প্রচ্ছদ রাজনীতি আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগ ও তার বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের ১০৭ নেতার বিদেশ যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা

680
পড়া যাবে: 6 মিনিটে

যুবলীগের ঢাকা উত্তর দক্ষিণের একাধিক শী*র্ষনেতাসহ অন্তত ১০৭ ব্যাক্তির বিদেশ গমনের ওপর নি*ষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। সরকারের একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।  সংশ্লিষ্ট সূ*ত্রগুলো বলছে, তাদের বিরুদ্ধে আসা বিভিন্ন অ*ভিযোগগুলো সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এবং তারা যেন তদন্ত এড়িয়ে বিদেশ চলে যেতে না পারে সে*জন্যই এই ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এদের মধ্যে ক*য়েকজনকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, তারা যেন এখন বিদেশে না যায়।

*দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী গত ১৪ সেপ্টেম্বর যখনি যুবলীগের বিভিন্ন নেতার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উ*ত্থাপন করেন তখনই ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ বি*দেশ চলে যেতে চেয়েছিলেন। তাকে একাধিক আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা জানিয়েছে, বিদেশ যাওয়া তার পক্ষে সম্ভব নয়।

*তাকে বিমানবন্দর বা যেকোন সীমান্ত এলাকায় আটক করা হতে পারে। এরপরই তিনি আর বিদেশে না গিয়ে বাসায় অবস্থান করেন। একইভাবে আরো কয়েকজন ব্যক্তিকেও এই নির্দেশ জারি করা হয়েছে। তার যেন এখন বিদেশ যেতে না পারে সে ব্যাপারে কঠোর নির্দেশ রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে।

*শুধু যুবলীগ নয়, ছাত্রলীগের অ*ব্যাহতি পাওয়া সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ অন্তত ৩০ জনের বেশি নেতার বিরুদ্ধে বিদেশ যাওয়ার ওপর নি*ষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। তা*রা যেন বিদেশ না যায় সেই জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট স্থানে দেওয়া হয়েছে।

*ছাত্রলীগ ছাড়াও স্বেচ্ছাসেবকলীগ এবং আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দর বিদেশ যাওয়ার ব্যাপার নি*ষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগের ভিতরে যারা অপকর্ম করছে। আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে টে*ন্ডারবা*জি, চাঁ*দাবা*জি, স*ন্ত্রাসস*হ নানা রকম অ*নৈতিক ক*র্মকা*ণ্ডের সঙ্গে জড়িত আছে তাদের বিরুদ্ধে সু*নির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে তালিকা প্রণয়নের জন্য নির্দেশ দিয়েছিলেন নির্বাচনের পরপরই।

আরও পড়ুন:  ময়নাতদন্ত সম্পন্ন, ফাহাদকে পি*টিয়ে হ*ত্যা করা হয়েছে; প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনা

*তিনটি গোয়েন্দা সংস্থা এ ব্যা*পারে কাজ করেছিল। সেখানে ৫ শতাধিক ব্য*ক্তির বিরুদ্ধে সু*নির্দিষ্ট অভিযোগ আনা হয়েছিল। যে সমস্ত অভিযোগের মধ্যে অন্তত শতাধিক অভিযোগ ছিল দালিলিক অভিযোগ। তথ্য প্রমাণ, সু*নির্দিষ্ট তথ্য উপাত্ত ছবি সংগ্রহ করা হয়েছিল। সেগুলো প্রধানমন্ত্রী বরাবর হস্তান্তর করা হয়েছিল। এই যে শতাধিক ব্যক্তি। তাদের উপরই এখন বিদেশ যাওয়ার ব্যাপারে নি*ষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তাদের দিকে নজর রাখা হবে, তারা বিদেশে গেলে তাদের বিরুদ্ধে যে ত*দন্ত হবে তা যেন ব্যহত না হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মূলত ৫ টি ক্ষেত্রের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হয়েছে:

১. অ*বৈধ টে*ন্ডার বাণিজ্য। দ*লীয় পরিচয় ব্যবহার করে টেন্ডারে প্রভাব বিস্তার করা।

২. স*ন্ত্রাসে*র মাধ্যমে অন্যের জমি দ*খল করা। বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁ*দা আ*দায়।

৩. মা*দক ব্যবহার, মা*দক ব্*যবসা বা মা*দকসে*বীদের সঙ্গে যোগসাজশ।

৪. জ*ঙ্গিদে*র সঙ্গে সম্পৃক্ততা, সহায়তা প্রদান বা প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে জ*ঙ্গিদে*র ম*দদ দেয়া।

৫. সংখ্যাল*ঘুদের নি*র্যাতন, সংখ্যাল*ঘুদে*র সম্পদ দ*খল, নি*পীড়ন।

৬. নারী নি*র্যাত*ন, নারী নি*পীড়*ন সহ নারী নি*পীড়*নকারীদে*র নানারকম সহায়তা প্রদান।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী পাঁচ অ*পরাধের সঙ্গে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী যারা জ*ড়িত তাদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তবে একাধিক সূত্র বলছে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এমনভাবে একটি পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে না যাতে আ*তঙ্ক তৈরি হয়। বরং ধাপে ধাপে যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ রয়েছে এবং যারা সীমা অ*তিক্রম করেছে তাদেরকেই এখন আ*ইনের আ*ওতায় আনা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:  আমি যেখানেই থাকি না কেন, প্রতিমুহূর্তে দেশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখি

কাউকে কাউকে স*তর্কবার্তা*ও দেওয়া হচ্ছে। যেসমস্ত অ*ন্যায় অ*পকর্ম তারা করে বেড়াচ্ছে সেসব থেকে সরে যাওয়ার ব্যাপারে স*তর্কবার্তাও দেওয়া হচ্ছে। আ*ইনপ্রয়োগকারী সংস্থা বলছে যে, যেটা করা হচ্ছে সেটা একটা রুটিন ওয়ার্ক। আওয়ামী লীগের এই শু*দ্ধি অভিযানের মাধ্যমে সরকার একটি বার্তা দিতে চায়। আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে।

*নির্বাচনী ইশতেহারে আওয়ামী লীগ যেটি অঙ্গিকার করেছে, দু*র্নীতি*কে তারা আশ্রয় প্রশ্রয় দিবে না। দু*র্নীতিবা*জ যেই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে। তার ধা*রাবাহিকতা হিসেবেই এই শু*দ্ধি অভিযান চলছে। একাধিক সূত্র বলছে, এ ধরনের অভিযোগের ফলে যেটি লাভ হবে, অন্যদের জন্য এটি একিটি মেসেজ হবে।

*এরফলে প্র*শাসনের উর্ধতন ক*র্মকর্তা আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার ক*র্মকর্তাসহ বিভিন্ন পর্যায়ে ক্রিয়াশীল ব্যক্তি এবং গোষ্ঠী স্পষ্ট হবে, অ*নিয়ম ,দু*র্নীতি বা অ*নৈতিক ক*র্মকা*ণ্ডের সঙ্গে জড়ালে আইনের আওতায় তাকে আসতেই হবে। *আওয়ামী লীগের নী*তিনির্ধারকরা মনে করছে, যদি এই বোধটা সমাজে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, তাহলে প*রিস্থিতির উন্নতি হতে বা*ধ্য।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 1.9K
    Shares