প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

সরকারি খালে নেটপাটা দিয়ে মাছ চাষ করেন মেম্বার

13
সরকারি খালে নেটপাটা দিয়ে মাছ চাষ করেন মেম্বার
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খলিষখালী ইউনিয়নের গাছা চোরাবাল্লে খালে গত চার বছর ধরে অবৈধ নেটপাটা দিয়ে মাছ চাষ চলছে। ফলে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে খালের দুই পাশে এক হাজার বিঘা কৃষি জমি ও মৎস্য ঘের ডুবে থাকে পানিতে। ক্ষতিগ্রস্ত শতাধিক কৃষক ও মৎস্য চাষিরা তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে কয়েক দফা অভিযোগ দিলেও কাজ হয়নি। শুক্তিয়া গ্রামের ইউপি সদস্য গনেশ চন্দ্র বর্মন প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গাছা বাজার সংলগ্ন বিলের চোরাবাল্লে খালটি অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন। প্রতিবাদ করলে তাদের বিরুদ্ধে দেয়া হয় মাছ চুরির মামলা। খলিষখালি ইউনিয়নের বিশেষকাটি গ্রামে ঠাকুর দাষ মন্ডল, গুরুপদ মন্ডল, শিবপদ বিশ্বাস, কৃষ্ণপদ মন্ডল, গাছা গ্রামের কমল মন্ডল, কুমোদ মন্ডল, শিবপদ সরকার, পবিত্র রায়, কৃষ্ণনগর গ্রামে সুকুমার সরকার জানান, গাছা চোরাবাল্লে খালটির দৈর্ঘ্য প্রায় এক কিলোমিটার। খালের দুই পাশে গ্রামবাসী মাছ চাষসহ ধান চাষ করেন। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে খালটি দিয়ে পানি নিষ্কাশন করা সম্ভব হয় না। শুষ্ক মৌসুমে মাছের ঘেরের পানি খাল দিয়ে বের করা সম্ভব হয় না। গনেশ বর্মন প্রভাব খাটিয়ে খালটি দখলে রেখেছেন। খালে মাছ চাষ করে লাখ লাখ টাকা ব্যবসা করছেন তিনি।

আরও পড়ুন:  ম্যাজিস্ট্রেট দেখে ভুয়া চিকিৎসকের পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা

গ্রামবাসীর অভিযোগ, গত বছর জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল জেলার নেটপাটা অপসারণ করার নির্দেশ দিলে অন্য স্থানে সেটি বাস্তবায়ন হলেও এই খালে বাস্তবায়ন হয়নি। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় গত বছর তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন খালে থাকা অবৈধ নেটপাটা অপসারণ করতে এলে পর্যাপ্ত জনবল না থাকায় ফিরে যান। গ্রামবাসী নেটপাটা সরানোর উদ্যোগ নিলে গনেশ বর্মন ইতোপূর্বে ৩২ জন গ্রামবাসীর নামে মাছ চুরির মামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন। খলিষখালী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী আক্তার হোসেন এই খাল থেকে প্রতি বছর লক্ষাধিক টাকা ঘুষ নিয়ে খাল দখল করার সুযোগ করে দিয়েছেন। আমরা এর প্রতিকার চাই। খাল দখলকারী খলিষখালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য গনেশ বর্মন বলেন, পাটকেলঘাটা ভূমি অফিস ও খলিষখালী ভূমি অফিস বিষয়টি জানে। খালটিতে আমি মাছ চাষ করি। এতে পানি নিষ্কাশনের সমস্যা হয় না। এ বিষয়ে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইকবাল হোসেন বলেন, উপজেলার সব খালের অবৈধ নেটপাটা অপসারণের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্দেশনা না মানলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:  খুলনা বিভাগে নতুন করে ১৯৬ জনের করোনা শনাক্ত

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 4
    Shares