প্রচ্ছদ বাংলাদেশ শিক্ষাঙ্গন

‘এখানে চাকরি করতে হলে আমাদের কথা মতো চলতে হবে,না হলে সাইজ করে দেব’ অধ্যক্ষকে ছাত্রলীগ সভাপতি

61
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

সাতক্ষীরার আশাশুনি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের ওপর তিন দফা হা*মলা ও তার অফিস ভাংচু*র করেছে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজসহ তার কয়েকজন সহযোগী।এ সময় ছাত্রলীগ সভাপতি হু*মকি দিয়ে বলেন, ‘চাকরি করতে চাইলে আমাদের কথা শুনতে হবে’।

এ ঘটনায় অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান আশাশুনি থানায় একটি মা*মলা করেন। পরে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজসহ দুইজনকে গ্রে*ফতার করেছে পুলিশ।

আশাশুনি থানার ওসি আবদুস সালাম জানান, অধ্যক্ষ মা*মলা দে*য়ার পর আশরাফুজ্জামান তাজ ও তার সহযোগী ছাত্রলীগ নেতা আল মামুনকে সোমবার রাতে গ্রে*ফতার করা হয়েছে।

অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান জানান, গত শনিবার সন্ধ্যায় তিনি তার কয়েকজন সহকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে নিজ কক্ষে অফিসিয়াল কাজ করছিলেন। এ সময় এক যুবক এসে তাকে সালাম দিয়ে একটু রুমের বাইরে আসতে বলে।

তিনি বলেন, বাইরে আসার পরপরই তার সামনে আরেকটি ছেলেকে তারা বে*দম মা*রধ*র করতে থাকে। তিনি বিষয়টি কী তা জানতে চাইলে তারা জানায়- সে সাতক্ষীরা থেকে একটি মেয়েকে এনে কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যে ঢুকে অ*নৈতিক আচরণ করেছে। অধ্যক্ষ ছেলেটিকে মা*রধর না করে তার কাছে দিতে বলেন।

আরও পড়ুন:  ফাহাদ হ’ত্যা মা’মলার আ’সামি অমিত সাহকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার

এ সময় অধ্যক্ষ ওই ছেলের অভিভাবকদের ফোন করে ডেকে আনেন। একই সময়ে সেখানে পুলিশও পৌঁছায়। পরে পুলিশ থানায় এনে মু*চলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয় অজ্ঞাত পরিচয় ছেলেটিকে।

অধ্যক্ষ জানান, ছেলেটিকে তাদের হাতে কেনো দেয়া হলো না এই কৈ*ফিয়ত তলব করে তার ওপর হা*মলা করে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজ ও তার সহযোগী শাওন, আল মামুন ও সাইফুল্লাহসহ ৭/৮ জন ছাত্রলীগ ক্যাডার। এ সময় তারা ভাংচু*র করে তার কক্ষ, জানালার গ্লাস, চেয়ার টেবিল। ইটপাটকেল ছুড়ে তা*ণ্ডব চালায় তারা।

এভাবে পরপর তিনবার হা*মলার শি*কার হন অধ্যক্ষ। তাকে চ*ড় কি*ল ঘু*ষি মে*রে ফেলে দেয়া হয়। তিনি জানান, সহকর্মী শিক্ষকরা হা*মলাকা*রীদের কবল থেকে তাকে রক্ষার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। সহকর্মীরাও কমবেশি লা*ঞ্ছিত হন। এ সময় তাজ অধ্যক্ষকে বলেন, ‘এখানে চাকরি করতে হলে আমাদের কথা মতো চলতে হবে। না হলে সাইজ করে দেব’।

আরও পড়ুন:  শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার শুরুতে দেবরের পুরুষাঙ্গ কেটে দিল ভাবী

আক্ষেপ করে অধ্যক্ষ বলেন, এসব সন্তানতুল্য ছেলেদের হাতে বারবার লাঞ্ছিত হয়ে আমরা যেনো ম*রে গেছি। তিনি জানান, বিষয়টি তিনি স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তাদের নাম উল্লেখ করে আশাশুনি থানায় তিনি একটি মা*মলা দেন।

ওসি আবদুস সালাম বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। মা*মলার পর সোমবার রাতেই আশরাফুজ্জামান তাজ ও আল মামুনকে গ্রে*ফতার করা হয়েছে। জানতে চাইলে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান বলেন, ‘তাজ ও অন্যদের বিরদ্ধে অ*ভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত হলেই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

  • 46
    Shares