প্রচ্ছদ অপরাধ

২১ বছর বয়সী মেয়েকে পরপর তিনবার ধ*র্ষণ করার সময় জ*ন্মনি*য়ন্ত্রণ ব্যবহার করেন ওসি

584
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

খুলনার জিআরপি থা*নায় আ*টকে গৃহবধূকে পরপর তিনবার ধ*র্ষণ করেছেন জিআরপি থানা পুলিশের সাবেক ওসি ওসমান গনি পাঠান। ধ*র্ষণের সময় জ*ন্মনি*য়ন্ত্রণ ব্যবহার করেন ওসি। ওসির পর গৃহবধূকে ধ*র্ষণ করেন মুখে দাগওয়ালা ডিউটি অফিসার (এসআই)। এরপর বাকি তিনজন পুলিশ সদস্য গৃহবধূকে ধ*র্ষণ করেন। ওসির মতো তারা সবাই ধর্ষণের সময় জ*ন্মনি*য়ন্ত্রণ সামগ্রী ব্যবহার করেছেন।

থানায় পুলিশের হাতে থানায় গ*ণধ*র্ষণের শি*কার গৃহবধূর দা*য়ের করা মা*মলায় এসব তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। একই সঙ্গে সেদিন রাতে থানায় যেভাবে গ*ণ ধ*র্ষণের শি*কার হয়েছেন তা মা*মলার এ*জাহারে উল্লেখ করেছেন গৃহবধূ। গ*ণ ধ*র্ষণের ঘটনা প্রকাশ হলে গৃহবধূর পরিবারের সদস্যদের একের পর এক মা*মলা দিয়ে হ*য়রানির হু*মকি দিয়েছেন ধ*র্ষকরা।

ওই থানায় বর্তমানে ওসির দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই অসীম কুমার দাস জানান, শুক্রবার রাতে ২১ বছর বয়সী ওই তরুণী মাম*লাটি দা*য়ের করেন। মামলায় আ*সামি করা হয়েছে সাবেক ওসি ওসমান গনি পাঠান, এসআই নাজমুল হক ও অজ্ঞাত আরও তিন পুলিশ সদস্যকে।

গত ৪ অগাস্ট এই তরুণীকে মা*দক মা*মলায় গ্রে*প্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠায় পুলিশ। আদালতে তিনি ওসি ওসমান এবং এসআই নাজমুলসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে দ*লবেঁধে ধ*র্ষণের অভিযোগ করেন। আদালত তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। সোমবার খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়।

ঘটনার পর বুধবার ওসমান ও নাজমুলকে খুলনা রেলওয়ে থানা থেকে পাকশি রেলওয়ে পুলিশ লাইন্সে প্রত্যাহার করা হয়। ঘটনা ত*দন্তে গঠন করা হয় তিন সদস্যের একটি কমিটি। কমিটির প্রধান কুষ্টিয়া রেলওয়ে সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ফিরোজ আহমেদ বলেন, “বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই তরুণীকে জি*জ্ঞাসাবা*দ করে ত*দন্ত কমিটি। জি*জ্ঞাসাবা*দের পর আদালতের নির্দেশে পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মা*মলা হয়েছে।” তবে অন্য তিন পুলিশ সদস্যের নাম বলেননি তিনি।

পুলিশ কর্মকর্তা ফিরোজ বলেন, কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে ত*দন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে ত*দন্ত শেষ হতে আরও সময় লাগতে পারে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন পরিদর্শক শ ম কামাল হোসেইন ও মো. বাহারুল ইসলাম

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 1
    Share