প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

বাংলাদেশে আটকা কয়েক হাজার ভারতীয় ‌‘একযোগে অবস্থান’ নিবে সীমান্তে

23
বাংলাদেশে আটকা কয়েক হাজার ভারতীয় ‌‘একযোগে অবস্থান’ নিবে সীমান্তে
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

বাংলাদেশে ঘুরাতে, জ করতে এসেছিলেন কয়েক হাজার ভারতীয়। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে তারা ফিরতে পারেননি। আটকা পড়েছেন ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকাগুলোতে। এদের বেশির ভাগই বাংলাদেশের পার্শ্ববর্তী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা।

আটকা পড়া এসব নাগরিকদের দেশে ফেরাতে চাপ দিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের তৎপরতায় তাদের ফিরিয়ে নিতে উদ্যোগ নেয়ার কথা দেশটির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের। তবে এখনও তা বাস্তবায়ন হয়নি।

কিন্তু কয়েক মাস যাবত অপেক্ষার পর তারা এখণ অধৈর্য হয়ে পড়েছেন। এজন্য তারা দেশে ফেরার জন্য এবার বেনাপোল সীমান্তে গিয়ে ধর্নায় বসতে চান বলে জানাচ্ছেন।

কেউ পাঁচ মাস, কেউ ছয় বা তারও বেশি মাস ধরে অপেক্ষা করছেন কবে সীমান্ত খুলবে আর তারা বাড়ি ফিরতে পারবেন। তারা বলছেন, তারা অধৈর্য হয়ে পড়ছেন অপেক্ষা করতে করতে।

পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বাসিন্দা শ্যামল পাল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা যারা এদেশে এসে আটকে রয়েছি, তার মধ্যে যত জনের সাথে যোগাযোগ হয়েছে, তারা ঠিক করেছি, এবার বেনাপোল সীমান্তে গিয়ে ধর্নায় বসব আমরা। ২৪ তারিখ ধর্নার দিন ঠিক হয়েছে। আর কতদিন আমরা এভাবে বিদেশে এসে আটকে থাকব? কেন নিজের দেশেই ঢুকতে পারছি না আমরা?’

আরও পড়ুন:  করোনা: প্রতিরক্ষাসচিব ও ডা. মঈনের পরিবার প্রথম ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে

এই ভারতীয় বলেন, মার্চ মাসে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন অসুস্থ নানীকে দেখতে। কিন্তু তারপর আর দেশে ফিরতে পারেননি। ওদিকে দেশে তার বাবা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, তবুও ফেরার উপায় নেই।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণে ভারত এখন অন্যতম হটস্পট। সংক্রমণ প্রতিরোধে তারা সীমান্তে নিরাপত্তা বাড়িয়েছে। বিশেষ পারিবারিক প্রয়োজন এবং অসুস্থতার মতো কারণ ছাড়া স্থল সীমান্ত দিয়ে এখনো ভারতে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

কলকাতার বাসিন্দা মুক্তি সরখেল রাজশাহীতে আত্মীয়র বাড়িতে উদ্বেগের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন আর খোঁজ রাখছেন যে কবে খুলবে সীমান্ত, কবে ফিরতে পারবেন নিজের দেশে।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ভাইপোর বিয়েতে এসেছিলাম মার্চ মাসে। কদিনের ভিসা নিয়ে। তারপরেই লকডাউন শুরু হয়ে গেল, আর আমি এখানেই আটকে গেলাম। কলকাতায় আমার পরিবার রয়েছে, আর আমি এখানে এক আত্মীয়র বাড়িতে পড়ে আছি। কীভাবে যে ফিরব, কিছুই বুঝতে পারছি না।’

কোথায় কোন ভারতীয় আটকিয়ে আছেন, সেই খবর যোগাড় করছেন সকলেই। অচেনা অপরিচিতদের সাথেও ফোনে পরিচয় হয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগ রাখছেন হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ বানিয়েও।

আরও পড়ুন:  সিলেট বিভাগে নতুন করে ১৫৬ জনের করোনা শনাক্ত

নওগাঁ জেলায় এক আত্মীয়র বাড়িতে সীমান্ত খোলার অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছেন কলকাতার বাসিন্দা ছবি ব্যানার্জী। তিনি বলেন, ‘কী উদ্বেগের মধ্যে যে দিন কাটছে বলে বোঝানো কঠিন। আমার শারীরিক অসুস্থতার জন্য হেঁটে বেনাপোল সীমান্ত পেরনো অসম্ভব। হিলি সীমান্ত দিয়ে ফিরতে পারলেই সব থেকে ভাল।’

আটকে পড়া ভারতীয়দের একাংশকে ঢাকা থেকে বিমানে ফিরিয়ে এনেছে ভারত সরকার। কিন্তু ঢাকা থেকে দিল্লি গিয়ে তারপর পশ্চিমবঙ্গে ফেরার সেই পথে বিমানের টিকিট কেনার অর্থ অনেকের হাতে নেই। এমনিতেই বিদেশে দীর্ঘ সময় থাকতে বাধ্য হওয়ায় হাতের টাকা পয়সা শেষ।

ছবি ব্যানার্জীর কথায়, ‘ঢাকাতেও যেভাবে রোগটা ছড়িয়েছে শুনছি, সাহস হচ্ছে না ঢাকা গিয়ে বিমানে চেপে দিল্লি যেতে। আবার সেখান থেকে কলকাতায় কীভাবে পৌঁছাব তাও জানি না। কিছু একটা ব্যবস্থা করুক সরকার।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 5
    Shares