প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

মামলায় গ্রেফতার ৪ আসামি জেলহাজতে: মেয়ের প্রেমের কাহিনী লুকাতে গুলির ঘটনা ভিন্নখাতে

111
মামলায় গ্রেফতার ৪ আসামি জেলহাজতে: মেয়ের প্রেমের কাহিনী লুকাতে গুলির ঘটনা ভিন্নখাতে
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

স্টাফ রিপোর্টার

নগরীর ৪, বিকে মেইন রোডস্থ মিস্ত্রীপাড়ার আরাফাত জামে মসজিদের সামনে ষষ্ঠ শ্রেণির স্কুলছাত্রী লামিয়ার গুলিবিদ্ধের ঘটনায় ঠিকাদার মো. ইউসুফ আলির ৫লাখ টাকা চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতার ৪আসামিকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত।

গতকাল সোমবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. সাইদুর রহমান ৪আসামিকে আদালতে হাজির করেন। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমিরুল ইসলাম  তাদের জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ প্রদান করেরেছন। আসামিরা হলেন নগরীর গ্লাক্সো মোড়ের শেখ হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. মেহেদী হাসান (২১), দৌলতপুর পাবলা কেশবলাল রোডের মো. মিজানুর রহমান শেখের ছেলে মো. সাইফুল ইসলাম (২৩), বাগেরগাট জেলার রামপাল থানার বারুই পাড়ার মল্লিক আব্দুল হাই এর ছেলে মো. ইসমাইল মল্লিক (২৭) ও যশোর জেলার কেশবপুর থানার হদ গ্রামের মো. মোস্তফা বিশ্বাসের ছেলে মোহাম্মদ আবু সাইদ (২২)।   

তবে ঠিকাদারের দায়ের করা মামলা ও দাবি করা সব তথ্য মিথ্যা বলে অভিযোগ করেছেন ওই চার যুবকের স্বজনরা। তারা জানিয়েছেন, ঠিকাদার ইউসুফ আলীর মেয়ে রুকাইয়া শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে পড়েন। রুকাইয়ার সঙ্গে শাহেদ নামে একটি ছেলে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ঠিকাদার তার পছন্দের ছেলের সঙ্গে মেয়ের বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। মেয়ের মোবাইল ফোনও কেড়ে নিয়েছিলেন তিনি। কয়েকদিন মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে প্রেমিক শাহেদ তার তিন বন্ধু মেহেদি, ইসমাইল ও সাইফুলকে নিয়ে যান ইউসুফ আলীর বাড়িতে। প্রেমিকা রুকাইয়ার বাবা ঠিকাদার ইউসুফকে তারা র্দীঘদিনের প্রেমের সম্পর্কের কথা খুলে বলেন। এমন সময় ইউসুফ ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে তাদের গালিগালাজ শুরু করেন। তখন সেখানে উপস্থিত রুকাইয়ার মামা তাদের বের হয়ে যেতে পরামর্শ দেন। তারা বের হয়ে দরজা পর্যন্ত আসার পরে ইউসুফ পিস্তল নিয়ে বের হয়ে গুলি ছোড়েন।

আরও পড়ুন:  ‘গণমাধ্যমের ওপর চাপ গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত ও আত্মঘাতিমূলক’

সাইফুলের মামা সোহেল বলেন, আমার ভাগিনা ও তার বন্ধুদের ওপর সম্পূর্ণ বে-আইনি ভাবে গুলি ছুড়েছেন ঠিকাদার ইউসুফ। আবার তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলাও দায়ের করেছেন। আমরা আইনি পদক্ষেপের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

মামলার বিবরণে জানা যায়, মিস্ত্রিপাড়া আরাফাত জামে মসজিদের পাশের ঠিকাদার ইউসুফ আলী বাবু খান রোডের সংস্কারের কাজ পান। কিছু দুষ্কৃতকারী এ কাজটির জন্য তাকে চাপ দিচ্ছিলো। দুষ্কৃতকারীরা কাজটা কিনতে চায়। তারা চাঁদা নিতে গেলে তিনি গুলি ছোড়ে। ঠিকাদারি একটি কাজ নিয়ে চার যুবক তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করার এক পর্যায়ে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিলে তিনি পিস্তল নিয়ে তাদের ধাওয়া করেন। এ সময় পিস্তলে তিন রাউন্ড গুলি ছিল। তিনি দুই রাউন্ড গুলি ছোড়েন। ওই চার যুবকও দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় গুলি করেছিলো। তাদের গুলি লামিয়ার পায়ে বিদ্ধ হয়। এঘটনায় ইউসুফ আলি বাদী হয়ে খুলনা থানায় অজ্ঞাতনামা ৪জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন  যার নং-৩৭।  

আরও পড়ুন:  খুলনা-মোংলা এন-৭ সড়কের কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড গোল চত্তর এখন মরণ ফাঁদ

উল্লেখ্য, ২৮ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঠিকাদার শেখ ইউসুফ আলীর বাড়ি গিয়েছিল তার মেয়ের প্রেমিক ও  প্রেমিকের বন্ধুরা। তাদের পরিচয় পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে হুমকি দেন ঠিকাদার। পরিস্থিতি খারাপ বুঝে বাড়ির লোকেরা তাদের বের হয়ে যেতে বলে। তারা বের হতে না হতেই পিস্তল হাতে বেরিয়ে পড়েন ঠিকাদার। ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি তাদের লক্ষ্য করে  গুলি ছোড়ে। গুলির শব্দ শুনে পাশের বাড়ির স্কুল পড়ুয়া লামিয়া কৌতুহলবশত ঠিকাদারের বাড়ির সামনে যায়। এমনি সময় লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে একটি গুলি বিদ্ধ হয় শিশু লামিয়ার বাম পায়ে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 7
    Shares