প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

৫০ হাজার টাকায় শরিফা চাষে ৩ লাখ টাকা আয়

34
৫০ হাজার টাকায় শরিফা চাষে ৩ লাখ টাকা আয়
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

মেহেরপুর প্রতিনিধি

ব্যতিক্রমী কিছু করার চিন্তা থেকেই বিলুপ্ত প্রায় শরিফা চাষে সফলতা পেয়েছেন মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার চেংগাড়া গ্রামের ব্যাংকার বাহাউদ্দীন। থোকায় থোকায় শোভা পাচ্ছে শরিফা ফল। বাতাসে দোল খাচ্ছে সেই সাথে দোল খাচ্ছে বাগান মালিকের স্বপ্ন। সুস্বাদু ও বেহেশতি ফল হিসেবে পরিচিত শরিফা চাষে লাভবান হয়েছেন তিনি। আট বিঘা জমিতে বাগান করে প্রতি বছর কয়েক লাখ টাকা আয় করেন তিনি। তার এই সফলতা এলাকার তরুণ যুবকদের শরিফা বাগান করার অনুপ্রেরণা জোগায়। মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বিশিষ্ট ব্যাংকার বাহাউদ্দীন। শখেরবশে ব্যতিক্রমি কিছু করার চিন্তা নিয়েই বছর চারেক আগে মাত্র দুই বিঘা জমিতে শরিফার বাগান করেন। স্থানীয়ভাবে বীজ সংগ্রহ করে তা রোপণ করেন। প্রথম বছর খরচ করেন মাত্র ২০ হাজার টাকা। পরের বছর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তার। সে বছর শরিফা স্থানীয় ফল বিক্রেতাদের কাছে বিক্রি করে আয় করেন ৪০ হাজার টাকা। স্বল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে বেশি লাভবান হওয়ায় আরো ৬ বিঘা জমিতে শরিফা বাগান করেন। এ বছর তিনি ৫০ হাজার টাকা খরচ করে পেয়েছেন তিন লাখ টাকা। অনুকুল আবহাওয়া, নিজের অদম্য পরিশ্রম এবং কৃষি অফিসের পরামর্শে তিনি শরিফা বাগান করে লাভবান হয়েছেন। বাগান মালিক বাহাউদ্দীন জানান, আগে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই পাওয়া যেত সুস্বাদু ফল শরিফা। এখন কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে সেই ফল। এখন কেউ এ ফলের গাছ রোপণ করেন না। বিলুপ্তপ্রায় এ ফলের গাছ ধরে রাখা ও বাণিজ্যিক প্রয়াস নিয়েই তিনি বাগান করেছেন। স্বল্প খরচ আর অল্প পরিশ্রমে বেশি লাভবান হওয়ায় স্থানীয় চাষি ও তরুণরা শরিফা বাগানের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেছে। স্থানীয়রা পরামর্শ নিচ্ছেন বাগান করার জন্য।

আরও পড়ুন:  পাটকলের শ্রমিককে ধর্ষণ: দুজনের স্বীকারোক্তি, দুজনকে খুঁজছে পুলিশ

গাংনীর ভিটাপাড়ার কলেজ শিক্ষক রফিকুল আলম জানান, তিনি শরিফা চাষে সফলতার গল্প শুনেই পরামর্শ নিচ্ছেন বাগান করার। ইতোমধ্যে দুই বিঘা জমি প্রস্তুত করেছেন। বীজও সংগ্রহ করছেন। রফিকুল আলমের মতো অনেকেই বাহাউদ্দীন ও কৃষি অফিসের পরামর্শ নিচ্ছেন শরিফা বাগান করার জন্য। স্থানীয় ফল ব্যবসায়ী আ. রহমান জানান, মেওয়া বা শরিফা ফল সুস্বাদু ও পুষ্টিকর হওয়ায় এর চাহিদা রয়েছে। নিজের হাতে বাগান থেকে ফল সংগ্রহ করে স্থানীয় বাজার ও ঢাকায় পাঠানো হয়। অনলাইনেও এর বেচাকেনা হয়। বাগান থেকে ২৫০ টাকা দরে কিনে সাড়ে চারশ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। এতে লাভ হয় বেশি। একই কথা জানান ফল ব্যবসায়ী লিটন মিয়াও। গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার কেএম সাহাবুদ্দীন আহমেদ বলেন, শরিফা একটি বিলুপ্তপ্রায় সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণে ভরপুর ফল। বাহাউদ্দীন এর বাগান করেছেন। এতে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই বাগান করার আগ্রহ ব্যক্ত করে পরামর্শ চাচ্ছেন। এ ফল আবাদে খরচ কম। রোগবালাই একেবারে নেই বললেই চলে। অথচ লাভ অনেক বেশি। কৃষি অফিস সব সময় চাষিদের পরামর্শ দিচ্ছে। এ ফল আবাদে সম্প্রসারণ ঘটলে পুষ্টির চাহিদা অনেকখানি পূর্ণ হবে।

আরও পড়ুন:  ২০ টাকার বিরোধে যুবলীগ নেতার চারটি আঙুল কাটলো ছাত্রলীগ সদস্যরা!

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 6
    Shares