প্রচ্ছদ বিএনপি বিএনপির ডেঙ্গু প্রতিরোধ কর্মসূচিতে সরকারের বাধা

বিএনপির ডেঙ্গু প্রতিরোধ কর্মসূচিতে সরকারের বাধা

29
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

বিএনপির ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনগণকে সচেতন করার কর্মসূচিতে সরকার বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে পুরন ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্ক থেকে নির্ধারিত র‌্যালি করতে না পেরে দায়রা জজ আদালতের প্রধান ফটকের সামনে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য এই অভিযোগ করেন।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘আমাদের কর্মসূচি হওয়ার কথা ছিল বাহাদুর শাহ পার্ক থেকে। এই র‌্যালি করার জন্য সরকার আমাদেরকে অনুমতি দেয়নি।’ ‘আমরা সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য, জনগণকে সচেতন করার জন্য এই কর্মসূচি নিয়েছিলাম। সেখানেও তাদের বাধা। যারা আমাদেরকে গণসচেতনতামূলক এই কর্মসূচি করতে বাধা প্রদান করল আমি তীব্র ভাষায় এর নিন্দা জানাচ্ছি’, যোগ করেন তিনি।

সরকার ও সিটি করপোরেশনসমূহের ব্যর্থতাকে দায়ী করে সাবেক এই স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশন সমন্বিতভাবে এই বর্ষা মৌসুমের আগেই উদ্যোগ গ্রহণ করত তাহলে এই ডেঙ্গুর মহামারী সৃষ্টি হতো না। আমিও স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলাম। ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ডেঙ্গু ছিল। তখন আমরা প্রথমে এডিস মশা নির্মূল করার জন্যে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্মসূচি গ্রহণ করেছি। আমি প্রত্যেক মৌসুমের আগে নগর ভবনে তৎকালীন মেয়র সাদেক হোসেন খোকার সভাপতিত্বে সভা করে কৌশল নির্ধারণ করেছি এবং আমরা তখন সফল হয়েছি।’

আরও পড়ুন:  বিএনপির তৃনমূল নেতাকর্মীদের গণহারে পদ্যতাগ

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘তখনও ডেঙ্গু হয়েছে কিন্তু তা প্রতিরোধের জন্য আমরা সচেতন ছিলাম বলে তা এত বড় আকার ধারণ করেনি। আমরা তাই মনে করি এই সরকার ও তার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, দুই সিটি করপোরেশনের এটা ব্যর্থতা তারা সময়মতো এডিস মশা নিধন করতে পারেনি। যার জন্যে এই ডেঙ্গু মহামারীতে রূপান্তরীত হয়েছে।’

আগামী দুই মাসে এর ব্যাপকতা বৃদ্ধির আশঙ্কা করে তিনি বলেন, ‘আমরা জনগণের রাজনীতি করি বলেই দায়িত্ববোধ থেকে জনগণকে সচেতন করার জন্য এই কর্মসূচি নিয়েছি। এখনো যদি মানুষ সচেতন হয় যার যার বাড়িতে স্বচ্ছ পানি আটকা থাকে সেই পানি তারা যদি বিনষ্ট করে দেয় এবং সরকার এখনো সচেষ্ট হয় তাহলে যে সরকারি অফিস-আদালতগুলো রয়েছে, ছাদের কেউ খবর রাখে না, সেই ছাঁদগুলোতে যদি মশার ঔষধ ছিটানো যায় হয় এখনো এটাকে কমিয়ে আনা সম্ভব।’

আরও পড়ুন:  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকার ২০ আসনে বিএনপির প্রার্থী চূড়ান্ত !

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘আজকে সরকারের ব্যর্থতা, তাদের উদাসীনতার জন্যই এই ডেঙ্গু মহামারী আকার ধারণ করেছে। আমরা এর জন্য দায়ী করি সরকারকে ও দুই সিটি করপোরেশনকে।’ এ সময় উপস্থিত ছিলেন- মহানগর দক্ষিণের ইউনুস মৃধা, হাবিবুর রশীদ হাবিব, প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনসহ মহানগরের নেতা-কর্মীরা।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট: