প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

‘বিজিবি কখনও কাউকে গুলি করে হত্যা করে না’

15
‘বিজিবি কখনও কাউকে গুলি করে হত্যা করে না’
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

সীমান্ত এলাকায় দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর সদস্যরা কখনও কাউকে গুলি করে হত্যা করে না বলে জানিয়েছেন বিজিবি সদর দপ্তরের পরিচালক (অপারেশন) লেফট্যানেন্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান।

বুধবার (৭ অক্টোবর) সকালে বিজিবি সদর দফতরে চলতি বছরের গত ৮ মাসের অভিযানে বাহিনীটির সাফল্যের দিক তুলে ধরতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

ফয়জুর রহমান বলেন, অনেক সময় অপরাধীরা অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ করে। তারপরও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অনেক শান্ত থাকে। কারণ, আমাদের উদ্দেশ্য থাকে অপরাধীকে গ্রেফতার করা। যখন অপরাধীরা গুলি ছুড়ে বা সেই ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তখন সরকারি জানমাল রক্ষার্থে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কিছু পদক্ষেপ নিতে হয়। সেই সময় গুলির ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। তবে সীমান্তে কোন অভিযানে গেলেই বিজিবি কাউকে গুলি করে হত্যা করে না।

গত ৬ মাসে বিজিবির সঙ্গে গোলাগুলিতে কতজন সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছেন-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি কোনো উত্তর দেননি।

তিনি বলেন, বিজিবি কখনো কাউকে গুলি করে না। আমরা সেভাবে প্রশিক্ষিত। এছাড়াও আমাদের নিজস্ব আইন রয়েছে। তাই বিজিবি কখনও চাইলে গুলি করে হত্যা করতে পারে না। আমাদের প্রতিটি সেক্টর অত্যন্ত গোছানো এবং নিশ্ছিদ্রভাবে পরিচালিত হয়। তাই অন্যান্য সময়ের তুলনায় বিজিবি এখন অত্যান্ত সুশৃঙ্খল একটি বাহিনী।

আরও পড়ুন:  ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের কথা ভাবছে সরকার : আইনমন্ত্রী

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন সীমান্তের উদ্ধার অভিযান সম্পর্কে সাংবাদিকদের বলেন, গত ৮ মাসে দেশের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় ৫ লাখ অভিযান চালিয়েছে বার্ডার গার্ড বাংলাদেশের সদস্যরা। এ সকল অভিযানে প্রায় ৩৭২ কোটি ১০ লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকারের চোরাচালান ও মাদক দ্রব্য জব্দ করা হয়।

বিজিবির জব্দ করা মাদক ও অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে,  ৬৭ লাখ ৫৮ হাজার ৫৬১ পিস ইয়াবা, প্রায় ৩ লাখ ২ হাজার  বোতল ফেনসিডিল, প্রায় ৫১ হাজার বিদেশী মদ, প্রায় ৬ ক্যান বিয়ার, প্রায় ৯ লাখ কেজি গাঁজা, ১৪ কেজি হেরোইন, ৩০ হাজার ৫৯৭টি যৌন উত্তেজক ইনজেকশন, ৪৬ হাজার ২১৯টি এ্যানেগ্রা/সেনেগ্রা ট্যাবলেট এবং ১৭ লাখ ৬৩ হাজার ৮৪৫টি অনানা ট্যাবলেট।

এছাড়া ২২টি পিস্তল, ১টি রিভলবার, ৪৫টি বিভিন্ন ধরণের গান, ২৭টি ম্যাগজিন, ১ হাজার ৯৭ রাউন্ড গুলি, ৮০০  গ্রাম গান পাউডার এবং ৪টি আইইডি।

এছাড়া চোরাচালানে আসা বিভিন্ন পণ্যের মধ্যে রয়েছে, ৩৭ হাজার ১৪১ কেজি স্বর্ণ, ২০২ কেজি রূপা, ৫ হাজার ৮১১টি ইমিটেশনের গহনা, ৬০ লাখ ৪২৯টি বিভিন্ন কসমেটিকস সামগ্রী, ১২ হাজার ৬০০ শাড়ি, ৮ হাজার ৭৭টি থ্রি পিস, ৩ হাজার ৪৭৫টি তৈরী পোশাক, ৬২২ মিটার থান কাপড়, ৮ কোটি ৮৪ লাখ ৯৫ হাজার ১৩০ ঘনফুট কাঠ, ৩৮ লাখ ১২ হাজার ৮২ কেজি চা পাতা, ১১ লাখ ৭ হাজার ১৭৫ কেজি কয়লা, ৩২টি ট্রাক, ১৮টি প্রাইভেটকার, ২৭টি পিকআপ, ১৫১টি সিএনজি এবং ৫৬১টি মোটর সাইকেল জব্দ করা হয়।

আরও পড়ুন:  নারী নির্যাতনকারীরা রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় সক্রিয়: সুজন

এই সকল মাদক, অস্ত্র ও চোরাই মালামালসহ চোরাচালানে জড়িত থাকার অভিযোগে ২ হাজার ৬৩ জন চোরাকারবারী এবং অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ৩৪৪ জন বাংলাদেশী নাগরিক ও ৯৬ জন ভারতীয় নাগরিককে আটক করা হয়েছে।
নিউজটি পড়া হয়েছে 24 বার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 4
    Shares