প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

বঙ্গবন্ধু হত্যা কান্ড ও জিয়া

21
বঙ্গবন্ধু হত্যা কান্ড ও জিয়া
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

ডা.আসিফ নজরুল

আমেরিকান সাংবাদিক লরেন্স লিফশুলজ সম্প্রতি বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যাকান্ডে জিয়াউর রহমানের ভূমিকার তদন্ত চেয়েছেন।আওয়ামী লীগের নেতারাও ২০০৯ সালের পর থেকে এসব কথা বলে আসছেন।তারা বঙ্গবন্ধু হত্যার জন্য শুধু জিয়াউর রহমানকে দায়ী করেন, অন্য কারো কথা তাদের মুখে আসেনা। অথচ বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর যে মন্ত্রীসভা গঠিত হয় তাতে ২৩ জনের মধ্যে ২২ জন ছিলেন আওয়ামী লীগের নেতা। হত্যাকান্ডের পর নতুন সরকারের প্রতি আনুগত্য জানিয়েছিলেন তিন বাহিনীর প্রধান (এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিবাহিনীর প্রধান)। এদের একজন পরে শেখ হাসিনার আমলে মন্ত্রী হয়েছেন, আরেকজন সংসদ সদস্য হয়েছেন। হত্যাকান্ডের সময় বা পরে কোন প্রতিরোধ গড়ে তুলেনি অত্যাধুনিক অস্রে সুসজ্জিত রক্ষীবাহিনী।

হত্যাকান্ডের পর ৩ নভেম্বরের খালেদ মোশাররফের পাল্টা অভূ্ত্থানে বন্দী ছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি বন্দী থাকা অবস্থায় জেলখানায় চার জাতীয় নেতার হত্যার ঘটনা ঘটে এবং বঙ্গবন্ধুর খুনীদের নিরাপদে দেশ থেকে চলে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। ৭ নভেম্বর তিনি মুক্ত হন, তাকে মুক্ত করে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন কর্নেল তাহের। তখন তিনি মারা গেলে তার তো এ হত্যার বেনিফিসিয়ারী হওয়ারও কথা না।জিয়া যদি হত্যাকান্ডে কোনভাবে জড়িত থাকতেন তাহলে ১৫ অগাষ্টের হত্যাকান্ডে তার রেজিমেন্টের কেউ অংশ নেয়নি কেন? সেনাবাহিনীর উপপ্রধান হিসেবে হত্যাকান্ডের জন্য অভিযানে ব্যবহৃত ট্যাংকের গোলাবারুদ সরবরাহ করার সুযোগ থাকা সত্বেও তিনি তা করেন নি কেন? কনেল ফারুক খালি ট্যাংক নিয়ে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে রওয়ানা হওয়ার সময় পথিমধ্যে রক্ষীবাহিনীর মুখোমুখি হন। তাকে তখন সামান্য বাধা দিলে ১৫ অগাষ্টের হত্যাযজ্ঞ কোনভাবেই করা যেত না। চৌকস সেনা অফিসার জিয়া হত্যাকান্ডে জড়িত থাকলে এভাবে খালি ট্যাংক পাঠাবেন অস্রসজ্জিত রক্ষী বাহিনীর নাকের ডগা দিয়ে?তারপরও জিয়াউর রহমানের ভূমিকার তদন্ত চাওয়া যেতে পারে। কিন্তু তাহলে তখনকার আওয়ামী লীগের বড় একটি অংশ, বিভিন্ন বাহিনী প্রধান ও গোয়েন্দা সংস্থা- এদের ভূমিকার তদন্ত চাননা কেন লরেন্স লিফশুলজ এবং অন্যরা? কেন তারা বলেন না জাসদের তখনকার ভূমিকার কথা?যে কোন দেশে সেনাবাহিনী চলে সেনাপ্রধানের কথায়। সেনাপ্রধান কি বঙ্গবন্ধুর ফোন পাওয়ার পর কোন ভূমিকা নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করার? অন্তত তার কথাও মুখে আসেনা কেন কারো?বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের দীর্ঘ ও চুলচেরা বিচার হয়েছে আওয়ামী লীগের আমলে। সেখানে জিয়াউর রহমানের কোন ভূমিকা খুজে পাওয়া যায়নি।সবার নামকে আড়াল করে, এতো বছর ধরে তাহলে একতরফাভাবে শুধু তাঁর উপর দোষ চাপানো হচ্ছে কেন? আর এটি নিয়ে বিচার পরবর্তী তদন্ত করার ইচ্ছে থাকলে, তা করাই বা হচ্ছে না কেন?ক্ষমতায় তো আছেন, সুশক্ত প্রমান থাকলে আনুন। দেশের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা্ ওঅতিজনপ্রিয় মানুষের নামে এমনি এমনি কালিমালেপন করে কি লাভ আপনাদের?

আরও পড়ুন:  করোনা আক্রান্ত কারও সংস্পর্শে এলে কী করবেন

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।