প্রচ্ছদ অপরাধ

শিশুদের ঝ’গড়ায় মা জে’ল খাটছেন

18
শিশুদের ঝ’গড়ায় মা জে’ল খাটছেন
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

শরীয়তপুরে দুই শিশুর ঝ’গ’ড়ার জে’র ধরে হ’য়’রানিমূলক মা’ম’লা দিয়ে নুরজাহান বেগম নামে এক নারীকে কারাগারে পাঠানোর অ’ভি’যোগ উঠেছে। মা’ম’লায় আসামি হয়ে পা’লি’য়ে বেড়াচ্ছেন ওই নারীর স্বামী ইয়াছিন ছৈয়াল। আ’ত’ঙ্কে আর শ’ঙ্কা’য় নির্ঘুম রাত কাটছে তাঁর চার শিশুসন্তানের। ঘটনাটি শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ভুমখারা এলাকার।

নড়িয়া থানা ও স্থানীয় গ্রামবাসী সূত্র জানায়, নড়িয়ার ভুমখারা গ্রামের বাসিন্দা নুরজাহান বেগমের স্বামী ইয়াছিন ছৈয়াল চট্টগ্রামে ফেরি করে কাপড় বিক্রি করেন। চার শিশুসন্তান নিয়ে তিনি গ্রামের বাড়িতে থাকেন।

গত ৩ আগস্ট নুরজাহানের ছেলে মজনু (৯) ও মোজাম্মেলের (৮) সঙ্গে প্রতিবেশী সালাম ব্যাপারীর ছেলে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী আব্দুল আহাদের (১৪) ঝ’গ’ড়া হয়।

তাদের ঝ’গ’ড়ায় আহাদ মাথায় আ’ঘা’ত পায়। ওই ঘটনার জে’র ধরে ওই দিন আহাদের বাবা আব্দুস সালাম লোকজন নিয়ে মজনু, মোজাম্মেল, তার মা নুরজাহান, দুই বোন বীথি ও সাথিকে মা’র’ধ’র করেন।

এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই নুরজাহান বেগম নড়িয়া থানায় একটি লিখিত অ’ভি’যোগ দায়ের করেন। কিন্তু পুলিশ অ’ভি’যোগটি নথিভুক্ত করেনি।

আরও পড়ুন:  ছোট ভাইয়ের প্রেমিকাকে ছিনিয়ে নিয়ে ধর্ষণ করলো বড় ভাই

পুলিশ ও স্থানীয় কিছু ব্যক্তি বিষয়টি মীমাংসার জন্য নুরজাহানকে চাপ দিতে থাকে। নুরজাহান মীমাংসায় রাজি না হলে গত ২১ আগস্ট সালামের স্ত্রী শিউলি বেগম নড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মা’ম’লায় অ’ভি’যোগ করা হয়, নুরজাহান ও তার স্বামী ইয়াছিন ছৈয়াল আব্দুল আহাদকে মাথায় ধা’রা’লো অ’স্ত্র দিয়ে কু’পি’য়ে আ’হ’ত করেন। ওই রাতেই নড়িয়া থানার পুলিশ নুরজাহানকে গ্রে’প্তা’র করে। পরের দিন তাকে জেলা কা’রা’গারে পাঠানো হয়।

মঙ্গলবার ওই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, নুরজাহানের চার শিশুসন্তান আ’ত’ঙ্কে ঘরে বসে আছে। বাবা-মায়ের জন্য কান্না করছে তারা। ভয়ে তারা রাতে না ঘুমিয়ে জেগে থাকে।

ওই ঝ’গ’ড়ার ঘটনায় মা’থায় আ’ঘা’ত পাওয়া আব্দুল আহাদের কাছে জানতে চাওয়া হলে সে জানায়, ঈদের দুই দিন পর বাড়ির পাশের বাজারে মজনু ও মোজাম্মেলের সঙ্গে তার কথা কা’টা’কা’টি হয়।

একপর্যায়ে মোজাম্মেলের হাতে থাকা ফিটকিরির প্যাকেট দিয়ে তার মাথায় আ’ঘা’ত করলে তার মাথা কেটে র’ক্ত বের হয়। ওই ঘটনার সময় মজনুদের বাবা-মা সেখানে উপস্থিত ছিলেন না।

আরও পড়ুন:  ছাত্রীকে বিয়ের প্র’লোভনে ১০ বছর ধরে ধ’র্ষ’ণ!

মামলার বাদী আব্দুস সালাম বলেন, ওরা এলাকার মধ্যে খুব খারাপ। আর ওই শিশুদের মা তাদের প্রশ্রয় দেন। এ কারণে তাকে মা’ম’লায় আ’সা’মি করা হয়েছে। মা’র’ধ’রের বিষয়ে তিনি বলেন, আমি তাদের মা’র’ধ’র করিনি, ঘটনাটি জিজ্ঞেস করতে গিয়ে একটু দ’স্তা’ধ’স্তি হয়েছে।

নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, নুরজাহান যে অভিযোগ করেছিল তাতে মা’র’ধ’রের কথা ছিল। আর শিউলী বেগমের করা মা’ম’লায় তার ছেলের মাথায় কো’পা’নোর অ’ভি’যোগ ছিল।

এ কারণে তাদের মা’ম’লাটি নথিভুক্ত করে নুরজাহানকে গ্রে’প্তা’র করা হয়েছে। এখন ওই ঘটনার সঙ্গে নুরজাহান জ’ড়ি’ত ছিল কি না তা তদন্ত করে দেখা হবে। সেভাবেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 5
    Shares