প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

করোনার টিকা সবাই যেন একসঙ্গে পায়: জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী

15
করোনার টিকা সবাই যেন একসঙ্গে পায়: জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

করোনার এই মহাদুর্যোগে পৃথিবীর সব মানুষের ভাগ্য ‘একই সূত্রে গাঁথা’। সেই বাস্তবতা বিশ্ব নেতাদের মনে করিয়ে দিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনার টিকা উদ্ভাবন সম্ভব হলে সব দেশের মানুষের হাতে তা পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বও বিশ্বকে নিতে হবে।

শনিবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনে দেওয়া বক্তৃতায় শেখ হাসিনা বলেন, “বিশ্ব শিগগিরই কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন পাবে, আশা করা হচ্ছে। এই ভ্যাকসিনকে বৈশ্বিক সম্পদ হিসেবে বিবেচনা করা প্রয়োজন। সকল দেশ যাতে এই ভ্যাকসিন সময় মত এবং একইসঙ্গে পায়, তা নিশ্চিত করতে হবে।”

টিকা তৈরির দৌড়ে এগিয়ে থাকা রাষ্ট্রগুলোকে প্রধানমন্ত্রী বার্তা দিয়েছেন যে কারিগরি জ্ঞান ও মেধাস্বত্ব দেওয়া হলে, এই ভ্যাকসিন ‘বিপুল পরিমাণে উৎপাদনের সক্ষমতা’ বাংলাদেশেরও রয়েছে।    

গত বছরের শেষে চীন থেকে ছড়াতে শুরু করে পুরো বিশ্ব দখল করে নেওয়া করোনা ইতোমধ্যে সোয়া তিন কোটি মানুষকে আক্রান্ত করেছে, মৃত্যু ঘটিয়েছে প্রায় দশ লাখ মানুষের। পৃথিবীর মানুষ এখন অপেক্ষা করছে টিকার জন্য, এর ওপরই নির্ভর করছে আগামী দিনের অনেক কিছু, আর ধনী-গরিব নির্বিশেষে সব দেশের জন্যই এটা সত্যি। 

করোনা ভাইরাসের কার্যকর টিকা তৈরির চেষ্টায় বিশ্বে এখন প্রায় দুইশ গবেষণা চলছে। এর মধ্যে আধা ডজন সম্ভাব্য টিকা পৌঁছেছে পরীক্ষার একেবারে শেষ পর্যায়ে। ধনী দেশগুলো বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের আগাম বুকিং দিয়ে রেখেছে, যাতে টিকা তৈরি হলে সবার আগে তা পাওয়া যায়।

এমনটা হলে গরিব দেশগুলো, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার একটি বড় অংশ যেসব দেশের বাসিন্দা, তাদের ভাগ্যে কী ঘটবে? কিছু দেশ টিকা পেলে আর অন্য দেশে মহামারী চলতে থাকলে বিশ্ব কী ভাইরাসমুক্ত হতে পারবে?

আরও পড়ুন:  ‘সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া কোভিড-১৯ টেস্ট ও চিকিৎসা নয়’

সেজন্যই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে এ বিশ্ব সংস্থার জন্ম ইতিহাস এবং ঐক্যের গুরুত্ব মনে করিয়ে দিয়ে বলেছেন, “দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যেমন জাতিসংঘ সৃষ্টির মাধ্যমে বিশ্বের সকল দেশের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসের উপর গুরুত্ব আরোপের সুযোগ সৃষ্টি করেছিল, তেমনি এই মহামারী আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে সঠিক নেতৃত্ব প্রদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি সামনে নিয়ে এসেছে।”

শেখ হাসিনা বলেন, “কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বিদ্যমান বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জসমূহ আরও প্রকট হয়েছে। এ মহামারী আমাদের উপলব্ধি করতে বাধ্য করেছে যে, এ সঙ্কট উত্তরণে বহুপাক্ষিকতাবাদের বিকল্প নেই।”

করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে জাতিসংঘের ৭৫ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম বিশ্ব নেতৃবৃন্দ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিচ্ছেন ‘ভার্চুয়ালি’। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও জাতিসংঘে তার ভাষণটি দিয়েছেন ধারণ করা ভিডিওর মাধ্যমে।

কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বিশ্ব এখন মানব ইতিহাসের এক ‘অভাবনীয় দুঃসময়’ অতিক্রম করছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি স্বাস্থ্যকর্মীসহ সকল পর্যায়ের জনসেবকদের, যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ও জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিয়ে চলেছেন। সাধুবাদ জানাই জাতিসংঘ মহাসচিবকে এই দুর্যোগকালে তার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও বহুপাক্ষিক উদ্যোগের জন্য। বাংলাদেশ শুরু থেকেই যুদ্ধ বিরতিসহ তার অন্যান্য উদ্যোগসমূহকে সমর্থন জানিয়ে আসছে।”

করোনা ভাইরাসের অভিঘাতে বাংলাদেশকে যে সঙ্কটের মোকাবেলা করতে হচ্ছে এবং সেখান থেকে উত্তরণে সরকার যেসব উদ্যোগ নিয়েছে, জাতিসংঘে দেওয়া ভাষণে তা সবিস্তারে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  বলেন, তার সরকার প্রথম থেকে জীবন ও জীবিকা দুই ক্ষেত্রেই ‘সমানভাবে গুরুত্ব দিয়ে’ কার্যক্রম শুরু করেছিল। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য, উৎপাদন যাতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে না পড়ে, সেজন্য প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ২১টি প্রণোদনা প্যাকেজে মোট ১৩.২৫ বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ অর্থের ব্যবস্থা করা হয়েছে, যা দেশের মোট জিডিপির ৪.০৩ শতাংশের সমান। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির পরিধি বৃদ্ধি করা হয়েছে ব্যাপকভাবে।

আরও পড়ুন:  গার্মেন্টস,শপিংমল খুলে দেওয়া হলে মসজিদ বন্ধ কেন?

তিনি বলেন, “সরকারি সহায়তার পাশাপাশি আমি নিজে উদ্যোগী হয়ে তহবিল সংগ্রহ করে এতিম ও গরীব শিক্ষার্থী, মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দির, স্কুল শিক্ষক, শিল্পী, সাংবাদিকসহ যারা সাধারণভাবে সরকারি সহায়তার আওতাভুক্ত নন, তাদের মধ্যে ২.৫ বিলিয়নের বেশি টাকা বিতরণ করি। যার ফলে সাধারণ মানুষকে করোনাভাইরাস খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারেনি।”

করোনা ভাইরাস যাতে ব্যাপকহারে ছড়াতে না পারে, সেজন্য সচেতনতামূলক প্রচার চালানোর পাশাপাশি সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যার সুফল হিসেবে আমরা লক্ষ্য করছি, ঋতু পরিবর্তনের ফলে আমাদের দেশে যেসব রোগের প্রাদুর্ভাব হয়, এবার সেসব রোগ তেমন একটা দেখা যাচ্ছে না।”

শেখ হাসিনা বলেন, এই মহামারির সঙ্কটে তার সরকার খাদ্য উৎপাদনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের শিল্প কারখানা সচল রাখা এবং কৃষি ও শিল্পপণ্য যথাযথভাবে বাজারজাতকরণের বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছি। তার ফলে বাংলাদেশের স্ব্যাস্থ্য ও অর্থনীতি ‘এখনও তুলনামূলকভাবে অনেক ভালো’ আছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর বিদ্যমান সমস্যাগুলো যে প্রতিনিয়ত ‘প্রকট হচ্ছে’ এবং মহামারীর এই সঙ্কটকালেও বাংলাদেশবে যে বন্যা ও ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলা করতে হয়েছে, সে কথাও বিশ্বনেতাদের সামনে তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।
নিউজটি পড়া হয়েছে 10036 বার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।