প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

পেঁয়াজ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্কের ‘বিশেষ সন্ধিক্ষণ’: ভারতীয় গণমাধ্যম

53
পেঁয়াজ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্কের ‘বিশেষ সন্ধিক্ষণ’: ভারতীয় গণমাধ্যম
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

লাদাখে চীনের সঙ্গে ভারতের যুদ্ধাবস্থার পরপরই প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্ক আলোচনা এসেছে। বিশেষ করে বাংলাদেশকে নিয়ে।

এই আলোচনায় রসদ যুগিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো। প্রায়ই দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে থাকে। নানা ইস্যুভিত্তিক প্রতিবেদন তৈরি করে দুই দেশের কূটনৈতিক অবস্থা তুলে ধরা হয় প্রতিবেদনগুলোতে।

এবার প্রতিবেদন তৈরি করেছে দেশটির প্রভাবশালী ইংরেজি গণমাধ্যম দৈনিক দি স্টেটসম্যান। গণমাধ্যমকে চলমান পিয়াজ ইস্যুতে দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক সাজিয়েছে।

তাদের প্রতিবেদনে মন্তব্য করা হয়েছে, তিস্তার পানির মতই পেঁয়াজ দুই দেশের সম্পর্কে তিক্ততা তৈরি করল। এবং সেটা এমন একটা মুহূর্তে যখন দক্ষিণ এশীয় দুই প্রতিবেশীর মধ্যকার সম্পর্কে সুবাতাস বইছিল। অনেকের মতে বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্কে এখন একটা ক্রিটিক্যাল জাংচার বা বিশেষ সন্ধিক্ষণ তৈরি হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি নোট ভারবালের মাধ্যমে ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশ করেছে। ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনারের কাছে ওই নোট ভারবাল তুলে দেয়া হয়। এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার বিষয়টিকে সহজভাবে নেয়নি। পেঁয়াজ রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার আগে বাংলাদেশকে আগাম জানানো হয়নি। তাই তাদের এই ক্ষোভ। তবে এটা যুক্তিপূর্ণ যে, ভারতের নিজস্ব অর্থনৈতিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

প্রশ্ন হল, বাংলাদেশকে আগাম না জানিয়ে পেঁয়াজ রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। আর তাতে বাণিজ্য শর্তের লংঘন হয়েছে কি হয়নি?

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, দুই দেশের মধ্যে এমন একটা সমঝোতা বিরাজমান ছিল যে, যখনই আমদানি-রফতানির ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার দরকার হবে, তার আগে সংশ্লিষ্ট দেশকে সে বিষয়ে আগাম অবহিত করা হবে ।

আরও পড়ুন:  ধর্ষণের প্রতিবাদে সচিবালয়ের সামনে বিক্ষোভ

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, এটা খুবই ভালো হতো যদি আকস্মিক এই সিদ্ধান্তটি ঘোষণা করার আগে বাংলাদেশকে অবহিত করা হতো। এটা যুক্তিসঙ্গত যে, ভারতের এটা ব্যাখ্যা করার অবকাশ রয়েছে। কারণ এই সিদ্ধান্তের ফলে অভ্যন্তরীণ পেঁয়াজ বাণিজ্যের চাহিদা-সরবরাহ চক্রে একটা বিঘ্ন ঘটেছে ।

বাংলাদেশে এক মাসে পেঁয়াজের চাহিদার পরিমাণ প্রায় দুই লাখ টন। বর্তমানে পেঁয়াজের মজুদ রয়েছে প্রায় ৫.৬ লাখ টন। এবং ১১ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানি বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজ রফতানি নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষাপটে ঢাকা তার পেঁয়াজের ঘাটতি কাটিয়ে উঠতে তুরস্ককে পিয়াজ দিতে বলেছে। ভারতীয় সরকারের এই আকস্মিক সিদ্ধান্ত ২০১৯ এবং ২০২০ সালে দু’দেশের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছিল, তার পরিপন্থী । সে কারণে দিল্লির দিক থেকে এ বিষয়ে একটা ব্যাখ্যা আবশ্যিক। বিশেষ করে তাকে মনে রাখতে হবে যে প্রতিবেশীদের মধ্যে তার অনেক বন্ধু নেই। ঢাকা তার নোট ভারবালে উল্লেখ করেছে যে, এ ধরনের কোন বিধি-নিষেধ আরোপ করার আগে বাংলাদেশ ভারতের কাছে এই অনুরোধ রেখেছে বিষয়টি যেন ভারত তাদেরকে আগেভাগেই অবহিত করে।

প্রতিবেদনে আরও প্রশ্ন তোলা হয়েছে, বাংলাদেশ কি ভারতের একটা ভুল সিদ্ধান্ত ধরে ফেলেছে ? চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে দু’দেশের মধ্যকার বাণিজ্য সচিব পর্যায়ের বৈঠকের কথা বাংলাদেশ এপ্রসঙ্গে ভারতকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছে। একইসঙ্গে তারা গত বছরের অক্টোবরে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ‘ভিভিআইপি ভিজিট’ স্মরণ করিয়েছে।

আরও পড়ুন:  গৃহবধূ নির্যাতন: ৩ আসামিকে নিয়ে পিবিআইয়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের পিয়াজ রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্তে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ আমি আশা করি যে পিয়াজ রফতানি নিষিদ্ধের আকস্মিক সিদ্ধান্ত আপনারা আমাদেরকে আগেই অবহিত করবেন। কারণ আমি আমার বাবুর্চিকে বলব যে, আমার আর কোনো বিকল্প নেই । আমাকে পিয়াজ ছাড়াই আমার খাদ্য গ্রহণ করতে হবে। তাই এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে ভারত যাতে আমাদেরকে অবহিত করে, আমি সেই অনুরোধ রাখব। সব থেকে বড় কথা, আমরা প্রতিবেশী।’

দি স্টেটসম্যান লিখেছে, পশ্চিমবঙ্গের যেখানে বাধ্যবাধকতা রয়েছে তিস্তা নদীর পানি না দিতে। এখন দেখা যাচ্ছে, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের মনে হয়েছে, তার পূর্বাঞ্চলীয় প্রতিবেশীর কাছে পিয়াজ রপ্তানি করা যাবে না।

স্টেটসম্যান কলামিস্ট উপসংহারে মন্তব্য করেছেন, সর্বশেষ এই সংঘাতের অবসান হওয়া উচিত। সেটা কেবল অন্তত পেঁয়াজ একটি আবশ্যকীয় পণ্য বলেই নয়, পেঁয়াজ অবশ্যই বাংলাদেশের জনগণের ভোজন ও খাদ্যাভ্যাসের একটা অবিচ্ছেদ্য অংশ । রফতানি নিষেধাজ্ঞার কারণে ভারতে পণ্যের দামে ইতিমধ্যেই প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং খাদ্য সরবরাহকারী দফতরে এই বিষয়টির প্রতি গভীর মনোযোগ দেয়ার দাবি রাখে।
নিউজটি পড়া হয়েছে 10040 বার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 10
    Shares