প্রচ্ছদ রাজনীতি আওয়ামী লীগ

জরিপের তথ্য : আওয়ামী লীগের অনেক নেতার আসনই নড়বড়ে

235
জরিপের তথ্য : আওয়ামী লীগের অনেক নেতার আসনই নড়বড়ে
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আসন্ন। আগামী অক্টোবরেই ঘোষিত হতে যাচ্ছে জাতীয় নির্বাচনের তফসিল। ডিসেম্বরেই হতে পারে একাদশ জাতীয় নির্বাচন। এই নির্বাচনে জয়ী হলে টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আসবে আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচনের জন্য জোড় প্রস্তুতি নিচ্ছে। নির্বাচন মনোনয়নের লক্ষ্যে করা হয়েছে একাধিক জরিপ। সর্বশেষ জরিপে দেখা গেছে আওয়ামী লীগের অনেক নেতার আসনই নড়বড়ে। নেতাদের এসব আসন নিয়ে অনিশ্চয়তার মূল কারণ দলীয় কোন্দল। এছাড়া নেতাদের প্রতি তৃণমূল ও স্থানীয় জনগণের বিরূপ মনোভাবও দেখা গেছে।

নড়বড়ে আসনের নেতাদের মধ্যে শুরুতেই আছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সারাদেশ ঘুরে বেড়ান ওবায়দুল কাদের, সব জায়গার খোঁজ খবর নেন। অথচ নিজ আসন নোয়াখালী-৫ এ তাঁর অবস্থা টলটলায়মান। আওয়ামী লীগের সর্বশেষ জরিপে দেখা গেছে, ওই আসনে তাঁর শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নোয়াখালী -৫ এর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরীর হাতে। ওবায়দুল কাদের এলাকায় না যাওয়াতেই এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এখন নোয়াখালী -৫ এ ওবায়দুল কাদের জয় পরাজয় পুরোটাই নির্ভর করছে একরাম চৌধুরীর ওপর। আর সম্প্রতি ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ নোয়াখালী যাওয়ার পর তাঁর গাড়িবহর চলাচলে বাধা দেওয়ার স্থানীয় জনগণও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ওপর কিছুটা ক্ষুব্ধ।

আরও পড়ুন:  যা হতে যাচ্ছে অক্টোবর-নভেম্বর-ডিসেম্বরে

নড়বড়ে আসনের আরেক নেতা হলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ। কুষ্টিয়া-৩ আসনে তাঁর অবস্থা নাজুকই বলছে জরিপ। জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই কুষ্টিয়া-২ আসনের সংসদ ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর সঙ্গে হানিফের বিরোধ। আর এই বিরোধ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে দুজন দুজনার ক্ষতি করাকেই ব্রত হিসেবে নিয়েছেন। জনগণের ভোট পাওয়ার চেয়ে কে কার ক্ষতি করবেন তা নিয়েই দুজন ব্যস্ত।

আওয়ামী লীগের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের আসনও নড়বড়ে। নিজ এলাকা ঢাকা-১৩ এর অনেক উন্নতি করেছেন। কিন্তু জনগণের মধ্যে তাঁকে নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন আওয়ামী লীগেরই আরেক নেতা সাদেক খান। ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের (উত্তর) সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকে জাহাঙ্গীর কবীর নানককে আর মানতে চাইছেন না সাদেক খান। স্থানীয় কোনো অনুষ্ঠানে জাহাঙ্গীর কবির নানক থাকলে সাদেক খান সেখানে অনুপস্থিত। আবার সাদেক খানের কোনো অনুষ্ঠানে দেখা যায়না নানককে। স্থানীয় সূত্র বলছে, সাদেক খান যেন জীবনের ব্রত করে নিয়েছেন যেকোনো মূল্যে জাহাঙ্গীর কবির নানককে নির্বাচনে হারাবেন। এই সমস্যা দূর করতে একাধিক বার দলের মধ্যে বৈঠক হয়েছে। কিন্তু সমস্যার কোনো সমাধান হয়নি।

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনির চাঁদপুর-৩ আসনও নড়বড়ে। জরিপ সূত্রে জানা গেছে, দীপু মনির আসনে সাধারণ জনগণের মধ্যে তাঁকে নিয়ে ক্ষোভ। আর স্থানীয় সূত্র বলছে, এই ক্ষোভের মূল কারণ স্বজনপ্রীতি। দীপু মনির বিরুদ্ধে প্রচণ্ড স্বজনপ্রীতির অভিযোগ স্থানীয় আওয়ামী লীগের। জানা গেছে, নিজের ভাইকেই নির্বাচনী এজেন্ট করেছেন দীপু মনি। এছাড়া অনেক কমিটিতেই স্থানীয় নেতাদের বাদ দিয়ে দীপু মনির স্বজনদের অনুপ্রবেশ তৃণমূলের নেতাদের মনে ক্ষোভ সৃষ্টি করেছে। আর দীপু মনির বিরুদ্ধে কোনো দুর্নীতির অভিযোগ না থাকলেও তাঁর স্বজনদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন অনেকেই। এছাড়া জামাত-বিএনপিও দীপু মনির স্বজনদের পৃষ্ঠপোষকতা পাচ্ছে বলে স্থানীয় নেতাদের দাবি। একই সঙ্গে জন-সংশ্লিষ্টতা না থাকার কারণেই দীপুর মনির আসনের নড়বড়ে অবস্থা বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:  তিন বড় দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অধিকাংশই ঢাকার বাইরে ঈদ উদযাপন

আওয়ামী লীগের শীর্ষ চারজন নেতাদের অবস্থা এমন। শুধু এরা চারজনই নন, এমন অনেক আওয়ামী লীগ নেতা আছেন, যাঁদের অবস্থান এলাকায় ভালো না। অথচ, এরপরও তাঁরা কেন্দ্রীয় নেতা। আর এই বিষয় নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে উদ্বেগ দেখা গেছে। এমন অবস্থা কাটিয়ে ওঠার জন্য আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচনে আসার জন্য এখনো বেশ সময় আছে। এই সময়ের মধ্যেই অবস্থার উন্নয়নে সব চেষ্টাই করা হবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি