আগে নিজের বা‌ড়ি ঠিক করুন: প্রধানমন্ত্রীকে জাফরুল্লাহ

59
আগে নিজের বা‌ড়ি ঠিক করুন: প্রধানমন্ত্রীকে জাফরুল্লাহ
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

প্রধানমন্ত্রীর ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘দুর্নীতি বন্ধ করতে চাইলে আগে নিজের বাড়ি থেকে ঠিক করতে হয়। আগে নি‌জের বা‌ড়ি ঠিক করুন।’

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি বন্ধ করতে চাইলে আগে নিজের বাড়ি থেকে ঠিক করতে হয়। শুরু করতে হবে আপনার বাড়ি থেকে। আপনার পরিবারের রেহানা (প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা) থেকে শুরু করে তাপস (ঢাকা দক্ষিণ সিটির বর্তমান মেয়র) কার কী সম্পত্তি আছে সে তথ্য প্রকাশ করুন।
তারপর আমাদের সম্পত্তির তথ্য প্রকাশ করেন। তারপর প্রশ্ন করেন, জাফরুল্লাহ’র এই সম্পত্তি কোথায় থেকে অর্জিত হলো। কেবল অন্যেরটা দেখবো, আমারটা দেখবো না- এটা হতে পারে না।’

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ধানমন্ডিস্থ গণস্বাস্থ্য নগর কেন্দ্রে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও বিভিন্ন পেশাজীবীসহ অন্যান্যদের গ্রেফতার-নিপীড়ন- হয়রানি; ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরসহ সারা দেশে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নামে মামলা ও সমসাময়িক বিষয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সমাজের নানা স্তরে দুর্নীতির উদাহরণ টেনে এনে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আজকে দুর্নীতি কোথায় পৌঁছেছে, সবচেয়ে বড় দুর্নীতিবাজ হচ্ছে সরকার স্বয়ং। এখানে মানুষের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার হরণ করে, এখানে মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘন করে, তার চেয়ে বড় দুর্নীতি কী হতে পারে? মালেকের দুই তলা, সাত তলা দুটি বাড়ি, আফজালের ১০টি বাড়ি, বা ১০ কোটি থেকে অনেক বেশি দুর্নীতি আমি মনে করি সরকার করছে। সরকার তার নৈতিক অবস্থান হারিয়েছে।’

‘সরকারের অন্যায় আচরণ দেশকে ভুল পথে নিয়ে যাচ্ছে। এজন্য আজকে সরকারকে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে চাই, এখনও সময় আছে, সংশোধন প্রয়োজন’- যোগ করেন তিনি।

আরও পড়ুন:  খালেদা জিয়া কারাগারে থাকলেই ভালো হতো: তথ্যমন্ত্রী

ভিপি নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা প্রসঙ্গে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আজকে আমি খুব বেশি মর্মবেদনায় আছি। আজকে ভিপি নূর … সে যদি অন্যায় করে থাকে, সেটার বিচার হবে। তাই বলে তাকে হয়রানি করা যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্র রাজনীতি একটা প্রসেশন করে, তাদের বের হতে দেবেন না, সেটা তো হয় না। আপনারা জনগণকে বের হতে দিচ্ছেন না। সেজন্য দেশটা নৈরাজ্যের দিকে চলছে।’

পুলিশি ধরপাকড়ের সমালোচনা করে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘যখন দেশে অনাচার বেড়ে যায়, ব্যথায় মানুষ নীল হয়ে যায়, তখনই ছাত্রসমাজ জাগে, ছাত্রসমাজ সচেতন করে। যখন চূড়ান্ত রকম অব্যবস্থাপনা তখনই ছাত্রসমাজ রাস্তায় নামে। সেদিনও যারা রাস্তায় নেমেছে, তারা কি গাড়ি ভেঙেছে? কাউকে মেরেছে? পুলিশ লাঠি দিয়ে .. সোটা দিয়ে… পরে উল্টা তাদের নামে মামলা দিয়েছে।’

তিনি বলেন, এ জাতীয় স্বৈরাচার নীতি কখনও দেশের জন্য মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এসব বন্ধ করেন, এটা আপনার স্বার্থে। আজকে প্রয়োজন ন্যায়-নীতি, সুষ্ঠু সুশাসন; সুশাসন না হলে হবে না।’

ডিজিটাল আইনকে ‘অগণতান্ত্রিক, অনৈতিক’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন বিনা বিচারে হত্যার সামিল। আজকে রাজনীতিবিদদের সহনশীল হতে হবে। ক্রিটিসিজম সহ্য করতে হবে।’

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আজকে এখানে মনে রাখা দরকার, দুর্নীতির কোন পর্যায়ে আছি আমরা। সরকার তো নিজেই দুর্নীতিগ্রস্ত। তারা নিজে অন্ধ হয়ে গেছে। তারা ভুলভ্রান্তি দেখতে পাচ্ছেন না। ফলে সবার কণ্ঠরোধ করেছে।’

আরও পড়ুন:  ভাষা সৈনিক নুরুল ইসলাম দাদুভাই এর মৃত্যুতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল এর শোক

পেঁয়াজ আমদানি ইস্যুতে ভারতের সমালোচনার পাশাপাশি বাংলাদেশের কূটনৈতিক অবস্থান নিয়েও সমালোচনা করেন তিনি।

‌তি‌নি ব‌লেন, ‘ভারতের হঠাৎ অনৈতিকভাবে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেন। পচা পেঁয়াজ পাঠান। এ জাতীয় খেলা নিয়ে আমরা তো কখনও সাহস করে বলতে পারি না। ভারতের সঙ্গে কীসের বন্ধুত্ব? যে বন্ধু আমার স্বার্থ দেখে না, একতরফা তার সাথে বন্ধুত্ব হতে পারে না। শোষকের সাথে শোষিতের বন্ধুত্ব হয় না।’

বাংলাদেশ সৌদি শ্রমিকদের সঙ্কট বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যখন করোনা আসে, আমি তখন বলেছিলাম আমাদের উচিৎ হবে, সারা পৃথিবীতে আমাদের এক কোটি শ্রমিক ভাই-বোনেরা বিদেশে আছেন, তাদের চাকরি নিশ্চিত করা। এতদিন তারা আমাদের দেখাশোনা করেছে, সরকারের উচিত হবে কয়েক কোটি ডলার তাদেরকে পাঠানো, দেশগুলোর সাথে সমঝোতা করা।’

ভারতের করোনার টিকা বাংলাদেশে ট্রায়াল করা প্রসঙ্গে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ভারত তো অন্যের জন্য ঠিকাদারি করছে। ভারতের তো এটা নিজস্ব আবিষ্কার বা কিছু না। একটি আন্তর্জাতিক জায়গায় গেলেও ভারতীয়রা নিজেদের সবসময় ভারতীয় ভাবে, কিন্তু আমরা আমাদের আন্তর্জাতিক ভাবি। ফলে আমাদের স্বার্থ রক্ষা করতে পারি না আমরা।’

‘আমাদের স্বার্থ যে জোরেশোরে বলতে হবে, সেটায় ব্যর্থ হচ্ছি আমরা। এর একটা কারণ, আমাদের দেশে সুশাসন নেই, গণতন্ত্র নেই, আমি কথা বলতে পারছি না’- যোগ করেন তিনি।

সূত্র : ব্রেকিংনিউজ

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 44
    Shares