প্রচ্ছদ Featured News

উপনির্বাচন: ৫ কোটি টাকা দাম ঢাকার এক আসনের!

273
উপনির্বাচনে বিএনপি: আবারও তারেকের মনোনয়ন বাণিজ্য?
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

রাজনৈতিক বিবেচনায় গুরুত্বহীন হলেও বিএনপি উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। গতকাল থেকে উপনির্বাচনের জন্য মনোনয়ন ফর্ম বিক্রি শুরু করেছে বিএনপি। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেছেন, নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা এবং সরকারের ‘মুখোশ’ উন্মোচন করার জন্য তারা নির্বাচন করছেন। কিন্তু বিএনপিতেই এই বক্তব্য নিয়ে হাস্যরস তৈরি হচ্ছে। কারণ, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের পর নির্বাচন কমিশন সফল না ব্যর্থ তা নতুন করে দেখানোর কিছু নেই। তাছাড়া এই নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেছিলেন, এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোন নির্বাচনেই বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না। নির্বাচন নিয়ে বিএনপি বারবার অবস্থান পরিবর্তন করছে।

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের পরপর বিএনপি মহাসচিব নির্বাচন নিয়ে অন্তত চার ধরণের মন্তব্য করেছেন। এই সমস্ত স্ববিরো’ধী মন্তব্যগুলো বিএনপির মধ্যেই এক ধরনের অ’নাস্থা এবং কৌতুক তৈরি করেছে। জাতীয় সংসদের ৫টি শুন্য আসনের উপনির্বাচনে বিএনপি যাবে কি যাবে না, তা নিয়ে সংশয় ছিল। বিএনপি মহাসচিব একবার বলেছিলেন, এই ধরণের নির্বাচনে যাওয়ার জন্য বিএনপির কোন আগ্রহ নেই। কিন্তু কয়েকদিন পরেই বিএনপি ইউ টার্ণ নেয় এবং নির্বাচনে যাওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। জানা গেছে, লন্ডনে পলাতক বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ব্যক্তিগত আগ্রহের কারণেই উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে বিএনপি। এই ৫টি আসনের প্রার্থীদের কাছ থেকেই মোটা অঙ্কের ‘ডোনেশন’ নেওয়া হবে বলে বিএনপির স্থানীয় নেতারাই গতকাল নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুন:  গুম ও নির্যাতনের শিকার নেতাকর্মীদের বাসভবনে বিএনপি নেতা আলাল

সম্প্রতি ঢাকার দুটি আসনে মনোনয়ন নিয়ে গুরুতর কিছু তথ্য বিএনপি নেতাদের কাছ থেকে শোনা যাচ্ছে। ঢাকা-৫ এবং ঢাকা-১৮ এই দুটি শুন্য আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই দুই আসনে মনোনয়ন দিতে তারেক রহমান প্রতিটি আসনের জন্য ন্যূনতম ৫ কোটি টাকা দাবি করেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, মনোনয়ন প্রত্যাশীরা লন্ডনে অবস্থানরত তারেক জিয়ার সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করছেন এবং কথা বলছেন। সেখানে এই আসনটির জন্যে দরদাম করা হচ্ছে, যে দরদামে ঢাকার একটি আসনের মূল্য ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত উঠেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা গেছে। যে বেশি দিতে পারবেন, প্রার্থী সে-ই হবেন।

এদিকে, বিএনপির একটি সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-৫ আসনের জন্যে বিএনপির একজন আলোচিত নেতা মননোয়ন ফর্ম কিনেছিলেন, তখন তাকে দলের মহাসচিব তারেক রহমানের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দেন। ঐ নেতা তারেকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তার কাছে জানতে চাওয়া হয়- কত দিতে পারবেন? এ সময় ঐ নেতা জানান, তিনি দীর্ঘদিন নির্যা’তন ভোগ করছেন, আন্দোলন সংগ্রাম করছেন, এখন তিনি টাকা দেবেন কীভাবে? কিন্তু তারেক সাফ জানিয়ে দেন, টাকা না থাকলে নির্বাচনের চিন্তা বাদ দিতে হবে। পরে ঐ বিএনপি নেতা জানতে চান, কত টাকা দিতে হবে? তখন তারেক জানান, ঢাকার একটি আসনে মনোনয়ন পেতে অন্তত ৫ কোটি টাকা লাগবে। এসব শুনে বিএনপির ঐ নেতা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান বলে তার ঘনিষ্ঠরা জানিয়েছেন। তিনি বিএনপির একজন শীর্ষ নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে তাকে জানান, তারেক সাহেবকে ৫ কোটি টাকা দিয়ে মনোনয়ন নিয়ে কী লাভ হবে? এই নির্বাচনে জিতলেও ৫ কোটি টাকা তোলা যাবে কীভাবে?

আরও পড়ুন:  জাইমার রাজনীতিতে নামার বিষয়টি ‘জাতিগত বিনোদন’: ফখরুল

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, এসব কারণে ঢাকা-৫ এবং ঢাকা-১৮ আসনের দুটোতেই বিএনপির অনেক আলোচিত বা পরিচিত নেতা নির্বাচনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। বিএনপির এক শীর্ষ নেতা জানান, ঢাকা-১৮ আসনে নির্বাচনের জন্য তাকে দলের নেতাকর্মীরা উৎসাহিত করেছিলেন। বলেছিলেন, যেহেতু সেখানে বিএনপির একটি ভালো অবস্থান আছে এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী দূর্বল, সে কারণে তিনি নির্বাচনে দাঁড়ালে এই নির্বাচনে একটি জাতীয় আমেজ তৈরি হবে। কিন্তু টাকার চিন্তায় তিনিও নির্বাচনে আগ্রহী নন এখন। এ কারণেই ঢাকার দুটি আসনে আন্ডাররেটেড প্রার্থীরাই বিএনপির প্রার্থী হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। বাংলাইনসাইডার।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 79
    Shares