প্রচ্ছদ বাংলাদেশ উপজেলা

গৃহকর্তার ধ*র্ষণে ৩ মাসের অ*ন্তঃস*ত্ত্বা ১৭ বছরের কাজের মেয়ে সন্তান ন*ষ্ট না করায় নি*র্যাত*ন

94
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

নবীগঞ্জে বিয়ের প্র*লোভ*নে কাজের মেয়েকে ৭-৮ মাস ধরে মা*নসিক, শা*রীরি*ক নি*র্যাত*ন ও এ*কাধি*ক বার ধ*র্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (১৮ আগস্ট) সকালে টানা ধ*র্ষণে*র ফলে ৩ মাসের অ*ন্তঃস*ত্তা কিশোরী (১৭) নি*র্যাত*নে গু*রুতর আ*হত অবস্থায় হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এ ব্যাপারে মা*মলা দা*য়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের মৃ*ত উরুস আলীর ছেলে হুমায়ুন মিয়া (২২) সিলেট উপশহর এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছেন। প্রায় ৮ মাস পূর্বে হুমায়ুন মিয়া নিজ গ্রামের পার্শবর্তী মিছকিনপুর এলাকার জনৈক(১৭) কিশোরীকে তার বাসায় গৃহকর্মীর কাজের জন্য উপশহরের বাসায় নিয়ে যায়।

এক পর্যায়ে মেয়েটির সাথে প্রে*মের অ*ভিনয় করে দৈ*হিক স*ম্পর্ক গড়ে তোলেন হুমায়ুন মিয়া। কয়েক মাসে একাধিক বার ধ*র্ষণে মেয়েটি অ*ন্তঃস*ত্তা হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে মেয়েটি বিয়ের জন্য একাধিকবার ল*ম্পট হুমায়ুনকে চাপ দেয়। এতে হুমায়ুন গ*র্ভ ন*ষ্ট করার প*রামর্শ দেয় কিন্তু মেয়েটি গ*র্ভের সন্তান ন*ষ্ট করতে অ*নীহা প্রকাশ করলে তার উপর অ*মানু*ষিক নি*র্যাতন শুরু হয়।

গত শনিবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে মেয়েটি আবারো বিয়ের জন্য চাপ দিলে গৃহকর্তা তার শয়ন কক্ষে বেঁধে মা*রপি*ট করে। মা*রপি*টের এক পর্যায়ে মেয়েটি গু*রুত*র আ*হত হয়ে অ*জ্ঞান হয়ে পড়লে। রবিবার (১৮ আগস্ট) ভোরে নি*র্যাতি*ত মেয়েটিকে নবীগঞ্জ উপজেলার বিবিয়ানা বিদ্যুৎ পাওয়ার প্ল্যান্টের রাস্তায় ফেলে পা*লিয়ে যায় গৃহকর্তা হুমায়ূন মিয়া। পরে স্থানীয় একজন গু*রুত*র আ*হত অবস্থায় মেয়েটিকে উ*দ্ধার করে তার বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে সোমবার সকালে তাকে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মেয়েটিকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। কিশোরী মেয়েটি বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

কিশোরী গৃহকর্মীর মা ছায়ারুন বেগম বলেন, আমাদের দারিদ্রতার সুযোগে হুমায়ুন মিয়া বি*য়ের প্র*লোভ*ন দেখিয়ে আমার মেয়েকে এ*কাধি*কবা*র ধ*র্ষণ করেছে। এতে মেয়েটি অ*ন্তঃস*ত্ত্বা হয়। হুমায়ুন মিয়া আমার মেয়ের গ*র্ভ ন*ষ্ট করার জন্য তার উপর অ*মান*বিক নি*র্যাতন করায় সে গু*রুতর আ*হত অবস্থায় এখন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। আমার মেয়েকে হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে না পারি এর জন্য অ*ভিযুক্তক*রীর লোকজন হাসপাতালে তৎপর রয়েছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন বলেন, বিষয়টি শুনেছি, এখনো মা*মলা দা*য়ের করা হয়নি। অ*ভিযোগ দা*খিল করলে আমরা প্রয়োজনীয় আ*ইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 98
    Shares