প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ আজকে বসন্তের কোকিলরা যদি দলের নেতৃত্ব নেয় ,আবারো দুর্যোগ আসতে পারে

আজকে বসন্তের কোকিলরা যদি দলের নেতৃত্ব নেয় ,আবারো দুর্যোগ আসতে পারে

941
পড়া যাবে: 7 মিনিটে
advertisement

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যারা দলের প্রভাব খাটিয়ে অ’বৈধপ’ন্থায় বিপুল সম্পদের মা’লিক হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অ্যা’কশন শুরু হয়ে গেছে। তার নির্দেশেই শু’দ্ধি অ’ভিযান শুরু হয়েছে। এ অভিযান শুধু ঢাকা সিটিতেই নয়, সারা বাংলাদেশে চলবে।

advertisement

রবিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ দল থেকেই শু’দ্ধি অ’ভিযান শুরু করেছেন। এই সৎসাহস তার আছে। বঙ্গবন্ধুত্তর বাংলাদেশে আর কোনো শাসক, আর কোনো প্রধানমন্ত্রী, আর কোনো রাষ্ট্রপতি এই সৎ সাহস দেখাতে পারেননি, যে নিজের দলের অপকর্মকারী, অপরাধীকে শাস্তি দিয়েছেন।

চলমান অভিযান নিয়ে হুঁ’শিয়ারি দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, স’ন্ত্রাসী’রা সাবধান! ভূমি দ’খলকা’রীরা সাবধান! জু’য়াড়ি’রা সাবধান! টে’ন্ডারবা’জরা সাবধান! চাঁ’দাবা’জরা সাবধান! মা’দক ব্যবসায়ীরা সাবধান! শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে। এই অ্যাকশনের টা’র্গেট থেকে কোনো অপকর্মকারী রেহাই পাবে না।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে বড় বড় কথা বলেন মির্জা ফখরুল সাহেব। বুকে হাত দিয়ে বলুন, হাওয়া ভবন, খাওয়া ভবন, লু’টেরা ভবন, সারা বাংলাদেশকে লুট করেছেন। খু’নে খু’নে বাংলাদেশ র’ক্তনদী হয়ে গেছে। লা’শে লা’শে বাংলাদেশ, লা’শের পাহাড় হয়ে গেছে। বিচার কি হয়েছে? শাস্তি কি কেউ পেয়েছে? আজকে বড় বড় কথা বলেন! গ’লাবাজি করেন!

ক্যা’সিনো প্রসঙ্গে কাদের বলেন, আজকে ক্যা’সিনোর কথা বলেন, গ’ডফাদারের কথা বলেন। এসবের সৃষ্টি কারা করেছে? বঙ্গবন্ধু ম’দ, জু’য়া আইন করে বন্ধ করেছিলেন। জিয়াউর রহমান সেটা চালু করেছেন। এ জু’য়ার স্রষ্টা হচ্ছেন আপনারা। ড্রা’গের দিকে এ দেশের তরুণদেরকে ঠেলে দিয়েছেন আপনারা।

আরও পড়ুন:  ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষনেতার দুদফা গোপন বৈঠক

বড় বড় কথা বলেন কোন মুখে! মির্জা ফখরুল সাহেব বলেন, সরকার আজকে খাদের কিনারে। আমি বলতে চাই, যে দলকে জে’ল, জু’লুম নি’র্যাতন করে আপনারা নিঃশেষ করতে পারেননি, যে দল বাংলাদেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে মিশে আছে সেই দল কোনো দিন খাদের কিনারে যাবে না। বিএনপিই আজকে গভীর খাদের কিনারে। আন্দোলনে ব্যর্থ, নির্বাচনে ব্যর্থ, সবকিছুতেই ব্যর্থ।

আওয়ামী লীগের নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব নিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ঘরের মধ্যে ঘর করবেন না। মশারির মধ্যে মশারি খাটাবেন না। দুসময়ের ত্যাগী নেতাকর্মীদের কোণঠাসা করে আওয়ামী লীগ টিকে থাকতে পারে না। আজকে বসন্তের কোকিলরা যদি দলের নেতৃত্ব নেয়, তারা যদি প্রাধান্য পায়, আবারো দুঃসময় আসতে পারে। আবারো দুর্যোগ আসতে পারে। আবারো অমানিশা আসতে পারে। সে সময় হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও এই সুবিধাবাদি অপকর্মকারীদের খুঁজে পাওয়া যাবে না।

তিনি বলেন, খারাপ লোকের আমাদের দরকার নেই। ক্লিন ই’মেজের পার্টি দরকার, আগামী জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে আমরা আমাদের দলকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন মডেলে ঢেলে সাজাতে চাই। আমরা ক্লিন ইমেজের নেতৃত্ব গড়ে তুলতে চাই সারাদেশে। খা’রাপ ইমেজের লোক, যাদের ভাবমূর্তি নেই, এই সব লোকদের দলে টেনে পাল্লা ভারি করে কোনো লাভ নেই। দুষ্টু গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল ভাল। আমার দুষ্টু গরুর দরকার নেই।

আগামী জাতীয় কাউন্সিলের আগেই সব মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলন করার তাগিদ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় কাউন্সিলের আগেই তৃণমূলের মেয়াদ উত্তীর্ণ সব কমিটি করতে হবে। এ নিয়ে কারও গাফিলতি সহ্য করা হবে না।

তিনি বলেন, যারা পদ পেয়ে ছাড়তে চান না তারা মনে রাখবেন আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনা ছাড়া আমরা কেউই অপরিহার্য নই। কোনো পদ কারও কাছে লীজ দেওয়া হয়নি। পরিষ্কার বলে দিতে চাই, আজকে প্র’ভাব খাটাবেন, জোর করে পদ দখল করে রাখবেন, মনে হয় যেন মৃ’ত্যুর আগে পদ ছাড়বেন না। এ রকম লোকও আছেন। আমরা স্মার্ট আওয়ামী লীগ চাই। আরও আধুনিক আওয়ামী লীগ চাই, বিশুদ্ধ আওয়ামী লীগ চাই। দূষিত রক্ত চাই না। দূষিত র’ক্ত বের করে দিয়ে আবার আওয়ামী লীগের সব পর্যায়ে বিশুদ্ধ র’ক্ত সঞ্চালন করতে হবে।

আরও পড়ুন:  ছয়টি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়নে কোন পরিবর্তন আসছেনা

সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান খান, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা এবং সদস্য মেরিনা জাহান।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় পরারাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনার এমপি গোলাম ফারুক প্রিন্স, রাজশাহীর এমপি এনামুল হক, আয়েন উদ্দিনসহ বিভাগের অন্যান্য আসনের এমপিরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা শিল্পকলা অ্যাকাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ সভায় আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের প্রতিটি জেলা, উপজেলা এবং পৌরসভা কমিটির সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক যোগ দেন। প্রতিটি জেলা থেকে একজন নেতা সংশ্লিষ্ট জেলা কমিটির বর্তমান পরিস্থিতিসহ সাংগঠনিক অবস্থান তুলে ধরেন। কেন্দ্রীয় নেতারা সেসব কথা শোনেন এবং বিভিন্ন সমস্যার সমাধান দেন। সভায় অংশগ্রহণকারী সবাই চলমান অভিযানকে স্বাগত জানান।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 69.1K
    Shares
advertisement