প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

বেতন ভাতার দাবিতে শ্রমিকদের শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন

11
বেতন ভাতার দাবিতে শ্রমিকদের শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

ড্রাগন গ্রুপের শ্রমিকদের প্রভিডেন্ট ফান্ড, সার্ভিস, বেনিফিট, অর্জিত ছুটির টাকাসহ সকল আইনানুগ পাওনা অবিলম্বে পরিষোধের দাবিতে বিক্ষোভ ও শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে শ্রমিকরা।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে রাজধানীর মালিবাগের ড্রাগন ইম্পেরিয়াল সোয়েটার কারখানার শ্রমিক কর্মচারীরা এই বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে।

এসময় সচিবালয়ের সামনেও তারা বিক্ষোভ করে এবং কিছুক্ষণের জন্য অবস্থান করে। সচিবালয়ে অবস্থানের সময় পুলিশদের সাথে শ্রমিকদের সামান্য হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। তবে এতে হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

কারখানর শ্রমিক মো. কুদ্দুসের সমন্বয়ে কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্টস ট্রেড ইউনিয়নের নেতা কর্মীরাসহ অন্যান্য শ্রমিক সংগঠনের নেতা কর্মীরা। কথা বলেও কারাখানটির বিভিন্ন শ্রমিকও।

বক্তারা বলেন, আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দফতরে ধন্যা দিয়েছি। আমরা একটা আইনানুগ সমাধান চেয়েছি কিন্তু পায়নি। তাই আজ বাধ্য হয়ে পথে নেমেছি এই আন্দোলনে। আমরা আমাদের বেতন চাই, আমাদের চাকরি ফেরত চাই। চাকরির শুরু থেকে প্রতিমাসে বেতনের একটি নির্দিষ্ট অংশ কেটে নিয়ে চাকরি শেষে দেওয়ার কথা, অথচ এখন সেটাও দেওয়া হচ্ছে না। আমাদের পাওনা আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই আন্দোলন চলবে। আমরা সরকারকে বলবো- আপনার মালিককে ধরেন। আমরা সুখে নেই, আমাদের পরিবার ভালো নেই। অনেক বয়স্ক শ্রমিকও এই সমস্যার ভুক্তভোগী।

আরও পড়ুন:  যেভাবে রাষ্ট্রের জন্য ভয়ঙ্কর হয়ে উঠলেন হাসান সারওয়ার্দী

শ্রমিক নেতারা বলেন, রফতানি সেক্টরে সব থেকে এগিয়ে আছে গার্মেন্টস পণ্য। অথচ এই সেক্টরের শ্রমিকরাই সব থেকে অবহেলিত। আমরা ৫ মাস ধরে বেতন পাই না। আমরা বিভিন্ন সময় শ্রম ভবনে আমাদের দাবীর কথা বলেছি। অথচ এখনো কোন সমাধান পায়নি। আমরা সমাধান চাই। আজকের পরেও যদি কোন সমাধান না আসে তবে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবো। আশা করি আর কেউ না বুঝলেও প্রধানমন্ত্রী আমাদের কষ্ট বুঝবেন।

তারা বলেন, অনেক শ্রমিক আছে যারা লাখ টাকার উপর পাওনা। অথচ এখন তারা টাকার মায়া ছেড়ে দিয়ে শুধু মালিকের মুখে থুথু দিয়ে চলে যেতে চায়। শ্রমভবন ও মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বলবো, আপনারা বড় বড় আমলা, অথচ আপনারা শ্রমিকের ঘৃণা কুড়াচ্ছেনা। পুরো করোনাকালীন সময়ে আমরা কোন বেতন পাইনা। আমরা আজ ৫ মাস ধরে দেখলাম বাংলাদেশে সরকার নাই। সরকার থাকলে এই সমস্যার সমাধান হতে ৫ মিনিট লাগতো না। যাদের মান আছে তাদের বদনাম হয়, কিন্তু আমরা তো শ্রমিক, আমাদের কোন সম্মান নাই। তাই আমাদের বদনাম নয়, ক্ষতি হচ্ছে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা না খেয়ে আছে।

আরও পড়ুন:  স্কুলে শিক্ষার্থী বেশি হলে পালাক্রমে ক্লাস: সচিব

কর্মসূচি শেষে শ্রমিকদের একটি দল শ্রম মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন। তারা অবিলম্বে এই সমস্যার সমাধানের জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
নিউজটি পড়া হয়েছে 10036 বার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 5
    Shares