প্রচ্ছদ আইন-আদালত

ভ*য়ঙ্ক*র খু*নি এরশাদ শিকদারের বডিগার্ড মুক্তি পাচ্ছেন

94
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

শতাব্দীর ভ*য়ঙ্ক*র খু*নি এরশাদ শিকদার প্রতিটি খু*নের পরই দুধ দিয়ে গোসল করে পবিত্র হতেন। তবু নিজের পাপকে ঢাকতে পারেননি খুলনার কু*খ্যাত এই সি*রিয়াল কি*লার। ২০০৪ সালের ১০ মে মধ্যরাতে খুলনা জেলা কা*রাগা*রে ফাঁ*সিতে ঝু*লতে হয়েছে তাকে।

এরশাদ শিকদারের নৃ*শংস*তা এতটাই ভ*য়াবহ যে সেসব খু*নের বর্ণনা দেওয়াও লো*মহর্ষ*ক ব্যাপার। আস্তে-ধীরে রয়ে-সয়ে কষ্ট দিয়ে নিজের শি*কারকে খু*ন করতেন তিনি। তার বরফকলে যার ডাক পড়তো, তিনি আর কখনোই সেখান থেকে জীবিত বের হতে পারতেন না। এদের অধিকাংশের লা*শও আর খুঁজে পাওয়া যেত না।

কু*খ্যাত স*ন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারের বডিগার্ড নুর আলম প্রায় ২০ বছর পর কা*রাগার থেকে মুক্তি পাচ্ছেন। তার সা*জার মেয়াদ শেষ হওয়া ও অন্য কোনো মা*মলা না থাকলে তাকে মু*ক্তির আদেশ দিয়েছেন আ*দালত। এরশাদ শিকদারের এই বডিগার্ড ১২ খু*নের সহযোগী। সোমবার (২৯ জুলাই) ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমান এই আ*সামি*কে মু*ক্তির আদেশ দেন।

জানা যায়, এরশাদ শিকদার গ্রে*প্তার হওয়ার পর নুর আলম রা*জসা*ক্ষী হন। তার সা*ক্ষ্যের ওপর ভিত্তিতে খুলনার জলিল টাওয়ার মালিকের ম্যানেজার খালিদ হ*ত্যা মা*মলায় তার ফাঁ*সির আদেশ হয়। ২০০৪ সালের ১০ এপ্রিল মধ্যরাতে খুলনা জেলা কা*রাগা*রে এরশাদ শিকদারের ফাঁ*সি কার্যকর হয়। এভাবে একে একে ১১টি মা*মলায় রা*জসা*ক্ষী হিসেবে কা*রাগার থেকেই এরশাদ শিকদারের বি*রুদ্ধে সা*ক্ষ্য দেন নুর আলম। বাকি ছিল রাজধানীর লালবাগ থানার আজিজ অ*পহ*রণপূ*র্বক হ*ত্যা মা*মলার সাক্ষ্য দেওয়া। ২০১৮ সালের ৮ জানুয়ারি হা*ইকোর্ট মা*মলাটি চার মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির আদেশ দেন।

সোমবার মা*মলাটির ধার্য তারিখে ঢাকা জেলা লি*গ্যাল এইড অফিস থেকে আ*ইনজীবী মুনতাছির মাহমুদ রহমান কা*রামু*ক্তির আবেদন করেন। বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান আবেদন মঞ্জুর করে কা*রামু*ক্তির আদেশ দেন। শুনানিকালে নুর আলমকে কা*রাগা*র থেকে আ*দালতে হাজির করা হয়। পরে তাকে জে*লা লি*গ্যাল এইড অফিসে নেওয়া হয়। সেখানে ঢাকা জেলা লি*গ্যাল এইড অফিসার সিনিয়র সহকারী জজ মো. আলমগীর হোসাইন তার সঙ্গে কথা বলেন।

আলমগীর হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, নুল আলম রা*জসা*ক্ষী হয়ে ২০ বছর ধরে জে*লে আছেন জানার পর তাদের অফিসের মাধ্যমে জা*মিন করিয়েছেন। খুলনার একটি মা*মলা তার প্রোডাকশন ও*য়ারে*ন্ট আছে বলে জানতে পেরেছি। সেখানকার আ*ইনজী*বীর সঙ্গেও কথা হয়েছে। ওই প্রো*ডাকশন ও*য়ারে*ন্ট প্র*ত্যাহা*র হলেই তিনি কা*রামু*ক্ত হবেন।

তিনি বলেন, ১৯৯৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে কা*রাগা*রে আছেন। নুর আলম কা*রাগা*রে থাকাবস্থায় তার ছেলে রাফী (১৮) মা*রা গেছেন। স্ত্রীর বিয়ে হয়েছে অন্য জায়গায়। বাড়িঘর জমিজমা এখন কিছুই নেই। প্রথম জীবনে নুর আলম জাহাজে চাকরি করতেন। সেই চাকরি ছেড়ে তিনি এরশাদ শিকদারের বডিগার্ড হিসেবে যোগ দেন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

Loading...

আপনার মতামত লিখুন :

Loading Facebook Comments ...