প্রচ্ছদ রাজনীতি আওয়ামী লীগ

ছাত্রলীগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তীব্র প্রতিক্রিয়া,নতুন করে ছাত্রলীগে শুদ্ধি অভিযান

84
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার পর আবার ছাত্রলীগে শুদ্ধি অ*ভিযানের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন যে, আবর্জনা পরিষ্কার করতে হবে। যারা এরকম ঘটনাগুলো যারা ঘটাচ্ছে তাঁদেরকে চিহ্নিত করতে হবে এবং এ*দের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। এইসমস্ত আবর্জনা দলে থাকার দরকার নেই বলে প্রধানমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো এই তথ্য জানিয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে প্রধানমন্ত্রী আজ এ ব্যাপারে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে, আমার ছাত্রলীগে যেসমস্ত অনুপ্রবেশকারী রয়েছে, অন্যদল থেকে যারা ছাত্রলীগে প্র*বেশ করেছে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানাচ্ছে যে, শোভন-রাব্বানির কমিটি হওয়ার আগেই ছাত্রলীগে অনেক জামাত-শিবির এবং ছাত্রদল থেকে অনুপ্রবেশকারী ঢোকার তথ্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দিয়েছিল গোয়েন্দা সংস্থা।

প্রা*য় দুই হাজারের বেশি অনুপ্রবেশকারী ছাত্রলীগে প্র*বেশ করেছিল এবং গোয়েন্দা তথ্যানুযায়ী এসমস্ত অনুপ্রবেশকারীরা ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন অ*পকর্মে জড়িয়ে পড়েছিল। একারণেই আওয়ামী সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী নিজ হাতে ছাত্রলীগের কমিটি ক*রার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। দীর্ঘ পরীক্ষা নীরিক্ষার পর তিনি শোভন-রাব্বানীর নেতৃত্বে ক*মিটি গঠন করেছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নে*তারা বলছেন যে, ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারীদের বিস্তৃতি এত তৃণমূল পর্যন্ত ছড়িয়ে পরেছে এবং অনুপ্রবেশকারিদের অবস্থান এত দৃঢ় যে চ*টজলদি করে উ*পড়ে ফেলা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন:  অবশেষে রাজনীতিতে আসছেন প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল?

অ*ন্যদিকে অনুপ্রবেশকারীদের প্ররোচণায় শোভন-রাব্বানী বিপদে পরেছে বলে অনেক আওয়ামী লীগ নেতা মনে করেন। আর এই প্রে*ক্ষিতে আওয়ামী লীগ শক্ত হাতে ছাত্রলীগে যা*রা অনুপ্রবেশকারী আছে তাদের বের করার উদ্যোগ নিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, আওয়ামী লীগ তিনমাসের একটা ক্র্যা*শ প্রোগ্রাম গ্রহণ করবে এবং এই তিনমাসের মধ্যে যারাই ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারী এবং যাদের বিরুদ্ধে ন্যুনতম অভিযগ আছে তাদেরকে ছাত্রলীগ থেকে বেvর করে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে, ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে যারা ব*দনাম করবে তাঁদেরকে ছাত্রলীগে দরকার নেই। তিনি বরং মেধাবী এবং প্রকৃত শিক্ষার্থী তাঁদেরকে ছাত্রলীগে নিয়ে আসার জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন, ছাত্রলীগে এরকম অ*নুপ্রবেশকারী এবং অ*নৈতিক ক*র্মকাণ্ডে জ*ড়িতদের সংখ্যা বেশি হয়ে যাওয়ার কারণে এখন মেধাবী ছেলেমেয়েরাও ছাত্রলীগে আসতে অনাগ্রহ প্রকাশ করছে।

আরও পড়ুন:  উত্তরাঞ্চলের আওয়ামী লীগ পরিবারের একজন ছাত্রলীগের সভাপতি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খুব শীঘ্রই ছাত্রলীগকে নির্দেশনা দিবো। কোন হল দখল করা যাবে না, মা*স্তানি করা যাবে না, কোন ব্যবসায়ীক ক*র্মকাণ্ডে জ*ড়িত থাকা যাবে না সহ বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়ে আমরা একটি কঠোর বার্তা ছাত্রলীগে দিবো। যেন এধরণের অ*পকর্মের দায়ভার ছাত্রলীগকে নিতে না হয়।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 265
    Shares