প্রচ্ছদ স্বাস্থ্য

রুই মাছ খেলেই কমবে স্ট্রো’কের ঝুঁ’কি, জানুন কতটুকু খাবেন

19
রুই মাছ খেলেই কমবে স্ট্রো’কের ঝুঁ’কি, জানুন কতটুকু খাবেন
পড়া যাবে: < 1 minute

মাছে ভাতে বাঙালি। প্রতিদিনের আহারে বাঙালির পাতে মাছ থাকা চাই। আর মাছের মধ্যে রুই তো সবারই পছন্দের। রুই একটি অতিপরিচিত মাছ। তবে জানেন কি? শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে এই মাছের তুলনা হয় না।

এই মাছে ক্যালোরির পরিমাণ থাকে খুবই কম। যারা অতিরিক্ত ওজন নিয়ে চিন্তিত, তারা কিন্তু ডায়েটে এই মাছ খেতে পারেন।

রুই মাছের তেলে থাকা ওমেগা থ্রি নামক অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড, যা র’ক্তের ক্ষ’তিকারক কোলেস্টেরল এলডিএল ও ভিএলডিএল কমায় এবং উপকারী কোলেস্টেরল এইচডিএলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়, ফলে হৃদযন্ত্রে চর্বি জমতে পারে না।

আমেরিকার স্কুল অব নিউট্রিশনের জার্নাল অনুযায়ী, এই মাছ উচ্চ র’ক্তচাপের ঝুঁকি কমায় এবং উচ্চ র’ক্তচাপ থাকলে তা কমাতেও সাহায্য করে।

আরও পড়ুন:  কান খুঁচিয়ে বিপদ ডেকে আনছেন না তো!

ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োলজিকাল ইনফর্মেশনের তথ্যানুযায়ী, ওমেগা থ্রি র’ক্তের অণুচক্রিকাকে জমাট বাঁধতে দেয় না। ফলে র’ক্তনালিতে জমাট বাঁধার কারণে স্ট্রোক হয় না। স্ট্রোক প্রতিরোধে রুই মাছের ভূমিকার কথা উল্লেখ রয়েছে বেশ কয়েকটি গবেষণাপত্রেও।

পুষ্টিবিদদের মতে, ভালো মানের প্রোটিনের অন্যতম উৎস এই মাছ।

যেসব পুষ্টিকর উপাদান থাকে এই মাছে- ভিটামিন এ, ডি, ই রয়েছে রুই মাছে। এছাড়াও ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক, সোডিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন ও খনিজে ভরপুর এই মাছ। পুষ্টিবিদদের মত, রুই মাছে কোলিন নামের একটি পদার্থ থাকে।

প্রয়োজনীয় এই পুষ্টি সম্প্রতি আবি’ষ্কার হয়েছে, এটি ডিএনএ সংশ্লেষে সাহায্য করে। স্নায়ুতন্ত্র, ফ্যাটের বিপাক ক্রিয়া এবং পরিবহণে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন:  নিয়’মিত কাঁ’চা ম’রিচ খাও’য়ার ১০টি অসা’ধারন উপ’কার জেনে নিন

স্বাস্থ্যের জন্য ভালো বলে আবার অিতিরিক্ত রুই মাছ খাওয়া যাব’ে না। ভারসাম্য রেখে খাওয়ার বি’ষয়ে জোর দিচ্ছেন পুষ্টিবিদরা। তাদের মতে, দৈনিক রুই মাছের একটা বড় টুকরাই যথেষ্ট একজন মানুষের জন্য।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।