প্রচ্ছদ অপরাধ

খুলনায় থানা হাজতে গ*ণ ধ*র্ষণ,ধ*র্ষিতার পরিবারকে হু*মকি

69
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

খুলনা জিআরপি থানা হাজতে নি*র্যাতন ও গ*ণ ধ*র্ষণের অ*ভিযোগ তোলা গৃহবধূর পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন, তাদের অব্যাহত হু*মকি দেয়া হচ্ছে। বুধবার তারা এ ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিস্তারিত জানিয়েছেন। একইসঙ্গে পুলিশের দেয়া মা*দক মা*মলায় কা*রাগা*রে থাকা ওই নারীর জা*মিন আবেদনের প্রস্তুতি নিয়েছেন আইনজীবীরা। এদিকে ফরেনসিক প্রতিবেদনে বিলম্বের কারণে মানবাধিকারকর্মীরা গৃহবধূকে নি*র্যাতনের অ*ভিযোগ এনে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে আদালতে মা*মলা করার পরিকল্পনা করছেন।

জিআরপি থানায় গিয়ে দেখা যায়, বুধবার তদন্ত কমিটি পুলিশ সদস্যদের সাক্ষ্যগ্রহণ এবং জি*জ্ঞাসাবা*দ করছেন। এ সময় পুলিশ সুপার (পাকশী-রেলওয়ে জেলা) মো. নজরুল ইসলামসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা থানার হা*জতখা*নাসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে প্র*ত্যাহারের পর থানার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেকেন্ড অফিসার এসআই অসীম কুমার দাসকে।

নি*র্যাতনের শি*কার ওই নারীর বড় বোন বলেন, মোবাইল ফোনে তাদের নানাভাবে হু*মকি দেয়া হচ্ছে। তদ*ন্ত কমিটির সঙ্গে দেখা করে তারা বিষয়টি জানিয়েছেন। এ ঘটনায় দোষীদের শা*স্তি হবে বলে ত*দন্ত কমিটি তাদের আশ্বস্ত করেছে। তিনি বলেন, ‘আদালতের নির্দেশে হাসপাতালে যখন আমার বোনের মেডিকেল পরীক্ষা হয় সেখানেও ওই ওসি (ওসমান) উপস্থিত ছিলেন। আমার বোনের বিরুদ্ধে সাজানো মা*দক মা*মলার দারোগা গৌতম কুমারের সঙ্গে তার সারাক্ষণ যোগাযোগ রয়েছে। এ অবস্থায় আমরা সু*বিচার কীভাবে পাবো জানি না।’

আরও পড়ুন:  ভ*য়ঙ্ক*র খু*নি এরশাদ শিকদারের বডিগার্ড মুক্তি পাচ্ছেন

বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা খুলনার সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট মোমিনুল ইসলাম বলেন, ‘হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার ফরেনসিক প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ধ*র্ষণের বিষয়ে আইনগত কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না, এ কারণে আমরা মা*দকের মি*থ্যা মা*মলায় নি*র্যাতিতা ওই নারীর জা*মিনের আবেদন করছি। পাশাপাশি দোষী পুলিশের বিরুদ্ধে নারী নি*র্যাতন দ*মন আ*ইনে মা*মলার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার মা*মলার আবেদন আদালতে উপস্থাপন করা হয়।’

ভি*কটিমের পরিবারের অ*ভিযোগ প্রসঙ্গে তদন্ত কমিটির প্রধান সহকারী পুলিশ সুপার ফিরোজ আহমেদ বলেন, ‘আমরা বুধবার ভি*কটিমের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেছি। বৃহস্পতিবার আরো বিস্তারিত কথা বলেছি। ইতিমধ্যে আমরা ওসি ও এক এসআইকে ক্লোজ করেছি। এখন কারা হু*মকি দিচ্ছে, তারা পুলিশের লোক নাকি বাইরের, তা জানার চেষ্টা করবো।’

আরও পড়ুন:  বেগম খালেদা জিয়াকে ব*ন্দী করার কারনে আওয়ামী লীগকে জবাবদিহি করতে হবে

উল্লেখ্য, গত ২রা আগস্ট যশোর থেকে ট্রেনে খুলনায় আসার পথে খুলনা রেলস্টেশনে কর্তব্যরত জিআরপি পুলিশের সদস্যরা ওই গৃহবধূকে মোবাইল ফোন চু*রির অভিযোগে আ*টক করে।  পরদিন শনিবার তাকে পাঁচ বোতল ফে*নসি*ডিলসহ একটি মা*মলায় গ্রে*প্তার দেখিয়ে খুলনার সিনিয়র জু*ডিশিয়াল ম্যা*জিস্ট্রেট আমলি আ*দালত ফুলতলায় পাঠানো হয়। ৪ঠা আগস্ট আদালতে জামিন শুনানিকালে বিচারককে ওই নারী জানান, জিআরপি থানায় গ*ণধ*র্ষণের শি*কার হয়েছেন তিনি।

থানা হাজতে ওসি ওসমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য তাকে ধ*র্ষণ করে। এরপর আদালতের নির্দেশে ৫ই আগস্ট তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। অভিযোগ খতিয়ে দেখতে পাকশী-রেলওয়ে জেলা পুলিশের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের নির্দেশে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রধান কুষ্টিয়া রেলওয়ে সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ফিরোজ আহমেদ এবং সদস্যরা হলেন- কুষ্টিয়া রেলওয়ে সার্কেলের ডিআইও-১ পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) শ. ম. কামাল হোসেইন ও দর্শনা রেলওয়ে ইমিগ্রেশন ক্যাম্পের পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. বাহারুল ইসলাম।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি