সাধারণ স¤পাদক গাজী গোলাম মোস্তফার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন সহ সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম,উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল,উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি সৈয়দ নাহিদ হাসান, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বি এম শহিদুজ্জামান শহিদ ও উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুল।

অপরদিকে দলিত হার চয়েস প্রকল্প উদ্যোগে মজিদপুর দলিত স্কুলে চিত্রাংকন, রচনা প্রতিযোগীতা পুরষ্কার বিতরণ করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর উপজেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা বিমল কুন্ডু,দলিতের ফাইন্যান্স ম্যানেজার সজ্ঞয় রায় প্রমুখ ।

বিএইচবিএফসি খুলনা শাখার উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত ও বৃক্ষ রোপন

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার ১৫ ই আগষ্ট বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশন এর জোনাল ম্যানেজার মোঃ জামিরুল ইসলামের নেতৃত্বে খুলনা নগরীর বাংলাদেশ বেতার কেন্দ্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সহ সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় জাতির পিতাসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট সকল শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। এবং অসহায় ও দুস্থদের মাঝে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খাবার বিতরন করা হয়। এছাড়াও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বরণে বৃক্ষ রোপন করা হয়। এ সময় বিএইচবিএফসি খুলনা প্রধান শাখা ম্যানেজার মোঃ সিরাজুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী মুঃ আবদুর রব, সহকারী প্রকৌশলী হেদায়েত উল্লাহ, সিনিয়র অফিসার তনয় কুমার দাস, পিও(আইন) জান্নাতু ফেরদৌস, সিনিয়র অফিসার মৌসুমী মল্লিক, কাজী নুরুজ্জামান, নিপা দাসসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ইসলামী আন্দোলন নগর নেতার চাচার ইন্তেকাল, শোক প্রকাশ

খবর বিজ্ঞপ্তি

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর কমিটির ছাত্র ও যুব বিষয়ক সম্পাদক, সোনাডাঙ্গা থানার সভাপতি মুফতী মাওঃ ইমরান হোসাইনের বড় চাচা শেখ কাওছার আলী (৯৫) গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ৩ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন, ইন্নানিল্লাহে ….. রাজিউন। মরহুমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি মুফতী আমানুল্লাহ, সহ সভাপতি মাওঃ মোজাফ্ফার হোসাইন, মুফতী মাহবুবুর রহমান, সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওঃ দ্বীন ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম সজীব মোল্লা, সহ সাংগঠনিক মোল্লা রবিউল ইসলাম তুষার, প্রচার সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশীদ, সহ প্রচার গাজী ফেরদাউস সুমন, দপ্তর সম্পাদক মোঃ শরিফুল ইসলাম, সহ দপ্তর মোঃ সাইফুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধা জিএম কিবরিয়া, সহ অর্থ আলহাজ্ব মোমিনুল ইসলাম, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুফতী আমিরুল ইসলাম, সহ প্রশিক্ষণ মাওঃ হাফিজুর রহমান, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক মাওঃ শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুস ছালাম, মহিলা ও পরিবার বিষয়ক ডাঃ মাওঃ নাসির উদ্দিন, সংখ্যালঘু বিষয়ক আলহাজ্ব আবু তাহের, নির্বাহী সদস্য মাওঃ সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, হাফেজ আব্দুল লতিফ প্রমুখ।

যশোরের তিন করোনা রোগীর মৃত্যু খুলনায়

যশোর অফিস

খুলনায় এক রাতেই যশোরের তিন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১২ থেকে পৌনে দুইটা পর্যন্ত নগরীর নূরনগর করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে তাদের মৃত্যু হয়। মৃতরা হলেন- যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম, নুরনগর এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান মনি এবং যশোর শার্শা এলাকার বাসিন্দা আতিয়ার রহমান। এদিকে মৃতের স্বজনদের অভিযোগ, হাসপাতালে রাতের বেলায় অক্সিজেন সরবরাহ ঠিকমতো থাকে না। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম রাত পৌনে ১২টায়, নুরনগর এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান মনি রাত পৌনে একটায় এবং যশোরের শার্শা এলাকার বাসিন্দা আতিয়ার রহমান দিবাগত রাত একটা ৪০ মিনেটে মারা যান। অভিযোগ রয়েছে, করোনা হাসপাতালে সারা দিনের মধ্যে ৪-৫ ঘণ্টা অনেক সময় অক্সিজেন থাকছে না। এমনকি আইসিইউতেও অক্সিজেন এর সংকট দেখা যাচ্ছে।

করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের সমন্বয়কারী ডা. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জানান, সিলিন্ডারের কিছুটা সংকট আছে, কিন্তু এই তিনজন তো আইসিইউতে মারা গেছেন। সেখানে সেন্ট্রাল লাইন আছে, তাদের অক্সিজেনের অভাবে মারা যাওয়ার কথা না।

যশোরে নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

যশোর অফিস

বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণ করছে যশোরবাসী। আজ শনিবার সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য  কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এছাড়া যশোর জেলা প্রশাসন, স্থানীয় সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে নানা আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হচ্ছে। করোনা দুর্যোগের কারণে অন্যান্য বারের মতো এবার সকালে শহরে শোক র‌্যালি বের হয়নি। তবে শহরের বকুলতলাস্ত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এছাড়া শহরের মোড়ে মোড়ে বাজানো হচ্ছে জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ। বিতরণ করা হচ্ছে মানবভোজ।

সকালে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়া জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সদর উপজেলা পরিষদ, যশোর পৌরসভা, জেলা যুবলীগ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, জেলা যুবমহিলা লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

জাতীয় শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্টের পুস্পস্তপক অর্পন 

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় জাতীর জনকের সমাধীস্থলে  পুস্পস্তপক অর্পন করেন বিএনসি সি পক্ষে মহাপরিচালক  বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্ট এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মোঃ শরিফুজ্জামান। এতে সুন্দরবন রেজিমেন্টের ক্যাডেটসহ উপস্থিত ছিলেন রেজিমেন্ট এ্যাডজুডেন্ট লেঃ রফিক  ( এক্স) পিসিজিএম এস , বিএন, বিএনসিসি ও ২ লেঃ মিজানুর রহমান , পিইইউ ও নজরুল, পিইউও কামাল এবং অন্যন্য সামরিক ও বেসামরিক কর্মচারীবৃন্দ ।

যথাযোগ্য মর্যাদায় বটিয়াঘাটায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটা

যথাযোগ্য মর্যাদায় বটিয়াঘাটা উপজেলার সর্বত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে পালিত হয়েছে।  দিবসটি পালন উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ১০টায় স্থানীয় বঙ্গবন্ধু মুরালে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, অফিসার্স কাব, থানা পুলিশ, উপজেলা প্রেসকাব, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন, সাব-রেজিস্ট্রার ও দলিল লেখক সমিতি সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়। পরে এক আলোচনা সভা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম খান, সহকারী কমিশনার ভূমি মোঃ রাশেদুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় নিতাই গাইন ও  চঞ্চলা মন্ডল, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ অপর্ণা বিশ্বাস, থানার ওসি তদন্ত উজ্জ্বল দত্ত, উপজেলা প্রেসকাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ, ইউপি চেয়ারম্যান মনোরঞ্জন মন্ডল, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আফজাল হোসেন। উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বঙ্কিম চন্দ্র হালদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ রবিউল ইসলাম, মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল মামুন, উপজেলা প্রকৌশলী প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, সাব-রেজিস্ট্রার বিজয় কৃষ্ণ বসু, সমাজসেবা কর্মকর্তা অমিত সমাদ্দার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র মন্ডল, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ মোনায়েম খান, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ইমদাদ হোসেন, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসি রানী রায়, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, পরিসংখ্যান কর্মকর্তা গৌতম বিশ্বাস, উপজেলা প্রেসকাবের সাধারণ সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, অবঃ অধ্যাপক মনোরঞ্জন মন্ডল, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বুলু রায় গাঙ্গুলী, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব আসলাম তালুকদার, পার্থ রায় মিঠু, সাংবাদিক মনিরুজ্জামান, পরিতোষ রায়, শাহীন বিশ্বাস, বিপ্রদাস রায়, এড. প্রশান্ত বিশ্বাস, শাওন হাওলাদার, দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আমিনুল ইসলাম, সম্পাদক মতিন সিদ্দিকী ও সাবেক সভাপতি মোঃ মতিন সিদ্দিক মিঠু, সাংবাদিক এস,এম,এ ভূট্টো, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, ছাত্রলীগ নেতা মোঃ রিয়াজুল ইসলাম রিপন প্রমূখ। পরে এক আলোচনা সভা বেলা ১২টায় উপজেলা আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম খান। বক্তৃতা করেন আ’লীগনেতা ফিরোজুর রহমান, মৃন্ময় পাল, প্রদীপ বিশ্বাস, পলাশ রায়, মানস পাল, আকরাম হোসেন, অনুপম বিশ্বাস, অলোক মল্লিক, চঞ্চলা মন্ডল, অরিন্দম গোলদার, হুমায়ুন কবীর, মিজানুর রহমান মিজান, রিয়াজুল ইসলাম রিপন প্রমূখ। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং মাদ্রাসা ও মসজিদের শিক্ষার্থীদের একশত বার কোরআন খতম ও মন্দিরে বিশেষ সময়ে জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ফকিরহাটে জাতির জনকের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ

ফকিরহাটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়েছে। করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৫ আগষ্ট শনিবার সকাল ৮টায় উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। ফকিরহাট উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, কালোব্যাজ ধারণ এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্টের সকল শহীদদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এ সময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শিরিনা আক্তার কিসলুর নেতৃত্বে  উপজেলা আওয়ামীলীগ সহ সকল অংগ সহযোগী সংগঠনের অসংখ্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মশিয়ালীতে গুলি করে তিনজনকে হত্যা মামলার আসামি আলমগীরের আদালতে স্বীকারোক্তি

স্টাফ রিপোর্টার

নগরীর খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী এলাকায় গুলি করে তিনজনকে হত্যা মামলার এজহারভুক্ত আসামি মো. আলমগীর শেখ (৩৮) আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন।

গতকাল শনিবার তার দেয়া ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারার জবানবন্দি মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতিকুস সামাদ পিএইচডি রেকর্ড করেছেন। আলমগীর শেখ মশিয়ালী গ্রামের মো. মোকছেদ শেখের ছেলে। গত ১২আগস্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. এনামুল হক আসামি আলমগীর শেখকে আদালতে হাজির করে ১০দিনের রিমা-ের আবেদন করেন। ওই দিন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম ৩দিনের রিমা- মঞ্জুর করেছিলেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. এনামুল হক জানান, এ মামলার এজহারভুক্ত আসামি হচ্ছে ২২জন। এ পর্যন্ত মোট ৭জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন মশিয়ালী গ্রামের মৃত. হাসান আলি শেখের ছেলে মো. জাফরিন শেখ (৩২), মো. মোকছেদ শেখের ছেলে মো. জাহাঙ্গীর শেখ (৩৫) ও মো. আলমগীর শেখ (৩৮), মো. কুরবান শেখের ছেলে মো. আরমান শেখ (২০), মৃত. আক্তার আকুঞ্জির ছেলে মো. রহিম আকুঞ্জি (২২), মো. ফারুকের ছেলে মো. রবিন (২০) ও মো. বাবুল শেখের ছেলে মো. মিঠু শেখ (৩৩)। এদের মধ্যে জাফরিন শেখ, আরমান শেখ ও আলমগীর শেখ আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করলেন। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ১৬জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মো. জাকারিয়া শেখ মশিয়ালী সিএন্ডবি’র ঘরের একটি কক্ষে ৩রাউন্ড বন্দুকের গুলি ও ২রাউন্ড পিস্তলের গুলি নিজে রেখে বাদীর চাচাতো ভাই মুজিবর শেখকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাদীসহ পাড়ার আরো কিছু লোক মুজিবরকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার কারণ জানতে জাফরিনদের বাড়ির সামনে যায়। এসময় তাদের সঙ্গে বাক-বিতন্ডার একপর্যায়ে মিল্টন শেখ গুলি করলে নজরুল শেখ মারা যায়। জাফরিন শেখ গুলি করলে গোলাম রসুল মারা যায়। জাকারিয়ার গলিতে আহত হয় বাদীর ছেলে সাইফুল। পরে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা যায় সাইফুল। তাদের অন্যান্য সহযোগিদের গুলিবর্ষণে বাদীসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় আফসার উদ্দিন, তার ছেলে রবি, শামীম, খলিল, রানা, সুজন শেখসহ আরো অনেকে। এঘটনায়  নিহত সাইফুলের পিতা  মো. শাহিদুল শেখ বাদী হয়ে  মশিয়ালী গ্রামের মৃত. হাসান আলি শেখের ৪ছেলেসহ ২২জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরো ১৫/১৬জনকে আসামি করে খানজাহান আলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন যার নং-১২।

নগরীতে পুলিশের অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার ৫

স্টাফ রিপোর্টার

মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ২৯ বোতল ফেন্সিডিল ও ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন নগরীর ২৬/১, সিদ্দিকীয়া মহল্লা শান্তিবাগ লেনের গাউসুল আজমের ছেলে মো. ফাহাদ আজম ফুয়াদ (২৮), দৌলতপুর মহেশ্বরপাশা কালীবাড়ী এলাকার মৃত. মোবারক শেখের ছেলে মো. জলিল শেখ (৪৪), পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া থানার পশ্চিম মাছুয়াখালী গ্রামের আনসার গাজীর ছেলে মামুন গাজী (৩৭), ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার চুমুরদী ইউনিয়ন পশ্চিমপাড়া জাকির মেম্বরের বাড়ীর পাশের বাসিন্দা মনির মাতুব্বরের ছেলে লালন মাতুব্বর (২২) ও যশোর জেলার কেশবপুর থানার মুলগ্রাম প্রামানিক পাড়ার নিতাই চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে শুভ বিশ্বাস (১৮)।

কেএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) কানাই লাল সরকার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নগরীর বিভিন্ন থানা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মহানগর পুলিশ। এসময়  ২৯ বোতল ফেন্সিডিল ও ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় ৪টি মাদক মামলা রুজু করা হয়েছে। 

নগরীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় কেএমপির জাতীয় শোক দিবস পালন

স্টাফ রিপোর্টার

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার খুলনায় হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ ১৫ই আগস্টের সকল শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছেন খুলনা মহানগরী পুলিশের পুলিশ কমিশনার জনাব খন্দকার লুৎফুল কবির পিপিএম-সেবা গতকাল শনিবার। 

এছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এঁর ৪৫ তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন উপলক্ষে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের আয়োজনে কেএমপি পুলিশ লাইন্স জামে মসজিদে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁর পরিবারসহ সকল শহীদের স্মরণে এবং তাদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বাদ জোহর মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত শ্রদ্ধাঞ্জলি ও পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সকল শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বাদ জোহর মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে কেএমপি’র বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ ও ফোর্স অংশগ্রহণ করেন।

শার্শায় র‌্যাবের অভিযানে ১০১ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ২

স্টাফ রিপোর্টার

যশোর জেলার শার্শা থানাধীন পানবুড়ী গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১০১ বোতল  ফেন্সিডিলসহ দু’মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। ১৪ আগস্ট রাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার দু’মাদক ব্যবসায়ী হলেন, যশোর জেলার কোতয়ালী থানার বেজপাড়ার মৃত. ফজলার রহমানের ছেলে মো. নাজিমুর রহমান তুষার (৪০) ও  মো. নজরুল ইসলামের ছেলে মো. হাবিবুর রহমান সুমন (৪২)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, ১৪ আগস্ট রাতে যশোর জেলার শার্শা থানাধীন পানবুড়ী গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময়  ওই গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম এর বাড়ীর সামনে থেকে  ১০১ বোতল  ফেন্সিডিলসহ তুষার ও সুমনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে শার্শা থানায়

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

জাতীয় শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধীস্থলে বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্টের পুস্পস্তপক অর্পন   

খবর বিজ্ঞপ্তি  

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় জাতীর জনকের সমাধীস্থলে  পুস্পস্তপক অর্পন করেন বিএনসিসি মহাপরিচালকের পক্ষে সুন্দরবন রেজিমেন্ট এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মো. শরিফুজ্জামান।

এসময় সুন্দরবন রেজিমেন্টের ক্যাডেটসহ উপস্থিত ছিলেন রেজিমেন্ট এ্যাডজুডেন্ট লে. রফিক  ( এক্স) পিসিজিএমএস , বিএন, বিএনসিসি ও ২ লে. মিজানুর রহমান, পিইইউও নজরুল, পিইউও কামাল এবং অন্যন্য সামরিক ও বেসামরিক কর্মচারীবৃন্দ ।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 5
    Shares