প্রচ্ছদ এক্সক্লুসিভ

মৌনতার পাপে আমরা সবাই পাপী

18
মৌনতার পাপে আমরা সবাই পাপী
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

শাকিলা নাছরিন পাপিয়া

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনার দেশে একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজরকে ইয়াবা মামলায় ফাঁসিয়ে হত্যা করা হয়, ভাই স্বামীকে ছাড়াতে গিয়ে থানায় স্ত্রী, বোন গণধর্ষণের শিকার হয় তাহলে সাধারণ মানুষের কী হাল ভাবুন?সংবিধান অনুযায়ী আমি এ রাষ্ট্রের মালিক। আমার কাছে শাসকরা জবাবদিহি করতে বাধ্য। কিন্তু তা তো হওয়ার নয়! সংবিধানের শব্দাবলি কাগজে বন্দি।

আমি এখন দাস। তাই আমি করজোড়ে ক্ষমা আর দয়া ভিক্ষা চাইছি। তিল তিল করে মরে যাচ্ছি আমি। মরে যাচ্ছে আমার স্বপ্ন। রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছে টিকে থাকার সব রাস্তা।

দয়া করুনা আর ভিক্ষা চেয়ে কোটি কোটি জনতার চিৎকার পৌঁছায় না ওই রুদ্ধদ্বারে।

একটি জানা গল্প :

এক বিত্তবান পরিবারের শিশুকে দরিদ্র শিশু সম্পর্কে একটি অনুচ্ছেদ লিখতে বলা হলো।

শিশুটি লিখল-

দরিদ্র শিশুটি এতই দরিদ্র যে, তাদের একটি মাত্র গাড়ি। এমন কী তাদের বাগানে মাত্র একজন মালী। তাদের শুধু একটাই বাড়ি।

আমাদের বর্তমান সমস্যা সমাধানের জন্য যাদের দিকে তাকিয়ে বসে আছি তারাও কী আমাদের দরিদ্রতা এবং সমস্যা নিয়ে ওই শিশুর মতোই ভাবছেন?

১৯৭১ সারে ঢাকা শহর ছেড়ে মানুষ দলে দলে গ্রামে চলে গেছে জীবন বাঁচাতে। ২০২০ সালেও এ শহর ছেড়ে মানুষ চলে গেছে চাকরি হারিয়ে, কাজ হারিয়ে। ‘৭১-এ যুদ্ধ ছিল। এখনো যুদ্ধ চলছে। তবে এ অন্য এক যুদ্ধ।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অনেকে বেকার। অনেকের বেতন কমে গেছে। আমরা জানতাম করোনা শুধু সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা নিয়েই আসছে না। করোনা নানা সমস্যার কারণ হয়েও আসছে।

করোনা এসেছে যুগ যুগ ধরে বলে যাওয়া মিথ্যেকে উন্মোচন করতে, করোনা এসেছে মুখোশ খুলে দিতে, করোনা এসেছে আমাদের অমানুষ রূপটি তুলে ধরতে।

১৬ মার্চ থেকে বন্ধ হলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এপ্রিল, মে ও জুন তিন মাস যাওয়ার পর শুরু হলো নানামুখী অন লাইন ক্লাস।

সরকার ঘোষণা দিল ব্যাংক সরকারি চাকরিজীবীদের ব্যাংক লোনের কিস্তি সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কাটবে না, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বেতনের জন্য চাপ দেবে না। কোনো আদেশই মানা হলো না।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনেকেই অটো চালানো, রিকশা চালানো, ফল বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। ব্যাংক দুমাস পরই শুরু করেছে কিস্তির টাকা কাটা।

আরও পড়ুন:  প্রতিমন্ত্রী পলকের জনসেবা নিয়ে জামায়াতের গুজব, সতর্ক থাকার আহ্বান

ভুতুড়ে কারেন্ট বিল, অতিরিক্ত পানির বিলের ধাক্কা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বকেয়া বেতন, কলেজের সেশন ফিসহ নানা ধরনের অর্থনৈতিক চাপে দিশাহারা মানুষ।

এ দেশের মানুষ হঠাৎ করে কি আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপ হাতে পেয়ে গেছে?

শিক্ষা আর চিকিৎসা মানুষের দরিদ্র হওয়ার, ঋণগ্রস্ত হওয়ার কারণ। যে সব সরকারি কর্মচারী ব্যাংক থেকে লোন নেয় তারা সন্তানের শিক্ষা, পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা অথবা ঘর মেরামত করার জন্য এ লোন নেয়। কোটি কোটি টাকা লোপাট হচ্ছে, বিদেশে পাচার হচ্ছে, শোষণ করছে দুর্বৃত্ত অথচ চার পাঁচ লাখ টাকা যারা লোন নিয়ে নিয়মিত শোধ করছিল ব্যাংকের পাওনা, তাদের প্রতি সহানুভূতি দেখিয়ে এই করোনাকালে ছয় সাত মাস কিস্তি কর্তন স্থগিত রাখা গেল না।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সেবা নয়, ব্যবসায়ী দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে পরিচালিত। সারা বছরই চলে নানা কারণ দেখিয়ে অর্থ আদায়ের প্রচেষ্টা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বকেয়া বেতন চাওয়ার ধরন—

‘বেতন দিতে হবে। নইলে পড়াশোনা বন্ধ।স্টুডেন্টশিপ ক্যান্সেল। এটাই তিক্ত সত্য। সম্মানিত মানুষকে বাড়িওয়ালা ধাক্কা মেরে বের করে দিচ্ছে, সেখানে একটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছে মানবতা আশা করা বোকামি।’

এক মেয়ে গ্রম্নপে বলেছে, ‘আমার বাবার চাকরি চলে গেছে। আমরা গ্রামে চলে এসেছি। তিন বেলা খাবার জোগাড় করতেই কষ্ট। বেতন দেব কী করে?’

ম্যাডামের উত্তর, ‘তোমার পারিবারিক সমস্যা দেখা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব নয়। ভর্তি হওয়ার সময় ভাবা উচিত ছিল। জানতে না এখানে বেতন দিতে হবে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে হলেও এটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।’

গ্রামে একটা প্রবাদ আছে মরাকে মার কেন?

উত্তর, নড়েচড়ে না তাই।

একটার পর একটা বোঝা আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে। আমরা নিশ্চুপ। আমরা প্রতিবাদের ভাষা বা ইচ্ছা দুটোই হারিয়েছি। সুতরাং আমাদের সঙ্গে যা ইচ্ছা তা করা যায় বুঝে গেছে কর্তৃপক্ষ।

করোনা রিপোর্ট ভুয়া দেয়া যায়, তা আমাদের কেন সারা বিশ্ববাসীর মাথায়ই আসেনি। আমাদের মতো ধার্মিক জাতি আর কোথায় আছে? নবিজী ব্যবসা করতেন তাই আমরাও সফল ব্যবসায়ী।

রপ্তানিযোগ্য বুদ্ধি নিয়ে আমরা বসে আছি। ব্যবসায়ী বুদ্ধিতে রপ্তানিই নয়, মডেল আমরা বিশ্ববাসীর কাছে।

অন লাইন ক্লাস শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিজ্ঞাপন শুরু হয়ে গেছে অন লাইন কোচিং, টিউশনির।

আরও পড়ুন:  খালেদা জিয়া খুনের রাজনীতি করেন না

একজন ড্রাইভারকে দিয়ে ৮০০০ টাকার বিনিময়ে এক্সিডেন্ট ঘটিয়ে আবার নিজ হাসপাতালে চিকিৎসা করে লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার কৌশল সত্যি বিস্ময়াবিভূত করার মতো।

খালি বাক্স দেখিয়ে ৯০০ কোটি টাকা লুটে নেয়া মিঠুর প্রতিভায় আমরা আরো মুগ্ধ। বালিশ, পর্দা, কলাগাছ যতই দামি হোক তবুও ছিল। কিন্তু উনি তো পেছনের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে শীর্ষে অবস্থান করছেন। কারণ উনি কিছুই দেননি। বাক্স ছিল, তবে খালি।

চলছে প্রদীপের আলোর ঝলকানি। একটা ঘটনা উন্মোচিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার হাজারটা অপকর্ম উঠে আসে। একজন মানুষকে দানব তৈরি করতে যারা নীরব ছিলেন, সুবিধার ভাগ নিয়েছিলেন, দেখেও না দেখার ভান করে মৌনব্রত পালন করেছেন তাদের সবাইকে কেন আইনের আওতায় আনা হচ্ছে না?

অবৈধ সম্পদের পাহাড় যারা গড়ে তোলে তারা স্ত্রী, সন্তান, শালা, ভাই এদের নামে সম্পদ কেনে। যাকে ধরা হয় শুধু তার দিকেই দৃষ্টি নিবদ্ধ থাকে। তার সম্পদের খোঁজ নিয়ে পরিবারসহ নিঃস্ব করা কেন হয় না?

এই দানবদের সন্তান টাকা দিয়ে লেখাপড়া করে দেশের বড় বড় পদে বসবে ভবিষ্যতে।

মহাভারতে দ্রৌপদীর বস্ত্র হরণের পর কৃষ্ণ বলেছিলেন, ‘একজন মহারাণীর যদি এই অবস্থা হয় তাহলে সাধারণ নারীদের সঙ্গে এ রাজ্যে কী হবে ভেবে দেখুন।’

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনার দেশে একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজরকে ইয়াবা মামলায় ফাঁসিয়ে হত্যা করা হয়, ভাই, স্বামীকে ছাড়াতে গিয়ে থানায় স্ত্রী, বোন গণধর্ষণের শিকার হয়, তাহলে সাধারণ মানুষের কী হাল ভাবুন?

আমাদের ইহকাল, পরকাল কোনটাই নেই। ইহকালের কথা বললে ৫৭ ধারা। পরকালের প্রতিবাদ না করার পাপে জাহান্নাম।

অমানুষরা যখন সংঘবদ্ধ, আমরা মানুষ তখন একা।

মৌন থাকার, উদাসীন থাকার, কেউ একজন এসে সব পাল্টে দেবে এই আনন্দে বিভোর থাকার পাপে আমরা সবাই পাপী। আমাদের মুক্তি কোথায়, কতদূর?

শাকিলা নাছরিন পাপিয়া : কবি, কথাসাহিত্যিক, শিক্ষক ও কলাম লেখক

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।