প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

‌‘৬০ দালালের চক্রে কক্সবাজারের আ’লীগ নেতা ও তার পরিবার’ – প্রকাশিত সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ

4
প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

বিগত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং তারিখ চট্টগ্রামের  অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‌‌‘চট্টগ্রাম প্রতিদিন’ এ প্রকাশিত ‌‘৬০ দালালের চক্রে কক্সবাজারের আওয়ামীলীগ নেতা ও তার পরিবার’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের যে দালালের তালিকা প্রচার করা হয়েছে সেখানে আমার নাম দেখে বিষ্মিত ও হতবাক হয়েছি। সংবাদে প্রমাণ ছাড়া আমার নাম প্রচার করায় তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে প্রকৃত তথ্য না জেনে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। তাছাড়া কোন তথ্যের উপর প্রতিবেদক আমার নাম প্রতিবেদনে ছাপিয়েছেন তা আমার বোধগম্য নয়। নাকি তথ্যের সত্যতা যাচাই না করে প্রতিবেদক আষাড়ে গল্পের মতো প্রতিবেদন ছাপিয়েছেন সেটি দেখার বিষয়। আমি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলছি, কেউ যদি আমার আইন পেশার ২৫ বছরে কোনদিন দালাল হিসেবে প্রমাণ করতে পারে তবে যথাযথ শাস্তি মাথা পেতে নেব।

আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমার প্রয়াত পিতা জনাব এ.কে. আহাম্মদ হোছাইন এডভোকেট বিগত ২০০৮ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কক্সবাজার জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৫-১৬ দুই মেয়াদে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি পদেও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। উক্ত সময়য়েও আমি তাহার বড় সন্তান হিসাবে কক্সবাজারে উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে বা নিয়োগ বানিজ্য বা দূর্নীতি সংক্রান্ত কোন বিষয়ে নিজেকে জড়াই নাই। যা কক্সবাজার জেলা বারের সদস্য এবং সাধারণ জনগন অবগত আছেন। এছাড়াও আমার ২৫ বছরের আইন পেশায় উন্মুক্ত চিত্তে বলতে পারব নিজেকে কোনদিন দূর্নীতির সাথে জড়ায়নি এবং আইন পেশায় খারাপ অনুশীলন করি নাই।

আরও পড়ুন:  সিএইচআরডিএফ-এর ১১ সদস্যের পরিচালনা কমিটি ঘোষণা

উল্লেখিত সংবাদ শিরোনামে যে তথ্যটি উপস্থাপন করা হয়েছে তা আমার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নই। যেহেতু এলএ অফিসে আমার কোন মামলা নেই এবং কোন কমিশন বাণিজ্যের সাথে আমি জড়িত নই। সিভিল মামলা আমি করিনা তবে আমার নিজের ১০ শতক জায়গার মধ্যে ০৩ শতক জায়গা যে প্রকল্পে অধিগ্রহন হওয়ায় এলএ অফিস আমার অধিগ্রহনকৃত ক্ষতিপূরনের টাকার চেক প্রস্তুত করে কতৃপক্ষ টেলিফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করলে আমি একবার চেকটি গ্রহনের জন্যে এলএ অফিসে গিয়েছিলাম। এছাড়া অন্যকোন কারনে আমি এলএ অফিসে গিয়েছি বা মামলা তদবির করেছি এমন কোন তথ্য এলএ অফিসের কর্মচারী বা কক্সবাজারের কোন জনসাধারণ দিতে পারবে না। তাই উক্ত সংবাদটি আমার সম্মানহানিকর বিষয়, উক্ত সংবাদে আমার নাম যুক্ত করায় তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কেননা ভুল তথ্য দ্বারা প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার অপচেষ্টা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:  টেকনাফ-উখিয়ায় নতুন এডিশনাল এসপি শাকিল আহমেদ

তাই প্রকাশিত সংবাদ থেকে আমার নামে প্রতিবেদন সংশোধনী দেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। অন্যথায় আমি আইনগত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবো। একই সাথে উক্ত সংবাদে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে ভবিষ্যতে প্রকৃত তথ্য জেনে সংবাদ প্রচারের জন্য সংবাদকর্মীদের অনুরোধ জানচ্ছি।

প্রতিবাদকারীঃ
এডভোকেট সাঈদ হোছাইন
কক্সবাজার জেলা জজ আদালত।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।