প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

ওসি প্রদীপের স্ত্রী চুমকীকে খুঁজছে দুদক, দেশত্যাগ ঠেকাতে চিঠি

28
ওসি প্রদীপের স্ত্রী চুমকীকে খুঁজছে দুদক, দেশত্যাগ ঠেকাতে চিঠি
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ খান হত্যা মামলায় গ্রেফতার টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাসের বিরুদ্ধে একের পর এক বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। ইয়াবা চোরবারিদের আটক করে বিপুল পরিমাণ ঘুষ গ্রহণ ছাড়াও ক্রসফায়ারে দেয়ার বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু মামলাও দায়ের হয়েছে। 

এরইমধ্যে ওসি প্রদীপের বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের খোঁজ পায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অবৈধভাবে অর্জিত এসব সম্পদের বড় একটা অংশ স্ত্রী চুমকীর নামে। ফলে স্বামীর কৃত অপরাধে স্ত্রীও ফেঁসে যাচ্ছেন। 

ওসি প্রদীপের হস্তান্তরিত প্রায় ৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় ১ নম্বর আসামি করা হয়েছে তার স্ত্রী চুমকীকে। ওসি প্রদীপ ওই মামলার ২ নম্বর আসামি। 

ইতোমধ্যে সিনহা হত্যা মামলায় কারাগারে থাকা ওসি প্রদীপকে দুদকের মামলায়ও গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করা হয়েছে। পাশাপাশি চুমকীকেও খুঁজছে দুদক। 

চুমকী দেশ ছেড়ে পালিয়ে যেতে পারেন- এমন আশঙ্কা থেকে তার দেশত্যাগ ঠেকাতে গতকাল সোমবার পুলিশ সদর দফতরে চিঠি পাঠিয়েছে দুদকের আইনজীবী মাহমুদুল হক মাহমুদ। 

গতকাল তিনি গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘দুদকের করা মামলায় ওসি প্রদীপকে গ্রেফতার দেখানোর জন্য গত ২৭ আগস্ট আমরা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালতে আবেদন করেছিলাম। আদালত ১৪ সেপ্টেম্বর ওই আবেদনের ওপর শুনানির দিন ধার্য করেছেন। একই মামলায় প্রদীপের স্ত্রী চুমকী দেশত্যাগ বন্ধে পুলিশ সদর দফতরে চিঠি দেয়া হয়েছে।’

এর আগে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকীর বিরুদ্ধে গত ২৩ আগস্ট দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-১ এ  কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। 

আরও পড়ুন:  ইউএনও হত্যাচেষ্টায় নতুন মোড়

মামলায় এই দম্পতির বিরুদ্ধে দুদক আইন-২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারা, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ এর ৪(২) ধারা, ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং দণ্ডবিধির ১০৯ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

দুদক কর্মকর্তারা বলছেন, ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকীর নামে যেসব ‘অবৈধ সম্পদের’ তথ্য পাওয়া গেছে, তা প্রদীপ ‘ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জন করেছেন’ বলে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণ মিলেছে। 

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, চুমকী তার স্ত্রী ওসি প্রদীপ কুমার দাসের ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত অপরাধলব্ধ অর্থ স্থানান্তর, হস্তান্তর ও রূপান্তরপূর্বক একে অপরের সহযোগিতায় ভোগদখলে রেখে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। 

এজাহারে আরও অভিযোগ আনা হয়, চুমকি দুদকে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে ১৩ লাখ ১৩ হাজার ১৭৫ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন। পাশাপাশি ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৫ হাজার ৬৩৫ টাকার জ্ঞাত আয়ের উৎসের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ অর্জনের বিষয়টি প্রাথমিকভাবে প্রমাণ হয়েছে, যা ওসি প্রদীপের ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জন করে পরস্পরের যোগসাজসের মাধ্যমে হস্তান্তর ও স্থানান্তরের মধ্য দিয়ে ভোগদখলে রেখে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন চুমকী।

গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাক বাহারছড়া চেকপোস্টে নিরাপত্তা চৌকিতে তল্লাশির সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। 

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ৫ আগস্ট সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসী বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতে এসআই লিয়াকত, ওসি প্রদীপ কুমার দাসসহ ৯ পুলিশের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

আরও পড়ুন:  চারদিনের সফরে বাংলাদেশে বিএসএফ মহাপরিচালক

আলোচিত এ হত্যা মামলার ৯ আসামি হলেন- টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস, টেকনাফ বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক মো. লিয়াকত, বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দ দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) টুটুল ও কনস্টেবল মোহাম্মদ মোস্তফা। এদের মধ্যে আসামি মোস্তফা ও টুটুল পলাতক আছেন।

সিনহা হত্যার পরদিন পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় দুটি ও রামু থানায় একটি মামলা করে। সিনহা হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত ৭ পুলিশ, আর্মড পুলিশের ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) ৩ সদস্য ও টেকনাফ পুলিশের করা মামলার ৩ সাক্ষীসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বিভিন্ন সময়ে প্রত্যেককে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে র‌্যাব। এরইমধ্যে সিনহাকে গুলি করা পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত ও এসআই নন্দ দুলাল আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। মেজর সিনহা হত্যায় পুলিশের করা মামলায় সিনহার সঙ্গে থাকা শিপ্রা দেবনাথ ও শাহেদুল ইসলাম সিফাত গ্রেফতার হওয়ার পর র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দুজনই জামিনে মুক্ত হন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 32
    Shares