প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

প্রেসিডিয়ামে তবুও আওয়ামী লীগ নন নাহিদ

71
প্রেসিডিয়ামে তবুও আওয়ামী লীগ নন নাহিদ
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

নুরুল ইসলাম নাহিদ। কমিউনিস্ট পার্টি থেকে আওয়ামী লীগে আসা নেতাদের মধ্যে বেগম মতিয়া চৌধুরীর পর সবচেয়ে সম্ভাবনাময়, পরিচ্ছন্ন নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার পর তার ক্লিন ইমেজ এবং নীতি-নিষ্ঠার কারণেই ২০০৮ সালে তাকে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে প্রথম মেয়াদে অত্যন্ত সফল ছিলেন এবং শিক্ষানীতিসহ বেশকিছু যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ। এর পুরষ্কার হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদেও নুরুল ইসলাম নাহিদ দায়িত্ব পালন করেন, কিন্তু দ্বিতীয় মেয়াদে নুরুল ইসলাম নাহিদ যেন কেমন এলোমেলো হয়ে যান। শিক্ষাক্ষেত্রে নানারকম অনিয়ম, বিশেষ করে প্রশ্নপত্র ফাঁস, কোচিং বাণিজ্য বন্ধে ব্যর্থতা ইত্যাদি নিয়ে লবেজান অবস্থায় পড়েছিলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ। দুই দফা পদত্যাগও করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে শেষ পর্যন্ত পদত্যাগ করেননি।

কিন্তু বছরের ১ তারিখে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, পাবলিক পরীক্ষার নিয়ম নীতি শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার পরেও ইতিহাসের বিচারে নুরুল ইসলাম নাহিদ সফল শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে বিবেচিত হবেন না তার শেষ মেয়াদের শেষ দুই বছরের ব্যর্থতার জন্যে। তৃতীয় দফায় তিনি মন্ত্রীত্ব পাননি, তার বদলে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন ডা. দীপু মনি। মন্ত্রিত্ব না পেলেও তিনি আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী সংস্থা প্রেসিডিয়ামের সদস্য হয়েছেন।

সাবেক ছাত্র ইউনিয়নের নেতা, কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নাহিদ আওয়ামী লীগে যোগদান করেছিলেন আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে। এমন নয় যে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এবং তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েই কিছু একটা পেলেন। বরং সারাজীবন ত্যাগ-তিতিক্ষা এবং মেহনতি মানুষের রাজনীতি করা এই মুক্তিযোদ্ধা রাজনীতিবিদ একটা কঠিন সময়ে রাজনীতিতে এসেছিলেন এবং তার নির্বাচনী এলাকায় তিনি আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেছিলেন।

আরও পড়ুন:  সরকার ক্ষমতায় থাকার সকল অধিকার হারিয়েছে :মির্জা ফখরুল

২০০৮ এর নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এর আগে রাজনীতিতে তার নানারকম চড়াই-উতরাই টানাপোড়েন গেছে। কিন্তু কঠিন সময়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিলেও এবং আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার পর দীর্ঘ সময় অতিক্রান্ত হলেও এমনকি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য হওয়ার পরেও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কাছে তিনি ছাত্র ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম নাহিদ হিসেবেই পরিচিত। তিনি কমিউনিস্ট পার্টির নাহিদ হিসেবেই পরিচিত।

বাংলাদেশে ছাত্র ইউনিয়ন এবং কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক সম্পর্ক ছিল। বিশেষ করে মহান মুক্তিযুদ্ধে আওয়ামী লীগের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছিল কমিউনিস্ট পার্টি এবং তাদের ছাত্র সংগঠন ছাত্র ইউনিয়ন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন বাকশাল গঠন করেছিলেন তখন মণি সিংহের নেতৃত্বে কমিউনিস্ট পার্টিও বাকশালে যোগদান করেছিল। জাতির পিতাকে সমাজতান্ত্রিক নীতিতে উদ্বুদ্ধ করার ক্ষেত্রে যারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল তাদের মধ্যে মণি সিংহ এবং কমিউনিস্ট পার্টি অন্যতম ছিল বলেও অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক মনে করেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাও এই ধারা অব্যহত রাখেন। শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনে অন্য দলের যে কজন বিশ্বস্ত নেতাকে চিহ্নিত করা যায় তাদের মধ্যে কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত মোহাম্মদ ফরহাদ ছিলেন অন্যতম। প্রয়াত মোহাম্মদ ফরহাদকে সত্যিকার অর্থেই পছন্দ করতেন শেখ হাসিনা এবং অনেক রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের জন্যে তার সঙ্গে পরামর্শও করতেন। সে কারণেই বাংলাদেশের রাজনীতিতে কমিউনিস্ট পার্টি এবং আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক সুসম্পর্কের বাস্তবতায় বহু প্রাক্তন ছাত্র ইউনিয়ন নেতা আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং আওয়ামী লীগে তারা আশাতীত পুরষ্কারও পান।

আরও পড়ুন:  শাসন ব্যবস্থায় গুণগত পরিবর্তন আনতে হবে : ইনু

বেগম মতিয়া চৌধুরী, নূহ উল আলম লেনিন, আব্দুল মান্নান খান-এরা সবাই ছাত্র ইউনিয়ন বা কমিউনিস্ট পার্টি থেকে আওয়ামী লীগে এসে ভালো পদপদবী পেয়েছেন এবং শেখ হাসিনা তাদেরকে মূল্যায়নও করেছেন। সেই ধারায় নুরুল ইসলাম নাহিদ আওয়ামী লীগের সদস্য হয়েছেন, যদিও আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই মনে করেন যে, আওয়ামী লীগের মতো একটি বড় রাজনৈতিক দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য হওয়ার ক্ষেত্রে যে যোগ্যতা, জনপ্রিয়তা থাকা দরকার সেটা নুরুল ইসলাম নাহিদের নেই। তারপরেও শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত, আস্থাভাজন এবং সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনি এই পদে জায়গা পেয়েছেন। তবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হলেও দলের নেতাকর্মীদের কাছে তিনি আওয়ামী লীগার হতে পারেননি।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।