প্রচ্ছদ বিএনপি ঈদের আগেই কারাগার থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি

ঈদের আগেই কারাগার থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি

104
ঈদের আগেই কারাগার থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি
পড়া যাবে: 2 মিনিটে
advertisement

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আজ সোমবার নড়াইলের মানহানির মামলায় ছয় মাসের জামিন পেয়েছেন। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মামলা কুমিল্লার নাশকতা মামলার বিষয়েও গতকাল রোববার সুখবর পেয়েছেন খালেদা। ওই মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ। মানহানি ও নাশকতা মামলায় জামিন পাওয়ার পর আদালতে খালেদা জিয়ার মামলা রইলো কেবল দুটি। ওই দুটি মামলায় জামিন পেলে ঈদের আগেই সম্ভব হতে পারে খালেদা জিয়ার মুক্তি।

advertisement

এই প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেছেন, তাঁরা এই দুটি মামলা হাইকোর্টে নিয়ে আসছেন এবং আশা করছেন ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার আগেই হাইকোর্ট থেকে বেগম জিয়ার জামিন আদেশ নিয়ে আসতে পারবেন। এই দুটি মামলায় যদি খালেদা জিয়ার জামিন হয়ে যায় এবং সরকার আবার আপিল ডিভিশনে আবেদন না করে তবে ঈদের আগেই খালেদা জিয়া কারাগার থেকে মুক্তি পাবেন।

এই মুহূর্তে বিএনপি রাজপথে আন্দোলন করার বদলে আইন-আদালতের বিষয়গুলো সম্পন্ন করার দিকেই বেশি মনোযোগ দিচ্ছে। আমেরিকাসহ অন্যান্য দাতা দেশের পরামর্শ এর পেছনে কারণ হিসেবে কাজ করছে বলে জানা গেছে। দেশগুলো বিএনপিকে বলেছে আদালতের বিষয়গুলো আগে সমাধান করতে। তাই বিএনপি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, হাইকোর্ট খালেদা জিয়াকে জামিন দেওয়ার পরও যদি সরকার মামলাগুলোকে আপিল বিভাগে নিয়ে যায় অথবা অন্য কোনোভাবে খালেদা জিয়ার মুক্তিতে বাধা সৃষ্টি করে তখনই বিএনপি আন্দোলনের বিষয়টি মাথায় নেবে।

আরও পড়ুন:  খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন বহাল

আন্দোলন প্রসঙ্গে দাতা দেশগুলো বিএনপিকে বারবার বলেছে, দলটি আর যাই করুক না কেন সহিংস আন্দোলনে যেন না যায়। আর প্রত্যুত্তরে বিএনপি বলেছে সহিংসতা ছাড়া বাংলাদেশে কখনো সরকার পতন সম্ভব হয় না। তখন বিএনপিকে বলা হয়, বিএনপি চেয়ারপারসন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এবং দলের অনেক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা আছে। সবকিছুর আগে বিএনপি যেন আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে। তাই এই মুহূর্তে কারান্তরীণ বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দিকেই জোর দিচ্ছে বিএনপি।

খালেদা জিয়া ইতিমধ্যে দুটি মামলায় জামিন পেয়েছেন। আর দুটি মামলায় জামিন হলেই আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে। এরপর সরকার কেবল দুটি কাজ করতে পারে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলাগুলো আবার আপিল বিভাগে দিতে পারে। তবে আপিল বিভাগ আবার বেগম জিয়ার জামিন বহাল রাখতে পারে যেটি কুমিল্লার নাশকতা মামলার ক্ষেত্রে হয়েছে। অবশ্য এটি আদালতের বিষয়, সরকারের এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার কোনো সুযোগ নেই। এক্ষেত্রে আদালতের সিদ্ধান্তের ওপর খালেদা জিয়ার মুক্তি নির্ভর করবে।

আরও পড়ুন:  তারেক রহমান কি তাহলে শিগগিরই দেশে আসছেন?

আপিল না করে খালেদা জিয়ার মুক্তি বাধাগ্রস্ত করতে চাইলে সরকার আরেকটি কাজ করতে পারে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে মামলা দিতে পারে সরকার। এখন বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে নতুন মামলা হলে তাঁর মুক্তি অনিশ্চিত হয়ে যাবে। তবে বিএনপি আশা করছে এমন কিছু হবে না। ঈদের আগেই খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন। আর জামিন পাওয়ার পরও যদি খালেদা জিয়ার মুক্তি বাধাগ্রস্ত করতে সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয় তবে বিএনপি বড় ধরনের আন্দোলনে যাবে বলে বিএনপি সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

advertisement